ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • একটু সক্রিয় হোন 

    Emanul Haque লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৩ জুন ২০২২ | ৫২৯ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • আর এস এসের মুসলিম সংগঠন রাষ্ট্রীয় মুসলিম মঞ্চ নাচাচ্ছে, কিছু ইমাম বিক্রি হয়ে গেছেন বা রাজনৈতিক নেতাদের চেয়েও তারা বেশি ক্ষমতাশালী প্রমাণ করতে জমায়েতের ডাক দিচ্ছেন।  তার মধ্যে কয়েকটি জমায়েত থেকে সংঘ পরিবারের লোক টুপি পরে বা কিছু অপরিণত মস্তিষ্ক বা কিছু অতি উৎসাহী  বা কিছু টাকা খাওয়া মুসলিম দুষ্কৃতি অশান্তি পাকাচ্ছে। 
    কোথাও অনেকে মিলে অবরোধ করছে ট্রেন, জাতীয় সড়ক। 
    বদনাম হচ্ছে, সমগ্র মুসলমানদের।
     
     
    দল মত  নির্বিশেষে ধর্মনিরপেক্ষ রাজনৈতিক নেতৃত্ব সক্রিয় হোন। বাংলাকে আসন্ন প্রলয় থেকে বাঁচতেই হবে।
    বিজেপি চায় সমাজ হিন্দু মুসলমানে ভাগ হয়ে যাক।
    কিছু ইমাম বুঝে বা না বুঝে সেই কাজটাই করছেন।
    বিভিন্ন উপদলে বিভক্ত কিছু অপরিণত মস্তিষ্ক আরো বড় নেতা হওয়ার বাসনায় এতে যোগ দিচ্ছেন।
     
    #
    ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে খুব।
    আমি প্রতিবাদ করার বিরোধী নই।
    এন আর সি ক্যা-- ইস্যুতে দলমত ধর্ম নির্বিশেষে মানুষের মিছিল হয়েছিল। তাই কোনো দাঙ্গা বাধাতে পারেনি কেউ।
    এখন শুধু মুসলিমদের মিছিল হচ্ছে। 
    এটাই বিজেপি ও সংঘ পরিবার চায়।
    হজরত মহম্মদের অপমানে ধর্মনিরপেক্ষ মানুষ ক্ষুব্ধ। শুধু মুসলিমরা নয়।
    আরব দুনিয়ার বয়কট ও প্রতিবাদে বিজেপি আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে এই প্রথম বিপদে পড়েছে।
    তা থেকে উদ্ধার করতেই এই মুসলিম মুসলিম খেলা।
    কাশ্মীর নিয়ে ইমামরা  চুপ ছিলেন। মিছিল করেননি। বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে ঘর।
    ইমামরা মিছিল করেননি।
    জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে আক্রমণ হয়েছে, শাহিনবাগে আক্রমণ হয়েছে -- ইমামরা পথে নামতে বলেননি।
    আন্দোলন সংগ্রাম মিছিল করেছেন ধর্মনিরপেক্ষ মানুষের দল।
    নবীজির অপমানে যন্ত্রণা স্বাভাবিক।

    কিন্তু নবীজি নিজে বেঁচে থাকলেও এইভাবে মিছিল করতে দিতেন না।
    এক বৃদ্ধা তাঁর চলার পথে কাঁটা বিছিয়ে রাখতেন, কোনোদিন কাউকে বলেননি, ওঁকে সমঝে দিয়ে এসো। বরং একদিন কাঁটা বিছানো নেই দেখে তাঁর ঘরে খোঁজ নেন। দেখেন বৃদ্ধা অসুস্থ। চিকিৎসার ব্যবস্থা করলেন। বৃদ্ধা অভিভূত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।
    ইসলামের তীব্র বিরোধী সেকালে বিখ্যাত কবি  ক্কাব একদিন নবীজিকে হত্যা করবেন বলে একটা তরবারি নিয়ে উদাত্ত কন্ঠে নবীজির বিরোধী কবিতা বলতে বলতে রাস্তায় মানুষকে উত্তেজিত করতে অগ্রসর হচ্ছেন।
    হঠাৎ দেখলেন একজন এসে তাঁর মাথায় পাগড়ি পরিয়ে দিলেন?
    কে তিনি?
    হজরত মহম্মদ (সা:)।
    আমি তো আপনাকেই হত্যা করার জন্য কবিতা বলে লোককে উত্তেজিত করছি। বললেন ক্কাব। 
    --আমি তো কবিতার শব্দচয়ন, নির্মিতি, উচ্চারণে মুগ্ধ। কবিতার বিষয় নিয়ে মাথা ঘামাই নি।
     কবি ক্কাব বিস্মিত। হতবাক। পরে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।
    এসব তো ইতিহাসকাররা লিখে গেছেন।
    একবার ভাবুন, সংখ্যাগুরু হিন্দু সম্প্রদায়ের এলাকায় আপনি বাস করেন, সেখান দিয়ে গেরুয়া পতাকা নিয়ে জয় শ্রীরাম শ্লোগান দিয়ে মিছিল যাচ্ছে, আপনি আতঙ্কিত হবেন কিনা?
    ঠিক একই ভাবে সংখ্যালঘু সম্প্রদায় অধ্যুষিত এলাকায় আপনি যখন  নারায়ের তকদির, আল্লাহো আকবর, শ্লোগান দিয়ে টুপি পরে মিছিল বের করেন, শত শত মানুষ মিলে, কী অনুভূতি হয় একজন হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের।

    ধর্মনিরপেক্ষ দেশ।
    ধর্মনিরপেক্ষ শ্লোগান দিন।
    প্রতিবাদ হোক সম্মিলিত ধর্মনিরপেক্ষ মানুষের।
    কোনো বিশেষ ধর্ম একা একা লড়াই করে বাঁচতে পারবে না।
    ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।
    বিচ্ছিন্ন হবেন না। বিচ্ছিন্ন হওয়ার ডাকে সাড়া দেবেন না।
    কেউ বড় নেতা হওয়ার বাসনায়, কেউ দাদাগিরি করতে, কেউ একটূ বেশি আবেগে, কেউ গোপনে পয়সা খেয়ে, আর এস এসের রাষ্ট্রীয় মুসলিম মঞ্চের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে।
    সাবধান।
    কয়েকদিন বড় জমায়েত করবেন না।
    আর শুধু ধর্মের তো নয়ই।
    ধর্মনিরপেক্ষ দেশ।
    ধর্মনিরপেক্ষ শক্তি মিলে প্রতিবাদ করুন।
    এখনো বহু মানুষ অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষ চেতনার আছেন।
    তাঁদের সঙ্গে কথা বলুন, পরামর্শ করুন।
    কিছু ধর্মব্যবসায়ীর কথায় ভুলে নিজের ও পরিবারের এবং মুসলিম সম্প্রদায়ের বা সামগ্রিকভাবে দেশের সংকট বাড়াবেন না।
    দোহাই।
    ২৭ মে বলেছিলেন একজন বিজেপি নেত্রী, এতদিন পর মিছিল সভা কেন? বুঝছেন না? বিজেপি বিপদে পড়ার পর ওই মহিলা যে আসলে ঠিক, যোগীই ঠিক করছে, তা প্রমাণ করাতেই মিছিল ও অশান্তির পরিকল্পিত আয়োজন।

    আপনি বোড়ে হয়ে যাচ্ছেন।
    দাবার বোড়ে।

    চালটা দিচ্ছে রাষ্ট্রীয় মুসলিম মঞ্চ।  আর তাঁদের হয়ে কাজ করছে কয়েকটি বিজেপির বন্ধু 'মুসলিম' সংগঠন।

    পুনশ্চ:
     মুসলিমদের ওপর আক্রমণ হলে এতদিন পশ্চিমবঙ্গে কারা প্রতিবাদ করেছেন? মুসলমানরা?
    বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পর কারা মিছিল করেছিলেন?

    গুজরাট গণহত্যার সময় কারা পথে ছিলেন? কারা ত্রাণ তুলে গুজরাট গিয়েছিলেন?

    দিল্লিতে জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে, বা, শাহিনবাগে আক্রমণের পর?
    এন আর সি, ক্যা নিয়ে আন্দোলনে?

    শুধু মুসলমানরা পথে নামলে বিজেপির লাভ।
     
    পুনশ্চের পরে: 
     
     ইদানীং ধর্মনিরপেক্ষ শক্তি একটু গাছাড়া ভাব দিচ্ছে। 
    বাবরি মসজিদের জমি কেড়ে নেওয়া হল, ২০ কোটি মুসলিমকে গণহত্যার ডাক দেওয়া হল ধর্মসংসদ থেকে, জ্ঞানবাপী মসজিদ নিয়ে বিতর্ক তৈরি করা হল, কাশ্মীরে মানবাধিকার বলে কিছু নেই হাজার হাজার মানুষ বন্দি, সাংবাদিকদের জেলে পাঠানো হয়েছে, উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশে, গুজরাটে প্রতিবাদ করলেই হিংসা ছড়ানোর মিথ্যা অভিযোগে বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে ঘর, আইনের শাসন বলে কিছু নেই, প্রতিবাদী কন্ঠদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, রামনবমী মানেই মসজিদের সামনে বা মুসলিম মহল্লায় গিয়ে প্ররোচনামূলক শ্লোগান ও হামলা -- পোশাক দেখে পিটিয়ে মারা হচ্ছে, গুরগাঁও সহ বহু জায়গায় বহুদিন ধরে চলে আসা নামাজের জায়গা কেড়ে নেওয়া হচ্ছে, মুসলিম ছাত্রীদের পোশাকের নামে হেনস্থা করা হচ্ছে, চাকরি বাকরি দেওয়া হচ্ছে না--- ধর্মনিরপেক্ষ শক্তি চুপ। কোনো মিছিল মিটিং সভা নেই এই নিয়ে।
     
    এটা বেদনার।
    তাঁদের সক্রিয়তা দরকার।
    খুবই দরকার।
    না হলে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের নামে মৌলবাদী শক্তি মুসলিম সম্প্রদায়ের মুখ হয়ে যাবে।
    বাবরি মসজিদের জমি কেড়ে নেওয়া, জ্ঞানবাপী মসজিদ, কাশ্মীর, বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে ঘর-- ধর্মনিরপেক্ষ শক্তি চুপ।
    এটা বেদনার।
    তাঁদের সক্রিয়তা দরকার।
    খুবই দরকার।
    না হলে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের নামে মৌলবাদী শক্তি মুসলিম সম্প্রদায়ের মুখ হয়ে যাবে।


     
    মুসলিমদের হয়ে যাঁরা সভা-সমাবেশ ৯ জুনের পর থেকে শুরু করেছেন তাঁদের কাছে বিনীত আবেদন:
     চারদিকের পরিস্থিতি ভালো নয়। এই সময় কলকাতায় বা অন্যত্র  বড় জমায়েত করাটা বিপজ্জনক হয়ে যেতে পারে। সঙ্ঘ পরিবারের লোকরা দলে ভিড়ে গিয়ে কোনো ঘটনা ঘটালে সমস্ত দায় পড়বে আপনাদের উপর।
    সাম্প্রদায়িক শক্তি বেকায়দায় পড়েছে। আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে। 
    তাই মরিয়া দাঙ্গা বাধাতে।
    দয়া করে ওদের সুযোগ করে দেবেন না।
    কিছু অবাঞ্ছিত ঘটনা ঘটছে। যা ইসলামি আদর্শের পরিপন্থী।

    জানি, প্রবল অত্যাচার হচ্ছে দেশ জুড়ে।
    কিন্তু তখন তো করেননি।
    এখন কয়েকটি দিন অন্তত বিরত থাকুন।
    পরিস্থিতি স্বাভাবিক হোক।
    রাজনৈতিক দলগুলো সভা-সমাবেশ করুক এই বিষয়ে। তাঁদেরও দায় আছে সংখ্যালঘু ও দলিতদের পাশে থাকার।
     তাতে অন্তত ধর্মের রঙ লাগবে না।
    অত্যাচার মুসলমানদের ওপর হচ্ছে, হচ্ছে দলিতদের ওপর। 
    একজোট হয়ে আন্দোলন করুন।
    একা মুসলমানরা নিজেদের রক্ষা করতে পারবে না।
    ঐক্যবদ্ধ প্রতিবাদ দরকার।
     
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • hehe | 2405:8100:8000:5ca1::138:8192 | ১৩ জুন ২০২২ ০৯:৩৯508954
  • আপনি জাস্টিফিকেশন পড়েন নাই? নিজেদের যারা ধর্মনিরপেক্ষ বলে থাকে, তারাই নামাচ্ছে তো। তারাও ছুপা বিজেপি হতেই পারে।
  • Amit | 120.16.21.212 | ১৩ জুন ২০২২ ১১:২৭508956
  • এতক্ষন পরে একটা সেনসিবল লেখা এলো এটা নিয়ে। গতকদিন  সিউডো সেক্যুলার দের এই ইস্যুটা নিয়ে গুচ্ছের ন্যাকাপনা দেখে হেজে যাচ্ছিলো সব।  
  • hirak sengupta | ১৩ জুন ২০২২ ১২:৩৭508959
  • উইঘুর সম্পর্কে কিছু নেই কেন?  
  • aranya | 2601:84:4600:5410:304a:e90d:abfa:1382 | ১৩ জুন ২০২২ ২১:১৭508971
  • ভাল লেখা 
  • সৃষ্টিছাড়া | 2405:201:a41e:a0ac:9dfa:1b49:126b:5ee2 | ১৪ জুন ২০২২ ১১:৩৮508996
  • সম্পূর্ণ সাম্প্রদায়িক লেখা তবে একে বলে রাজনৈতিক সাম্প্রদায়িকতা। লেখক তাঁর মেরুদন্ড টি বাঁধা রেখেছেন, বাংলার শাসক প্রধানের পডমুলে
  • Swapan Sengupta | ১৪ জুন ২০২২ ১২:৫৯508998
  • অনেক ধন্যবাদ এমন একটি প্রয়োজনীয় লেখার জন্য !
    আমরা, যারা বুড়ো হয়েছি, সবমিলিয়ে খুব কষ্ট পাচ্ছি !!!
    একটা কথা, খোলামেলা বলি, আমার মাঝে মাঝে মনে হয়, একটা সাংস্কৃতিক মঞ্চ হলে বেশ হয় !
    ৪০ এর দশকের মত, এই মঞ্চ গ্রাম, শহর বন্দরে এই ঘৃণার রাজনীতির বিরুদ্ধে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড নিয়ে ঘুরে বেড়াবে !
    চিত্র প্রদর্শনী, মানুষের গান, প্রতিবাদী নাটক মায় শর্ট ফিল্ম নিয়েও !!!!!!!
    আপাতত পশ্চিমবঙ্গ , তারপর সমস্ত দেশে ছড়িয়ে পড়বে এই আন্দোলন !!!
    গুরু '  নেতৃত্ব দিলে খুব, খুব ভালো হয় !!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে মতামত দিন