ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • ভোট পালালে বুদ্ধি বাড়ে! এখন মোদীকে দুষে কী লাভ?

    বন মানুষ লেখকের গ্রাহক হোন
    ২০ মে ২০২১ | ৭২৯ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • ভোট মিটে গিয়েছে। মোদী-শাহের আর দেখা নেই। গত দুই-তিন মাস যেভাবে মোদী-শাহ নিয়মকরে বাংলায় ঘুরে গিয়েছেন, মনে হয়েছিল তাঁদের মতো বঙ্গপ্রেমী আর দুটি নাই। ভোট শেষ, তাঁরাও ডুমুরের ফুল। আসলে, এই মুহূর্তে বঙ্গে বড় কিছু হেতু নেই। আপনি বলবেন, ক্রমহ্রাসমান করোনা পরিস্থিতি কি সেই হেতুর মধ্যে পড়ে না। ভোটের থেকে বড় কিছু নয়। ভোট হল এমন মোহ, সেখানে সব কিছুর মাফ আছে। ভালবাসা আর যুদ্ধে এত দিন সব ভুল মাফ ছিল। বাংলার নির্বাচনের পর মনে হয়েছে, ভোটেও যা কিছু করা যায়, তার জন্য সব মাফ হয়ে যায়। ভোট প্রচারে এই লাখো লাখো লোকের সমাহারে করোনা পরিস্থিতি কি আরও ভয়ঙ্কর হবে না? প্রশ্ন শুনে অমিত শাহের জবাব ছিল, মহারাষ্ট্র, দিল্লিতে তো ভোট নেই। তাহলে সেখানে কী করে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে। দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এই জবাব শুধু বিস্ময়ের নয়, নির্বুদ্ধিতার পরিচয় দেয়। ভোট শেষ হওয়ার একমাসের মধ্যেই তার প্রমাণ মিলল। গোটা দেশের সংক্রমণের হার বঙ্গে সব থেকে বেশি! এবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কী বলবেন? 


    অবাধ ভোট প্রচার হওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা হওয়া উচিত বলে জানিয়েছিল মাদ্রাজ আদালত। তাতে গোঁসা হয় নির্বাচন কমিশনের।  ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যৎ অন্ধকার করে দিয়ে  যেখানে স্কুল-কলেজের পড়াশুনা বন্ধ হচ্ছে, শ্রমিকদের ভাতে মেরে কল-কারখানার উৎপাদন বন্ধ হচ্ছে; নির্বাচন কী এমন বিষয় যা এই মহামারিতেও রাশ টানা গেল না। নর্মাল পরিস্থিতিতে আর পাঁচটা নির্বাচন হওয়ার মতোই ৫ রাজ্যের নির্বাচন হল। প্রত্যেক রাজনৈতিক দল উল্লাসে মেতে উঠল। লাখো লাখো লোক জোড়ো করে রোড-শো, জনসভা হল। করোনার দ্বিতীয় ওয়েভ ততক্ষণে তীরে এসে গোঙাচ্ছে।  আর বিপুল জনস্রোতের ঢেউয়ে নিজেদের ভিজিয়ে নিতে মেতে উঠেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। কম যাননি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সব রাজনৈতিক দল সমান দোষে দুষ্ট। তাদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা হবে না কেন? 


    ফল ঘোষণার এক সপ্তাহের মধ্যে কেন বাংলাকে লকডাউনে যেতে হল? কোনও সাংবাদিক কি প্রশ্ন করেছেন মুখ্যমন্ত্রীকে? এত দিন তাঁর দল রাজপথে লাখো লাখো লোক নামিয়ে উল্লাস করে বেরিয়েছে। এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি হওয়ার জন্য তিনি কি দায়ী নন? নির্দিষ্টভাবে একজোট হয়ে সংবাদ মাধ্যম কি এই প্রশ্ন করেছেন মুখ্যমন্ত্রীকে? অর্থাৎ গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ তার দায়িত্বটুকু পালন করেনি। যখন মমতা, মোদী, শাহ লাখো লাখো মানুষের সামনে বক্তৃতা দিচ্ছেন, জনপ্লাবন দেখে গদগদ হয়ে উঠেছেন, সংবাদমাধ্যমের হেডলাইনে করোনা বিধি উধাওয়ের ছিটে ফোঁটা শ্লেষ দেখতে পাওয়া যায়নি। প্রশ্ন তুলতে সাহস পায়নি সংবাদমাধ্যম। যদি বিজ্ঞাপন কমে যায়!


    আর শেষে পড়ে রইল সব জান্তা জনগণ। আমরা নিজেরা কী দিয়ে যে তৈরি! এই নেতাদের জনসভায় ভিড় করে কী পেয়েছেন? কিসের আবেগ? রাজ্যে যে সরকারই আসুক না কেন, রাতারাতি আপনি কী সুবিধা পেয়ে যেতেন, যে তার লোভে সেদিন ভিড় জমিয়েছিলেন? আর যদি আবেগেই হয়, দেশের আবেগ কি তার চেয়ে ছোট হয়ে গেল? কথা ছিল, জনগণ সরকার চালাবে। আজ করোনা আঙুল দিয়ে বুঝিয়ে দিল, যেমন জনগণ, তার তেমন সরকার! আর তেমন ফল! এখন মোদীকে দুষে কী লাভ?

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বিপ্লব রহমান | ২১ মে ২০২১ ০৬:৪৫106222
  • "সব রাজনৈতিক দল সমান দোষে দুষ্ট। তাদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা হবে না কেন? 


    ফল ঘোষণার এক সপ্তাহের মধ্যে কেন বাংলাকে লকডাউনে যেতে হল? কোনও সাংবাদিক কি প্রশ্ন করেছেন মুখ্যমন্ত্রীকে? এত দিন তাঁর দল রাজপথে লাখো লাখো লোক নামিয়ে উল্লাস করে বেরিয়েছে। এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি হওয়ার জন্য তিনি কি দায়ী নন?"  


    একদম মৌলিক প্রশ্ন। চলুক 

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল প্রতিক্রিয়া দিন