• বুলবুলভাজা  পড়াবই  সীমানা ছাড়িয়ে

  • যেন-বা আমারই আয়নায় তাকিয়ে রয়েছি

    হিন্দোল ভট্টাচার্য
    পড়াবই | সীমানা ছাড়িয়ে | ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৩৯০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ক্লাউস ডেমুজ। জার্মানির সাহিত্যিক। আধুনিক মরমিয়া কবি। প্রায়শই উপেক্ষিত। শান্ত, সমাহিত স্বর। তাঁর কবিতা পড়লেন ও জার্মান থেকে তরজমা করলেন কবি হিন্দোল ভট্টাচার্য


    ১৯৫১ সালে পাউল সেলান ক্লাউস ডেমুজকে বলেছিলেন তাঁর একমাত্র বন্ধু। পাউল এবং ক্লাউস-এর বন্ধুত্বের কথা ইয়োরোপের সাহিত্যজগতে সুবিদিত। সেলান তাঁর ‘দ্য জগ’ নামক কবিতাটি উৎসর্গ করেছিলেন ক্লাউস ডেমুজকেই। ক্লাউস এবং তাঁর স্ত্রী ন্যানির সঙ্গে পাউলের বন্ধুত্ব ছিল গভীর।



    কবি ক্লাউস ডেমুজ ও পাউল সেলান (ডান দিকে)


    ১৯২৭ সালে জন্ম এই শিল্পবিষয়ক ইতিহাসবিদ কবি ক্লাউস ডেমুজের। তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলেন অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায়। আর্ট-হিস্টোরিয়ান এবং কিউরেটর হিসেবে তিনি ভিয়েনাতেই বেশির ভাগ সময় কাটান। জার্মান কবিতার ইতিহাসে ক্লাউস ডেমুজ একদমই অন্যরকম এক কবি। বিশেষ করে, যখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা চলছে, তখনও তিনি তাঁর মনের স্থিরবিন্দুতেই অবস্থান করতেন। একপ্রকার মহাজাগতিক মরমিয়াবাদ তাঁর মনের মধ্যে সবসময়ই কাজ করত। যার ফলে, তিনি সবকিছুর মধ্যে থেকেও, সবকিছুর থেকে আলাদা থাকতে চাইতেন। তাঁর কবিতায় তাই একপ্রকার মিস্টিক পরিবেশ তৈরি হয়। হয়তো, অস্তিত্ববাদের যে আধুনিকতা ইয়োরোপে বিস্তার লাভ করছিল তখন, তা তাঁকে স্পর্শ করতে পারেনি। তাই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তর জার্মানিতে তাঁর কবিতা একেবারেই ব্যতিক্রমী।

    ১৯৫৮ সালে প্রকাশিত হয় তাঁর প্রথম কবিতার বই। কিন্তু তাঁর কবিতার অন্তর্নিহিত শান্ত স্বরের জন্যই হয়তো সমসময়ে খুব বেশি আলোচিত হননি। এমনকি, খুব বেশি কবিতা-সংকলন ও অ্যান্থোলজিতেও তাঁর কবিতা বা নাম অন্তর্ভুক্ত হত না। ১৯৫৮ সালে তাঁর প্রথম কবিতার বই ‘দ্য হেভি কান্ট্রি’ প্রকাশিত হওয়ার পরে আবার ১৯৬৯ সালে প্রকাশ পায় তাঁর কাব্যগ্রন্থ ‘টুমরো নাইট’। এর পর ১৯৭৪ সালে প্রকাশিত হয় ‘ইন দ্য নিউ সাইলেন্স’ বা ‘ নতুন নীরবতায়’। ২০১৭ সাল অবধি তাঁর ১৮টি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে।

    বোধিবৃক্ষ

    যতটা গভীরে যাওয়া যায়
    গাছের শিকড়গুলি
    তত দূরে গেছে।
    গাছের শীর্ষ
    নিজেই ভেবেছে সে-ই
    নক্ষত্র, আলোর মতো।
    যেন বা তারই মধ্যে
    সূর্যের ঘূর্ণনপথ
    চাঁদের বাড়িও
    সেখানেই ঝুলে আছে
    সাদা সাদা ফেনায়
    গভীর স্বপ্নের মতো।
    নিজেরই আকর্ষণে
    নিজেরই ভিতরে ঘুরে
    আত্মার পুনর্জন্মে
    তারা ঘুরে চলে।

    --

    দিনরাত্রি থেকে

    চড়াইয়ে, জঙ্গলে
    দেবদারু গাছের ভিতর
    বরফ পড়ছে।
    দীর্ঘ দীর্ঘতম জঙ্গল
    মিশে গেছে মেঘের
    দরজায়।
    ক্রিভার্স, গভীর ও খাড়া।
    হিমবাহ উজ্জ্বলতর।

    ধূসর, তোমায় দেখি
    রাতের আগেই কুয়াশায়
    একা। গোধূলির মতো
    শান্ত।

    ---

    নতুন নীরবতায়

    আমি তোমার সঙ্গে
    এক নদী সাঁতরে যেতে যেতে
    বরফের মধ্যে
    হারিয়ে গেছি।
    এখানে, কুয়াশার মধ্যে
    স্রোত ভেসে যায়।
    দূরে গাছেদের মধ্যে
    শীর্ণ ওই রাস্তা দিয়ে
    হেঁটে গেছ তুমিও।

    --
    বিদ্যুৎ

    যখন তোমার কথা মনে পড়ে
    শীতের ভিতর
    দেখি আগুনের মতো চোখ
    আমায় তাড়া করে বেড়াচ্ছে।
    সন্ধেবেলার দিকে
    বারবার ছুটে আসছে কিশোর।
    যেন-বা আমারই আয়নায়
    তাকিয়ে রয়েছি।

    --
    আশ্রয়

    ভেঙে যায় যখন
    ওই মাটি
    আত্মা উঠে আসে
    কয়েক শতাব্দীর।
    যখন
    তোমার কেউ নেই
    তখন
    গাছের কথা ভেব।
    কারণ তখন
    তোমার সত্যিই
    কেউ নেই।




    German Poetry (1910 – 1975)
    Editor: Michael Hamburger
    Carcanet Press Ltd.
    Rs. 2892


    অনলাইন কেনা যেতে পারে এখানে—https://www.amazon.in/German-Poetry-1910-75-Michael-Hamburger/dp/085635161X

    গ্রাফিক্স: মনোনীতা কাঁড়ার
  • বিভাগ : পড়াবই | ১১ এপ্রিল ২০২১ | ৩৯০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • মহুয়া বৈদ্য | 2409:4060:2e92:cca1:774b:114c:1596:1ec0 | ১১ এপ্রিল ২০২১ ০৭:৫২104630
  • পড়লাম।ভালো লাগলো।

  • শীর্ষা | 2409:4061:2c98:84d5:378f:261a:588b:1fa6 | ১৮ এপ্রিল ২০২১ ০৯:৩৯104855
  •  ভালো লাগল। জার্মান কবির কবিতা পড়তে পাওয়া সৌভাগ্যবিশেষ। হিন্দোলদাকে অনেক ধন্যবাদ ও ভালোবাসা।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন