• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • এটা সামাজিক দূরত্বের সময় নয়

    উজ্জয়িনী আইচ
    বিভাগ : আলোচনা | ১০ মে ২০২০ | ৩৫৭ বার পঠিত
  • সামাজিক দূরত্ব এই শব্দের ব্যাপ্তি বিরাট, শুধু পারস্পরিক শারীরিক দূরত্ব এই কথার অর্থ নয় । ডাবলু.এইচ.ও-র নির্দেশিকা অনুযায়ী ভারতীয় প্রশাসন সোশাল ডিসটেনসিংকে করোনা মোকাবিলার মুখ্য হাতিয়ার করেছে। নির্দিষ্ট ওষুধ, সঠিক চিকিৎসা কার্যপ্রণালী বা করোনা প্রতিরোধকারী ভ্যাকসিন না থাকার ফলে সংক্রমণকে শিথিল করা আর আক্রান্ত মানুষকে সম্পূর্ণ সুস্থ করে তোলা এখন করোনা মোকাবিলার একমাত্র উপায় হয়ে দাড়িয়েছে। সামাজিক আদান-প্রদান বা সামাজিকরণের প্রক্রিয়া (socialization) বন্ধ করা কিন্তু এই মারণের প্রতিকার নয়, তাই ডিসটেনসিং বা দূরত্ব শুধু শারীরিক হওয়াই শ্রেয়। জনসাস্থ্যের দীর্ঘ ইতিহাসে অতিমারি বা মহামারি রোধে লকডাউন এক কার্যকরী পক্রিয়া – যা একশো বছর আগেও স্প্যানিশ ফ্লুয়ের সময়েও দেখা গেছে। এর আক্ষরিক অর্থ হল সামাজিক মেলামেশার আদান প্রদান বন্ধ করে শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখার কৌশল।

    অতিমারি বা মহামারির সময়ে জনস্বাস্থের প্রাথমিক শর্ত হল ‘কমিউনিটি বন্ডিং’ বা গোষ্ঠী সংহতি। অথচ পশ্চিমবঙ্গ থেকে শুরু করে সমগ্র দেশেই ডাক্তার থেকে আমলা সব বিশেষজ্ঞই এক সতর্কতাবানী আওড়াচ্ছে- ‘আপনারা থাকবেন ঘরে – বাকিটা বুঝে নেবো আমরা (মানে পুলিশ – প্রশাসন এবং স্বাস্থ্যদপ্তর)। বলা আবশ্যক যে এই সাবধানবানী জনসাস্থ্যের পরিপন্থি। ভেবে দেখুন, ঠিক যতবার, যতটা অধ্যবসায়ী ভাবে আমরা সামাজিক দূরত্বের কথা শুনতে পাচ্ছি তার সাথে সামাজিক বন্ধন, সম্প্রদায়িক অংশগ্রহণের তাৎপর্য সেই অর্থে উচ্চারিত হচ্ছে কি? জনস্বাস্থ্যের বিধান স্বাস্থ্যকর্মী ও জনগণের দ্বিমূল প্রয়াসের ভাবনা পোষন করে না, বিশ্বাস করে এই দুইয়ের সামাজিক ও মানসিক ঐক্যে। মানুষের ঘরে থাকা বা বাজার-হাটে ভিড় এড়ানো একান্তই প্রয়োজন কিন্তু তা উপর থেকে চাপিয়ে দেওয়া সতর্কবানীতে দীর্ঘ মেয়াদী করা যাবে না – মানুষের মধ্যে থেকেই জনগনের প্রতিনিধিত্ব তুলে নিয়ে আসতে হবে যা শহর থেকে গ্রামে করোনা মকাবিলার যে কোন প্রচেষ্টাকে এক সামাজিক দায়িত্বে পরিনত করবে।

    সোশাল ডিসটেনসিং-এর প্রকৃত উদ্দেশ্য এবং তার গূঢ় অর্থ সরলীকরণ না করে নির্বিচারে এই শব্দ-বন্ধ ব্যবহার করলে অচিরেই করোনা নিয়ে মানুষের মধ্যে এক সামাজিক দূরত্ব তৈরি হবে। খেয়াল করুন মধ্যপ্রদেশে করোনা মোকাবিলায় কমিউনিটি ভিজিটে গিয়ে স্বাস্থ্যকর্মীদের শারীরিক নিগ্রহের শিকার হওয়া, বিভিন্ন রাজ্যে করোনা সন্দেহে আক্রান্তদের প্রতি সামাজিক বৈষম্যমূলক আচরণ, করোনা সন্দেহদের কোয়ারান্টাইন ভেঙে আইন হাতে নেওয়া এইসব ঘটনা পরোক্ষ ভাবে সামাজিক দূরত্বের বার্তা বহন করে না কি? উত্তর দিচ্ছে সম্প্রতি এই রাজ্যের ঝাড়্গ্রাম জেলার সাকরাইল অঞ্চলের এক ঘটনা। সত্তরোর্ধ এক বৃদ্ধকে মূর্ছিত অবস্থায় রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা গেলো, করোনা আতঙ্কের জেরে কেউ তার সাহায্যে এগিয়ে এলো না, হাসপাতালেও নিয়ে গেল না এমনকি তাকে সনাক্ত করতেও কেউ কাছাকাছি যায়নি। অবশেষে ২০ ঘন্টা ওই ভাবে পড়ে থেকে তার রাস্তাতেই মৃত্যু হয়। বাঁশে খাটিয়া বেঁধে ঝুলিয়ে দাহ করতে নিয়ে যাওয়া হলো তার দেহ।

    এমন ঘটনা এখন প্রত্যহ ঘটছে, ঘটনাগুলি একটু লক্ষ্য করলেই বোঝা যাবে যে এই ধরনের মানসিকতা কোন একটা বিত্তে আটকে নেই। শহুরে শিক্ষিত মাধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্ত আবার দরিদ্র গ্রামবাসী, করোনা সংক্রান্ত আতঙ্ক ছড়িয়েছে সর্বত্র। শ্যামপুকুর, মাস্ক না পড়তে চাওয়ায় ছেলে কে খুন করলেন বাবা। অন্তঃসত্ত্বার দেখাশোনা করবার জন্য তার মা কেও ঢুকতে দেওয়া হল না সোনারপুরের আবাসনে। স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ঘষে, বারংবার হাত ধুতে ধুতে হাত কেটে-ছড়ে গেল পাটুলির এক মহিলার। প্রায় রোজ চোখে পড়ছে এই ধরনের মর্মান্তিক ঘটনা। তাই প্রশাসনিক ভাবে অন্তত ডিসটেনসিং-এর প্রকৃত অর্থ যদি মানুষের কাছে না পোছৌয় তাহলে সময়ের সাথে এমন অমানবিক ঘটনার সংখ্যা আরও বাড়বে। তার সাথে দিতে হবে গোষ্ঠী ঐক্যের, মানুষকে নিযুক্ত করতে হবে মানুষের কাজে।

    বিশ্বের এমন অচলাবস্থায় এই লকডাউনের সিদ্ধান্ত অবশ্যই সাময়িক ভাবে লাভজনক, তবে কোভিড-১৯ সংক্রমণ দূরীকরণে সামাজিক দূরত্ব ফলপ্রসু হবে না। এই দূরত্বের জেরে শারীরিক, মানসিক, অর্থনৈতিক বিপন্নতায় ভুগছে বহু মানুষ, প্রধাণত শ্রমজীবী ও প্রান্তিক মানুষজন। একজন সাফাই কর্মীর কাছে ডিসটেনসিং -এর অর্থ কি? বস্তির ঘরে একসাথে থাকা সাত জনকে কোয়ারান্টাইন কিভাবে বোঝাব? এই প্রশ্নগুলি থাকতে হবে অতিমারী নীতি গঠনের মূলে। প্রান্তিক, অসহায়, ক্ষমতাহীনদের স্বার্থ থাকবে পরিকল্পনার শীর্ষে। জনস্বাস্থ্যর এই আপতকালিন সময়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কোভিড – ১৯ অতিমারিকে রুখতে কৌশলগত ভাবে ঝুঁকি বিষয়ক বার্তা প্রচার ও গোষ্ঠীর অংশগ্রহণকে (রিস্ক কম্মুনিকাশন ও কমিউনিটি এনগেজমেন্ট) অন্যতম হাতিয়ার করার কথা বলছে। এই কৌশলেরই অঙ্গ হল সাধারন মানুষের মধ্যে করোনা সংক্রমণ সমবন্ধে ব্যাবহার - দৃষ্টিভঙ্গি ও তার উদ্বেগের মূল্যায়ণ, এবং জনসাধারণের মধ্যে থেকে সেচ্ছাসেবক তৈরি করা যা করোনা সচেতনতায়, সংক্রমন রোধ এমনকি অ্যাকটিভ কেস ফাইনডিং-এর কাজে লাগানো যেতে পারে।

    সামাজিক দূরত্ব ব্যবহারিক ক্ষেত্রে ভুল প্রয়োগে যদি সামাজিক বা মানসিক দূরত্ব ঘটায় তাহলে এই দেশজোড়া অচলাবস্থায় সমস্যা আরো বাড়বে। কিন্ত আক্ষরিক অর্থে সংক্রমণ রোধে পৃথকীকরণ পন্থা আসলে শারীরিক দূরত্ব কে বলবত করার কথাই বলছে। তাই তালাবদ্ধ এই দেশে অতিমারি রোধের বিরুদ্ধে প্রচার-পরিকল্পনায় কৌশলগত ভাবে এক সহানুভূতিশীল-মানবিক গোষ্ঠীবদ্ধ সমাজের রূপরেখা তৈরি করা দরকার। কারন শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যকর্মী ও জনগণের সামাজিক স্তরে যৌথ প্রয়াসই আমাদেরকে করোনা প্রতিরোধের পথ দেখাবে।


    গবেষক, সেন্টার অফ সোশ্যাল মেডিসিন অ্যান্ড কমিউনিটি হে্লথ, জওরহলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়।
  • বিভাগ : আলোচনা | ১০ মে ২০২০ | ৩৫৭ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • আপনি মোড়ল | 162.158.165.207 | ১১ মে ২০২০ ০৫:২৩93172
  • একদম একমত ।

    বিদেশে (অর্থাৎ ইউরোপ, আমেরিকায়) যেই ওরা বললো social distancing অমনি আমরা সেটার বাংলা তর্জমা করে নিয়ে তোতাপাখির মতো আওড়াতে লাগলাম

  • বিপ্লব রহমান | 162.158.207.135 | ১১ মে ২০২০ ০৮:৫১93173
  • সামাজিক নয়, শারীরিক দূরত্ব মাত্র।  অমানবিকতা সর্বত্রই আছে,  করোনা রাক্ষুসি তার মুখোশ খুলেছে মাত্র। 

    #

    এই লেখার বানান ভুলের ছড়াছড়ি।  বুবুভা'তে আগে এমন দেখিনি,  খুব চোখে লাগে।            

  • সামাজিক না শারীরিক | 162.158.50.254 | ১২ মে ২০২০ ২০:০৯93221
  • একেবারেই!
    সোশ্যাল ডিস্টান্সিং, সামাজিক দূরত্ব টার্মগুলি সামাজিক ভাবে বর্জিত হোক!
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত