• বুলবুলভাজা  অপর বাংলা

  • মি: মিনিস্টার, আপনাকেই বলছি ....

    বিপ্লব রহমান লেখকের গ্রাহক হোন
    অপর বাংলা | ২৬ ডিসেম্বর ২০১০ | ৪২৩ বার পঠিত
  • মিস্টার মিনিস্টার শাজাহান খান,
    সম্প্রতি আপনি জাতিকে ওয়াজ নসিহত করে বলেছেন, 'এনকাউন্টারে' সন্ত্রাসী মরলে নাকি মানবাধিকার লঙ্ঘন হয় না! মাননীয় নৌ পরিবহন মন্ত্রী, আপনি আরো দাবি করেছেন, বর্তমানে 'এনকাউন্টারের' কারণেই চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাস বন্ধ রয়েছে!
    আপনাকে সাধুবাদ জানাই, বিচারবহির্ভুত হত্যাকাণ্ডের পক্ষে সাফাই গেয়ে আপনি নতুন কোনো কথা বলেননি বলে। ক্রসফায়ার (পড়ুন, খরচ ফায়ার)/ এনকাউন্টারের পক্ষে এমন ফতোয়া ক্ষমতাসীন প্রাচীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী £গের অনেক রথী-মহারথী নেতা-নেত্রীই অনেকদিন ধরে বলে আসছেন।
    তবে আপনি এইসব মহান উক্তি যখন করছেন, তখন ইউকিলিকস র‌্যাব (র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান নয়, পড়ুন, রক্ষী বাহিনী এগেইন ব্যাক) নিয়ে আপনাদের গর্বের বেলুনটি লিক করে দিয়েছে। বেয়াড়া ইউকিলিকসকে উদ্ধৃত করে দি। গার্ডিয়ান জানাচ্ছে, গণতন্ত্রের মহাপ্রভু ব্রিটিশ সরকার স্বয়ং নাকি খুনি এই সরকারি বাহিনীটিকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে! আর প্রতিষ্ঠার পরে গত ছয় বছরে ড়্যাবের বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে নাকি মারা গেছে হাজার খানেক লোক।
    ইতিহাস সাক্ষী, পূর্ববাংলা সর্বহারা পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সিরাজ সিকদারকে বন্দী অবস্থায় গুলি করে হত্যার পর তখনকার প্রধানমন্ত্রী ও আপনাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা নেতা শেখ মুজিবুর রহমান ('বঙ্গবন্ধু' বলবো কী?) সংসদে দম্ভ করে বলেছিলেন, কোথায় আজ সিরাজ সিকদার? এরও আগে তিনি কমিউনিস্ট ভূতের আতংকে হুমকি দিয়ে বলেছিলেন, নকশাল দেখা মাত্র গুলি করা হবে! মাননীয় মন্ত্রী, সে দিনও আপনারা ভুলে গিয়েছিলেন, নকশাল কারো গায়ে লেখা থাকে না।

    মি. মিনিস্টার,
    আপনি যখন আমাদের ঐভাবে পাপ-পুণ্যের পার্থক্য জলের মতো পরিষ্কার ক® বুঝিয়ে দিচ্ছেন, তখন মানবাধিকার সংগঠন 'অধিকার' বলছে, মূলত: ক্রসফায়ার,এনকাউন্টার, বন্দুকযুদ্ধের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটেই চলেছে এবং সরকারের উচ্চ পর্যায়ের এ ধরনের বক্তব্য বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে বাড়িয়ে দিচ্ছে।
    বিএনপি সরকারের মহান কীর্তি র‌্যাব নিজেরাই পরিসংখ্যানে জানিয়েছে, ২০০৪ সালের ২৬ মার্চ ঐ বিশেষ বাহিনী গঠিত হওয়ার পর থেকে গত বছর আগস্ট পর্যন্ত ৪৭২টি ঘটনায় ৫৭৭ জন 'ক্রসফায়ারে' মারা গেছে।
    মাননীয় মন্ত্রী বাহাদুর, আপনার সরকারের স্বপ্ন ডিজিটাল বাংলাদেশের পথ ধরে আমরা শিগগিরই ডিজিটাল ক্রসফায়ার/ এনকাউন্টারও উপহার পাবো, আমরা কী এমনটাইআশা করবো?

    মি. মিনিস্টার,
    কিছুদিন আগে মহান স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু মানবাধিকার সংগঠনগুলোর এ হেন অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাতে গিয়ে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর আত্মরক্ষার সময় এসব ক্রসফায়ার/এনকাউন্টার-এ মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।
    অথচ দেখুন, আপনাদের ক্রসফায়ার/ এনকাউন্টারের গল্পগুলো কী পুরনো ও স্যাঁতসেঁতে:
    অমুক সন্ত্রাসীকে এতো-শত অস্ত্র-শস্ত্রসহ র‌্যাব/ পুলিশ সদস্যরা গ্রেপ্তারের পর তাহাকে লইয়া অস্ত্রভান্ডার উদ্ধারের উদ্দেশ্যে রাত এতোটার দিকে রওনা হইলে তমুক জায়গায় তাহার অপরাপর সন্ত্রাসী সহযোগীরা উহাকে ছিনাইয়া লইবার জন্য আগে হইতে ওত পাতিয়া থাকে। তাহারা আসামী ছিনাইয়া লইবার নিমিত্তে উপর্যুপরি এলোপাথারি গুলি ছুঁড়িতে থাকে। র‌্যা¡ব/ পুলিশ সদস্যরাও আত্নরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুঁড়িতে থাকে। উভয় পক্ষের ১০/১৫/২০/২৫/৩০ মিনিট গুলি বিনিময়ের পর সন্ত্রীরা রণে ভঙ্গ দিয়া পলাইয়া যায়। পরে র‌্যাব/ পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে পরিত্যক্ত অবস্থায় বিপুল পরিমাণ অস্ত্র, গোলা-বারুদ ও গুলির খোসা উদ্ধার করে। এদিকে কুখ্যাত সন্ত্রাসী অমুক র‌্যাব/ পুলিশের ক্রসফায়ারে/ এনকাউন্টারে ঘটনাস্থলেই মারা যায়। তাহার বিরুদ্ধে অমুক-তমুক থানায় হত্যা, ধর্ষণ, খুন-জখম-ডাকাতি, অবৈধ অস্ত্রের বিষয় এতো-এতো মামলা রহিয়াছে...

    মি. মিনিস্টার,
    ক্রসফায়ার/এনকাউন্টার-এর ইতিহাস অবশ্য খুব বেশি পুরনো নয়। এর সূত্রপাত ওপারে ইন্দিরা গান্ধির কংগ্রেসের আমলে, সাতের দশকে নকশালি উৎপাতের সময়। নকশাল গ্রেফতার করতে করতে ইন্দিরা সরকার জেলাখানা ভর্তি করে ফেলার পরেও নকশালি বিদ্রোহ দমন করতে না পেরে ক্রসফায়ার/এনকাউন্টার চালু করেন; সেখানেও তার নেপথ্যের গল্পটি পূর্বোক্ত ( দেখুন, হাজার চুরাশির মা--মহাশ্বেতা দেবী)।
    এপারে এটি আমদানী করেন আওয়ামী লীগের প্রধান কাণ্ডারী, শেখ মুজিবুর রহমান (ভাগ্যিস, ১৯৭৫ এ আত্নস্বীকৃত খুনী কর্নেল ফারুক-রশিদ গং স্বপরিবারে মুজিব হত্যার কাণ্ডটিকে হত্যা বলেই ঘোষণা করেছিলেন, ক্রসফায়ার/এনকাউন্টার নয়।)। সে হিসেবে সিরাজ সিকদার ক্রসফায়ার/এনকাউন্টারের শিকার প্রথম রাজনৈতিক ব্যক্তিও বটে।
    এর পরের সরকারগুলো ঐ ক্রসফায়ার/এনকাউন্টার-এরই ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে মাত্র। মাঝখানে বিএনপি সরকার গুলি খরচ না করে র‌্যা¡ব-পুলিশ-বিডিয়ারের যৌথ বাহিনীর 'অপারেশন ক্লিন হার্ট' (দিল সাফ?) নামক বিশেষ অপারেশন চালু করে। সে সময় আসামীরা যৌথ বাহিনীর রিমান্ডে থাকা অবস্থায় হঠাৎ করেই হৃদরোগে মারা যেতে শুরু করেন, মোটেই অতিরিক্ত পিটুনিতে নয়! এক-এগারোর পর সেনা সমর্থিত অস্বাভাবিক তঙ্কÄ¡বধায়ক সরকারের সময় আদিবাসী নেতা চলেশ রিছিলও মারা পড়েন ঐ দিল-সাফাই কর্মসূচিতে।

    মি. মিনিস্টার,
    খুন-সন্ত্রাস-রাহাজানি ও ঘুষ গ্রহণে অন্য যে কোনো প্রতিষ্ঠানের চেয়ে আপনাদের গদির রক্ষার ঠেঙারে বাহিনী র‌্যাব ও পুলিশ এগিয়ে -- এটি এখন প্রকাশ্য। দিনাজপুরের ইয়াসমিন ধর্ষণ ও হত্যা, আদালত পাড়ায় শিশু তানিয়া ধর্ষণ, ড্রাইভার জালাল ও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র রুবেল হত্যা একেকটি উদাহরণ মাত্র। আর দেখুন, সরকারি হিসেবেই গত বছর মাত্র দেড়মাসে চরমপন্থীদের বিচরণক্ষেত্র বলে পরিচিত কুষ্টিয়ায় ২৬ জন এনকাউন্টার/ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছেন!
    তাই বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে প্রাচীন শাসক যখন সক্রেটিসকে হেমলকে ¤ন করেন, আগুনে পুড়িয়ে মারেন ব্রুনোকে বা নির্বাসনে দেন গ্যালিলিওকে --তখন তাদেরকেই অনেক বেশী গণতন্ত্রী বলে মনে হয়। তারা আর যা-ই করুক আপনাদের মতো 'আইনের শাসন' প্রতিষ্ঠার নামে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পাইকারিবিক্রেতা সেজে মুক্তিযোদ্ধা নিরাপদ বৈরাগীকে (৫৮) ক্রসফায়ার করার পর আবার রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাঁকে দাফনের ভণ্ডামিটুকু অন্তত করেনি (দেখুন, 'বন্দুকযুদ্ধে' মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় স্‌ৎকার, দৈনিক প্রথম আলো,১০ অক্টোবর, ২০০৯)!

    মি. মিনিস্টার,
    আপনারা যদি 'সন্ত্রাসী' নির্মূলে শেষ পর্যন্ত যদি ক্রসফায়ার/এনকাউন্টার বহালই রাখতে চান, তাহলে না হয়, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসী বাহিনী র‌্যাব/পুলিশ দিয়েই সন্ত্রাসী নির্মূল শুরু করুন, এদেরকে দিয়েই শুরু করুন ক্রসফায়ার/এনকাউন্টার। প্রয়োজনে এ জন্য না হয় তৈরি করুন আরেকটি বিশেষ খুনি বাহিনী। পরে না হয় তাদের নির্মূলে আবারো নতুন কোনো বাহিনী তৈরি করা যাবে! তারপর আবার...

     

  • বিভাগ : অপর বাংলা | ২৬ ডিসেম্বর ২০১০ | ৪২৩ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ভেবেচিন্তে প্রতিক্রিয়া দিন