• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • বিনায়করুকুর ডায়েরি

    বিনায়করুকু
    বিভাগ : বুলবুলভাজা | ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ৭৬৩ বার পঠিত
  • আমি বিনায়করুকু

    আমি রুকু বিনায়ক। সবাই বলে আমি বুদ্ধু। ভোঁদাই। মা আমাকে গাধা বলে না মুনা বলে। পাপা বলে পুচাই। আমার দুটো হাত,দশটা হাতের আঙ্গুল,দুটো চোখ আছে,যা দিয়ে আমি ছবি আঁকা। পাপা মা বলে আমার অটিজম আছে। অটিজম কী আমি জানিনা। তবে আমি একটু কেমন যেন।
    আমার গাড়ির চাকা,টেবিল ফ্যান,ছোট ছোট রবারের পুতুল ,রং,তুলি পেন্সিল ভালো লাগে। আমি লাফাতে ভালোবাসি। এ দেয়াল থেকে ও দেয়াল। সব দেয়ালে হাতের চাপ,সব দেয়ালে সর্দি,নাকের পোঁটা লাগে। মা বলে যাতা। আর মোছে। ।


    ছানার পায়েস
    গরম কাল ভালো। ছাদে ক্যাম্প খাট পাতা হয়। মা,পাপা,আর রুকু ভোঁস ভোঁস ভোঁস আর তারা দেখা।
    প্লেন,ই টি E, T, স্যাটেলাইট সবাইকে দেখতে পাই। আমি science পড়িনা আকাশ দেখি। গরম কালে মোটা অন্য সময় সরু।
    পেঁচা আর কাক ও ওড়ে। শুধু মশার ধূপ টা বিচ্ছিরি।
    তারাও দপ দপ মোবাইল টাওয়ার দপ দপ দপ। সিগনাল সিগনাল খেলে যায়।
    আমি অনেক তারার নাম জানি।
    একটা থালায় এক সাথে থাকলে সীতাভোগ।
    আলাদা থাকলেই ওই জিলিপি আর চন্দ্রপুলি।
    Galaxy টা ছানার পায়েস।
    পাপা কে বলবো।







    ডায়েরি ৩

    মামারবাড়ি একটা Scare crow আছে।
    কুট্টিমামার ছেঁড়া জামা পরে।
    ওটা কাকতাড়ুয়া।
    গাছ বাঁচায়া।
    ওর জামা change হয়না।
    মাটির হাঁড়ির দাঁত গুলো গুঁড়ো গুঁড়ো।
    সবুজ পুকুরে কালো তেলাপিয়া।
    জলের নিচে মাটির কলসিটা
    মাছতাড়ুয়া।
    দাঁত গুলো শ্যাওলা।

    ডায়েরি ৪

    সাউন্ডে আমার ভয় করে। বাজে একটা ফ্যা করে আওয়াজ হয়, বিরক্ত লাগে। কোন কিছু ল্যাগড্যাগ করলে, নখ কাটলে,চুল কাটলেই।
    ফ্যা,কচ কচ।
    লোডশেডিং হলে আমি চিৎকার করি মায়ের হাত ঝাঁকাই। মা বলে বিহেব, বিহেব। আর বলে ও গড।
    বিহেব হবোনা আমি রুকু হবো।
    মা দিওয়ালি দিওয়ালি খেলে । উঠোনে মোম। (আমরা সারা উঠোনে মোম জ্বালিয়ে রাখি)
    সম্রাট,ছোটু, মন্টু বলে খেপেছে খেপেছে।
    আমি সবার নাম ধরে
    ডাকি। ছেলেটা তাড়া করে । সাইকেল এর ঝুড়িতে থান ইট দিয়ে দেয়।
    আমি নেমশেক নেমশেক খেলি। চ্যাটার্জি,চারটে পিনচে,মলয়দা, সব এক নাম।
    মামাবাড়িতে পল্লব দোস্ত (বিনায়করুকু র মাতামহ) এর সাথে মাছ ধরি।
    লাল ফুটো ফুটো বাক্সে মাছ থাকে জলের মধ্যে ডোবানো।
    লজ্জাবতী (কুকুর) আর লালমোহন টিয়া ওপরে চলে গেছে।
    মা গান গায়, দিল তো বাচ্চা হ্যায়ে জি।
    রূপ তেরা মাস্তানা, মা গায় না।
    হামা হাম্মা গান হলে আমরা তিন জনে নাচি।
    রাত্রি বেলা মা বাজু বন্ধ্য খুলে যায় শোনে।





    ডাইরি ৫

    বাড়ি,ছাউনি, শহর পেরোলেই মাঠ
    তাঁতি পাড়ায় ডিসে ,ডিসে, ডিসে, চ্যায়ে।
    হলদে কুকুর পাপার গাড়ির পিছনে লাফায়।
    রেল লাইনের উপর কাঠবিড়ালি।
    মা র সানগ্লাস চকচকে।
    মাঠে মোবাইল টাওয়ার, ত্রিশূল।
    খর খরে শুকনো ঘাস,স্পেয়ার পার্টস।

    ডাইরি ৬\

    সারি সারি মোমবাতি জ্বলে।
    শ্যামা পোকার পোড়া গন্ধ।
    উঠানে চরকি ঘোরে।
    আসমান গোলা,
    আকাশ থেকে আগুন পড়ে।
    পাপার চোখে টুনি বাল্বের আলো।
    কচুবনে ঝিঁ ঝিঁ পোকা জোনাকি জ্বালে।
    পুকুরে "ডেপ চার্জ"জল ছেটায়।
    পেপসি খাটের তলায়।

    ডাইরি ৭

    আমি যা ইচ্ছে তাই ছবি আঁকবো।
    ঘড়ি দিয়ে সূর্য।
    রেল গাড়ি টা ভাগছে।
    কাগজ দিয়ে Papyrus।
    রেলগাড়ি দিয়ে মেঘ বেরোবে।
    বেশ ইচ্ছে করেছি।
    জিনাত আমন পুকুরে।
    সাঁতারে।
    বিনায়করুকু।





    কেদারনাথ ডাইরি ১

    গুপির গাধার মত আমাকে ঘোড়া চাপিয়ে
    কেদারনাথ নিয়ে যায়
    রমেশ ডানিয়া সহিস।
    আমার ভয় করছিল।
    সহিস বললো ভাইয়া মাত বোল,
    'কিদার" বাবা কি জয় বোল।
    দুনিয়ার লোক কে বলছিলাম
    হঠ যাও মাসি। হঠ যাও চাচা।
    ঘোড়া থেকে নেমে "মানুষ পিঠে " উঠে
    GMVN এ গেলাম।
    পিঠে চড়ে আকাশ দেখলাম।
    লোকটা মুখে হুঁ হুঁ আওয়াজ করছিল।
    দুপুরের পাহাড়ের রং সাদা।
    বিকেলে নীল গোলাপি।
    রাতে সাদা কালো হলুদ।
    একা পাহাড়।
    একা নদী।

    কেদার ডাইরি ২

    সব পাহাড় গুলোতে শিব ঠাকুর আর কিং কং
    ঘুমোচ্ছে।
    মুখের কাছে মেঘ মেঘ মেঘ সিগারেট।
    ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা ,ধোঁয়া ধোঁয়া।
    রাতে একা নদী মার মত চ্যাঁচায়।
    জ্বর হয়েছে।
    কালো পাহাড় টা ভেজে।
    চাঁদ টা সবাই কে আলো দেয় নি।
    পাপা আর রুকুর আঙুল জোড়া।
    Unit হয়ে ঘুমায়।
    শিব ঠাকুরের শীত করে।
    শিব ঠাকুরের পাপা নেই।
    শীত করে।

    কেদারনাথ ডায়েরি ৩

    সূর্য উঠলে পাহাড় টা দাঁত মাজে।
    সাদা থেকে হলুদ হয়ে যায়।
    নীল রঙের বৃষ্টিটা মাউথওয়াশ।
    হলুদ ফুল গুলো জিলিপির মত,
    সুতো দিয়ে বাঁধা।
    ব্রেকফাস্ট এ পোহা আর মেঘ।
    বদ্রিনাথে নীলকণ্ঠ পাহাড় সিঙাড়া।
    নদীটা এক কাপ চা।
    রুকু চা খায়।

    ডাইরি - কেদারনাথ বদ্রিনাথ যাত্রা

    পাহাড়ে কচুবন নেই।
    পাইনের বন।
    পাথর গুলি,আর উলের বল,ছক্কা।
    উলের বল গড়ায়।
    এই পাহাড় ওই পাহাড় জোড়া ,জোড়া,জোড়া।
    রাস্তা আর ব্রীজ দিয়ে,
    শিব ঠাকুর লুডো খেলে।
    বাসে বসে রুকু হাসে।
    বাস টা গরম বাইরে ঠান্ডা।
    জানালার কাঁচে
    পাতার ধাক্কা চিরিক চিরিকি।
    রুকুর হাতে ছোট পাথর
    ছক্কা পাঞ্জা।





    রুকুর মায়ের কথা :
    আমি একজন স্পেশাল মানুষের মা। বিনায়করুকু আমার পুত্র। তার অটিজম আছে। তার ১৬ বছর বয়েস। রুকু অনেক কিছু পারেনা। গুছিয়ে কথা বলতে পারেনা, গুছিয়ে লিখতে পারে না, জগৎটাকে নিজের মত করে দ্যাখে। যা ভাবে তাই লেখে। লেখে নিজের শর্তে, বাঁচে নিজের শর্তে। বিচারের ভার পাঠকের উপর।

    রুকুকে নিয়ে আমাদের জার্নির কিছু কথা ধরা আছে, এখানেঃ http://www.guruchandali.com/blog/authors/sumongb78
  • বিভাগ : বুলবুলভাজা | ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ৭৬৩ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2
  • pi | 172.69.135.117 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২২:২৫90905
  • রুকুর গ্যালাক্সি নিয়ে আজকের ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে। বইটা,যাঁ্রা পেতে আগ্রহী, কাল চলে আসুন ৪৪৬ এ, গুরুচণ্ডা৯ তে। করুণাময়ী বাসস্ট্যাণ্ডের ৮ নং গেট দিয়ে ঢুকেই! https://bengali.indianexpress.com/literature/17-years-autistic-binayak-ruku-book-published-kolkata-book-fair-189244/
  • বিপ্লব রহমান | 162.158.118.165 | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৯:৪৩90996
  • "সব পাহাড় গুলোতে শিব ঠাকুর আর কিং কং
    ঘুমোচ্ছে।
    মুখের কাছে মেঘ মেঘ মেঘ সিগারেট।
    ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা ঠাণ্ডা ,ধোঁয়া ধোঁয়া।
    রাতে একা নদী মার মত চ্যাঁচায়।
    জ্বর হয়েছে।
    কালো পাহাড় টা ভেজে।
    চাঁদ টা সবাই কে আলো দেয় নি।
    পাপা আর রুকুর আঙুল জোড়া।
    Unit হয়ে ঘুমায়।
    শিব ঠাকুরের শীত করে।
    শিব ঠাকুরের পাপা নেই।
    শীত করে।" 

    প্রকৃতির এই বর্ণনা একমাত্র রুকুর পক্ষেই সম্ভব। "রুকুর গ্যালাক্সি" এপাড়ে অবশ্যই কিনবো।

    ব্রেভো, মাই আর্টিস্ট!     

  • দ্যুতি | 162.158.23.84 | ০১ মার্চ ২০২০ ২৩:৪৪91177
  • তোমার বই কিনেই পড়েছি, ছবি দেখেছি। সৃষ্টি চলুক। আমরা আরো এমন ছবি গল্প কল্পনার জন্য অপেক্ষায় রইলা।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2
  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত