ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  ব্লগ

  • ধুকুপুকু বুক কাঁপে শুধু যে রাতে

    সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায় লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১৭৯৮ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  • হিন্দি সিনেমার গান শুনে বাঙালি কেন উলুতপুলুত হয়, আপাতদৃষ্টিতে বোঝা মুশকিল। যে ঘরানার গানের শ্রেষ্ঠ লিরিক নাকি 'মেরা কুছ সামান তুমহারে পাস পড়া হ্যায়', অর্থাৎ কিনা 'আমার কিছু মালপত্তর তোমার কাছে পড়ে আছে' আর দ্বিতীয় শ্রেষ্ঠ লিরিক তর্কযোগ্যভাবে 'বিড়ি জ্বালাইলে', অর্থাৎ কিনা 'সিঁড়ির নিচে বিড়ির দোকান', সে গান শুনলে এমনিই ভদ্রজনের মাথা হেঁট হয়ে যাবার কথা। হিন্দি বলয়ের কথা আলাদা, ওদের এরকমই কপাল। ইউপি-বিহারে আধুনিক কালে কোনো জীবনানন্দ জন্মাননি। আর অতীতের গৌরব যা ছিল, সেসব স্টিমরোলার চালিয়ে কবেই ফ্ল্যাট করে দেওয়া হয়েছে। ব্রজবুলি বা মৈথিলীর যে মাধুর্য তাকে র‌্যাঁদা মেরে বাতিল করেই আধুনিক হিন্দুস্তানির বাড়বাড়ন্ত। আর লক্ষ্ণৌ এর যে ডায়লেক্ট গায়ে -কাঁটা দেওয়া ঠুংরি গজল উৎপাদন করেছে একটানা, বাহাদুর শার সঙ্গে তাকে প্রাথমিকভাবে বার্মায় নির্বাসন দেওয়া হয়েছিল। দূরদর্শনের রাষ্ট্রীয় কার্যক্রম এসে তৎসম হিন্দুস্তানি দিয়ে কফিনে শেষ পেরেকটা পুঁতে দিয়েছে। অভাগা হিন্দিবলয়ের অধিবাসীদের দুর্ভাগ্যে তাই খোঁটা দিয়ে লাভ নেই। সবই কপাল। কিন্তু বাঙালিরা কেন "আমার কিছু মালপত্তর (ওহো আহা), তোমার কাছে পড়ে আছে (ফ্যাঁচ ফ্যাঁচ)" বলে আহা উহু করে বোঝা মুশকিল।

    এই পর্যন্ত পড়েই, যেকোনো বোদ্ধা, ক্যাঁক করে ধরে যেটা বলবেন, সেটা আগে থেকেই আন্দাজ করা যায়। "কাব্যমাধুর্য কি আর ওরকম সরল অনুবাদে বোঝা যায় হে? এখানে 'সামান' হল মেটাফর। ওর মানে মালপত্তর নয়, ওর অর্থ হল হৃদয়, জীবনের টুকরো" ইত্যাদি প্রভৃতি। সেসবই খুব খাঁটি কথা। কিন্তু তাতেও লিরিকের কোনো উন্নতি হয় বলে মনে হয়না। কিন্তু বোদ্ধারা যেহেতু সিধে কথায় বশ হবেননা, তাই তাঁদের মাথায় বিষয়টা গজাল মেরে ঢোকানো দরকার। আসুন, হাতে যখন সময় আছে, গানখানার একটা জটিল অনুবাদই করা যাকঃ

    আমার লাগেজ রাখা তোমার ওই ক্লোকরুমে
    কখনও সময় পেলে ছুঁয়ে দিও শীতঘুমে

    পড়ে কেমন লাগছে? ফ্যাচফেচিয়ে হাসি আসছেনা? আসারই কথা। তাও তো আপনার কপাল ভালো, ওখানে 'লাগেজ' লিখেছি। 'হৃদয়' লিখলে আন্তারা একেবারে ফাঁচকলিয়ে যেত। তা, সে নিহাৎই আমার হৃদয়ে মায়াদয়া আছে বলে। তা, সে আমার মায়া থাকুক ইউপিতে, মমতা পশ্চিমবঙ্গে, এর পরে আপ্নার একটা হোমটাস্ক আছে। আপনার বাড়ির কাজ হল, এইবার লিরিকখানা যথাযথ সুরে গুণগুনিয়ে গেয়ে ফেলুন। মানে, ওই "মেরা কুছ সামান" এর সুরে। "আমাআআর লাগেএএজ রাখা। তোমাআআর ওই ক্লোওওকরুমে"। পুরোটা যদি গম্ভীর গলায় গাইতে পারেন, আপনার মন্ত্রী সান্ত্রী হবার যোগ্যতা আছে। মাক্কালী। এবং মা শেতলার দিব্যি, এই হল ওই সুবিখ্যাত গানের লিরিকের দৌড়। যার স্বাদ আপনি এখনই পেলেন। বিশ্বাস করুন, হৃদয়কে 'সামান' বলা এক অতি অখাদ্য মেটাফর। জীবনকে মরুভূমি হয়ে গেল বলার মতই।

    জানি, 'বিশ্বাস করুন' বললেই আপনার বিশ্বাস হবেনা। আঁতেল মাত্রেই নাস্তিক, তাদের বিশ্বাসে কিছু মিলায়না। তাঁরা এই পর্যন্ত পড়েই, "যত্ত সব ভাট" বলে কেটে গেছেন। কিংবা "জীবনকে মরুভূমি বলা কী এমন খারাপ?" বলে মাসল ফুলিয়ে রবিঠাকুরের 'যে নদী মরুপথে হারাল ধারা' আওড়াচ্ছেন। তা, ওতে জীবনকে ঠিক মরুভূমি বলা হয়নি, একথা বললে তাঁরা মুখের কথায় বিশ্বাস করবেন কেন? তাই প্রত্যক্ষ প্রমাণ দেওয়া যাক। গুরুদক্ষিণা দেখেছেন? নিশ্চয়ই দেখেননি। নামও শোনেনই বোধহয়। তাই অবিলম্বে ইউটিউব খুলে দেখে নিন বাংলাই আশির দশকের সুপারহিট ছবি গুরুদক্ষিণার সুপারহিট গান, 'পৃথিবী হারিয়ে গেছে মরু সাহারায়'। তরুণ বয়সের শতাব্দী রায়, দেখুন নেচে নেচে উচ্চারণ করছেন, মানে ঠোঁট মেলাচ্ছেন আর কী, এই অব্যর্থ পংক্তিগুলিঃ

    পৃথিবী হারিয়ে গেল মরু সাহারায়
    মিশরের নীলনদ আকাশে মিলায়
    খুশির প্রাসাদ গড়ি মাঝ দরিয়ায়
    আকাশ রাঙাতে চায় প্রদীপ শিখায়

    শুনে হাসি পাচ্ছে? পাক। হাসি থামান। গম্ভীর হোন। তারপর বুকে পাথর চাপা দিয়ে নির্মোহভাবে দেখুন, কী অব্যর্থ এই মেটাফরগুলি। পৃথিবী হারিয়ে গেছে মরু সাহারায়। মিশরের নীলনদ মিলিয়েছে আকাশের নীলে। ইত্যাদি। খারাপ কি কিছু আছে?

    বস্তুত কেউ যদি ভাবেন, আমি "খারাপ কিছু আছে" দেখাতে চাইছি, তাঁরা ভুল ভাবছেন। আমার অ্যাজেন্ডা হল, মেনলি ব্রাহ্মণের উপর আরোপিত গৌরব হরণ, আর ব্রত্যজনকে তার কিছু ভাগ দেওয়া। এই জন্য আপনারা আমাকে রবিনহুড আখ্যা দিতে পারেন, আমি কিছু মনে করবনা। কিন্তু মোদ্দা কথাটা হল, সামান থেকে সাহারা সব গোড়েগোব্দা মালের কেউই অধিক খারাপ কিছু না। তা, অধিক খারাপ যে কিছু নয় ব্যাপারটা, সে বিষয়ে আমার প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা আছে। সে গল্পটাই এখানে বলে নেওয়া যাক। আমার কলেজ লাইফের এক গোমড়া বন্ধুকে গিটার বাজিয়ে গম্ভীর মুখে আমি এই গানটি শুনিয়েছিলাম, সে বহুকাল আগে। সে ছেলেটি বিস্তর ডিলান-বিটলস মুখস্থ করলেও, কস্মিনকলে গুরুদক্ষিণা দেখেনি। নামও শুনেছিল কিনা সন্দেহ। শহুরে বস্তু হলে যা হয়। তা, গানটা শুনে সে মুগ্ধ হয়ে যায়। এই সাররিয়েল লিরিক? বাংলা ভাষায়? এইসব বলে। আমার প্ররোচনায় তারপর ভিডিও ক্যাসেট ভাড়া করে বাড়িতে সে সিনেমাটি দেখে (বললে বিশ্বাস হবেনা তখনও ইউটিউব এমনকি ডিভিডিরও চল ছিলনা)। আমি খুবই বদ ছিলাম, খানিকটা স্যাডিস্ট টাইপের, বিনা কারণে লোককে অত্যাচার করে আনন্দ পেয়েছি, এ কথা স্বীকার করতে আমার আর কোনো দ্বিধা নেই। ফলে সে সিনেমাটি দেখে, এবং যা হবার তাইই হয়। আমাদের বাক্যালাপ বন্ধ হয়। এখানেই গপ্পোটা শেষ না অবশ্য। সেই সেই হ্যাপি বা আনহ্যাপি এন্ডিং এর গপ্পো পরে বলা যাবে, এখানে মোদ্দা কথা হল, সিনেমা বাদ দিয়ে দেখলে, এ গান এমন কিছু খারাপ নয়। লিরিকের প্রশ্নে। ওই 'মেরা কুছ' টাইপেরই। সেইটা চোখে আঙুল দিয়ে দেখাতেই ছোকরা গিয়েছিল রেগে।

    এ অবশ্য ঠিক প্রত্যক্ষ প্রমাণ হলনা। সেই তুরুপের টেক্কার জন্য জন্য আপনাকে আরেকটা হোমটাস্ক করতে হবে। অনেকেরই মনে আছে, নব্বইয়ের দশকে বাংলা কাঁপিয়ে প্রকাশিত হয়েছিল বাংলা গানের অ্যালবাম, "আবার বছর কুড়ি পরে"। মহীনের ঘোড়াগুলি সম্পাদিত বাংলা গান। বইমেলায় তাই নিয়ে তুমুল আলোড়ন, এ মুখার্জির সামনে ভিড়, ছোট্টো গাবু আর তার টি-শার্ট পরা বাবাকে অনেকেরই মনে আছে। তা, সেই অ্যালবামের একটি গান ইউটিউব থেকে ঝপ করে দেখে ফেলুন। "আকাশে ছড়ানো মেঘের কাছাকাছি"। আমি খুব হাবিজাবি একটা লেখা লিখছি বলে, গানটাকে হতশ্রদ্ধা করবেন না যেন। খুব অস্বাভাবিক হলেও সত্য, যে, এই গানের লিরিকের মান নিয়ে বঙ্গীয় আঁতেলকূলে কোনো মতপার্থক্যই নেই, সবাই একবাক্য মানেন লিরিকটি অতি চমৎকারা। অতঃপর মন দিয়ে গানটা শুনুন। পুরোনো লিরিক আর সুর একটু ঝালিয়ে নিনঃ

    আকাশে ছড়ানো মেঘের কাছাকাছি
    দেখা যায় তোমাদের বাড়ি

    না, এখানেই কম্মো খতম নয়। আরেকটা ছোট্টো কাজ আছে। সুরটা ভালো করে ভেঁজে নিয়ে, তারপর তার উপর বসিয়ে দিন আমাদের পুরোনো গুরুদক্ষিণার গানটি। লিরিকটা সামান্য বদলাতে হবে। কী গাইতে হবে সেটা নিচে দিয়ে দেওয়া হাঃ

    পৃথিবী হারিয়ে গেল সাহারায়
    মিশরের নীলনদ মিলায়

    প্রথমে একটু অসুবিধে হবে, তারপর একটু চোখ টোখ বুজে অভ্যাস করে দেখুন। করতে থাকুন করতে থাকুন। একেই সাধনা বলে। পুরোটা একবার জায়গায় বসিয়ে ফেলার পর দেখুন, আর তেমন খারাপ কিছু লাগছেনা। এরপর বাকিটাও নিজে নিজে বসিয়ে গেয়ে ফেলুন। মেঘের জায়গায় সাহারা, বাড়ির জায়গায় নীলনদ, এইসব আর কি। আমার কলেজের যে বন্ধুর কথা বলছিলাম, সে এই ভাবে পুরো গানটা গেয়ে শোনানোর পর, তবে আমাকে শাপমুক্ত করে। এখনও আমাদের বন্ধুত্ব অটুট। ফলে যাঁরা দুশ্চিন্তা করছিলেন, তাঁরা নিশ্চিন্ত থাকুন, আমাদের গপ্পোটা হ্যাপি এন্ডিং এর। বাংলা সিনেমার গান আজ পর্যন্ত কোনো বিচ্ছেদ ডেকে আনেনি।

    তো, সে খুব আনন্দের কথা, আপনাদের ভালো-মন্দ যদি ঘেঁটে দিয়ে থাকতে পারি, তাতেও আনন্দের পরিসীমা থাকবেনা, কিন্তু আপনাদের পেটে যে প্রশ্নটা গজগজ করছে, তার উত্তর না দিয়ে লেখা শেষ করা যাবেনা। প্রশ্নটা হল, তাহলে কিছু গানের লিরিক ভালো, কিছু গানের লিরিক খারাপ, এসব কোনো ব্যাপারই না? সবই পারিপার্শ্বিকতা? উত্তরটা জটিল। খুব গোদা ভাষায় বললে, ভালো-খারাপ এই প্রক্রিয়াটাতো এমনিই সামাজিক। ছোটো থেকে শেখানো হয়। কিন্তু আমরা এখানে সেটা নিয়ে কথা বলছিনা। এই জটিল ব্যাপারে ঢুকলে আশু প্রশ্নটার কোনো সমাধন হবেনা। তাই আসুন, ধরে নিই, ছোটো থেকে লোকে যা 'ভালো' বলে শেখে সেটাই 'আসল ভালো'। অর্থাৎ, 'আসল ভালো' বলে কিছু হয়। ব্যাপারটা খানিক টটোলজিকাল হল বটে, কিন্তু এটুকু ধরে না নিলে পরের ধাপে আর যাওয়াই যাবেনা। কাজেই 'ধরিয়া লইলাম'এর মতো 'আসল ভালো'টুকু থাক।

    এবার, আসল প্রশ্ন। 'আসল ভালো' কি একটা ধ্রুবসত্য? একেবারেই না। যদিও, ধরে নেওয়া অনুযায়ী আমরা একটা 'আসল ভালো' ই শিখি, কিন্তু নানা পারিপার্শ্বিকতার ঠেলায় নানা জিনিসের ভালোত্ব বা খারাপত্ব ক্রমশই পিছলে যেতে থাকে। পুরোনো গান 'খারাপ' বা 'অচল' হতে থাকে, নতুন গান হিট অর্থাৎ 'ভালো' হয়ে ওঠে। আবার ঠিক এর উল্টোদিকে নস্টালজিয়ার চাপ কিছু জিনিসকে 'ভালো' বানায়। অর্থাৎ মাল একই থাকে, কিন্তু তার ভালোত্ব বা খারাপত্ব বদলাতে থাকে। ট্রেন্ড যা চাইছে, তাকে 'ভালো' হয়ে উঠতে হয়। যেমন হিন্দি আইটেম গান 'ভালো' (মানে হাস্যোদ্রেককারী নয়), কিন্তু বাংলা আইটেম গান 'খারাপ' (মানে হাস্যকর), এটা ট্রেন্ডের জন্য। নইলে 'বিড়ি জ্বালাইলে' বা 'মাই নেম ইজ শীলা'র চেয়ে 'ধুকুপুকু বুক কাঁপে শুধু যে রাতে' ঢের ভালো লিরিক। বিশেষ করে 'আমায় চ্টকেছে চিলেকোঠাতে' লাইনটাতো বৈপ্লবিক। একই ভাবে বাংলা গানের চেয়ে হিন্দি গান ভালো, কারণ সর্বভারতীয় চাপ। আবার বলিউডের চেয়ে হলিউড ভালো, কারণ আন্তর্জাতিক চাপ। এর সঙ্গে 'আসল ভালো'র সরাসরি সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া মুশকিল।

    তা, খুঁজলে এরকম গাদা-গাদা প্রক্রিয়া পাওয়া যাবে। সেসবের লিস্টি বানানো এই লেখার উদ্দেশ্য নয়। এখানে আপনাকে কেবল মূল সূত্রটি ধরিয়ে দেওয়া হল। এর পরে 'ভালো' বা 'খারাপ' সিদ্ধান্ত নেবার আগে একটা 'ভালো' গানের সুরে 'খারাপ' গানের লিরিক বসিয়ে বসিয়ে নিজেরাই দেখতে পারবেন, এবং নানা অজানা সূত্র সূত্র আবিষ্কার করতে পারবেন। প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয়, তিনটি সূত্র আবিষ্কার করে, বলা যায়না আপনিই হয়ে উঠলেন গানের জগতের নিউটন। নিউটন আপনাকে বানিয়ে দেওয়া যাবেনা অবশ্য, জাস্ট হয়ে ওঠার কায়দাটা এখানে বাতলানো হল। ফরাসী দেশ হলে এই নিয়ে দিগ্বিদিকে হইচই পড়ে যেত। লিরিকের 'ভালোত্ব' পিছলে যাওয়ার প্রক্রিয়াকে দিফাঁরস এবং একটা গানের ঘাড়ে আরেকটাকে চাপিয়ে এই পিছলে যাওয়াকে পুনরাবিষ্কার করার পদ্ধতিকে রিকনস্ট্রাকশন বলা হত। আঞ্চলিক ভাষায় লেখায় সেসবের চান্স নেই। তবু, লেখকের যেহেতু আপন-পর বোধ নেই, তাই মানবজাতির কল্যাণে এই লেখা গোবিন্দায় নমঃ বলে উৎসর্গীকৃত হল। পরম মঙ্গলময় আপনাদের মঙ্গল করুন।
    সংশ্লিষ্ট গানগুলি, জনগণের স্বার্থে এইখানে দিয়ে দেওয়া হল। মানবসেবায় গেতটাই যখন করলাম, তখন এটাই বা বাদ থাকে কেন।

    মেরা কুছ সামানঃ


    পৃথিবী হারিয়ে গেলঃ
    (গানটা খুঁজতে গিয়ে দেখি, ওটা মোটেই শতাব্দী রায়ের লিপে নয়। ওই টুকু প্রিন্টিং মিস্টেক মার্জনীয়)

    আকাশে ছড়ানোঃ


    ধুকুপুকু বুক কাঁপে শুধু যে রাতেঃ
  • | রেটিং ৫ (১ জন) | বিভাগ : ব্লগ | ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ | ১৭৯৮ বার পঠিত
  • আরও পড়ুন
    গল্প: - pradip kumar dey
    আরও পড়ুন
    গল্প: - pradip kumar dey
    আরও পড়ুন
    পরিশেষ - Katha Haldar
    আরও পড়ুন
    ছায়া - Rifon Sircar
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • অয়ন সরকার | 2409:4060:2191:905b:7894:a92b:fc90:a72c | ২১ আগস্ট ২০২১ ০৯:১৪496939
  • আপনার সঙ্গে আমি অনেকাংশে সহমত। তবু একটি মতানৈক্য থাকছে, সেটি না বলে পারছি না।


    একটা গানের ভাল লাগা না-লাগা, অধিকাংশ শ্রোতার ক্ষেত্রে সত্যিই সুরনির্ভর, এতে সন্দেহ নেই। খুব কম শ্রোতার ক্ষেত্রে গানের কথা গানটির উৎকর্ষের মানদণ্ড হয়ে ওঠে। আপনার লেখাটিও এই মতটিকেই স্বীকৃতি দেয়। মুশকিল অন্য জায়গায়। যে-দৃষ্টিকোণ থেকে 'সাহারা'-এর সঙ্গে 'আকাশে ছড়ানো'-এর স্থানবদলটি ঘটেছে, সেটি নিয়্র কিছু বলার নেই। কারণ ওই, ধরে নেওয়া হয়েছে সামান্য কিছুজনের কাছে গান বিষয়টা সুরের পপুলার দৃষ্টিকোণ থেকে বিচার্য নয়, কথার দিক থেকে। কিন্তু 'সামান'-এর সঙ্গে তার যে অনুবাদটি করা হয়েছে, সেটির খুব একটা ভিত্তি নেই। কারণ, সুরের কোনও অনুবাদ লাগে না, কিন্তু কথার ভাষার কোনও অনুবাদ সম্ভবই নয়। 'সামান' শব্দটি এখানে হৃদয়কে দ্যোতিত করুক আর না-ই করুক, কিছু এসে যায় না। কিন্তু 'সামান'-এর অনুবাদ হিসেবে মারমুখো হয়ে 'হৃদয়' বসানো হোক, 'লাগেজ' বসানো হোক, কী 'বিষাদ' বসানো হোক, কিছুতেই কিচ্ছু এসে যায় না। কোনও বিদেশি উপন্যাসের, গানের, কবিতার যখন অন্য ভাষার অনুবাদ পড়া হয়, সেটি কি পাঠককে বা শ্রোতাকে–নিরপেক্ষভাবে দেখলে–সথাযথ পরিতৃপ্তি, মুগ্ধতা এনে দিতে পারে কি? তার মানে কি এই যে সেই উপন্যাসটি/গানটি/কবিতাটি নিম্নমানের? বুদ্ধদেব বসুর ব্যোদলেয়রের অনুবাদ পড়ে যদি কারও সুপাঠ্য মনে না হয়, তবে কি এই বলা যায় যে  'লা ফ্ল্যর দু মাল' একটি মধ্যমানের শিল্প? 


    বিঃ দ্রঃ আমার ব্যক্তিগতভাবে হিন্দি গানের প্রতি কোনও বিশেষ সহানুভূতি নেই। ভুল বুঝবেন না আশা করি। আপনার বিশ্লেষণ আমাকে মুগ্ধ করে। নমস্কার জানবেন।

  • বিপ্লব রহমান | ২১ আগস্ট ২০২১ ০৯:৪২496942
  • হিন্দি গানের কিম্ভুত বঙ্গানুবাদ নিয়েও যদি দুকথা বলতেন! 


    যেমন, আশাজি গাইলেন, "খুব চেনা চেনা মুখখানি তোমার, লাগছে আমাকে!" :পি

  • dc | 27.57.18.76 | ২১ আগস্ট ২০২১ ১১:১৭496947
  • এ বাবা হিন্দি গানের লিরিক নিয়ে এতো লিখলেন অথচ শ্রেষ্ট লিরিকটাই বাদ দিয়ে দিলেন? এই সেই কালজয়ী লিরিকঃ 


    রাম্বা হো হো হো হো 


    সাম্বা হো হো হো হো।  


    শুনে নিন উষা উত্থুপের অমর কন্ঠেঃ 


  • শুভাশিস | 122.169.18.63 | ২১ আগস্ট ২০২১ ১১:৪৯496953
  • হা হা। একটা গানের সুরে আরেকটা গান গাওয়া বা গানের শব্দগুলো বিশেষ বিশেষ শব্দ দিয়ে বদলে দেওয়া কলেজের দিনের কথা মনে করালো।  

  • dc | 27.57.18.76 | ২১ আগস্ট ২০২১ ১২:১১496954
  • এটাও বাদ গেছেঃ জিলেল্লে জিলেল্লে আয়ো আয়ো জিলেল্লে। কোথায় এই সব দুনিয়া কাঁপানো লিরিক্স, আর কোথায় ওইসব বাক্সপ্যাঁটরা। 

  • আশিস গংগোপাধ্যায় | 2409:4061:2c0a:9810:8d0c:269e:54b4:8a36 | ২১ আগস্ট ২০২১ ১৩:০৬496956
  • গুরুদক্ষিণা সিনেমার গানগুলো নিয়ে একটা আলাদা পেপার লেখা যেতে পারে।


    ফুল কেনো লাল হয়, সে কি বলা যায়? এর মতো গভীর জীবন দর্শন ও আছে সেখানে।


    যাই হোক, লিরিক যা নিয়ে অহো অহো করি আমরা, সেগুলি যে আদতে খুবই হাস্যকর এটা নিয়ে খুব দ্বিমত নেই।

  • Amit | 118.211.26.57 | ২১ আগস্ট ২০২১ ১৩:৫৫496959
  • সেই ডন ভার্সেস বসন্ত বিলাপের সিকুয়েল টা অনেক দিন ডিউ ছিল। নেমে গেছে দেখছি।হিন্দি ভার্সেস বাংলা  সিনেমার গল্প , গানের লিরিক্স এপিসোডের পর এবার নাচের তুলনা  আসবে হয়তো। 

  • নামে কী এসে যায়? | 2405:201:9003:180d:ac91:ec81:f11b:5e50 | ২১ আগস্ট ২০২১ ১৪:০১496962
  • জঘন্য লেখা। হিন্দি বাংলা সব গানই ভালো লাগে। 

  • ঝর্না বিশ্বাস | ২১ আগস্ট ২০২১ ১৯:২২496974
  • দারুন দারুন... তবে এখন লিরিক্স গুলো জোরজার করে বেশি মিলিয়ে দেওয়া।.. তাই বারবার একই প্রশ্ন আসে "মেরা কুছ সামান" এর মত গান আর হবে কি ??

  • ইমানুল হক | 2401:4900:104b:59fe:0:6e:cd00:9f01 | ২৩ আগস্ট ২০২১ ১১:০৯497026
  • ভাবালে তুমি মোরে।
     
    মর্মে পশিবে কি? 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে মতামত দিন