এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  ব্লগ

  • গুরুচন্ডা৯ -- কিছু কথা, কিছু আলোচনা

    ঈশান লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ১৬ মে ২০১৬ | ১০০৫৮ বার পঠিত
  • গুরু, শুরুর দিন থেকে ধরলে বছর বারো বছর মত হল। অনেক রাস্তা টাস্তা হাঁটা হয়েছে, আমরা একই সঙ্গে নেটে এবং প্রকাশনা জগতে পা ফেলেছি। এখন আর শুরুর দিকের টলমল নেই, নেট এবং প্রকাশনায় গুরুর মোটামুটি একটা ব্র‌্যান্ড ভ্যালু হয়েছে। খুব বড়ো কিছু না, আবার খুব ছোটোও কিছু না। গুরুর পক্ষ থেকে ভবিষ্যতের কিছু পরিকল্পনা আছে, সেটা জানানোর, এবং আলোচনায় ফেলার জন্যই এই পোস্ট। অনেক গুলো কথা একসঙ্গে বলা হয়েছে, একটু ধৈর্য্য ধরে জনতা যদি পড়েন তো বাধিত হব। এছাড়াও খুব তাড়াতাড়ি করে লিখছি, কিছু ভুলভ্রান্তি অনবধানে হয়ে যেতে পারে, সে জন্য আগাম মার্জনা।
    প্রথমে গুরু কিভাবে বই ছাপে, এবং কেন ছাপে, সে নিয়ে দুই লাইন। প্রথম থেকেই আমাদের বই করার উদ্দেশ্যটা ছিল, সস্তা এবং পুষ্টিকর, যে কারণে চটি বই নামক ধারণাটির জন্ম। চটি নামটা একদম ইচ্ছাকৃতভাবেই দেওয়া হয়েছিল। চটি মানে স্রেফ সরু না, ‘চটি’ বলতেই বাঙালির অবচেতনে একটা বটতলার অনুষঙ্গ চলে আসে। ছাপা ও বাঁধাই সহ সেই অনুষঙ্গটা খুঁচিয়ে তোলার জন্যই বইয়ের নাম চটি। সচেতনভাবেই। বস্তুত মলয় রায়চৌধুরির একটা বইয়ের ভূমিকায় এরকম লেখাও হয়েছিল, ‘লেখক চেয়েছিলেন একটি বটতলার বই, আমরা ছেপেছি চটি’। বলাবাহুল্য উদ্ধৃতিটা হুবহু না, এখন আর খুঁজে বার করে দেখতে ইচ্ছে করছেনা, কিন্তু বিষয়টা এটাই। পুষ্টিকর জিনিস ছাপব, পাঠক লুফে নেবে, কিন্তু দামেও বেশি হবেনা, এই ছিল লক্ষ্য। লক্ষ্যটা এক অর্থে খানিকটা রাজনৈতিকও। একদিকে বাংলা ভাষার কোনো পাঠক নেই, কেউ পড়েনা, এই অভিযোগ দীর্ঘদিন ধরে আমরা শুনে আসছি। অন্যদিকে বইয়ের দাম অসম্ভব রকম বেড়ে চলেছে। দুটো একসঙ্গে হওয়া মুশকিল। বই লোকে না পড়লে বেশি দামী বই আরোই পড়বেনা। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে এটা ঘটে চলেছে। কারণ, প্রকাশকের দিকের লক্ষ্যটা থাকছে, যেহেতু পাঠকসংখ্যা কম, তাই কোনোক্রমে তিরিশ (বা চল্লিশ বা একশ)টা বই বেচেই যেন প্রফিট করে নেওয়া যায়। অতএব দাম হু হু বাড়ছে। এবং বালবাহুল্য পাঠক সংখ্যাও কমে আসছে। বলাবাহুল্য এটা একটা স্বল্পমেয়াদি লাভের আত্মঘাতী ধারণা। শর্টকাটের ধারণা। সেটার বিশদে পরে আসছি। কিন্তু এই জায়গা থেকে আমাদের একটা স্টেটমেন্ট দেবার ছিল। যার মূল পয়েন্ট দুটোঃ ১)বইয়ের পাঠক এখনও আছে। ২)কম দামে বই করা যায়। লোকে কেনে। পাঠক সংখ্যা তাতে কমে না, বাড়ে। কারণ লোকে কাগজের কোয়ালিটি পড়েনা, বই পড়ে। বাঁধাই ধুয়ে জল খায়না, ছাপা অক্ষর পড়ে।
    তা, এই স্টেটমেন্টটা আমরা রেখেছি। তাতে নানারকম সমস্যা হয়েছে। অন্তত একটি বড়ো পুস্তক চেন, আমদের বই রাখেননি। কারণ, একটা বইয়ের দাম যদি মিনিমাম তিনশো (বা চারশো ব পাঁচশো) টাকা না হয়, তাহলে তাঁদের প্রফিট মার্জিন বিশেষ থাকেনা। লার্জ স্কেলে অল্প প্রফিটে জিনিসপত্র বেচলে কেন শেষপর্যন্ত বেশি প্রফিট হবেনা, এই যুক্তিজাল তাঁদের মাথায় নেই। তো, এটা জেনেই খেলতে নামা হয়েছিল। কিছু বিকল্প আউটলেট ভাবা হয়েছে এবং হচ্ছে। তার মধ্যে বইমেলাটা সবাই জানেন, কিন্তু আরও বেশ কিছু আউটলেট, তালিকায় জমা হচ্ছে। সেসব যথাসময়ে ও স্থানে প্রকাশ্য।
    তা, এই সমস্যাটা আমাদের জানা ছিল। কিন্তু খুব সাম্প্রতিককালে আরও কিছু সমস্যা দেখা গেল, যেগুলো আগে থেকে ভাবা যায়নি। সমস্যাটার ফোকাল পয়েন্ট একটাই। যে, গুরুর জনপ্রিয়তাকে অনেকেই তাঁদের নিজেদের মার্কেটিং প্লাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার করতে চাইছেন। এর গোটা দুই তিন উদাহরণ আছে। শেষ থেকে শুরু করা যাক। আমাদের বইপত্রের জনপ্রিয়তা, যেকোনো কারণেই হোক, ভালো। কারণ বলতে লেখক আছেন, লেখার মান আছে, আমাদের প্রচার আছে, এবং অবশ্যই পাঠকের বিশ্বাস আছে, যে আমরা যা করি বেছেই করি। বই গছিয়ে দেবার জন্য করিনা। ফলে অনেকেই এসে বাঞ্চে বই নিয়ে যান। এবং বইপত্র শেষ হয়ে যায়, পাবলিসিটিও হয়। তা, সাম্প্রতিককালে দেখা গেল, এক লেখকের এরকম কিছু বই আমাদের বিপণনে জনপ্রিয় হবার পর, একটি তুলনামূলক ভাবে বৃহৎ প্রতিষ্ঠান, তাঁর সঙ্গে চুক্তি করে ফেলল, যে, তারা তাঁর রচনাবলী ছাপবে। সে খুবই আনন্দের কথা। কিন্তু সঙ্গে সাবক্লজ এই, যে, তাঁর আর কোনো লেখা, এমনকি যেগুলো আমরা ইতিমধ্যেই প্রকাশ করে ফেলেছি, সেগুলোও আমরা আর ছাপতে পারবনা। ফলে, বস্তুত জিনিসটা দাঁড়াবে এই, যে, বিপণনটি আমরা করলাম, কিন্তু এরপরে আগ্রহী পাঠককে পাঁচগুণ দাম দিয়ে সেই বই কিনতে হবে অন্য প্রকাশনা থেকে। পাঠকসংখ্যা নিশ্চয়ই বিপণনের কারণে কিছু বাড়বে। কিন্তু আমরা যে উদ্দেশ্যে বইটি ছাপছিলাম, উদ্দেশ্যটাই ব্যাহত হবে। এটা আমরা আটকাতে পারিনি, কারণ আমরা কোনো লেখকের কোনোরকম স্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ হোক, এই চুক্তি করিনা। কিন্তু বই প্রিন্টের ক্ষেত্রে এবার থেকে ন্যূনতম শর্তাবলী আরোপ করার কথাই ভাবা হচ্ছে।
    দ্বিতীয় ঘটনাটি (কালানুক্রমিকভাবে সেটা অবশ্য আরও আগে ঘটেছে) আরও বিস্ময়কর। আমাদের কাছে একটি পত্রিকা ‘অন্য যৌনতা’র একটি লেখা ছাপবে বলে অনুমতি চেয়েছিল, আমরা বলেছিলাম কৃতজ্ঞতা স্বীকার করলে ছাপতে পারেন। কার্যত দেখা গেল এক গাদা লেখা ছেপে বসে আছেন, এবং কোনো কৃতজ্ঞতা স্বীকার নেই। এটা ছিল একটা পত্রিকা, এবং তারপর, আরও বিস্ময়কর, যে, একজন নামী প্রকাশক, সেটাকে বই বানিয়ে ফেলার উদ্যোগ নিলেন। তাঁরা অনুমতি চাননি, আমাদের জানানও নি। হয়তো ইনফর্মেশন ছিলনা, তাও হতে পারে, জানা নেই। তা, আমরা জানার পর আপত্তি জানিয়ে এসেছি। বইটা ছাপা হয়েছে বলেও শুনিনি। হয়তো অসদুদ্যেশ্য কিছু ছিলনা, শুধুই যোগাযোগের অভাব ছিল। সেটা আমাদের জানা নেই। কিন্তু আমাদের দিক থেকে ঘটনাটা হল, যে, আমরা একটি উদ্যোগ নেব, দীর্ঘদিন পরিশ্রম করব, কম দামে পাঠকের হাতে তুলে দেব, আর সেটাকে বিনা আয়াসে মলাটে বেঁধে কেউ তিনগুণ দামে বিক্রি করার উদ্যোগ নিচ্ছেন, বিন্দুমাত্র স্বীকৃতি ছাড়া, এতে করে ‘সস্তায় চটি বই’ কনসেপ্টটি চূড়ান্ত ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। এবং ক্ষতিগ্রস্ত আমরা হচ্ছি।
    এইগুলো আমার দিক থেকে মনে হছে, অন্য কিছু না, শর্টকাটের প্রসেস। ‘বইয়ের বিক্রি হয়না’, অভিযোগটা যে জায়গা থেকে আসে। বইয়ের দাম প্রচুর বাড়িয়ে চট করে লাভ করে নেবার ধারণাটা যে জায়গা থেকে আসে। এবং অন্য উদ্যোগের ফল থেকে ঝট করে লাভ করে নেবার ইচ্ছেটা(কখনও অনৈতিকভাবেই) যেখান থেকে আসে। প্রচুর পাবলিকেশন হলে সমস্যা নেই। যত বই ছাপা হয়, তত ভালো। কিন্তু ছাপার এবং স্বল্পমেয়াদি লাভ করার বাসনায় পাঠকসংখ্যা কমিয়ে বাংলা বইয়ের অন্তর্জলী যাত্রার ব্যবস্থা সম্পন্ন করা হচ্ছে। কেউ বৃহত্তর পাঠকের কাছে পৌঁছনোর কষ্টসাধ্য কাজটা করছেননা। গুরু এত বছর ধরে যে নেট ওয়ার্কটার পিছনে সময় দিয়ে যাচ্ছে। উল্টোদিকে তৈরি নেটওয়ার্কটা ব্যবহার করে পুশ সেল টেল করে ঝটিতি কর্ম সমাধা করছেন। যেটুকু পাঠকবেস তৈরি হয়েছে, সেটা নিয়ে, অত্ঃপর কামড়াকামড়ি হবে। এর বাইরে যে বিরাট আন এক্সপ্লোরড এলাকা পড়ে আছে, সেদিকে কোনো নজরই নেই কারো।
    আমরা এই শর্টকাটের পদ্ধতিটা কখনও নিইনি। এই বারো বছর ধরে আমরা লড়ে গেছি। শূন্য থেকে শুরু করে। আজ পর্যন্ত অন্য জায়গা থেকে যেকটি লেখা আমরা নিয়েছি, প্রতিটি, অনুমতিসাপেক্ষে। এবং কৃতজ্ঞতা স্বীকার সমেত। একটিও ব্যতিক্রম নেই। জয়া মিত্রের একটি অনুবাদ লেখা আমরা প্রকাশ করেছিলাম। আমেরিকান প্রকাশকের কাছ থেকে অনুমতি নিতে (আসলে ডলারে কিনতে হয়েছিল), দেরি হওয়ায় জয়াদিকে দুঃখ দিয়ে আমরা বই প্রকাশ গোটা একবছর পিছিয়ে দিই। ফলে আমাদের দিক থেকে এই শর্টকাটটা একেবারেই গ্রহণযোগ্য না। লেখার অনুমতি নেওয়া, সৌজন্য স্বীকার, নেটে হোক বা বইয়ে, আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। যেদুটো উদাহরণ দিলাম, তার বাইরেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে এসব ঘটেছে। সেটা কাম্য না। আমরা নিজেরা এগুলো মেনে চলি, অন্যরাও মেনে চলবেন, প্রত্যাশা করি। যেকোনো জায়গায়, এর অন্যথা হলে, আমরা যথাসাধ্য ব্যবস্থা নেব।
    তো, এইগুলো হল বাহ্যিক সমস্যা। আভ্যন্তরীন কিছু গপ্পোও আছে। কিছু সমস্যা, কিন্তু পরিকল্পনা। মূলত যেগুলোর জন্য এই লম্বা এবং বোরিং লেখার অবতারণা। প্রথমে সমস্যাটা বলি। সেটা গুরুর মডেল সংক্রান্ত। মডেল বলতে চটি বই, ইত্যাদি, যেটা আগেই ব্যাখ্যা করলাম। আমরা বইয়ের দাম কম, খুবই কম রাখি। নীতিগতভাবেই। ফলে বইয়ের বিক্রি খুবই ভালো হলেও, আমাদের মেরেকেটে টাকাটা উঠে আসে। কখনও সামান্য কিছু লসও হয়, কিন্তু সেটা অ্যাবসর্ব করে নেওয়া যায়। এগুলোর কোনোটাই কোনো সমস্যা না, কারণ আমরা প্রফিটের জন্য এই খেলায় নামিনি। সমস্যা এই, যে, এইভাবে চললে আমাদের টাইটেলের সংখ্যা প্রত্যাশিতভাবে বাড়ছেনা। প্রাথমিক বিনিয়োগ কম থাকায়, যেটুকু রোল করছে, সেটা থেকেই পরের বই ছাপতে হচ্ছে, এবং আমরা বছরে চার-পাঁচ-ছয় এর বেশি বই ছেপে উঠতে পারছিনা। শুরুর দিকে, এটা কোনো সমস্যা ছিলনা। ছাপার জন্য অত বই ছিলনা। কিন্তু এখন তো ঠিক শুরুর ফেজ না। প্রকাশযোগ্য বইয়ের সংখ্যা দেখি ভালই। কিন্তু অত বই ছেপে উঠতে পারিনা। ফলে ক্ষতিটা পাঠকেরই হয়। এই হচ্ছে সমস্যা।
    সমস্যা সমাধানের একটা উপায় হতে পারে, ঝট করে বইয়ের দাম বাড়ানো। সেটা করতে চাইনা একেবারেই। নীতিগতভাবে চটি বই শুরু করার লক্ষ্য একটাই ছিল, কম দামে সস্তা বই পাঠকের কাছে পৌঁছনো। সেটা থেকে সরে ‘দামী’ প্রকাশক হবার কোনো মানে নেই। সেটা ভাবাও হচ্ছেনা। পরিবর্তে আরেকটা উপায় ভাবা হচ্ছে। যদি বইয়ের স্পনসরশিপ নেওয়া যায়। ব্যক্তি করুন বা প্রতিষ্ঠান( যদিও কেন কোনো প্রতিষ্ঠান এটা করবেন, জানা নেই, কিন্তু তবুও, বলা তো যায়না)। অফিশিয়ালি সেটার নাম দেওয়া যায় "বই দত্তক নেওয়া"। মডেলটা এরকমঃ যাঁরা প্রোজেক্টটায় আগ্রহী, হাত তুললেন। আমরা সম্ভাব্য বইয়ের নাম বা তালিকা তাঁদের কাছে উপস্থিত করলাম। এবার সেখান থেকে বেছে নিয়ে (যদি পছন্দ হয়)একটি বইয়ের আংশিক বা সম্পূর্ণ খরচ আগ্রহীদের মধ্যে থেকে কেউ বা কোনো প্রতিষ্ঠান বহন করলেন। বইতে তাঁদের নাম দেওয়া হল। লেখকও কিছু টাকা পেলেন, বইয়ের দামও সস্তা রাখা হল। বলাবাহুল্য টাকাটা দত্তকদাতা ফেরত পাবেননা। ওটা বইয়ের পরবর্তী সংস্করণে রোল করবে। এক্সক্লুসিভলি।
    দ্বিতীয় আরেকটি ব্যাপারেও সাহায্য চাইব। সেটি আর্থিক নয়। একটা গুরুচন্ডালি লেখক-পাঠক সমবায় তৈরির কথা ভাবা হচ্ছে। তেমন কিছু না, একটি মেলিং লিস্ট। সেখানে যাঁরা আগ্রহী, তাঁরা বইগুলি নিয়ে নানা প্রোমোশানে একটু সাহায্য করবেন। টুকটাক আর কি। এটাও বেশ জরুরি কাজ, কিন্তু খুব বেশি পরিশ্রম নেই। কেউ আগ্রহী থাকলে জানাবেন।
    আমার/আমাদের দিক থেকে মডেল এটাই। চটি পাঠকের কাছে পৌঁছনোর একটা পন্থা। পাঠকসংখ্যা বাড়ানো, পাঠকের কাছে বই নিয়ে যাওয়া, এই আমাদের ঘোষিত অবস্থান। চটি একটা উপায়। চটি ছাপব, দরকার হলে অন্য পন্থাও নেব। কিন্তু পাঠকের বেস বাড়ানোর অবস্থান থেকে এই মুহূর্তে সরছিনা। বিষয়টায় আগ্রহী হলে জানান। অন্য কোনো মতামত থাকলেও অবশ্যই জানান। সেই জন্যই এই লেখা জনারণ্যে প্রকাশ করা। কীভাবে কী করা হয়, ভাবা হয়, ভাবা হচ্ছে, এই নিয়ে নানা স্পেকুলেশন, প্রচার, অপপ্রচার নানাদিকে হচ্ছে। আমাদের দিক থেকে পরিষ্কার ভাবে জানানো হল। কোনো প্রশ্ন করার থাকলে এখানেই করে ফেলুন। অন্য কোনো স্পেকুলেশনে কান দেবেননা। নানা জায়গায় নানা কথাবার্তা হয়, সেসব আমাদের কানেও আসে। কিন্তু ওতে গুরুত্ব দেবেননা। আমরাও দিইনা। যাকে বলে ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে মাপ করে দিই। :-)

    পুঃ যাঁরা যোগাযোগ করতে আগ্রহী, [email protected] এ একটা মেইল ঠুকে রাখতে পারেন। এখানে জানালে বা মেসেজ করলেও হবে।

    পুঃ পুঃ ভবিষ্যতে গুরুর একটি নোটিসবোর্ড ব্লগ হবে। এখনও নেই, লেখাটাতেও প্রচুর 'আমি', আমি ' আছে, ঠিক নৈর্ব্যক্তিক নোটিস না। তাই ব্যক্তিগত ব্লগেই থাক। কিন্তু আহ্বানটা গুরুর দিক থেকেই।
  • ব্লগ | ১৬ মে ২০১৬ | ১০০৫৮ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • de | 24.139.119.174 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৪৮53587
  • টুলার লেখাগুলো সব প্রফেশনাল ওয়ার্ল্ডের জন্য সত্যি - এক্ষেত্রে গুরুর হয়ে বা লিরিক্যালের হয়ে কাজ করার কোনটাই কি প্রফেশনাল হিসেবে করা? এগুলোর বেশীর ভাগই তো মানিটারি বেনিফিটের জন্য করা নয়। অন্ততঃ আমার তো এগুলোকে পেশা হিসেবে মনে হয়নি। সুতরাং অতো ক্লিয়ারকাট প্রফেশনাল অ্যাপ্রোচ থাকবে না।
  • pi | 74.134.66.54 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৪৯53588
  • মানে, আমার দিক থেকে এরকম কোন দাবিদাওয়াই বা ভুল বোঝা ছিলই না যে ঋত গুরুর লোক বা এমপ্লয়ী। সমস্যা হয়েছে, ঋতর নিজের নিরপেক্ষতা দেখানোর চেষ্টা নিয়ে। নিরপেক্ষতার অবস্থানে কনফ্লিক্ট অব ইন্টারেস্ট আছে বলেছি।

    আর কারুর পাবলিক ফোরামে লেখালেখি সম্পূর্ণ তার ব্যাপার। ওখানে লিখলে বা বই বেরোলে গুরুর সাইটে বা গ্রুপে লেখা যাবেনা, এরকম কোন ব্যাপরই জাস্ট নেই।

    পাঠকের এই পোস্টের ৩ নং পয়েন্ট পড়লাম এখন। এরকম কিছুই মনে হয়েছে।
  • | 183.24.110.20 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৫০53589
  • অরিজিত, না। আমি ইস্টবেঙ্গল সাপোর্টার বলে যখন লোকে জানে তখন মোহনবাগান গ্যালারিতে গিয়ে সিটি বাজিয়ে আমার ইস্টবেঙ্গল কে জ্ঞান দেওয়া সাজে না। ওটাকে 'ছদ্মনিরপেক্ষতা' বলে।এইটা না বোঝার খুব কিছু আছে বলে মনে হয় না।
  • de | 24.139.119.174 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৫৪53590
  • আরো একটা প্রশ্ন এলো - ওই ট্যাক্স নিয়ে -

    এনারাইদের এদেশে ছাপানো বইয়ের রয়ালটি হিসেবে প্রাপ্য টাকার ট্যাক্স কি এদেশে দিতে হয় না ওদেশে ফিরে গিয়ে দিতে হয়? এটা একদম জেনারাল প্রশ্ন। কারো কথা ভেবে করিনি। কাল থেকে ট্যাক্সের কথা মাথায় ঘুরচে -
  • de | 24.139.119.174 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৫৬53591
  • ঋত, রঞ্জনদা, সে এরা গুরুতে যেমন আসতেন, লিখতেন, তেমন থাকলেই ভালো হয়! গুরু তো কারোকে চলে যেতে বলেনি - ঃ((
  • pi | 74.134.66.54 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১১:৫৯53592
  • হ্যাঁ, কাউকেই চলে যেতে বলা হয়নি। আমরা বলারই বা কে !
    আমি তো এসব সেই কবে থেকে জানার পরেও গুরুতে বা মেলায় কথা বলে গেছি।
  • d | 144.159.168.72 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:০৩53593
  • এই ত্যাক্সের প্রশ্নটার উত্তর আমি জানি :-) মানে বই বা রয়ায়ালটি নয়, জেনেরাল ইনকাম হিসেবে জানি আর কি। তুমিও একটু ঘাঁটলেই পেয়ে যাবে।
  • cb | 83.197.188.200 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:০৪53594
  • আরে সর্বনাশ, "বউয়ের দায়" ব্যাপারটি কোত্থেকে এল রে ভাই? পয়েন্টটি ছিল অব্জেক্টিভিটি, নিরপেক্ষতা ( বা চোরা বায়াস) ইত্যাদি নিয়ে

    তবে ২ ১ জন পরে ব্যাপারটি ধরেছেন দেখলাম
  • cb | 83.197.188.200 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:০৬53596
  • আরে সর্বনাশ, "বউয়ের দায়" ব্যাপারটি কোত্থেকে এল রে ভাই? পয়েন্টটি ছিল অব্জেক্টিভিটি, নিরপেক্ষতা ( বা চোরা বায়াস) ইত্যাদি নিয়ে

    তবে ২ ১ জন পরে ব্যাপারটি ধরেছেন দেখলাম
  • cb | 83.197.188.200 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:০৬53595
  • আরে সর্বনাশ, "বউয়ের দায়" ব্যাপারটি কোত্থেকে এল রে ভাই? পয়েন্টটি ছিল অব্জেক্টিভিটি, নিরপেক্ষতা ( বা চোরা বায়াস) ইত্যাদি নিয়ে। বউয়ের দায় কথাটি টোটালি মাথা থেকে মুছে ফেলুন

    তবে ২ ১ জন পরে ব্যাপারটি ধরেছেন দেখলাম
  • cb | 83.197.188.200 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:০৮53597
  • ৩ বার পোস্ট হয়ে গেল ক্যানে?
  • de | 69.185.236.53 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:০৮53598
  • বাপ্রে সিবি- মাথায় এট্টু জল থাবড়ান - "বউয়ের দায়" আফনের নয় ঃ))
  • PM | 116.76.152.213 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:১৪53599
  • কোথাকার নাগরিক তার ওপোর নির্ভর করবে। আমেরিকার নাগরিক হোলে, বিদেশের রোজগার ওখানে দেখাতে হবে।

    ভারতের নাগরিক হলে দেশের রোজগার ট্যক্সেবল হলে এখানে ট্যাক্সো দিতে হবে

    ভারতের ট্যাক্স রুল অনুযায়ী ছ মাসের ওপোর বিদেশে থাকলে NRI বলে গন্য হয় । ভারতের নাগরিক হলেও।

    ডুয়াল ট্যাকসেসন না করার জন্যেও একটা চুক্তি হয়েছে ক বছর আগে আমরিগার সাথে। তার সুত্রেও কিছু সুবিধ্হা পাওয়া যায়।

    সিকি কোথায় ডিটেলে লিখেছিলো এটা নিয়ে। আমিও এককালে ভুক্তোভুগী ছিলাম এসব কঠিন নিয়ম কানুনের ঃ(
  • cm | 52.110.174.59 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:২০53600
  • এ বিতর্কে একেবারেই বহিরাগত হিসেবে এ মন্তব্য। সাম্প্রতিক অতীতে এরকম ৯ এর ব্যবহার আমি গুরুচন্ডালি ছাড়া অন্যত্র দেখিনি। তাই Comment from Rit on 15 January 2017 09:58:54 IST 213.110.242.8 "তবে কমনলি ব্যবহৃত সিম্বলের, লেটারের, ফর্মুলার কপিরাইট হয় না।" পড়ে একটু অবাক হই, কারণ মনে হচ্ছিল এখানে ঐ ৯ এর কথাই বলা হচ্ছিল। সেই বিষ্ময় জানাতে Comment from cm on 15 January 2017 10:04:46 IST 127.247.96.180 লিখি "কমন৯!" তাতে Rit উত্তর দেন, "ঠিক। কমন৯!"। এখানে ঐ ৯ এর ব্যাপারটা অস্বীকারের একটা চেষ্টা দেখছি। ৯ এর ঐ প্রয়োগ আবার ফিরিয়ে আনার বুদ্ধি কার জানিনা তবে হ্যাঁ আমি যদি ওভাবে লিখি স্বীকার করতে আপত্তি থাকবেনা যে সেটা এখান থেকেই পেয়েছি। (আমার শৈশবে অবশ্যই ৯ বলে একটা অক্ষর অবশ্যই ছিল)।

    আর কনফ্লিক্ট অফ ইন্টারেস্ট প্রসঙ্গে আমার ছেলের কোম্পানির বিরুদ্ধে রামবাবুর ছেলের কোম্পানি আইন আদালত করবে কি করবেনা সে বিষয়ে মতামত দানে বিরত থাকাই শ্রেয় মনে করি।
  • pinaki | 90.254.154.105 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:২৩53601
  • হ্যাঁ, এখানে কনফ্লিক্ট অফ ইন্টারেস্ট অবশ্যই আছে যদি কেউ নিরপেক্ষ বলে নিজেকে দেখানোর চেষ্টা করে। আমার বউ যদি নিভিয়া কোম্পানিতে কাজ করে আর আমি যদি সাংবাদিক হই ও আমাকে পন্ডস আর নিভিয়া দুটো কম্পিটিং কোম্পানির কোনো প্রোডাক্টের কম্পারেটিভ রিভিউ লিখতে ডাকা হয়, সেক্ষেত্রে যা হবে, এখানেও সেটাই হচ্ছে। আমাকে ইন ফ্যাক্ট ডাকাই হবে না, এটা অ্যাজিউম করে যে আমি দুটো কোম্পানি থেকে সমদূরত্বে নেই।

    এত কথা উঠতো না, যদি ঋত কয়েকজন, যাদের মনে হচ্ছে তাদের পেছন থেকে ছুরি মারা হয়েছে, তাদের ইমোশানটাকে কোনোরকম গুরুত্ব না দিয়ে ঐসব জর্জ বুশ-টুশ না বলত। এবং 'খিল্লীই শেষ কথা' - টাইপের ইনসেন্সিটিভিটি না দেখাতো। নিজেকে বরং এই প্রশ্নটা করে দেখলে পারে, যে এরকম সাদা চোখে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে টাইপের অনৈতিক আচরণকে স্পষ্টভাবে অনৈতিক বলার সাহসটুকু কেন দেখাতে পারছে না?

    আমার মনে হয় এই আলোচনাটা আর এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কোনও মানে নেই। সুমেরুদা বা সামরানদি যদি এই সুতো পড়ে, নিশ্চয়ই বুঝবে যে লোকে কিভাবে দেখছে। আশা করব সেটাকে সিরিয়াসলি নেবে আর অ্যাজ আ জেশ্চার অফ গুডউইল, লিরিকালের নাম থেকে ৯ টা বাদ দেবে। যদি অবশ্য এই তিক্ততা পেরিয়ে সামনের দিকে তাকানোর ইচ্ছে থাকে।
  • cm | 52.110.174.59 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:২৬53602
  • নিরপেক্ষতা প্রসঙ্গে আমার অবস্থান সর্বজনবিদিত তাই ও নিয়ে মন্তব্য নাই।
  • :( | 186.10.104.240 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:৩২53603
  • কিন্তু কাবলিদা বেইমানী করল কেন? হোয়াই?
  • তাতিন | 213.110.242.23 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:৪৬53604
  • ঋত্বিক, গুরুর ফেবু গ্রুপ বা সাইটে গুরুতে লেখা ছেড়ে দিতেই পারো। আফটার অল গুরু বা লিরিকাল সবকিছুর মাদারই ক্যালকম। ঐটাতে থাকলেই হল।
  • তাতিন | 213.110.242.23 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:৪৯53606
  • পিনাকিদা, একটা সিমপ্ল জিনিস কেন বুঝছ না? ৯ রাখতে চায় বলেই নামটা ৯ঋকাল রাখা। না হলে যারা শুধু নন-ফিকশন, গদ্য ছাপে বলে জানিয়েছে তারা হঠাৎ প্রকাশনীর নাম লিরিকাল রাখবে কেন?
  • dc | 167.50.105.247 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:৪৯53605
  • একেই বলে বউয়ের দায়। আসলের সাথে সুদ সমেত আদায়।
  • Pinaki | 148.227.175.133 (*) | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১২:৫৭53607
  • না সরালে না সরাবে। সেক্ষেত্রে টুক৯র কলঙ্কটাও ব্যাগেজ হিসেবে বয়ে বেড়াতে হবে। কোনটা চায় সেটা তো ওদেরই ঠিক করতে হবে, তাই না? আজকে যারা হাওয়া দিয়েছে জাস্ট সৈকতদা বা ইপ্সিতা বা শমীককে পছন্দ করে না বলে, তারা আগামী দিনেও পাশে নাও থাকতে পারে।
  • rabaahuta | 60.180.243.60 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০২:২৫53636
  • দমদির 21:30:03, হ্যাঁ, অবশ্যই, এগুনো উচিত এইবার, কাজকর্মে, ইন্ট্রোস্পেকশনে।
    এমনিতে এই কথাগুলো প্রকাশ্যে আসা প্রয়োজন মনে হচ্ছিল। না হলে এদিক ওদিক কনফিউশন বাড়ে; সমাধান হয়তো এক্ষুনি হবে না, কিন্তু গুরুর দিক থেকে অন্তত তথ্য/ খারাপ লাগার জায়গাগুলো সামনে আসা; আড়ালবিহীন কমিউনিটির ধুঁয়োতে। তা হয়ে গেল।
  • ঋত্বিকের মতো | 52.110.153.72 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০২:৫৮53669
  • একককে যে কিছু শুনতে হল না নিরপেক্ষতা সংক্রান্ত, সেটা ভালো।
  • ঋত্বিকের মতো | 52.110.153.72 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০২:৫৮53670
  • একককে যে কিছু শুনতে হল না নিরপেক্ষতা সংক্রান্ত, সেটা ভালো।
  • b | 24.139.196.6 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০৩:১৯53671
  • কেন কেন? ব্যক্তি হনু কম হনু কিসে? উনি সব সময়ে ন্যাজ বার করতে ন্যাজ্জা পান বলেই কি এই হেনস্তা?
  • dc | 132.174.91.216 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০৩:৫৫53672
  • কিন্তু কমরেড একক, চন্দ্রবিন্দু না দিয়ে কি ঠিক হলো?
  • ট্যারান টুলা | 37.63.136.171 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০৪:১১53637
  • হ্যাঁ, যা কিছু খোলসা হওয়ার ছিলো হয়ে গেছে। ব্র্যান্ড থেফ্‌ট ইত্যাদি নিয়ে কেউ দুঃখপ্রকাশ করবে বা রিব্র্যান্ডিং করবে এ মনে হয় না। ভবিষ্যতের কথা ভেবে একটু প্রফেশনাল হওয়া ভালো। কপিলেফট হলেও সেই সংক্রান্ত লাইসেন্স নিয়ম ইত্যাদি দেখে সেই মত ব্যবস্থা করা হোক।
  • Tim | 108.228.61.183 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০৫:১৬53638
  • ইদানিং নানা কারণে আর গুরুতে আসা হয়না তবু এই বিষয়ে কয়েকটা কথা বলে যাই।
    ১।  গুরুর তরফে পাই যা যা এখানে লিখেছে, সেগুলো নিয়ে আরো অনেক আগে লেখালেখি দরকার ছিলো। বাংলা সাহিত্য করতে হলে যদি আকচা-আকচি করতে হয় তো সেটা না করাই ভালো - এরকম মানুষ কম হলেও কেউ কেউ আছেন। তাঁদের জন্যেও এই ইতিহাসটুকু শেয়ার করা খুব দরকার ছিলো। নইলে বাইরে থেকে গল্পটা দুটো পাবলিকেশন হাউসের বাওয়ালের মত লাগবে। স্রেফ বাংলা বইপত্তর ভালোবাসেন যাঁরা তাঁদের জন্য এটা খুবই দূর্ভাগ্যের কথা যে বাই-প্রোডাক্ট হিসেবে এই বাওয়াল তাদের প্রাপ্য হচ্ছে। পাই-কে সম্প্রতি কথা প্রসঙ্গে একবার বলেছিলাম - বাংলা সাহিত্যের সাথে জড়িত থাকা পাপ। এই কথা আজকাল খুবই মনে হয়।
    প্রতিনিয়ত আমরা-ওরার দ্বন্দ্বে নিজেদের আনুগত্য আর এথিক্সের পরীক্ষা দিতে দিতে ( তাদের কাছে যাদের নিজেদের নৈতিকতা প্রশ্নাতীত নয়) এই উপলব্ধি হয়েছে।
    ২। লিরিকাল যে কয়েকটা জায়গায় আন-এথিকাল স্টেপ নিয়েছে সেটা নিয়ে দ্বিমত নেই।
    বিশেষতঃ স্টল নেওয়ার সময় গুরুর পাবলিকেশন দেখানোর বিষয় অত্যন্ত গুরুতর অভিযোগ, এবং এখনও কোন প্রতিবাদ এলোনা দেখে মনে হচ্ছে সত্যি অভিযোগ। আশা করবো এই বিষয়ে গুরু ফলো-আপ করবে। আমি ব্যক্তিগতভাবে খুবই হতাশ এই অভিযোগগুলো সত্যি হলে, কারণ ভালো বই করার জন্য এইগুলোর প্রয়োজন ছিলোনা।

    ৩। এটাও দেখা গেল যে লেখালেখি করতে গেলে উল্টোদিকের লোককে ম্যানিপুলেটিভ ভেবে নিয়েই এগোতে হচ্ছে। যা খুবই দুঃখের, বিশেষতঃ তাদের কাছে যারা অফলাইন ঝামেলাগুলো থেকে দূরে থাকতে চায়।
    ব্যক্তিগতভাবে লিরিকালের সুমেরুদা বা সামরানদিকে আমি প্রথম চিনি গুরুর লোক হিসেবেই। ফলে নেপথ্যকাহিনী না জানলে এটা জানা সম্ভবই না যে বন্ধুরা বন্ধুদের নিয়ে দাবা খেলছে। এটা, আমার মতে সবথেকে বড়ো বিশ্বাসভঙ্গ। ৯ চুরির থেকেও, কারণ আমি গুরুতে ৯ দেখে আসিনি, রক্তমাংসের কয়েকজন মানুষ (বা তাদের নিক) দেখে এসেছিলাম। স্বাভাবিক সৌজন্য, ভদ্রতা, এগুলো আজকাল সেকেলে হয়ে গেছে। তবে সেই সাথে এটাও বলে রাখা ভালো লিরিকাল যে গুরুর সিস্টার গ্রুপ এই জাতীয় কোন ধারনা আমাকে সুমেরুদা বা সামরানদি দেয়নি। তারা নতুন প্রকাশনা হিসেবেই লিরিকালের কথা আমাকে জানিয়েছিল। পরবর্তীকালে বইপত্তরের ছবিছাবা ফেসবুকে দেখতে পাই। এটা ভেবে ভালো লেগেছিলো যে খুব যত্ন করে সামরানদি রা বই করছে।

    ৪। খুব বেশি করে শুনতে পাচ্ছি "খারাপ লাগার কথা"। মৌনতাকে নীরব সমর্থন বলেও মনে করা হচ্ছে। খারাপ লাগার কারণ আছে বৈকি। কিন্তু গুরুর তো ঐতিহ্যই ব্যক্তিগত খারাপ লাগালাগি নিয়ে "আদিখ্যেতা" না দেখানো। অন্যায়, অসভ্যতা দেখেও চুপ করে থাকাটা তো গুরুতে নতুন নয়।  
    কিছু বলছেনা মানেই সমর্থন করছে - অর্থাৎ অন্যদলে ---এইটা খুব দূর্ভাগ্যজনক। এককের কথাটা আমার ভালো লাগলো, গুরুর এটা ভেবে দেখার মনে হয় দরকার আছে কেন মাঝে মাঝেই ভুল বোঝাবুঝি বা দূরত্ব তৈরী হচ্ছে। মূলতঃ অনিচ্ছাকৃত দূরত্বের কথা বলছি। ইচ্ছাকৃত হলে আলাদা কথা।

    ৫। যে বিপজ্জনক ট্রেন্ড গুরুতে বহুদিন ধরে আমদানি হয়েছে তা হলো সাস-বহু স্টাইলে কথা চালাচালি করা। এতে আর যাই হোক ভালো যে হচ্ছেনা তা সাম্প্রতিক গোলমালগুলো থেকে ভালোই বোঝা যাচ্ছে। আপনি জানতেই পারলেন না যে আপনি অমুককে সহ্য করতে পারেন না, এদিকে সেই ব্যক্তিকে সেটা গিলিয়ে দেওয়া হলো, এই জিনিস যে কতটা বিরক্তিকর ও ভয়ের, কল্পনা করাও কঠিন। এগুলো বন্ধ না হলে ক্রমাগত ভুল বোঝাবুঝি হতে থাকবে, বাড়তে থাকবে। এর ফলে যাদের এই ঝামেলায় যাওয়ার সময় বা ইচ্ছা বা কারণ নেই, তাদের বাধ্য হয়ে এখানে আসা বন্ধ করতে হবে।

    সবশেষে, বাংলায় ভালো পাবলিকেশন হাউজ সবসময়েই স্বাগত। গুরু যে ধরনের বই বার করছে তার সাথে লিরিকালের বইয়ের কোন কনফ্লিক্ট আছে বলে এই মুহুর্তে মনে হচ্ছে না।

    সাধারণ পাঠক হিসেবে আমি চাইব গুরু এবং লিরিকাল দুজনেই ভালো বই করুক। সেই সঙ্গে পারষ্পরিক বোঝাপড়া গুলো নিজেদের মধ্যে আলোচনায় মিটিয়ে নিলেই ভালো হয়, যাতে অবাঞ্ছিত চাপানউতোর থেমে গেলে, যখন দুটি সংস্থা নিজেদের কাজে মন দেবে তখন যেন
    "ঐতিহাসিক কারনে" কোন একটি পাবলিকেশনকে ব্রাত্য করে কাউকে আনুগত্যের পরীক্ষা না দিতে হয়।
  • copyright law | 190.179.142.7 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০৫:২৪53639
  • http://copyright.gov.in/documents/handbook.html

    Does copyright apply to titles and names ?
    Copyright does not ordinarily protect titles by themselves or names, short word combinations, slogans, short phrases, methods, plots or factual information. Copyright does not protect ideas or concepts. To get the protection of copyright a work must be original.

    Who is the first owner of copyright in a work?
    Ordinarily the author is the first owner of copyright in a work.

    Is copyright assignable?
    Yes. The owner of the copyright in an existing work or the prospective owner of the copyright in a future work may assign to any person the copyright either wholly or partially and either generally or subject to limitations and either for the whole term of the copyright or any part thereof.

    What are the moral rights of an author?
    The author of a work has the right to claim authorship of the work and to restrain or claim damages in respect of any distortion, mutilation, modification or other acts in relation to the said work which is done before the expiration of the term of copyright if such distortion, mutilation, modification or other act would be prejudicial to his honour or reputation. Moral rights are available to the authors even after the economic rights are assigned.
  • d | 144.159.168.72 (*) | ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ০৫:৫৩53640
  • টিমিকে দেখে যে ক্কি খুশী হলাম!
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। পড়তে পড়তে মতামত দিন