• টইপত্তর  অন্যান্য

  • নৈরাজ্য, বাকুনিন, পিটার প্যান ও পিক্সিডাস্ট ও নিরোর বেহালা

    one-dot
    অন্যান্য | ০৯ অক্টোবর ২০১৪ | ২৩৭৮ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Atoz | 161.141.84.164 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ০১:৫৩650609
  • ইনি কোন্‌ বিমানবাবু?
  • Atoz | 161.141.84.164 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ০৪:৪৮650610
  • কল্লোল,
    আপনি বল্লেন "
    ঐ সায়েব ভদ্রলোক নাহয় খুব ধান্দাবাজ। কিন্তু সন্তানকে কি স্বার্থপর হওয়ার শিক্ষা দেওয়াটাই ঠিক? আতো কি বলেন?

    আর আগেই লিখলাম - আবাপতে প্রকাশিত সেই লেখাটা। যারা নানান মানসিক রোগগ্রস্ত, ভবঘুরে মানুষগুলোকে সুস্থ করে তুললেন, নিজেদের টাকাপয়সা দিয়ে, শ্রম দিয়ে, তারা তো কোন ফান্ড পান নি। এখনো পান না। তারা আপনার চোকে কেমন ঠেকে? জানতে ইচ্ছে হলো। কল্লোল

    একে একে জবাব দিই, কেমন? ঃ-)

    ১। সন্তানকে অবশ্যই খুব ভালো ভালো নীতিশিক্ষাই দেবো, যেমন সবাই দিয়ে থাকেন। সঙ্গে রূপকথাও শোনাবো, তুলারাজা থেরোন ম্যান্ড্রেক সুপারম্যান এসব সব শোনাবো। একপেশে কিছুই না, পুরো বাস্তবতাটাই জানাবো গল্পে গল্পে। তারপর সে কী করবে, সে তো তার চয়েস। সেতো ভিন্ন একজন ইন্ডিভিজুয়াল। আবাল হলে মরবে, চালাক চতুর হলে বেঁচে যাবে।

    ২। আর ঐ মানসিক রোগগ্রস্তদের সুস্থ করে তোলা তো? হ্যাঁ, খুবই ভালো কাজ সন্দেহ নেই। ঐরকম মানুষ দেখেছি নিজের গাঁয়েও, ফলের আশা না রেখে ভালো কাজ করে গিয়েছেন। খুব ভালো। তবে গোড়া কেটে আগায় পানি দিয়ে লার্জ স্কেলে কিছু হয় না।
    আজকাল মানুষের নানা ক্যারদানি দেখতে দেখতে কেমন যেন হাড়ে দুব্বো গজিয়েছে তো, তাই মনে হয় এগুলো পড়লো কোথা থেকে? অগণিত অসহায় পথশিশু, ভবঘুরে, মানসিক রোগওলা লোক-এরা তো আকাশ থেকে পড়ে নি! কোথাও না কোথাও এদের অস্তিত্বের জন্য আরো ব্যক্তিরা দায়ী, তারা মেলায় হাত ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে গেছে, তারা জন্মমাত্র শিশুকে ত্যাগ করেছে, তারা ভবিষ্যৎ অপরাধী বানাবার জন্য শয়ে শয়ে এদের এইভাবে ফেলে গ্যাছে। এইসব পথশিশুরা শৈশব পেরোতে পেরোতেই অগণিতবার অত্যাচারিত ও ধর্ষিত হয়ে হয় মরবে নয় অপরাধী হবে। একজন দুইজনের উপর উপর উদ্যোগে কী হবে দুটি সেন্টুমাখা গলা কাঁপা বক্তৃতা ছাড়া?
  • কল্লোল | 125.242.73.201 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ০৫:৫৫650611
  • আতোজ। "আজকাল মানুষের নানা ক্যারদানি দেখতে দেখতে কেমন যেন হাড়ে দুব্বো গজিয়েছে তো, তাই মনে হয় এগুলো পড়লো কোথা থেকে? "

    "আজকাল মানুষের ক্যাদরানি" কোথায় দেখলেন?

    "কজন দুইজনের উপর উপর উদ্যোগে কী হবে দুটি সেন্টুমাখা গলা কাঁপা বক্তৃতা ছাড়া?"

    এরা তো কেউ বক্তৃতা দেন নি। নিজেদের কাজ মনে করে নীরবে করে গেছেন। এদের কথা জেনে আরও কিছু মানুষ এগিয়ে আসবেন। এটুকুই যা পাওনা।

    রাষ্ট্রের উপর চাপ তৈরী করতে হবে। তাকে বাধ্য করতে হবে তার কাজ বলে সে যা বলে তা ঠিকঠাক পালন করতে। সেটা মানুষকেই করতে হবে প্রতিষ্ঠিত দলেদের বাদ দিয়ে। প্রাতিষ্ঠিত দল মানে মাও থেকে বিজেপি সবই।
  • Atoz | 161.141.84.164 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ০৫:৫৭650612
  • অ মা!!!!! এ কী কথা শুনি আজ ?????
    রাষ্ট্রবিহীন হয়ে যাবে কইলেন যে গো! ঃ-)
  • কল্লোল | 125.242.73.201 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ০৬:০৩650613
  • রাষ্ট্রবিহীন হওয়ার আগে - এগুলো কত্তে হবে যে। রাষ্ট্রতো কালকেই হুশ করে উবে যাবে না!!
  • Atoz | 161.141.84.164 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ০৬:০৭650614
  • জোকস অ্যাপার্ট, দেখুন এই কথাগুলো আসলে আমার ওপিনিয়ন না, জাজমেন্টও না, এগুলো জাস্ট আমার পর্যবেক্ষণ। চোখের উপর থেকে পর্দাটা সরিয়ে দেখছি মাত্র।

    নইলে আমার বাপ মা ঠাউদ্দা ঠাউম্মা এরাও তো আময় নরম রূপকথা আর পরম নীতিকথা জানিয়ে জানিয়ে বড় করে তুলেছিল অন্য সব বাপঠাউদ্দামা ঠাউম্মা র মতনই। কিন্তু এদের শিক্ষা আর কতটুকু? সমাজ ২৪ ঘন্টা উল্লাট শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে প্রত্যেকটা মানুষকে। ছোটোরা ও বোকা না, স্ববিরোধিতাগুলো ছোটোবয়সেই ধরা পড়ে যায়। মুখে বড়ো বড়ো নিঃস্বার্থপরতা, পরোপাকার, ভাগ করে খাই আয়, সবাইকে সাহায্য করতে হবে এসব বলছে বড়রা, অথচ কার্যক্ষেত্রে ছোটো মানুষটা গিয়ে দেখছে ঐ শো ওফ বোস্টিং ঐ নাক উঁচু সব ব্যাপার স্যাপার। কোথায় কার স্থান সব এক্কেবারে ডটে ডটে বুঝিয়ে দিচ্ছে। সে দেখছে নিঃস্বার্থভাবে প্রাণপাত খেটে আত্মীয়স্বজন অতিথি অভ্যাগত সবাইকে আপ্রাণ যত্ন আত্তি করতে করতে বাড়ীর বৌটার সন্তান মরে যাচ্ছে পেটের মধ্যে, সন্তান হতে গিয়ে সেও মরতে বসছে। কেউ কেয়ার করছে না, বৌ গেলে বৌ আসবে, ভাই গেলে তো ভাই পাবো না? এই সমাজে একটা মানুষ এসব জিনিস দেখতে দেখতেই অনেক কথা শিখে ফ্যালে, তার জন্য পুঁথিও লাগে না।
    তারপরে তার চয়েস। সে কীভাবে এসবের মোকাবিলা করবে, সমাজের কল্যাণে জীবন উৎসর্গ করবে কি করবে না, নাকি নিজের কাজটুকু যথাসম্ভব করে যাবে, নিজের দায়িত্ব এড়াবে না, নিজের কাজের কন্সিকোয়েন্স এর মুখোমুখি হবে-সে তার নিজের সিদ্ধান্ত।
  • Atoz | 161.141.84.164 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ০৬:০৯650615
  • আর ঐ লোকেদের বক্তৃতার কথা বলিনি, ওদের কাজ নিয়ে সেন্টুমাখা বক্তৃতা, অন্যদের। ঃ-)
  • pinaki | 90.254.154.105 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ১৩:২৮650616
  • আপনি যেগুলো বলছেন সেগুলো আজকের বাস্তবতা। কথাটা শুরু হয়েছিল মানুষ প্রকৃতিগতভাবে এর বাইরে বেরোতে পারে কিনা। অর্থাৎ নৈরাজ্যবাদ বা সাম্যবাদের যে কল্পিত জগৎ, প্রকৃতিগতভাবে সেই জগতের বেসিক মূল্যবোধগুলোকে ধারণ করা মানুষের পক্ষে সম্ভব কিনা। সেইখান থেকেই এসেছিল সহযোগিতার কথা। অর্থাৎ আজকের সমাজে যেখানে প্রতিযোগিতা মানুষের অন্যতম ড্রাইভিং ফোর্স - সেটা অমোঘ, অবিনশ্বর কোনো বিষয় কিনা। সহযোগিতাকে মূল ড্রাইভিং ফোর্স বানিয়ে মানুষ জাতির পক্ষে আদৌ চলা সম্ভব কিনা - ইত্যাদি। আজকের বাস্তবতা যা তাকে কেউ অস্বীকার করে নি। কিন্তু উল্টোদিকে আজকের বাস্তবতার মধ্যেও এমন বহু উদাহরণ পাওয়া যাবে যারা প্রতিযোগিতাকে বর্জন করেছেন আর সহযোগিতার মূল্যবোধকে নিজের জীবনে চর্চা করেছেন। এই ধারা আজকে দাঁড়িয়ে মার্জিনাল হতে পারে, কিন্তু শুধুমাত্র কল্পনা নয়। সেটাও বাস্তবতারই অংশ, যা ইগনোর করার উপায় নেই। এবার কে কোন মূল্যবোধ নিয়ে চলবে সে তো অবশ্যই তার নিজের চয়েস।
  • Atoz | 161.141.84.164 | ১৭ অক্টোবর ২০১৪ ১৯:৪৯650617
  • প্রতিযোগিতা আর সহযোগিতার কম্বিনেশনেই দুনিয়া চলছে। শুধু মানুষ কেন, তাবৎ জীবকুল। ঃ-)
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
    • কি, কেন, ইত্যাদি
    • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
    • আমাদের কথা
    • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
    • বুলবুলভাজা
    • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
    • হরিদাস পালেরা
    • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
    • টইপত্তর
    • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
    • ভাটিয়া৯
    • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
    গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
    মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


    পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল মতামত দিন