এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  ধারাবাহিক  লঘুগুরু

  • ফচকে গল্প - বিগ ব্যাং 

    Kishore Ghosal লেখকের গ্রাহক হোন
    ধারাবাহিক | লঘুগুরু | ০৫ আগস্ট ২০২৩ | ৩৩৮ বার পঠিত
  • ওফ তোরা একটু থামবি? সেই কাল বিকেল থেকে শুরু করেছিস। গ্যাঙোর-গ্যাঙ আর মকমক করে, কান ঝালাপালা করে দিলি একেবারে!’

    ‘হে হে। তোরাই বা এত অল্পে অধৈর্য হয়ে উঠিস কেন, বল দেখি? সারা বছরই তো চুপটি মেরে থাকি, এই বর্ষার দু-তিনটে মাস আমাদের গলা খোলে। আনন্দে একটু গান গাই। তাও গাইতে দিবি না, হতভাগা?’

    ‘তা ঠিক। কিন্তু তাই বলে এ ক’মাসে সারা বছরের গানই গেয়ে ফেলতে হবে, সেটাই বা কেমন কথা? আচ্ছা, তোরা বছরের অন্য সময়টা করিস কী? তোদের দেখাই পাওয়া যায় না!’
    ‘স্রেফ ঘুমিয়ে কাটাই ব্রাদার, স্রেফ ঘুমিয়ে। পুকুর-খাল-বিল-জলার ধারে ভেজা মাটির একটু নীচে, গর্তের মধ্যে লাগাতার ঘুম। এই তো, বর্ষা ধরে এলে, আগে মা দুগ্‌গা আসবেন, তারপর মা কালী আসবেন। বাতাসে একটু শিরশির ভাব এল কী এল না, বাস। আমাদের আর দেখা পাবি না। বেশ ক’মাস পর যেই হাওয়ায় একটু গরমের ছোঁয়া লাগল, চড়ক পুজোর বাদ্যি বেজে উঠল ড্যাং ড্যাডাং ড্যাং, কাল বোশেখির ঝড়ে তালগাছের মাথাগুলো নিংড়ে, দু-এক পশলা বৃষ্টি শুরু হলেই, আমাদেরও গ্যাঙোর-গ্যাঙ শুরু।’
    ‘বুঝলাম। কিন্তু তালগাছের মাথা নিংড়ে বৃষ্টি হয়, এ খবরটা তোকে কে দিল?’
    ‘বোঝো। তুই বেশ মুখ্যু তো! বৃষ্টি কোথা থেকে হয় কোনদিন দেখেছিস? অনেক উঁচু থেকে। আর সব থেকে উঁচুগাছ কোনটা? তালগাছ। তাহলে তালগাছের মাথা থেকে বৃষ্টি আসবে না তো কী তোর মাথা থেকে নেমে আসবে, হাঁদা গঙ্গারাম?’
    ‘তাহলে যে শুনেছিলাম, মেঘ থেকে বৃষ্টি হয়। সেটা কি তবে মিথ্যে?’
    ‘মেঘ? মেঘ আবার কী? অ বুঝেছি, সেই কুঁচবরণ কন্যা তার মেঘবরণ চুল? আচ্ছা খ্যাপা তুই যা হোক। তুই বুঝি জানতিস, কন্যার মেঘের মতো চুল থেকে বৃষ্টি হয়? হা হা হা হা। এসব গুজবে তোরা কান দিস কেন’?
    ‘আমরা উড়ে বেড়াই। অনেক দূর দূর জায়গায় ঘুরে বেড়াই। বৃষ্টি কিন্তু পড়ে তালগাছের থেকেও অনেক উঁচু থেকে, আকাশে থাকা মেঘের থেকে’।
    ‘আহাম্মকের মতো কথা বলিস কেন? বলি আকাশে মেঘ থাকবে কী করে শুনি? গাছের যেমন থাকে, মাটি থেকে তেমন কোন কাণ্ড আছে? নাকি আকাশে হুক লাগিয়ে ঝুলে থাকে? অথবা তোদের মতো ডানা আছে? যে উড়ে উড়ে বেড়াবে? আমাকে বোকা পেয়েছিস? যা বোঝাবি, তাই বুঝে যাবো?’
    ‘হে হে হে হে। ছ-সাতমাস তো থাকিস মাটির গর্তে অন্ধকারে ঘুমিয়ে। তুই সব জেনে গেছিস? আর আমরা কিছুই জানি না’!
    ‘কে বলেছে ছসাত মাস টানা ঘুমোই? হ্যাঁ অনেকটাই ঘুমোই, কিছুটা ঝিমোই, আর কত কী যে চিন্তা করি! চিন্তা করলেই সব কিছুর হদিস মিলে যায়, তা জানিস? তোদের তো আছে দুটো লিকলিকে ঠ্যাং আর দুটো ডানা। তোরা ভাবিস, খানিকটা উড়ে এলেই সব জানা হয়ে যায়? ছ্যাঃ ভাবতে হয় রে, ভাবতে হয়’।
    ‘তা বটে’।
    ‘এই যে এত্তো বড়ো পুকুরটা। তার পাড়ে এত রকমের গাছপালা, ঝোপঝাড়, লতাপাতা। গাছে গাছে পাখি, পুকুরে মাছ, মাটির পোকামাকড়, কেঁচো। এর বাইরে আর কী থাকবে হে, আর কী থাকতে পারে?’
    ‘এটা আবার একটা পুকুর নাকি? ডোবাও নয়। খাল বলা চলে। বর্ষা বলে, একটু জল জমেছে, বর্ষার একমাস পরেই জল শুকিয়ে কাদা, তাতে মাগুর আর পাঁকাল থাকে। আহা সে সব বড়ো ভালো খেতে। তারপর গরমকালে মাটি শুকিয়ে ফেটে চৌচির। ঢোলকলমির ঝোপে ভরে ওঠে, তার ডালে হেলে সাপ জড়িয়ে থাকে’।
    ‘ওই সাপগুলোর কথা আর বলিস না। খুব বজ্জাত হয়। আমাদের দেখলেই সিমসিম করে এগিয়ে আসে, আর খপ করে ধরে খেয়ে ফেলে, এত বদমাস’।
    ‘বারে, তোরা যে খাস? ফড়িং ধরে, পোকামাকড় ধরে’?
    ‘তার মানে? ফড়িং খাওয়া আর আমাদের ধরে খাওয়া এক হল? আমাদের একটা সম্মান নেই? আমাদের মতো উঁচু জাতের প্রাণীকে খেয়ে ফেলা মোটেই উচিৎ নয়। আমরা চিন্তাশীল। আমরা গান গাই। আমাদের কত নাম আছে জানিস’।
    ‘তোরা তো ব্যাং, তোদের আবার নাম কী?’
    ‘ওই তো রে, মুখ্যু। ডানা নাড়িয়ে উড়ে উড়ে ঘুরে বেড়ানোর খুব বড়াই করলি একটু আগে। অথচ এই জগতের কিছুই জানলি না। শোন, আমাদের ব্যাং বলে। কেন বলে জানিস? এই ব্রহ্মাণ্ড তৈরির সময় মহাকাশে একটা বিগ ব্যাং হয়েছিল। সেই বিগব্যাং থেকেই আমাদের উৎপত্তি। তাছাড়া আমাদের ভেক বলে। মণ্ডূক বলে, দাদুরি বলে, দর্দূর বলে। হিন্দিতে মেডক বলে। জানিস?’
    ‘বাবা, তোদের এত নাম?’
    ‘আমাদের ছানাদেরও আলাদা নাম আছে, ব্যাঙাচি। তোদের এমন আছে? তোদের বাচ্চাদের বলে কাগের ছা, বগের ছা। কিংবা সাপের বাচ্চা, বেড়ালছানা, কুকুরছানা। কিন্তু আমাদের মতো আলাদা নাম কোনদিন শুনেছিস? শুনিসনি আর শুনবিও না! আমাদের মতো একমাত্র মানুষেরই অনেক রকম নাম হয়। সায়েব হয়, নিগার হয়। হিন্দু হয়, মুসলমান হয়। বামুন হয়, বাগদি হয়। বড়োলোক হয়, ছোটলোক হয়। বাঙালি হয়, বিহারি, তামিল, তেলেগু হয়। বিজেপি হয়, টিএমসি, আপ, বসপা হয়। সে অনেক অনেক নাম’।
    ‘হে হে কী যে বলিস, তার মাথা মুণ্ডু কিছুই বুঝি না। মানুষ আর তোরা সমান হলি?’
    ‘সমান নয়, সমান নয়, সমান কখন বললাম? মানুষ কখনো ব্যাঙের মতো হতে পারবে? ভুলেও সে কথা ভাবিস না। আমরা এক জায়গাতেই থাকি, তিনচারমাস ভরপেট খাই, সাত-আট মাস ঘুমোই, নানা চিন্তা ভাবনা করি! আর মানুষ? এই এদেশ যাচ্ছে, ওই বিদেশ যাচ্ছে। শুনেছি চাঁদে যাচ্ছে, মঙ্গলে যাচ্ছে! কিন্তু ভাবনা চিন্তার বেলায় লবডংকা! আচ্ছা, ব্যাং কোনদিন ব্যাং খাচ্ছে দেখেছিস? বা শুনেছিস?’
    ‘না, তা শুনিও নি, দেখিও নি। কিন্তু তাতে কী? সে তো আমরাও আমাদের খাই না’।
    ‘তোদের কথা ছাড়। তোদের কথা আসছে কোত্থেকে? সে কথা নয়। কথাটা হচ্ছে, মানুষ কিন্তু মানুষকে খায়’।
    ‘যাঃ। এরকম কোনদিন শুনিনি। দেখিওনি। এটা আবার একটা বাজে কথা বলছিস’।
    ‘ঠিক কথা। আমিও কোনদিন মানুষ মানুষকে খাচ্ছে, নিজের চোখে দেখিনি। কিন্তু মানুষ বিস্তর মানুষকে মেরে ফেলছে, সেটা তো দেখেছি! এই খালেই তো দেখেছি। রাস্তার ধারের এই খালের জলে, ঝোপে ঝাড়ে কম মড়া মানুষ দেখেছি? বল না। সেই মরা মানুষকে আবার একদল জ্যান্ত মানুষ এসে তুলে নিয়ে যায়, সেও দেখেছি’।
    ‘হুঁ, সে তো আমিও দেখেছি’।
    ‘তোর ওই দেখাই সার, তারপরে ভাবনা চিন্তা করেছিস কী? করিসনি। একদল মানুষ যে মড়াটাকে তুলে নিয়ে যায়, কী করে নিয়ে গিয়ে? তুই বলতে চাস খায় না? আমি চিন্তা করে দেখেছি, খায়। নিশ্চয়ই খায়। তা নাহলে আর কী করে?’
    ‘হুঁ। এবার থেকে তোর মতো ভাবনা চিন্তা করবো ভাবছি’।
    ‘হে হে। এবার তোর মোটা মাথায় ঢুকেছে, কথাগুলো। ভাব, ভাব। ভাবনা ছাড়া মাথার আর কাজ কি?’
    ‘ভাবনা ছাড়া, মাথার আর কোন কাজ নেই বলছিস? এই যেমন ধর এখন আমার পেট বলছে, খিদে পেয়েছে। মাথা বলছে, সামনেই তো খাবার, খেয়ে ফেল!’
    ‘সামনেই খাবার, খেয়ে ফেল, মানে? অ্যাই, অ্যাই আর এগোবি না! খুব খারাপ হয়ে যাবে, খুব খা...’।
    ‘বাঃ রে, বিগব্যাং! অনেকটা মাংস আর খেতেও বেশ। পেটটা ভরে গেল। বিকেল অব্দি আরামসে চলে যাবে। ওফ, সেই থেকে বকবক করে মাথাটা খারাপ করে দিচ্ছিল!’

    সাদা দুই ডানা মেলে বকটা মাঠের দিকে উড়ে গেল।
    ..০০..
     

     
    গল্পটি বাতায়ন-ইম্যাগে প্রকাশিত, কৌতূহলী পাঠকরা এই লিংকে ক্লিক করে আরও অনেক  ধরনের লেখা পড়ে নিতে পারেনঃ-  

    https://batayan-e-mag.blogspot.com/2023/08/blog-post_48.html#more

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • ধারাবাহিক | ০৫ আগস্ট ২০২৩ | ৩৩৮ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। চটপট মতামত দিন