এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  পড়াবই  বই কথা কও

  • রহস্যময় তিব্বতের পথে পথে

    দময়ন্তী
    পড়াবই | বই কথা কও | ২১ মে ২০২৩ | ২২৬৪ বার পঠিত | রেটিং ৪.৩ (৭ জন)

  • ছোটবেলা থেকে যে কটি জায়গা নিয়ে অপার কৌতূহল ছিল কৈলাসপর্বত, মানস সরোবর, লাসা তার মধ্যে অন্যতম। উমাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় কৈলাস ও মানস সরোবর গিয়েছিলেন ১৯৩৪ সালে, তার আগে স্বামী প্রণবানন্দ প্রথমবার ১৯২৮ সালে শ্রীনগর, লাদাখ ও গারটকের পথ ধরে গিয়ে নিতি পাস হয়ে ফিরে আসেন। এরপরে প্রত্যেক বছরেই তিনি ঐ অঞ্চলে যেতে থাকেন ভিন্ন ভিন্ন গিরিবর্ত্ম দিয়ে, নিত্য নতুন পথে। ১৯৩৬-৩৭ সালে টানা ১ বছর এবং ১৯৪৩-৪৪ সালে ষোলো মাস মানস সরোবরের তীরে গুম্ফায় কাটান। এদেশ থেকে নৌকা নিয়ে গিয়ে মানস সরোবর ও রাক্ষসতালে নৌকা নিয়ে ঘুরে জলের গভীরতা মাপেন। শীতে হ্রদ দুটি কীভাবে জমে কঠিন হয়ে যায় এবং তাপমাত্রা বাড়ার সাথে সাথে কেমন করেই বা আবার জলে পরিণত হয় সেসবও লিপিবদ্ধ করেন। তিব্বতও ইংরেজদের অধীনেই ছিল। এঁরা গেছেনও মূলত হিন্দু তীর্থক্ষেত্র কৈলাস ও মানস সরোবরের উদ্দেশ্যে। লাসা ও তিব্বতের অন্যান্য অংশ সম্পর্কে এঁদের লেখায় প্রায় কিছুই নেই।

    তিব্বতের সাথে ভারতের যোগাযোগ অতি প্রাচীন হলেও শরৎচন্দ্র দাস, ফ্রান্সিস ইয়ংহাসবেন্ড, স্বেন হেডিনের পর তিব্বতের বিস্তৃত অঞ্চল নিয়ে লেখাপত্র সেভাবে আমার চোখে পড়ে নি। ১৯৫৮ সালে চীনের পুরোপুরি তিব্বত দখল করা এবং সাংস্কৃতিক বিপ্লব পরবর্তী দীর্ঘ সময় ভারতের তীর্থযাত্রীদের কৈলাস মানস যাওয়া বন্ধ ছিল। ১৯৮১ নাগাদ আবার ভারতীয় তীর্থযাত্রীদের যাতায়াত শুরু হয়। তো ১৯৫৬য় যাতায়াত সম্পূর্ণ বন্ধ হবার আগে একটি বাঙালি ছেলে বাড়ি থেকে পালিয়ে নেপালী সাধুদের দলের সঙ্গে মৌনীবাবা সেজে তিব্বত গিয়েছিল। গ্যাংটক, চেংদু, নাথু-লা, ইয়াটুং, গিয়াৎসে, নাগারৎসে চুসুল হয়ে লাসা পৌঁছায়, ফেরার সময় দলের সাথে না ফিরে সিগাৎসে, ত্রাদুম, লাংবোনা গুম্ফা, দিরাফুক গুম্ফা হয়ে কৈলাস পরিক্রমা করে মানস ও রাক্ষসতাল হ্রদ দেখে গুরলা লা পেরিয়ে তাকলাকোট, লিপুলেখ হয়ে তিব্বত-নেপাল সীমান্ত এড়িয়ে পর্বত টপকে ভারতে ফেরত আসে।



    ১৯৫৬ সালে যাওয়া ও ফেরার পথ


    আরো পরে এই ছেলে সাইকেলে বিশ্বভ্রমণে বেরোবে। হ্যাঁ ভূপর্যটক বিমল দে’ই সেদিনের সেই ঘর পালানো মৌনীবাবা। বিমল দে’র সেই অভিজ্ঞতাই ‘মহাতীর্থের শেষ যাত্রী’ নামে ১৯৮১ সালে প্রকাশিত হয়। আজ পর্যন্ত সেই বইয়ের আটটি সংস্করণ নিঃশেষিত, বইয়ের হিন্দি অনুবাদটিও যথেষ্ট জনপ্রিয়। প্রথমবারের তিব্বতযাত্রা একেবারেই আচম্বিতে অনেকটাই ঝোঁকের মাথায় শুরু হয়। ইছাপুরের বাড়ি থেকে পালিয়ে বিমল গয়ায় উপস্থিত হয়ে এক অসুস্থ সাধুর সেবায় লাগেন তখন তাঁর বয়স ষোলো কি সতেরো বছর। নির্দিষ্ট কোনও উদ্দেশ্যে নয় নেহাৎই পথ চলতে চলতে এই সাধুকে তাঁর ভাল লেগে যায়, থেকে যান তাঁর সঙ্গে। সাধুবাবা অবশ্য বারেবারেই ঘরে ফিরে গিয়ে পড়াশোনা শেষ করতে বলেন বিমলকে। সাধুবাবা বেশ সুস্থ হয়ে ওঠার পরে হঠাৎই একদিন তিনজন লামা আসেন সাধুবাবার সাথে দেখা করতে। দুপুরে খাওয়াদাওয়ার পর তাঁদের সাথেই বেরিয়ে চলে যান সাধুবাবা।

    হতভম্ব বিমল কিছুদূর দৌড়ে গিয়ে জানতে পারেন লামাদের সাথে সাধুবাবা যাচ্ছেন গ্যাংটক। বিমলকে কিছুতেই সঙ্গে নিতে রাজী নন সাধুবাবা, কারণ সে বহুদূর এবং কষ্টসাধ্য যাত্রা। গয়াতে এক হোটেলে কয়েকদিন বাসন মাজা ও ঘরে ঘরে চা দেবার কাজ করে রোজগার করা ৩ টাকা নিয়ে বিমল ধরলেন শিলিগুড়ির পথ, জানা ছিল শিলিগুড়ি হয়েই গ্যাংটক যেতে হয়। হেঁটে, লরির মাথায় চড়ে শিলিগুড়ি তিস্তাবাজার হয়ে একসময় পৌঁছেও গেলেন গ্যাংটক। কিন্তু সাধুবাবাকে খুঁজবেন কোথায়? কীভাবে? সাধুবাবার নাম বা কোন আখড়া, কোন মতের সাধু কিছুই জানেন না। চলল প্রায় দরজায় দরজায় ঘুরে সাধুবাবার সন্ধান, সাথে সাহায্য করে সিকিমি ছেলে আনচু। অবশেষে বেশ কিছুদিন পরে বাসস্ট্যান্ডে শিলিগুড়ি থেকে আসা এক বাস থেকে নামেন সাধুবাবা,সঙ্গে সেই তিনজন লামা। বিমলের আনন্দের সীমা নেই। সাধুবাবার সাথেই গিয়ে ওঠেন এচে গোম্ফায় (Echey Gompha)।

    জানা গেল একদল নেপালী লামাকে নিয়ে সাধুবাবা যাবেন তিব্বতের লাসা তীর্থ করতে। বিমল ধরে বসেন তিনিও যাবেন। ততদিনে ভারতীয়দের জন্য অতিরিক্ত কড়াকড়ি শুরু করেছেন চীন গোটা তিব্বত জুড়ে। এমনকি ব্যবসাবাণিজ্যও প্রায় বন্ধই। বিমল নেপালী ভাষা জানেন না, তিব্বতীভাষা জানার তো সম্ভাবনাই নেই। এখন অনুমতি চাইলে পাওয়া যাবে না নিশ্চিত। ভারতীয় পর্যটক হিসেবে ধরা পড়লে শুধু বিমল নয় গোটা দলেরই দুর্ভোগের শেষ থাকবে না। বিমলের বয়সও অত্যন্ত কম, অতি কষ্টসাধ্য সে পথে যাবার জন্য তিনি আদৌ সক্ষম কিনা তাও সন্দেহ। ফলে প্রথমে সাধুবাবা একেবারেই রাজী হতে চান নি। কিন্তু বিমলের নাছোড়বান্দা মনোভাব, সম্পূর্ণ একাকী গ্যাংটকে চলে আসার দুঃসাহসের কাছে হার মানেন সাধুবাবা, মণিমন্ত্রে দীক্ষা দেন বিমলকে। আবির্ভাব হয় নেপালী ত্রাবা, অর্থাৎ শিক্ষানবিশ লামা মৌনীবাবার। শুরু হয় চেংদু নাথু-লা হয়ে লাসার দিকে এক অবিশ্বাস্য যাত্রা।

    এতক্ষণ যা লিখলাম সে নিতান্ত ভূমিকা মাত্র। আসল যাত্রাপথের বিবরণ চমকপ্রদ, রোমহর্ষক। সবচেয়ে বড় কথা হল সেই পৃথিবী, পৃথিবীকে আবিষ্কারের সেই বিস্ময় আমরা ফেলে এসেছি বহু বছর আগে, এখন আর চাইলেও সেরকম যাত্রা করা সম্ভব নয়। পদে পদে প্রাকৃতিক বাধা বিপত্তি, চৈনিক প্রহরা সে যাত্রাকে করে তুলেছিল রোমহর্ষক, বিপদসংকুল। ঋতু হিসেবে তখন গ্রীষ্মের শুরু হলেও অধিকাংশ জায়গায় বরফ তখনো গলে নি, রাতে তাপমাত্রা নেমে যায় হিমাঙ্কের অনেকটা নীচে। এই অবস্থায় অধিকাংশ যাত্রাপথ লেখক কাটিয়েছেন জুতো এমনকি মোজা ছাড়া। অনেকদূর এগিয়ে তবে এক তিব্বতি যাযাবর দলের থেকে তিব্বতি উলের মোজা কেনেন, আরো পরে প্রায় লাসা পৌঁছিয়ে কেনেন জুতো। আস্তে আস্তে অভ্যাস করেন নুন মাখন মেশানো চা খাওয়া, সম্পূর্ণ অন্ধকারে পাহাড়ি পথে হাঁটা আর কোনও প্ররোচনাতেই মুখ না খোলা, মৌনী হয়ে থাকা।

    তাঁর লেখায় বারেবারে এসেছে ভারতীয়দের প্রতি তিব্বতের সাধারণ মানুষের সহৃদয় ব্যবহার, শ্রদ্ধা, ভালবাসা। হাতে গোণা যে কটা জায়গায় লেখক নিজেকে ভারতীয় বলে পরিচয় দিতে পেরেছেন প্রত্যেক জায়গাতেই পেয়েছেন সমাদর। তিব্বতের সামাজিক রীতিনীতি, তিব্বতিদের পোশাক, আচার ব্যবহারও বিস্তারিতভাবে এসেছে তাঁর বিবরণে। সেই সময়ের তিব্বতে অতিরিক্ত ঠান্ডা ও জলের অভাবের জন্য পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা তেমন ছিল না। একটি জনপদের বর্ণনায় পাই সেখানকার প্রতিটি বাড়ির চারপাশে এবং রাস্তা বরাবর জঞ্জালের উঁচু স্তূপ। বাড়ির জঞ্জাল লোকে ঘর থেকে ছুঁড়ে বাড়ির সামনে এবং চারপাশে ফেলে, ফেলতে ফেলতে জঞ্জাল জমে শক্ত উঁচু বাঁধের মত হয়ে গেছে। তারই উপরে বসে অবসর সময়ে লোকে গল্প করে। ঘরে গোটা ঘর জুড়ে বিছানা পাতা, জুতোমোজাসহই তাতে উঠে বসা বা শোয়া। জুতোটুতো খোলার কোনও প্রশ্নই নেই, লেখক খুলতে উদ্যত হলেও বাড়ির লোকই তাঁকে নিষেধ করে জুতোশুদ্ধই বিছানায় উঠে বসতে বলে।

    লাসায় দালাই লামার প্রধান বাসস্থান পোতালা প্রাসাদ এবং গ্রীষ্মকালীন বাসস্থান নরবুলিংকা দুটোই দেখেন বিমল সাধুবাবার পরিচিত মানুষদের সাহায্যে। ২১ বছর বয়সী দালাই লামা সেই সময় ছিলেন নরবুলিংকায়, লেখকরা যখন বাগান ঘুরে দেখছিলেন সেই সময় চেন-রে-জি অর্থাৎ দালাই লামা হেঁটে যান সেখান দিয়ে। সেই সময় চেন-রে-জি ছিলেন তিব্বতের অঘোষিত রাজা। তাঁর সাথে দেখা করতে চাইলে চীনা কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন দপ্তর ঘুরে অনুমতি নিতে হত। সহসা পথের পাশে এইভাবে দেখা হয়ে যাওয়াকে তাঁরা নিজেদের অসীম সৌভাগ্য বলেই মনে করেছেন। আরো বছর তিনেক বাদে অবশ্য দালাই লামা ভারতে পালিয়ে আসবেন, আরো অনেক বছর পরে বিদেশে বিমলের সাথে তাঁর দেখা ও কথাবার্তাও হবে। কিন্তু সেসব তখন ভবিষ্যতের গর্ভে। কদিনের মধ্যে চীনা কর্তৃপক্ষ আদেশ পাঠায় তাঁদের এবার লাসা ছাড়তে হবে। শুধু তাই না, সবার একসাথে যাওয়াও চলবে না, ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে যেতে হবে।

    বিমলের যাযাবর মন ততদিনে কৈলাস ও মানসসরোবর দেখার জন্য উন্মুখ হয়ে পড়েছে। দ্রেপুং গুম্ফায় এসে ছোট ছোট দলে একে একে সবাই বেরিয়ে যাওয়ার পরে বিমল একলা রওনা হলেন উল্টোদিকে কৈলাসের পথে। আবারও কঠিন পথ, গ্রীষ্ম সবে শুরু হয়েছে, এখনো অধিকাংশ পথই বরফে ঢাকা, রাত্রিবেলা তিব্বতের খোলা প্রান্তরে তাপমাত্রা নামে শূন্যেরও অনেকটা নীচে। তারই মধ্যে চলেছে এক ভারতীয় কিশোর, মুখোমুখি হচ্ছে কত বিচিত্র প্রথা, মানুষের। এক আধা তান্ত্রিক গোছের সাধুর সঙ্গে রোগ সারাবার নামে ভুত তাড়ানোতে অংশ নেওয়াও হল। প্রচণ্ড শীতে বার দুয়েক মরতে মরতে বেঁচে গেলেন --- তাঁর ভাষ্যমতে এক রহস্যময় সাধুবাবার সাহায্যে। লাংবোনা গুম্ফায় এক সাধুবাবা তাঁকে আবারো দীক্ষা দেন হিন্দু-মন্ত্রে, কৈলাস ও মানস পরিক্রমা করান, বাতলে দেন চীনা বা হানদের পাহারা এড়িয়ে ভারতে ফেরার রাস্তা। নিজের মনে এঁর নাম দেন ‘কৈলাসবাবা’, তাঁর সন্ন্যাস নামটি আর জিজ্ঞাসা করেন নি বিমল।

    লাসা থেকে কৈলাস পৌঁছানোর এই অংশটা এতটাই আকর্ষণীয় যে পড়তে শুরু করার পরে ছেড়ে ওঠা প্রায় অসম্ভব। ‘মহাতীর্থের শেষ যাত্রী’ বই এই পর্যন্তই। অবশ্য সাধক মিলারেপার কথা আছে পর্যটন বৃত্তান্ত শেষ হবার পরে। এর পঞ্চাশ বছর পরে ভূপর্যটক বিমল দে’র মনে কৈলাসবাবাকে খুঁজে বের করার এবং আর একবার তাঁর মুখোমুখি হবার তীব্র ইচ্ছে জেগে ওঠে। ততদিনে তিনি বিদেশে বসবাসরত। এবারে আর লুকিয়ে ছদ্মবেশে নয় রীতিমত চীন বিদেশমন্ত্রক থেকে ভিসা নিয়ে গুম্ফায় গুম্ফায় খুঁজে বেড়ান তাঁর কৈলাসবাবাকে। এতদিনে লাসার উন্নতি হয়েছে অভূতপূর্ব, দুর্গম পাহাড় ভেদ করে সরাসরি ট্রেন পৌঁছায় লাসায়, প্লেন তো বটেই। ঝকঝকে রাস্তাঘাট চলে গেছে দেশের এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত। চীনের বেয়ার ফুট ডাক্তাররা ছড়িয়ে পড়েছেন গ্রামে, দেশের প্রত্যন্ত প্রান্তে। একটা শক্তপোক্ত স্বাস্থ্য-ব্যবস্থা গড়ে উঠেছে, মানুষকে আর তান্ত্রিকের শরণাপন্ন হতে হয় না রোগ সারাতে।

    কিন্তু অনুমতিপত্র ছাড়া, সরকার অনুমোদিত গাইড ছাড়া এক পাও চলার ক্ষমতা নেই। এদিকে লেখক যাকে খুঁজছেন তাঁর নাম বা কোন তথ্যই জানা নেই তাঁর, নেই কোন ছবিও। অতএব আবারও এক অনির্দেশ্য যাত্রায় জ্ঞানগঞ্জের পথে পথে ঘুরে বেড়ান লেখক। তিব্বতি তন্ত্রসাধনার জন্য জ্ঞানগঞ্জ ছিল অতি বিখ্যাত। সাংস্কৃতিক বিপ্লবে অধিকাংশ জিনিষ ধ্বংস হয়েও এখনো রয়ে গেছে কিছু। ভারতীয় মতে যার নাম ‘জ্ঞানগঞ্জ’ তিব্বতি ভাষায় তার নাম ও প্রকৃত অবস্থান খুঁজে পাওয়ার গল্পটাও চমকপ্রদ। সেখানেই এক মঠে দেখা হয় এবং আশীর্বাদ পান ভৈরবী মাতাজীর, তাঁরই নির্দেশে সম্পূর্ণ একা রাত কাটান চুরাশি মহাসিদ্ধ শ্মশানে। মানস পরিক্রমায় পার হয়ে যান ‘পাপ পাথর’। শেষ পর্যন্ত কৈলাসবাবার দেখা পেলেন কিনা জানতে হলে পড়তে হবে ‘মহাতীর্থে কৈলাসবাবার সন্ধানে (তিব্বত-২) বইটা।




    লেখক ঈশ্বরবিশ্বাসী, ভারতীয় দর্শনে গভীর আস্থাশীল হওয়ায় বিভিন্ন জেরার মুখে ধর্ম ও দর্শনের বিভিন্ন ব্যাখ্যা করে উৎরে গেছেন সহজেই। প্রথম বইটা দেখায় এক আদিম তিব্বতের ছবি, যেখানে আধুনিক সভ্যতা সবে চীনা পিপলস আর্মির অস্ত্রের ডগায় ঢুকবো ঢুকবো করছে। দ্বিতীয় বইটা দেখায় চৈনিক উপনিবেশ তিব্বতের ছবি। লেখক খোলাচোখে দেখেছেন ও অত্যন্ত খোলামনে আলোচনা করেছেন চীন অধিগ্রহণের পরে তিব্বতের ভাল ও মন্দ দুইই। একদিকে যেমন সাংস্কৃতিক বিপ্লবের নামে অসংখ্য নিতান্ত নিরীহ সন্ন্যাসী লামা খুন হয়েছেন, ধ্বংস হয়েছে অজস্র পুঁথি, গুম্ফা। অন্যদিকে আধুনিক স্বাস্থ্য পরিষেবা, যানবাহন, সুনির্মিত রাস্তাঘাট তিব্বতি জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন করেছে উল্লেখযোগ্যভাবে। ব্যক্তিগতভাবে আমার ভুত, আত্মা, তান্ত্রিক আচার বা অলৌকিক ব্যাপার স্যাপার তেমন আকর্ষণীয় লাগে নি, কিছু জায়গায় হাস্যকরই লেগেছে। সেটুকু বাদ দিলে প্রাচীন ও নবীন তিব্বতের পথে পথে অভিযান অসম্ভব আকর্ষণীয়, সুলিখিতও বটে।

    ভূপর্যটক বিমল দে’র সাইকেলে পৃথিবী ঘোরার কাহিনী ‘সুদূরের পিয়াসী’ পড়েননি এমন ভ্রামণিক বাঙালি হয়ত খুব বেশি নেই। তাঁর তিব্বত ভ্রমণের বইদুটিও অতি জনপ্রিয়।
    ‘পরিব্রাজকের কর্ম হচ্ছে চলা আর ধর্ম হচ্ছে অনাসক্তি’ তাঁর এই জীবনদর্শনের প্রমাণ পাই তাঁর ভ্রমণ বিবরণীর পাতায় পাতায়। বারেবারে পড়ার মত দুটি বই।





    বই – মহাতীর্থের শেষ যাত্রী (তিব্বত)
    লেখক – ভূপর্যটক বিমল দে
    প্রকাশক – দে বুক স্টোর (আদি)
    দাম – ৫২৫/-টাকা

    বই – মহাতীর্থে কৈলাসবাবার সন্ধানে (তিব্বত -২)
    লেখক – ভূপর্যটক বিমল দে
    প্রকাশক – দে বুক স্টোর (আদি)
    দাম – ৩৯৫/-টাকা



    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক।
  • পড়াবই | ২১ মে ২০২৩ | ২২৬৪ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • সুদীপ্ত | ২১ মে ২০২৩ ১৭:০১519954
  • বাহ দারুণ, প্রথম বইটা আছে, এটার দ্বিতীয় পর্ব আছে জানতাম না, বেশ!
  • প্রতিভা | 115.96.158.217 | ২১ মে ২০২৩ ২০:০৬519956
  • পড়তে হবে তো। 
  • শক্তি দত্ত রায় | ২১ মে ২০২৩ ২১:৫২519957
  • বিষয়বস্তু গতানুগতিকের বাইরে তাই পড়তেই হবে
  • প্যালারাম | ২১ মে ২০২৩ ২১:৫৮519959
  • কিস্যু জানতাম না। এ লেখা যা জমাটি, তাতে পড়ার উৎসাহ সিলিং ছাড়াচ্ছে।
     
    আবার টাকা খসবে বইগুলো কিনতে। ধুস্! sad
  • hu | 24.53.190.120 | ২১ মে ২০২৩ ২২:০৬519960
  • দারুণ লাগল!
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:432e:351d:2779:595c | ২২ মে ২০২৩ ০৩:০৫519964
  • জানানোর জন্য ধন্যবাদ
  • সিএস  | 103.99.156.98 | ২২ মে ২০২৩ ১৪:৪৫519974
  • বিমল দের প্রথম যাত্রা ১৯৫৬ -তে ? পরের যাত্রা, পঞ্চাশ বছর পরে ? সে হলে তো ২০০৫ - ২০০৬, এই ক'বছর আগে ! সেই সময়েও বিবিধ বাবা - মা - মহাশ্মশান ইত্যাদি রয়েছে তিব্বতে ? অদ্ভুত মনে হয়। এও মনে হয়, এইসব কৈলাশবাবা, ভৈরবীমাতা, এরা সব plant করা স্পাই, এককালে ইংরেজরা তিব্বতে স্পাই পাঠাত, পরে হয়ত ভারত সরকার করত। আর এরা সব ওখানে বসে ভুলভাল কথা আউড়াত।

    আর এই বাক্যটা - ভারতীয় মতে যার নাম ‘জ্ঞানগঞ্জ’ তিব্বতি ভাষায় তার নাম ও প্রকৃত অবস্থান খুঁজে পাওয়ার গল্পটাও চমকপ্রদ - এর মানে বিমল দে জ্ঞানগঞ্জ খুঁজে পেয়েছিলেন নাকি ? সেই জ্ঞানগঞ্জ তো মনে হয় শাম্ভালা যেটা থেকে আবার শাংগ্রীলা, যে জায়গাটা অনেকেই খুঁজেছে। কিন্তু সে তো পাওয়ার কথা নয়, হিন্দু বা বৌদ্ধ, দুই ধর্মেই তো জায়গাটা সিম্বলিক, মানুষকে ছোটানোর জন্য, কিন্তু মানুষে মনে করে সে জায়গা নাকি সত্যিই আছে !
     
    এসব বই মনে হয় দু'ফোঁটা নুন দিয়েই পড়া ভাল। 
  • Prabhas Sen | ২২ মে ২০২৩ ১৫:৪৫519975
  • ,,শ্রীরামকৃষ্ণের শিষ্য ও স্বামী বিবেকানন্দের পরম স্নেহভাজন স্বামী অখণ্ডানন্দ(গঙ্গাধর মহারাজ) বহু আগে পদব্রজে তিন তিনবার তিব্বত ঘুরে এসেছেন। 
    তাঁর ভ্রমন কাল উনিশ শতাব্দীর শেষ দিকে। তাঁর লেখা একটি বইও পাওয়া যায় উদ্বোধন/মঠ মিশনের বুক স্টলে। ছোট এই বইটির খুবই চিত্তাকর্ষক। 
  • aranya | 2601:84:4600:5410:f59e:3c6b:b893:797c | ২২ মে ২০২৩ ২১:২৩519981
  • বাঃ। খুবই উপভোগ্য, পাঠ প্রতিক্রিয়া। বই দুটো পড়তে হবে 
  • | ২৩ মে ২০২৩ ২১:৩৮520014
  • সুদীপ্ত, প্রতিভা, শক্তিমাসীমা,  হু, পলিটিশিয়ান, অরণ্য, প্যালারাম, 
    ধন্যবাদ। বইদুটোর পিডিএফ ভার্সান নেটে পাওয়া যায়। মলাটেও আছে। 
     
    প্রভাস সেন, বেশ জানলাম ধন্যবাদ। কখনো সুযোগ হলে দেখব ঘেঁটে। 
     
    সিএস, 
    হ্যাঁ হ্যাঁ অবশ্যই নুন, গোলমরিচ, লেবু যার যা ভাল লাগে তাই দিয়েই নেবে বৈকি। 
    হ্যাঁ ২০০৬ তে গেছেন এবং পরেও আরো কয়েকবার। ওঁর ২০০৬ এর অভিজ্ঞতা এই ভৈরবী মা। তখনই দেখেছেন যে অনেক বয়স্ক লোকেরা আদৌ মুখ খুলতে চায় না সাংস্কৃতিক বিপ্লব নিয়ে। আবার অনেক লামা রয়েছেন কিছু গুম্ফায়। জোথাং দ্রেপুং লাংবোনা তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য। এই সময় দেখেন অনেক জায়গায় চীন সরকার  আবার আগের মত করে কিছু গুম্ফা রেস্টোর করার চেষ্টা করছে লামা ও ওইসব পুঁথির সাহায্য নিয়ে, যেগুলো সাংস্কৃতিক বিপ্লবে সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়েছিল।
    আমার ধারণা তান্ত্রিক গুম্ফার ট্যুরিস্ট ভ্যালু অনুধাবন করেই  এই রেস্টোরেশান প্রোজেক্ট নিয়েছে।
     
    জ্ঞানগঞ্জ এই শব্দের  ইক্যুইভ্যালেন্ট তিব্বতি শব্দটা ডিকশনারি ঘেঁটে বের করেছেন। সেটা বেশ নামী প্রচলিত জায়গা এবং সেখানে অতি বিখ্যাত গুম্ফা আছে। ভারতীয় সন্ন্যাসীরা এবং ভারতীয় ও নেপালি লামারা এখানে এসে থাকিত ও সাধনা করত। ফেসবুকের বিভিন্ন বইএর গ্রুপে জ্ঞানগঞ্জ নিয়ে যা সব দেখি তার থেকে এইটা অনেক বেশী লজিকাল লেগেছে আমার কাছে। 
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:5dde:2843:4560:91e1 | ২৫ মে ২০২৩ ০০:১২520041
  • দ্বিতীয় খণ্ডের পিডিএফ পাচ্ছি না।
  • | ২৫ মে ২০২৩ ২১:৩৭520053
  • হুঁ দ্বিতীয়ের পিডিএফ মনে হয় নেই। আমিও একটু দেখলাম। দ্বিতীয় খন্ডের প্রথম প্রকাশ ২০১৫. দ্বিতীয় সংস্করণ হয় নি এখনো। মনে হয় লোকে তেমন জানে না তাই পিডিএফ বানানোর চেষ্টাও কেউ করে নি। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে মতামত দিন