ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  আলোচনা   সমাজ

  • অ্যামেরিকায় অভিবাসন - নিউ ইয়র্ক টাইমস থেকে

    সম্বিৎ লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | সমাজ | ১২ জুলাই ২০২২ | ১২৬৮ বার পঠিত | রেটিং ৩ (১ জন)
  • A parent and child look up from the base of a flight of stairs.
    Why So Many Children of Immigrants Rise to the Top
    By Peter Coy
    Peter Coy writes about economics for Opinion.
    The lack of a shared set of facts about immigration makes it easy for accusatory and often false messages to echo loudly in the run-up to the midterm elections. J.D. Vance, a leading Republican candidate for Ohio’s open Senate seat, claimed in a recent advertisement that “Joe Biden’s open border is killing Ohioans, with more illegal drugs and more Democrat voters pouring into this country.” Representative Paul Gosar of Arizona has described immigration as “full scale invasion.” Tucker Carlson of Fox News told a guest on his show in 2017: “Go to Lowell, Mass., or Lewiston, Maine, or any place where large numbers of immigrants have been moved into a poor community, and it hasn’t become richer. It’s become poorer. That’s real.”
    A new book, “Streets of Gold: America’s Untold Story of Immigrant Success,” by two economists, Ran Abramitzky of Stanford and Leah Boustan of Princeton, should undercut some of the fearmongering. They linked census records to pull together what they call “the first set of truly big data about immigration.”
    Using the data set, Mr. Abramitzky and Ms. Boustan were able to compare the income trajectories of immigrants’ children with those of people whose parents were born in the United States. The economists found that on average, the children of immigrants were exceptionally good at moving up the economic ladder.
    These figures represent people born between 1978 and 1983 who grew up poor.Children of immigrant menChildren of men born in the U.S.
    By the time they reached their mid-30s, many of the children had left poverty behind.
    That was especially true for the children of immigrants, who were nearly twice as likely to become rich as the children of people born in the United States.
    Note: Each stair step represents 20 percent of the household income distribution. Percentages may not add up to 100 because of rounding. Sources: Ran Abramitzky, Leah Boustan, Opportunity Insights
    Immigrants and their children are assimilating into the United States as quickly now as in the past, the economists found. That’s in line with recent research into the effects of immigration. While “first-generation immigrants are more costly to governments than are the native-born,” according to a 2017 report by the National Academies of Sciences, Engineering and Medicine, the “second generation are among the strongest fiscal and economic contributors in the U.S.”
    Second-generation-immigrant success stories have long been a part of America’s history. Looking at census records from 1880, the researchers found that men whose fathers were low-income immigrants made more money as adults than the sons of low-income men born in the United States. (They focused on sons because it was harder to track women from one census to the next, since so many adopted their husbands’ names at marriage.) Because of privacy restrictions, they had access to individual data only through the 1940 census. They used other sources for subsequent years.
    Mr. Abramitzky and Ms. Boustan observed the same pattern a century later. Children born around 1980 to men from Mexico, India, Brazil and almost every other country outearned the children of U.S.-born men.
    “America really does have golden streets that allow immigrants to quickly make more than they could have earned at home,” they write. But, they add, “moving up the economic ladder in America — and catching up to the U.S.-born — takes time.”
    Once Mr. Abramitzky and Ms. Boustan found abundant evidence of second-generation immigrants’ upward mobility, they tried to figure out why those children did so well.
    They arrived at two answers. First, the children had an easy time outdoing parents whose careers were inhibited by poor language skills or a lack of professional credentials. The classic example is an immigrant doctor who winds up driving a cab in the United States.
    Second, immigrants tended to settle in parts of the country experiencing strong job growth. That gave them an edge over native-born Americans who were firmly rooted in places with faltering economies. Immigrants are good at doing something difficult: leaving behind relatives, friends and the familiarity of home in search of prosperity. The economists found that native-born Americans who do what immigrants do — move toward opportunity — have children who are just as upwardly mobile as the children of immigrants.

    Looking at maps of where immigrants have settled at different points in time, it’s clear that those regions were also areas of productivity and economic growth. In 1910, European immigrants went to work in the factories of the Midwest and New England. In 1980, immigrants from elsewhere in the Americas filled jobs in rapidly growing parts of Texas, New Mexico, Arizona, California and Florida.
    If immigrants are so upwardly mobile, why doesn’t it seem that way? One reason is that there are more newcomers than there have been in decades and most haven’t had time yet to get ahead. The share of foreign-born people in the United States is back to the levels of the first two decades of the 20th century.

    Another reason is that most immigrants are arriving well below native-born Americans socioeconomically. They are more likely, Mr. Abramitzky and Ms. Boustan found, than immigrants of the past to come from countries that are significantly poorer than the United States, including El Salvador, India and Vietnam. But it’s those immigrants who start at the bottom who ascend the most. In contrast, affluent, educated immigrants tend to be the least upwardly mobile, simply because they’re already at or near the top.

    Mr. Abramitzky and Ms. Boustan dispute the argument that immigrants frequently take jobs from native-born Americans. Less skilled immigrants gravitate toward jobs for which there is relatively little competition from native-born Americans, such as picking crops, while highly skilled immigrants often create more jobs for native-born Americans by starting businesses and inventing things, they write.
    The research of Mr. Abramitzky and Ms. Boustan has made headlines before, but in their new book they broaden and deepen the narrative with excerpts from diaries and oral histories of immigrants. Signe Tornbloom, 18, a daughter of hardscrabble Swedish farmers, immigrated alone in 1916 after receiving a letter that said, more or less: “Well, you’d better come over here. Everything is much better than it is at home.”

    The notion that immigrants have become a permanent underclass, isolated from the American mainstream, is popular among immigration restrictionists — as well as among some pro-immigration groups that say immigrants need more help to break out of poverty. The truth is that today’s immigrants are advancing just as swiftly as those of the past. “The American dream,” Mr. Abramitzky said in an interview, “is just as alive now as it was a century ago.”
     
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • dc | 2401:4900:1cd1:7b23:fda0:495a:d890:9750 | ১২ জুলাই ২০২২ ০৯:২৯737747
  • নাথিং লাইক ডেটা ড্রিভেন অ্যানালিসিস। তবে কিনা টাকার কার্লসন আর রাইট উইঙ্গারদের ডেটায় কিছু আসে যায় না। ওরা আগে কনক্লুশান বানায়, তারপর সেটা জাস্টিফাই করার জন্য আর্গুমেন্ট বানায়। 
  • dc | 2401:4900:1cd1:7b23:fda0:495a:d890:9750 | ১২ জুলাই ২০২২ ০৯:৩৭737748
  • আরও একটা মজার ব্যাপার হলো, পুরো রাইট উইং ইকোসিস্টেমটা এক ছাতার তলায় কাজ করে। সেই যে কবি বলে গেছেন দুনিয়ার চাড্ডি এক হও, সেটা এরা অক্ষরে অক্ষরে মানে। এই টাকার কার্লসন আর ক্রিশ্চান এভানজেলিস্টরা অ্যান্টি ইমিগ্রেশান পলিসি চায়, এরাই ট্রাম্পকেও সাপোর্ট করে আবার পুটিনকেও সাপোর্ট করে, আমাদের দেশে প্রধানসেবককেও সাপোর্ট করে। এরা অ্যান্টি অ্যাবর্শান, আবার এরাই হোমোফোব, সেক্সিস্ট, আর জেনোফোব - সব গুনই ট্রাম্প, পুটিন আর প্রধানসেবকের আছে, ফলে সহজেই সাপোর্টও দেয়। 
  • চাড্ডি | 2405:8100:8000:5ca1::243:ddc | ১৩ জুলাই ২০২২ ০৮:৫৭737759
  • সেসব দেশে ভারতীয়রা কাজ করেন, প্রায়শই দ্বিতীয় বা ক্ষেত্রবিশেষে তৃতীয় শ্রেণির নাগরিকের মর্যাদা মেনে নিতে বাধ্য হন, ঘেটো বানিয়ে থাকেন (সেসব আত্মীয়-বেরাদরদের যথাসম্ভব আড়াল করেন) এবং তাঁদের পরিশ্রমের কিয়দংশ ভারতে পাঠিয়ে থাকেন। সেটা মিডল ইস্ট, আমেরিকা কিংবা ইউরোপ নির্বিশেষে তেতো সত্যি।
  • r2h | 204.237.206.72 | ১৩ জুলাই ২০২২ ১৬:৪৯737766
  • আসল লেখাটা পড়িনি - সহৃদয় কেউ বাংলায় অনুবাদ করে দিলে পড়ে নেবো।

    কিন্তু আমেরিকায় ভারতীয় অভিবাসী সম্পর্কে ঘেটো শব্দটা আমার নিতান্ত অনুপযুক্ত মনে হয়। ঘেটোর সঙ্গে দারিদ্র, অপ্রেশন, বঞ্চনা ইত্যাদি অনুষঙ্গ। আম ভারতীয় অভিবাসীরা তো আদি আমেরিকান মধ্যবিত্তদের থেকে প্রায়শই বেশি ধনী দেখতে পাই। পরিশ্রমের অংশ দেশে পাঠান, লুরুর মত শহরে ঝাঁ চকচকে বাড়ি ঘরের বড় অংশ অনাবাসীদের সম্পত্তি।

    তো, এতে তেতোর কী আছে? অধিকাংশ ভারতীয়দের দেশে কিছু বিনিয়োগ, বিষয় সম্পত্তি, পরিজন, টান থাকে, সে তো থাকতেই পারে। 
    ব্রিটিশরা আমলের সাহেব পাড়াকে কি আর ঘেটো বলি? ওরা ফর্সা বলে ওদের প্রতি বৈষম্য করবো, এ তো ঠিক নাঃ)
  • r2h | 204.237.206.72 | ১৩ জুলাই ২০২২ ১৭:০২737768
  • (আমি হোয়াইট কলার জবের কথা বলছি, যারা ওয়ার্ক ভিসা, স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে এসে তারপর চাকরি বাকরি, ব্যবসা করেন। ভারত থেকে তো আমেরিকায় অন্য কোন রকম আইনসঙ্গত অভিবাসন হয়ও না যদ্দুর জানি)
  • একক | 2409:4060:211a:453f::1cb2:58a5 | ১৩ জুলাই ২০২২ ১৯:৪৬737775
  • ( মনে হয়) ঘেটো কথাটা আসে কালচারাল মিক্সিং মিনিমাম বলে। অর্থনীতি মাথায় রেখে নয়। 
  • :|: | 174.251.164.127 | ১৩ জুলাই ২০২২ ২০:১১737777
  • ১৬টা ৪৯: গুগুল ট্রান্সলেটর থাকতে সহিরিদয়ে কী কাজ? 
  • r2h | 204.237.206.72 | ১৩ জুলাই ২০২২ ২১:১৭737782
    • একক | ১৩ জুলাই ২০২২ ১৯:৪৬
    • ...কালচারাল মিক্সিং মিনিমাম বলে। অর্থনীতি মাথায় রেখে নয়। 
     
    হ্যাঁ, সেতো বটেই, কিন্তু এটা সুপ্রযুক্ত মনে হয় না।
  • sc | 2405:8100:8000:5ca1::190:9249 | ১৩ জুলাই ২০২২ ২৩:২৫737783
  • এলেবেলে | ০৫ জুলাই ২০২২ ২২:২৯
    না, কোনও দেশই মাগনায় ভারতীয়দের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষাভাবে খেতে দেয় না। সেসব দেশে ভারতীয়রা কাজ করেন, প্রায়শই দ্বিতীয় বা ক্ষেত্রবিশেষে তৃতীয় শ্রেণির নাগরিকের মর্যাদা মেনে নিতে বাধ্য হন, ঘেটো বানিয়ে থাকেন (সেসব আত্মীয়-বেরাদরদের যথাসম্ভব আড়াল করেন) এবং তাঁদের পরিশ্রমের কিয়দংশ ভারতে পাঠিয়ে থাকেন। সেটা মিডল ইস্ট, আমেরিকা কিংবা ইউরোপ নির্বিশেষে তেতো সত্যি।
  • | 2601:247:4280:d10:78c7:ca:fafc:1bdb | ১৪ জুলাই ২০২২ ০১:৩৪737784
  • এক দিদা স্হানীয় মহিলা বলেছিলেন,ওমা তোমাদের আর কী কাজ! সবই তো মেশিনে করে!! মেয়ে মদ্দো সব রাতদিন মদ সিগারেট খেয়ে ঢলাঢলি করে...
     
    দিব্যজ্ঞানের এই ধারা বহমান
  • সম্বিৎ | ১৪ জুলাই ২০২২ ০২:০০737785
  • পোস্টটা করার আগে এই ছিল ভাটে আমার ভাষ্য -
     
    কদিন আগে ভাটে ইমিগ্র‍্যান্টদের নিয়ে ভারী মনোজ্ঞ, পান্ডিত্যপূর্ণ, চিন্তাশীল ও সুখপাঠ্য কিছু ওয়ান লাইনার দেখছিলাম। আজকের নিউ ইয়র্ক টাইমসের ওপিনিয়ন কলামে এ বিষয়ে দুজন রিসার্চারের বই নিয়ে আলোচনা আছে, সেটা কপি পেস্ট করে দিলাম। কারণ আসল লেখাটা পে-ওয়ালের পেছনে।
     
    তবে নিউ ইয়র্ক টাইমস প্রতিক্রিয়াশীল (কম. শিবদাস ঘোষ লাল সেলাম) এবং রিসার্চাররা পেশাদার রিসার্চার, মানে পয়সা খেয়ে রিসার্চ করেন, তাও অ্যামেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়ে - মানে সাম্রাজ্যবাদী ও ভোগবাদী দেশের পয়সায় (আবার কম. শিবদাস ঘোষ লাল সেলাম)। কাজেই পড়েই ভুলে যাবেন।
  • lcm | ১৪ জুলাই ২০২২ ০২:০০737786
  • আমাকে একজন বলেছিল - কেন পরে আছেন ওখানে সেকেন্ড ক্লাস সিটিজেন হয়ে, ভালো লাগে?

    তাকে আমি বললাম - যে আপনি একটু ভুল বলেছেন, সেকেন্ড ক্লাস নয়, থার্ড বা ফোর্থ ক্লাস বলতে পারেন।

    তিনি একটু পলকিত হয়ে জিগ্গেস করলেন - তাই! ঠিক কীভাবে থাকেন ওখানে।

    তাকে বললাম - যেমন ধরুন, লোকাল ট্রেনে ভুল করে যদি নির্ধারিত কামরায় না উঠি তাহলে নামিয়ে দেয়, থার্ড ক্লাস কামরায় যেতে বলে। তারপরে ধরুন হাসপাতালে গেলে বসিয়ে রাখে, সবার শেষে ডাকে। বা ধরুন, বাড়ি কেনার লোন চাইলে ব্যাংক অন্যদের থেকে বেশি ইন্টারেস্ট চায়। আবার সেভিংস অ্যাকাউন্টে টাকা জমা রাখলে থার্ড ক্লাস সিটিজিনদের জন্য নির্ধারিত নামমাত্র কিছু সুদ দেয়, বলে এখন কত সুদ দেয় জানালাম ।

    এসব শুনে তো উনি - এত কম ইন্টারেস্ট দেয়! আমাদের এখানেও আগের থেকে সুদ কমেছে, কিন্তু এরকম অবিচার করে না।

    বললাম - তারপর দেখুন না, ধরুন বড় দোকানে ঢুকব, মাস্ক পড়েই আছি, তাও থার্ড ক্লাস সিটিজেন বলে গায়ে কেমিক্যাল স্প্রে করে দিল। বাড়ি এসে আবার সেই জামা কাচতে হয়, চান করতে হয়।

    উনি বললেন - তাই তো! ঐ ঠান্ডার মধ্যে এতবার চান।
  • &/ | 151.141.85.8 | ১৪ জুলাই ২০২২ ০২:৫৫737787
  • "মন চলো নিজ নিকেতনে" ঃ-)
  • &/ | 151.141.85.8 | ১৪ জুলাই ২০২২ ০৩:০২737788
  • ঘেটো ব্যাপারটা কি সত্যিই আছে কোথাও কোথাও? এই যেমন ধরুন বাঙালিটোলা জাতীয় কিছু? বাঙালিরা পর পর বাড়ি করে থাকে, বা ভাড়া নিয়ে থাকে? জায়গাটার মাঝখানে খোলা গোলমতন মাঠ, সেখানে বাঁশের প্যান্ডেল করে দুর্গাপুজো হয়? বা বৈশাখমাসে রবীন্দ্রজয়ন্তী? অন্য সময় অন্য কিছু?
  • &/ | 151.141.85.8 | ১৪ জুলাই ২০২২ ০৩:০৫737789
  • পাড়ার মাঝখানে হয়তো একটা হরিসভা, হয়তো একটা মসজিদ, হয়তো একটা প্যাগোডা---এইসব আরকি। বিকেলে বা ছুটির দিনে দুপুরে লোকে যায় দুটি সূক্ত শুনতে? ভালো প্রসাদও দেয়? মানে ধর্মও হল, সামাজিকতাও হল? ঃ-)
  • r2h | 204.237.206.72 | ১৪ জুলাই ২০২২ ০৩:২০737790
  • ঘেটো বোধয় তো ঠিক এত মায়ামেদুর রোমান্টিক জিনিস না।
  • &/ | 151.141.85.8 | ১৪ জুলাই ২০২২ ০৩:৪৩737791
  • ঘেটো বলতে কি বস্তি জাতীয় কিছু বলা হচ্ছে? বা গুন্ডাদের ঠেক ?
  • অমিতাভ চক্রবর্ত্তী | ১৫ জুলাই ২০২২ ০১:৫৫737831
  • lcm | ১৪ জুলাই ২০২২ ০২:০০
    laughlaughlaughlaugh
     
    যতটুকু মর্যাদা এই দেশে পেয়েছি, তার একটি ভগ্নাংশও যে নিজের জন্মভূমিতে পাইনি এ আর কাকে কী বলব, বলার আছেই বা কী! 
  • যোষিতা | ১৫ জুলাই ২০২২ ০১:৫৯737832
  • ditto.
     
    তবে একথা খোলাখুলি বললে অনেকে ভয়ানক রেগে যান।
  • Ranjan Roy | ১৬ জুলাই ২০২২ ২৩:০৫737856
  • আমার মিশনের দিনের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ধ্রুব দত্ত যাদবপুরের বি ফার্ম, ২৮ বছর বয়সে ন্যু ইয়র্কে পাড়ি জমান। প্রথম কয়েক বছর খুব কষ্ট করেছিলেন। তারপর ওখান থেকে মাস্টার্স করার পর ভালো চাকরি পেয়ে স্ত্রী বনানীকে নিয়ে আসেন। শ্বশুর ছিলেন তৎকালীন যদুপুরের ডাকসাইটে রেজিস্ট্রার এবং কট্টর সিপিএম। 
      বনানী ওখানে গিয়ে একটি হার্বাল মেডিসিনের কোম্পানি খোলে। লং আইল্যাণ্ডে বাড়ি এবং বাগান। আরও একাধিক বাড়ি কিনেছে। আমার কোলকাতার কিছু বন্ধু ওদেশে ওর কাছে গিয়ে উঠেছে। 
    একমাত্র ছেলে নিউ ইয়র্ক ইউনিতে ইকনমিক্সে মাস্টার্স করে একটি নামজাদা ফিনান্সিয়াল পত্রিকার কন্ট্রিবিউটর।
     ওখানকার বাঙালী সাংস্কৃতিক কাজকর্মে নিয়মিত যুক্ত, এবং ওদেশে সম্মানের সঙ্গে রয়েছে। কোলকাতায় প্রতি বছর বইমেলায় আসে।
      মনে হয় নি দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক বলে।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে প্রতিক্রিয়া দিন