এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  আলোচনা   সমাজ

  • চাইল্ড ম্যারেজ কেন হয়?

    স্বাতী রায়
    আলোচনা | সমাজ | ১৮ এপ্রিল ২০২২ | ১৬৪৬ বার পঠিত
  • ডেটাতে দেখছি যে পশ্চিমবঙ্গে চাইল্ড ম্যারেজের হার গত প্রায় দশ বছর ধরে গ্রাম শহর মিলিয়ে ৪১ শতাংশের আশে পাশে  আর তার আগে আরও অনেক বেশি ছিল। শহরে শতকরা হিসেব বেশ খানিকটা কম হলেও, গ্রাম সেটা পুষিয়ে দিয়েছে। অবশ্য শহরের সংখ্যাও কম না।  এদিকে গোটা ওড়িশাতে সেইটা ১০ শতাংশেরও কম। এমনকি যতদূর মনে পড়ছে ঝাড়খন্ডেও আমাদের তুলনায় কম । অথচ তারা কি আমাদের থেকে বেজায় বড়লোক বা বেজায় বেশি শিক্ষিত? তা তো নয় বলেই জানি। তাহলে এইটার কি কি কারণ? আমার কলকাতার বাইরের জায়গা সম্বন্ধে কোন ধারণা নেই বলে সবার থেকে জানতে চাইছি।   
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • | ১৮ এপ্রিল ২০২২ ১৭:২১736283
  • এই সম্পর্কে অনিতাদি, অনিতা অগ্নিহোত্রী মনে হয় অনেক কিছু বলতে পারবেন।
  • Swati Ray | 117.194.37.118 | ১৮ এপ্রিল ২০২২ ১৭:৫৮736284
  • অনিতা অগ্নিহোত্রীকে আর প্রশ্ন করার জন্য  পাব কোথায়!  সবার বিন্দু বিন্দু জ্ঞান জুড়ে যদি কোন ছবি উঠে আসে ! এখানে ২১ এর আগে বিয়ে হওয়া ছেলেদের সংখ্যাও তুলনায়  অনেক বেশি। 
  • স্বাতী রায় | 117.194.33.168 | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ০০:৪১736288
  • টেলিগ্রাফের পিসটা আগে পড়েছি। ওটা পড়ে আরও গুলিয়ে গেছে। ইউথ কি আওয়াজের লেখাটা এখন পড়লাম। এটা  তুলনায় ভাল। অন্তত একটু হলেও বিষয়টার গভীরে যাওয়ার চেষ্টা আছে। পড়াশোনায় অনাগ্রহ, হুট করে অবাঞ্ছিত জনের প্রেমে পড়ে যাওয়া এগুলো জেনুইন সমস্যা জানি।  আর 'তুই নিজে বাজে ছেলের প্রেমে পড়ে বাড়ি থেকে যদি পালাস,তাহলে আমিও তোকে ঘরে  আটকে রেখে আমার পছন্দের ছেলের সঙ্গে বিয়ে দেব' বাবা-মার এই মনোভাবটাও বুঝি। কিন্তু এই সমস্যাগুলো কি অন্য রাজ্যের মেয়েদের হয় না? নাকি অন্য রাজ্যে মেয়েদের সতীত্ব নিয়ে ভাবনা কম ? তাহলে অন্য রাজ্য কি করে সে সমস্যা ম্যানেজ করতে পারছে আর আমরা পারছি না?     
  • Sara Man | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ০০:৫০736289
  • আমার শ্বশুরবাড়ির গ্রামে নিম্নবর্গের মেয়েদের দেখি তিরিশের কোঠায় নাতি কোলে ঘুরতে। বিবাহ পরিত‍্যক্তা আছে, ছেলে বন্ধুর সঙ্গে পালানো আছে, তবে সঙ্গী পরিবর্তন খুব সাধারণ ব‍্যাপার। অল্প বয়স থেকে প্রৌঢ়ত্ব অবধি একধরণের ফ্রি মিক্সিং চলে, এক সঙ্গীর প্রতি বিশ্বস্ততা বিরল। তার সঙ্গে আছে মেয়ে পাচার। এইসব থেকে বাঁচতে পরিবার থেকে ছোটবয়সে বিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু বাঁচা যায়না। আমাকে ভুল বুঝোনা স্বাতীদি। গ্রামের এই পরিবেশ ওপর থেকে বোঝা যায়না। 
  • Sara Man | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ০১:১১736290
  • লেখাপড়া শিখলেও এই মেয়েদের মধ‍্যে উচ্চচিন্তা বিরল। একদিকে দারিদ্র্য, অন‍্যদিকে মোবাইল ফোনের মধ‍্যে দিয়ে ভোগবাদী সমাজ। যতটা না দারিদ্র্য, তার চেয়ে এদের অভাববোধ অনেক বেশি। গ্রামে মেয়েরা এখন কেউ না খেয়ে মরেনা। বিড়ি বাঁধে, কাজুবাদামের খোসা ছাড়ায়, সেখান থেকে কাজু সরিয়ে আলাদা বিক্রি করে, সেল্ফ হেল্প গ্রুপ, সোসাইটি লোন, স্কুলে থাকলে কন‍্যাশ্রী, তাও ভদ্রসমাজের সমান কেন হতে পারছেনা - এই খিদে এই মেয়েদের ভীষণ বেশি। সবাই যে অত‍্যাচারিত হয় তা তো নয়। নিম্ন মধ‍্যবিত্ত মেয়েদের চুলবুলি আটকাতে বাবা মা পাগল হয়ে যাচ্ছে, জমি বিক্রি করে মেয়েকে কেরালায় প্রাইভেট নার্সিং কলেজে ভর্তি করেছে এমনও দেখেছি। যে বাবা মায়ের সঙ্গতি নেই, তাদের জন্য আছে বিয়ে, মারধোর, সালিশি, থানা পুলিশ, আবার শ্বশুরবাড়ি, নয়তো আড়কাঠির খপ্পরে। এইজন্য অপ্রাপ্তবয়স্ক বিয়ে বেশি। এটা আমার মত। অন‍্য রাজ‍্যের বিষয়ে ধারণা নেই। সারসংক্ষেপ হল, পশ্চিমবঙ্গে অতিরিক্ত জনঘনত্ব, ভোগের প্রতি সচেতনতা, অতিরিক্ত অভাববোধ, বৌদ্ধিক উত্তরণ না ঘটা এইগুলিই কারণ। 
  • Amit | 61.69.184.156 | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ০২:৪৫736291
  • একটা প্রশ্ন আছে। ইউপি , বিহার বা এমপি এসব এর স্টেট্ গুলোতেও কি চাইল্ড ম্যারেজ পব র থেকে কম ? নাকি ডাটা অমিল ?  ওখানে তো জাতপাতের ​​​​​​​সমস্যা ​​​​​​​আরো ​​​​​​​প্রকট। 
     
    জাস্টিফাই করছিনা একেবারেই। সত্যি যদি পব তে এতো বেশি হয় , তাহলে ভয়াবহ অবস্থা। এতো অল্প বয়েসে বিয়ে হয়ে বাচ্চা কাচ্চা হওয়া মানে  একদম স্পাইরাল ইন্টার জেনেরাসনাল পভার্টি আর ইলিটেরেসি ভিসিয়াস সাইকেল যেটা থেকে বেরোনো প্রায় অসম্ভব। 
  • স্বাতী রায় | 117.194.33.168 | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ০৩:০০736292
  • ভুল বুঝব কেন? আর দেখ সেক্সুয়াল আর্জ ১৪-১৫ বছরে আসা খুবই স্বাভাবিক। একেই হরমোনাল চেঞ্জ তার উপর সব সময় না না শুনে একটা  দেখিই না করে কী হয় গোছের মনোভাব তো জাগতেই পারে। এবং মধ্যবিত্ত পরিবারে যেটা  প্রজন্মগত রিপ্রেসনে চাপা দেওয়া থাকে, সেটা নিম্নবিত্ত পরিবারে হয় না। আর এমনিতেই তো বিয়ে ছাড়া জীবনে এক্সাইটমেন্ট কিছু নেই, আমাদের  তো এমনিতেই জন্ম থেকে বিয়েই জীবনের শেষ কথা বলে বড় করা হয়, কাজেই এই অবধি তো বুঝতে অসুবিধা নেই কোন। আর সত্যি কথা বলতে মধ্যবিত্ত পরিবারের বাচ্চারাও কি আর সেক্সুয়াল এক্সপেরিমেন্ট করে না? করে তো। নলচের আড়ালে হলেও, করে। আর যে সমাজে ফ্রি মিক্সিং ট্যাবু নয়,সেখানে বিয়ে দিলেই সমস্যার সমাধান এটাই বা অভিভাবক ভাবছেন কেন? 
     
    অভাববোধ কে কারণ হিসেবে বলছ, তাহলে কি বিয়েটা কি  সব সময় সামাজিক ভাবে,ধন গত ভাবে উচ্চ স্তরে হচ্ছে যাতে মেয়ে আরও বেশি সুখে থাকে?  তা ও তো সব সময় সত্যি নয়। 
     
    আর এই যে মেদিনীপুরের থেকে দু পা গেলেই  উড়িষ্যা সেখানকার মেয়েদের তো ভয়ানক বৌদ্ধিক উত্তরণ ঘটেছে বলে মনে হয় না। ওখানেও মেয়েরা অল্প বয়সেই খাদানে বা অন্যত্র কাজ করতে ঢোকেন, এখানেও তো মেয়েরা বিয়ে না হলেও সব সময় বসে থাকেন না, শাড়ীতে জড়ি বসানো বিড়ি বাঁধা এই সব করে তো দু পয়সা পান।  তুমিও সেটাই বলেছ। সত্যি কথা বলতে ঘুরতে গিয়ে যেটুকু দেখা তাতে মেয়েদের মানসিকতার বিশেষ বদল তো কোথাওই দেখি না। গুজরাটে তো তুমুল পেট্রিয়ার্কি দেখে এসেছি। রাজস্থানে ভোটের আগে জোর গলায় বলে একটা বিশেষ দলকে ভোট দিলে তারা গৌরীদান আইন সঙ্গত করে দেবে। তাহলে সে সব জায়গায় মেয়েরা ১৮ অবধি অপেক্ষা করতে পারছে, এখানে পারছে না কেন? এই জায়গাটাই বুঝতে চাইছি।    
  • Sara Man | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ০৭:৫৫736293
  • "আর যে সমাজে ফ্রি মিক্সিং ট্যাবু নয়,সেখানে বিয়ে দিলেই সমস্যার সমাধান এটাই বা অভিভাবক ভাবছেন কেন?" - এটা ভাবাটা সামাজিক অভ‍্যাস, আর শাস্তি না হওয়াটা একটা কারণ। তবে প্রতিবেশী পুলিশে খবর দিয়েছে, বিয়ে হতে পারেনি, তাকে অন‍্য রাজ‍্যে নিয়ে গিয়ে বিয়ে দিয়েছে, এমন ও দেখেছি। 
     
    "অভাববোধ কে কারণ হিসেবে বলছ, তাহলে কি বিয়েটা কি  সব সময় সামাজিক ভাবে,ধন গত ভাবে উচ্চ স্তরে হচ্ছে যাতে মেয়ে আরও বেশি সুখে থাকে?  তা ও তো সব সময় সত্যি নয়।"  - এটা হল সামাজিক স্বপ্ন, যদি লটারি লেগে যায়, মার দিয়া কেল্লা। 
     
     
  • স্বাতী রায় | 117.194.37.56 | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ১০:৩০736294
  • @Amit হ্যাঁ। পশ্চিমবঙ্গ সবাইকে ফেলে সামনে চলে গেছে। আমারও আপনার মতই সন্দেহ জেগেছিল ডেটা দেখে। কিন্তু যদি NHFS এর ডেটা সত্য ধরতে হয় তাহলে এটাই সত্য। এবং এখানে অল্প বয়সে বিয়ে হওয়া ছেলের সংখ্যা ও বেশ বেশি অন্য স্টেটের তুলনায়। 
  • r2h | 134.238.14.27 | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ১০:৪৩736295
  • এইটা অদ্ভুত সত্যিই, মানে চাইল্ড ম্যারেজটা না, আরো বেশি অনগ্রসর জায়গা থেকে পবতে বেশি কেন।

    রিপোর্টিংএর ব্যাপার একটা সম্ভাবনা। এছাড়া, আরো অনগ্রসর বলেই কম, এমন সম্ভাবনাও আছে, মানে, দরিদ্র কিন্তু অন্ন সংস্থান আছে, গৃহস্থ এইরকম, বনাম দরিদ্র এবং প্রায় ভূমিদাস, পরিযায়ী, অন্নসংস্থানই সবচে' বড় চিন্তা - সেটা একরকম।

    এমনিতে, আন্ডারএজে বিয়ে যারা নিজেরা করে নিচ্ছে তাদের নিয়ে আমার ব্যক্তিগত কোন মাথাব্যথা নেই (থাকলেই বা কী), যতক্ষন না টিন এজ প্রেগনেন্সি ইত্যাদি বিপজ্জনক ব্যাপার আসছে। ষোল সতেরো বছর বয়স খুবই মধুময় সময়। সামনে যদি পড়াশুনো করতে হবে চাকরি পেতে হবে বাড়ি গাড়ি করতে হবে ঐসব টার্গেট নির্দিষ্ট না থাকে তাহলে বিয়ে করতে আর আপত্তি কী!
    দু'দিন পর স্বপ্নভঙ্গ হয়, তা কী আর করা যাবে। সে তো কত লোক কবি বা শিল্পী হবে ভেবে ক্যারিয়ার ভোগে দেয়, বাড়িতে অশান্তি হয়।

    সমস্যা হলো (জোর করে) বিয়ে দিয়ে দেওয়া, অবলিগেটরি ইত্যাদি। বিয়ের সময় ব্যাপারটা বোধহয় বয়ঃপ্রাপ্তির পাশাপাশি অ্যাস্পিরেশনের ওপরও নির্ভর করে, আর সামাজিক চাপ। ঐ যে, মধ্যবিত্ত পরিবারে টার্গেট থাকে। একটা আর্থিক স্তরের নীচে প্র‌্যাকটিকেলি সেটা আর থাকে না - আর কিছু হওয়ার নেই, ঐরকম ব্যাপার চলে আসে। খুব উচ্চবিত্ত পরিবারেও ঐটা হয়, উল্টো, যা হবার তো হবেই, পারিবারিক ব্যবসা ইত্যাদি।

    এবার, আরো এক ধাপ নীচে সামাজিক চাপটা কম, অন্নসংস্থান মুখ্য হওয়ায়। গ্রাম শহরের ব্যাপারগুলোও একরকম।

    গ্রামে মিনুর শ্বশুর মারা গেল, হতদরিদ্র লোক, কিন্তু গ্রামশুদ্ধ লোককে শ্রাদ্ধে না খাওয়ালে একঘরে হওয়ার ভয়। অন্যদিকে কলকাতায় মিনুর ছেলে মেয়ে দু'জনেই কালিঘাটে গিয়ে বিয়ে করলো, তারপর কিছুদিন মা-বাবার সঙ্গেই থাকলো, তারপর একটু গুছিয়ে নিয়ে আলাদা হয়ে গেল। যে যা দেওয়ার সংসার শুরু হলে দিয়ো, এরকম বললো, লোক খাওয়ানোর সিন নেই, খুবই প্র‌্যাগমেটিক ব্যাপার।

    আরেকটা ইন্টারেস্টিং জিনিস, আমি হাবিবা শ'র কথা আগেও উল্লেখ করেছি, আশির দশকে লুইজিয়ানা অ্যালাবামায় কালোদের মধ্যে ড্রাগ অ্যাবিউজ, টিন এজ প্রেগনেন্সি ইত্যাদি নিয়ে ভালো সরকারি ফান্ডিং, ডেডিকেটেড টিম নিয়েও কাজ করতে গিয়ে জেরবার, কিন্তু ধর্মপ্রচারকরা দেখা গেল খুব এফেকটিভলি অনেক কিছু করে ফেললেন।

    ক'দিন আগে একটা কথোপকথন শুনলাম, এটা অবশ্য একেবারেই কলকাতায়-

    - বুঝলেন তো দাদা, মেয়ের বিয়ে দিয়ে দিলাম।
    - ও, বাহ বাহ, খুব ভালো। ছেলে কী করে?
    - ছেলে তৃণমূল করে।
  • dc | 122.178.21.217 | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ১২:০০736296
  • এখানে বিহারের চাইল্ড ম্যারেজ নিয়ে আলোচনা আছে। 
     
     
    এই লেখাটা পড়ে কিন্তু মনে হচ্ছে বিহারের রেট পবর থেকে বেশী, যদিও সেটা ক্লিয়ার না। এই বাক্যটা দেখুনঃ 
     
    India has seen improvements in child marriage levels in the last 20 years, with states such as Rajasthan, Chhattisgarh, and Madhya Pradesh showing the best results. However, persisting gender inequities  have stalled progress in curbing child marriage in certain states such as Tripura, West Bengal, and especially  Bihar, where more than two out of five women continue to get married early.
     
    যাই হোক, চাইল্ড ম্যারেজ সমস্যার কিছু ফ্যাক্টর নিয়ে এখানে আলোচনা হয়েছে। যেমনঃ লো স্কুলিং রেট আর প্যাট্রিয়ার্কি। আর সমাধানেরও বেশ কিছু সূত্র দেওয়া হয়েছে। সেগুলো মনে হয় বিহার বা পব, দুয়ের ক্ষেত্রেই প্রযোয্য। 
  • dc | 122.178.21.217 | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ১২:০৪736297
  • আর এই রিপোর্টে NFHS এর লিংক আছেঃ 
     
    সেখান ​​​​​​​থেকে ​​​​​​​পবর ​​​​​​​এই ​​​​​​​ডেটাশিটটা ​​​​​​​পেলামঃ 
     
    দেখা যাচ্ছে, পবর আর্বান এরিয়াতে ১৮ বছরের কম মেয়েদের বিয়ে দেওয়ার হার ২৬% আর রুরাল এরিয়াতে ৪৮%। মোট ৪১%, অর্থাত রুরাল এরিয়ার দিকে ভয়ানক স্কিউড। 
  • একক | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ১২:২৬736298
  • কেও একটু গ্রাফ এঁকে দেখাতে পারেন তুলনামূলক ডেটা দিয়ে?  
     
    চাইল্ড ম্যারেজের সঙ্গে অগ্রসর অনগ্রসর এর সম্পর্ক একটু জটিল।  ধরুন যে একেবারে মরা গরিব খাদানে কাজ করে তার পক্ষে কিন্তু মেয়েকে মোবাইল কিনে দেওয়া সম্ভব না। একজন খুব ছোট হলেও সবজি দোকানির ক্ষেত্রে সম্ভব। আবার সবজি দোকানির পক্ষে ওই মোবাইল্টুকুই সম্ভব, মেয়েকে পড়াশোনা শিখে নিজের পায়ে দাঁড় হওয়ার স্বপ্ন দেখানো সম্ভব না। কাজেই সোশিও- ইকোনমি,  চাইল্ড ম্যারেজ, এস্পিরেশন এই তিন্টে জিনিস প্লে করচে। 
  • ইন্দ্রাণী | ১৯ এপ্রিল ২০২২ ১৪:৪৪736299
  • এবছরের গোড়ায়, খবরের কাগজে পড়েছিলাম, ওড়িশার ১০,০০০ গ্রাম সম্পূর্ণ বাল্য বিবাহ মুক্ত। সেই প্রসঙ্গে পড়েছিলাম, ওখানে কী ভাবে কাজ হচ্ছে এই নিয়ে- অঙ্গনওয়াড়ি, আশা কর্মী, পঞ্চায়েৎ, বিদ্যালয় প্রধান সবাইকে নিয়ে।
    একটা লিঙ্ক দিচ্ছিঃ
    https://www.hindustantimes.com/india-news/in-odisha-over-10-000-villages-are-now-free-from-childmarriage-101642529396116.html
    খুঁজলে এই ব্যাপারে আরো তথ্য পাওয়া যাবে নিশ্চয়ই।
  • স্বাতী রায় | 117.194.33.251 | ২০ এপ্রিল ২০২২ ০১:৪৬736301
  • স্বাতী রায় | 117.194.33.251 | ২০ এপ্রিল ২০২২ ০২:০৭736302
  • আমার দেওয়া তথ্যে একটু ভুল ছিল উড়িষ্যার শতকরা হার দশ শতাংশ না প্রায় একুশ শতাংশ।  @ইন্দ্রাণী উড়িষ্যার উপর পিসটা পড়লাম। সচেতনতার বিকল্প নেই। আর সবাই পারে,শুধু আমরাই পারি না এটাই কষ্টের। 
     
    তাও এটাও বুঝি না। যারা বিয়ে দিচ্ছেন,তাঁরা কি সত্যিই না জেনে দিচ্ছেন? নাকি অমন তো কত আইন থাকে ধুউস বলে আইনকে উড়িয়ে দিচ্ছেন? পশ্চিমবঙ্গেও কত পুরোহিতরা অঙ্গীকার নিলেন অপ্রাপ্ত বয়স্কদের বিয়ে দেবেন না , বয়সের প্রমাণ দেখে তারপর বিয়ে দেবেন। তার তাহলে কি হল ? তাহলে কি ওই শাস্তির ভয় না থাকাটাই শেষ কথা?
  • Amit | 121.200.237.26 | ২০ এপ্রিল ২০২২ ০৩:৫৪736303
  • পব তে গ্রাম আর শহরের এতোটা স্কিউড ডিফারেন্স কি গ্রামের দিকে ওভারঅল ল & অর্ডার এর  হাল খারাপ হওয়ার জন্যে হতে পারে -? যেটুকু শুনি চেনাশোনাদের থেকে - যে গ্রামের দিকে উনএমপ্লয়মেন্ট এখন প্রচন্ড বেশি। যারা একটু খেটে খেতে চায় সাউথ বা দিল্লি-মহারাষ্ট্র -গুজরাটে চলে যাচ্ছে। যারা আছে তাঁদের পক্ষে তোলাবাজির দৌলতে ছোটোখাটো দোকান করেও টিকে থাকা মুশকিল। সিন্ডিকেট এ ​​​​​​​জয়েন করলে সেখানেও দিদির ভাই দের খাওয়া খাওয়ি- আজ এক ভাইয়ের দলে থাকলে কালকে অন্য ভাই এর দল এসে লাশ ফেলে দিলো।  ​
     
    বাবা মায়েরা অল্প বয়সী মেয়েদের ঘরে রাখতে জাস্ট ভয় পাচ্ছেন- তাই বিয়ে দিয়ে দায় এড়ানো। সেক্ষেত্রে ​​​​​​​মেয়েদের আন্ডার ​​​​​​​এজ বিয়েটা ​​​​​​​হয়তো একটু ​​​​​​​বোঝা ​​​​​​​যায়। কিন্তু ছেলে দের ক্ষেত্রে অল্প বয়সে বিয়েটা বোঝা যাচ্ছেনা। রোজগার না থাকলে/ কম হলে তো বিয়ের বয়স বাড়া উচিত ? 
     
    আবার এটাও ভাবছি বিহার ওড়িশাতে তো গ্রামে একই সমস্যা- ওখানে তো ওনেকদিন থেকেই লোকে বাইরে যায় কাজ করতে - ইভেন পব তেও আসে। বিহারের পপুলেশন ডেনসিটি ও কিছু কম নয়। তাহলে ওখানে কমছে কি করে ?
     
    এই ডাটা সোর্স ঠিক হলে পব-তে কোথাও একটা বড়ো রকমের সিস্টেম ফেলিওর হচ্ছে। 
  • &/ | 151.141.84.152 | ২০ এপ্রিল ২০২২ ০৪:৫৯736304
  • ভয়ের একটা ব্যাপার হয়তো খুবই বাস্তব। ছোটো ছোটো ছেলেগুলোর সঙ্গে ছোটো ছোটো মেয়েগুলোর বিয়ে দিয়ে দিচ্ছে হয়তো সামাজিকভাবে নিরাপত্তার জন্য, যে অন্ততঃ বিবাহিতা কন্যাকে টেনে নিয়ে যাবে না জোর করে।
    (এই যদি অবস্থা হয়ে থাকে তাহলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি প্রিমিটিভ জমিদারদের আমলের মতন হয়ে গেছে, সেই আমলে লেঠেল পাঠিয়ে গরীবঘরের সুন্দরী কুমারী কন্যাদের তুলে নিয়ে যেত জমিদার ও নায়েবগোমস্তারা )
  • Sara Man | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১০:১৫736305
  • না, আমি যা দেখেছি, পূর্ব মেদিনীপুরে কোনভাবেই মেয়ে তুলে নিয়ে যাবে এমন কোন ভয় নেই। আইন ও খুব ভালো করে জানে। পুলিশ জানতে পারলে নিয়মিত বিয়ে বন্ধ করে দেয়।রাজনৈতিক ভয় ও নেই। মোটামুটি সকলেই শাসকের পক্ষে। জমিদার লেঠেল এইসব শহুরে কল্পনা করে লাভ নেই। একেবারে নিম্নস্তরের ওপরে যারা তাদের মধ‍্যে এই প্রবণতা কমতে শুরু করেছে। এতে কন‍্যাশ্রী আর সবুজ সাথীর বিরাট ভূমিকা আছে‌। কিন্তু একেবারে নিচুতলায় ইস্কুলে হ‍্যাটা খেয়ে ক্লাস নাইন অবধি যেতে পারেনা। তাই এই প্রকল্প ওই ক‍্যাটেগরিকে স্পর্শ করতে পারেনি। আর হ‍্যাটা খাওয়ার কারণ হল ভাঙা পরিবার। কেউ বাবা এবং মা দুজনকে পায়না। আর যাকে পায় মানে যে ভরণপোষণ করে, সে বাড়িতে থাকেনা। গ্রামের বাইরে কোথাও কাজ করে। ছেলে মেয়েগুলো তস‍্য গরীব আত্মীয়ের ঘরে নুড়ো নুড়ো হয়। আর বিনোদন হিসেবে যৌন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। অনেক সময়ে থানা পুলিশ, জেল জরিমানা, কোর্ট, কোর্টের বাইরে টাকার খেলা, গর্ভাধান, গর্ভপাত হয়। বাড়ির লোক এতদূর যাতে না যায়, তাই আগেভাগেই বিয়ের চেষ্টা করে, যদি পরিবারে মন বসে যায়, একটা চান্স নেয়। 
  • স্বাতী রায় | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১১:১১736306
  • পঞ্চায়েতের বা গ্রামের মাথা যাঁরা তাঁদের ভূমিকা কি? বিয়েতে জমিয়ে নেমন্তন্ন খাওয়া ? পুলিশে তাঁরা কেউ খবর দেন না ? 
  • Amit | 121.200.237.26 | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১১:১৮736307
  • ওকে। ল & অর্ডার টা বোধহয় এক্টু অতিরঞ্জিত করেই শুনেছি তাহলে। রিয়ালিটি টা অন্য। 
     
    যারা এতটা  গরীব তাদের জন্যে কোনো টার্গেটেড সরকারি প্রকল্প নেই যাতে তাদের বাচ্চারা স্কুল অন্তত শেষ করতে পারে ? মিডডে মিল বা ১০০ দিনের কাজ -এগুলো তো কিছুটা হলেও কাজ করা উচিত? 
  • Sara Man | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১২:৪৪736308
  • স্বাতীদি একটা গল্প বলি শোনো। আমার বাড়ির পাশেই পরিচিত একজনের বাড়িতে একটি স্বামী পরিত‍্যক্তা মেয়ে থাকত। সে সাতদিনের ছুটি নিল, দেওরের মেয়ের বিয়েতে। শ্বশুরবাড়ি থেকে যে তাকে কাজ করতে ডেকেছে, এটাই বিরাট স্বীকৃতি। নাচতে নাচতে গেল। দুরাত কাটেনি। এক সন্ধেয় আমার সামনেই উদভ্রান্তের মতো ফিরে এল। চুল খাড়া, চক্ষু কোটরাগত। ব‍্যাপার কী? পুলিশ এসেছিল। মেয়ের আঠারো হয়নি। অতিথি অভ‍্যাগত সবাইকে নাকি পুলিশ ঘিরেছিল। এরা সব কার ধানের মরাই, কার গোয়ালে লুকিয়েছিল। দুরাত ঘুম নেই। আজ মওকা বুঝে পালিয়ে এসেছে। ঘটনা শুনে আমার মনটা তখন পৈশাচিক উল্লাসে উল্লসিত। কিন্তু শেষ রক্ষা হলনা। এই ক্লাসে অনেক মেয়ে পুরুষ অন্ধকার জীবনে জড়িত। পরে খবর পেলাম। বাচ্চা মেয়েটাকে বিহারে নিয়ে গিয়ে বিয়ে দিয়ে দিয়েছে। পরে ভেবে দেখেছি, যে যতগুলো ঘটনা শুনেছি, পুলিশ আসে, ঠিক সময়ে খবর দেয় কেউ না কেউ। কিন্তু পুলিশ ভয় দেখায়, ধমক ধামক দেয়। চালান খুব একটা করেনা। আর এই মানুষগুলো এক একটা বিষবৃক্ষ, হাড় বজ্জাত। এদের প্রকল্প দাও যা দাও কোন লাভ হবেনা। কম সুযোগ পাচ্ছে নাকি? 
  • Sara Man | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১২:৫৬736309
  • আরো ভেবেছি, যে মুর্শিদাবাদের খবর পাই কন‍্যাশ্রী সেনানী নাকি ঐরকম নামে কিছু আছে। কোন NGO বিরাট ভূমিকা নিয়েছে, কোন দিদিকে সবাই ভরসা করে, কোন থানার ও সি অনেক ক‍্যাম্পেন করছেন। কিছু ইস্কুলে অনেক শিবির হচ্ছে। এই ধরণের ব‍্যাপার সব জায়গায় হচ্ছে না। এগুলো যদি সংগঠিত করা যেত, ভালো হত। একটা বড় সামাজিক আন্দোলন দরকার। ভদ্রলোকেরা খুব একটা এসব নিয়ে ভাবিত নয়। এই অবস্থা বদল হলে আমেরিকার মতো এখানেও কাজের লোক পাওয়া যাবেনা। তখন কী হবে? এদের সামাজিক অবস্থান উন্নত হলে রাজনৈতিক স্বার্থ গোষ্ঠীও লোক পাবেনা। তাই উন্নয়নের চুঁইয়ে পড়া প্রভাব কবে যে এদের ভিতর থেকে আফশোষ জাগিয়ে তুলবে কে জানে? 
  • Sara Man | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১৩:৫৩736310
  • স্বাতীদি এককালে আমি ও ভাবতাম, পুলিশ ডেকে তুলিয়ে দিলেই বুঝি সমস্যা মিটে যাবে, মোটেই না। কয়েকদিন জেল খাটলে এদের সামাজিক সম্মান একটুকুও টাল খায়না। বেরিয়ে এসে আরও জেদ চেপে যায়। 
  • একক | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১৫:১৬736311
  • যেখানে চারপাশের লোক একটা কাজকে লজ্জাজনক ভাবে না ,  তাদের পুলিশে ধরলেই বা কী!! 
  • স্বাতী রায় | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১৫:৩২736312
  • তুমি একদিকে ঠিকই বলেছ। মানুষ নিজে চাইলে কি আর পুলিশ সেটা ঠেকাতে পারবে?  কিন্তু আমার মনে হয় পুলিশ পাঠানোরও একটা সদর্থক ভূমিকা আছে। এই মেয়েটিকে বিহারে নিয়ে বিয়ে দিতে পারল, সব বাবা মা তো সেটা পারবে না। তারা যদি জানে পুলিশ এসে হামলা করবে তাহলে একটু হলেও থমকাবে। এটা একটা রেজিস্ট্যান্স খাড়া করা। যাতে কাজটা করা কঠিন হয়।  না হলে তো জলবৎ তরলং হয়ে যায়। 
     
    মুর্শিদাবাদের মত আন্দোলন গড়ে উঠলে তো খুবই ভাল কথা, নাহলেও পঞ্চায়েতের বা গ্রামের সমাজের মাথাদের কিছু তো স্থানীয় ভূমিকা থাকেই।  না হলে তো ব্যাপারটা ওই আমরা সবাই জানি এখানে আনরেজিষ্ট্রার্ড  শ্মশান আছে র মতই কেস হয়। সবটাই সুন্দর normalaised. কবে একবার কাকে পুড়িয়ে মারা হবে তখন আমরা একবার হা হুতাশ করব , তারপর আবার  সব চুপ।  তবে কথা হল তারাই কি আর দরকারটা বোঝে? 
     
     আর একটা কথা যেটা আমি প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা থেকে জানি যে সবাই যারাই অল্প বয়সে বিয়ে দেয় তারাই যে থানা পুলিশ জেল যে পরোয়া করে না এমন নয়। ৪৮ শতাংশ এমনি এমনি হয় না। শুধু নিম্ন বর্গ দিয়েও হয় না। সেখানে আমার মনে হয়েছে ওই হুতো যেটা বলল aspiration  না থাকাই সমস্যা। বিয়ে ছাড়া আর কি করব জানা নেই। আর বিয়েই যদি করব তাহলে কচি বয়সে নয় কেন ? তবে আমার জানাটা একটা দুটো ঘটনা দিয়ে। সেটা থেকে জেনারালাইজ করা যায় না। সেজন্য ই প্রশ্ন টা তোলা। 
  • Sara Man | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১৬:১৭736313
  • সীমান্ত এলাকায় অন‍্য কারণ আছে। ওপাশ থেকে যারা আসছে তারা যেন তেন প্রকারেণ এপারে বিয়ে দিতে চায়, তাই child marriage হয়। 
  • Swati Ray | 117.194.33.251 | ২০ এপ্রিল ২০২২ ১৯:০৪736314
  • খুঁজতে খুঁজতে এইটা পেলাম। ফিল্ড রিসার্চ বেসড,  তাই হয়ত  কিছুটা  ভরসা যোগ্য। তবে বড্ড পুরোন। জানি  না  সম্প্রতি আর  কোন কাজ হয়েছে  নাকি। প্যাটার্ণ বদলান কিনা বা  সত্যি কি কি অ্যাকশন নেওয়া হচ্ছে প্রশাসনের তরফ থেকে জানতে ইচ্ছে করে। 
     
    https://www.researchgate.net/publication/235605886_Early_Marriage_of_Girls_in_Contemporary_Bengal_A_Field_View
  • পাতা :
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। পড়তে পড়তে মতামত দিন