• খেরোর খাতা

  • গল্পঃ কালা চশমা

    Muradul islam লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৪ নভেম্বর ২০২১ | ১৫৩ বার পঠিত
  • কালা চশমা

    আমি একবার কাজ করছিলাম একটা সফটওয়ার কোম্পানিতে। সেইখানের কাহিনী। আগে কখনো বলা হয় নাই। আজ মনে হইতেছে এই কাহিনীটা বলে ফেলি।

    কোম্পানিটার নাম না বলি। সফল একটা ব্যবসা হিসাবে তাদের নামডাক আছে। ভালো কাজ করতেছে, ঢাকায় ছিল অফিস। আমি তখন ঢাকায় গেছি, অফিসের কাছেই বাসা নিয়া থাকি।

    অফিস শুরু হয় নয় টায়। সকাল সকাল সবাই আইসা গোল হইয়া দাঁড়াইয়া মিটিং করেন, এটা তাদের নিয়ম। আমি এগারোটায় উইঠা অফিসে যাইতাম। গিয়া প্রথমে এইচআরের রুমে বইসা কিছু ফাও আলাপ করতাম। চা খাইতাম, এবং ঘন্টাখানেক পরে নিজের জায়গায় যাওয়া শুরু করতাম।

    এইরকমই একদিন গেছি অফিসে। শফিক ভাইরে বলছি চা দিতে, আর এইচারের রুমে বইসা দুই এইচারের সাথে আলাপ করতেছি বাংলা ফিল্মের ভবিষ্যৎ নিয়া, তখন আমাদের প্রধান এইচার আজির উদ্দিন নাজির সাহেব একটা তথ্য জানাইলেন। তিনি হালকা চালে বললেন, ভাই আপনের চশমা কাইল বাথরুমে ফালাইয়া গেছিলেন?

    আমি নিজের চশমায় হাত দিয়া দেখলাম আছে কি না। বললাম, আমার চশমা তো চউখেই আছে।

    নাজির সাহেব বললেন, আরে এইটা না। কালা চশমা। কাইল একটা কালা চশমা পাইছি বাথরুমে। কিন্তু এর মালিক পাওয়া যাইতেছে না।

    আমি বললাম, দেখেন কে না কে ফালাইয়া গেছে।

    সেকন্ড এইচার আনিসুজ্জামান বললেন, আমাদের মিট আপ হইল না আগের হপ্তায়, কেউ মে বি ফালাইয়া গেছে।

    নাজির সাহেব মাথা নাইড়া বলেন, এইটা হইতে পারে।

    এইরকম হালকা একটা টপিক ছিল কালা চশমার, যেইটা অফিসের বাথরুমে মিলছে।

    এর কয়দিন পরে আমি জিম থেকে গেছি অফিসে, এইখানে বইলা রাখি যে, অফিস টাইম পাঁচ-ছয়টার দিকে শেষ হইত। কিন্তু অফিস খোলা থাকত প্রায় এগারোটা পর্যন্ত। অনেকে টেবিল টেনিস খেলতেন, আর আমি আটটার দিকে জিমে যাইতাম। জিম যে জায়গায় ছিল তার নাম কালাপানি। সেই কালাপানিতে জিম কইরা নয়টা সাড়ে নয়টায় আইসা আমি ব্যাগ ট্যাগ নিয়া দশটার পরে অফিস থেকে বের হইতাম।

    এরকমই জিম থেকে গেছি অফিসে নয়টার দিকে, ওইদিন দেখি টেবিল টেনিস খেলা বাদ দিয়া খেলোয়াড়েরা কী নিয়া বেশ আলোচনায় মগ্ন আছেন। দুই এইচাররেও দেখলাম। আমারে দেইখা তাদের একজন ডাক দিলেন, ভাই দেইখা যান।

    গেলাম।

    টেবিল টেনিসের বোর্ডের উপর তিনটা কালা চশমা রাখা।

    প্রধান এইচার জানাইলেন, এইগুলা বাথরুমে মিলছে। মালিক মিলে নাই। আপনারে ওইদিন বলছিলাম না?

    আমি বললাম, ঐদিন তো একটার কথা বললেন।

    অফিস সহকারী শফিক ভাই বললেন, ভাই আরো দুইটা পাইছি।

    সব মিলাইয়া মোট তিনটা কালা চশমা। যার কোন মালিক নাই।

    বেশ অদ্ভুত ব্যাপার। কার চশমা এইগুলা? আমাদের কারো কি? আমাদের কাউরে তো ওইভাবে কালা চশমা পরতে দেখা যায় না। আর মিট আপে কেউ ফালাইয়া গেলে, নতুনগুলা কই থেকে আসল?

    এইসব বিষয় নিয়া আলাপ আলোচনা হইল। কিন্তু কোন মীমাংসা হইল না।

    আমরা যে যার বাসায় চইলা গেলাম।

    এবং এরপরদিন থেকে নিয়মিত বিরতিতে অফিসে কালা চশমা মিলতে লাগল। প্রথম প্রথম বাথরুমে পাওয়া যাইত। এরপর নানা স্থানে। কখনো এঞ্জিনিয়ারদের ডেস্কে, কখনো সাপোর্টের চিপায়, কখনো মার্কেটিং এর টেবিলে, কখনো মিটিংরুমের চেয়ারে, কখনো কিচেনে।

    এইভাবে চলতে লাগল।

    প্রায় বিশটা কালা চশমা যখন জইমা গেল তখন সবাই চিন্তিত হইয়া উঠতে লাগলেন।

    সিইও সিটিওর কানে আগেই গেছিল ব্যাপারটা। তারা প্রথম হাইসা উড়াইয়া দিছিলেন। এমনিতে তারা তখন ব্যস্ত। দেশে ওয়ার্ডক্যাম্পের আয়োজন হবে সামনে, এসব নিয়া নানা কাজ। কিন্তু যখন দেখা গেল বিশ বিশটা কালা চশমা অযাচিত ভাবে উদয় হইছে অফিসে, তখন অন্যসব কাজ রীতিমত শিঁকেতে তুলতেই হইল।

    সিইও আরিফ ভাই বললেন, এইডা কোন কথা হইল? কালা চশমা আইল কই থেকে?

    সিটিও হাসনাত ভাই বুদ্ধিমান মানুষ। যেকোন সমস্যায় তিনি মাথা ঠান্ডা রাইখা ভাবতে পারেন বলে খ্যাতি আছে। এই গুরুতর সমস্যার কালে তিনি তার সেই খ্যাতির প্রতি সুবিচার করে দেখাইলেন। বললেন, চিন্তার কিছু নাই। কালা চশমা মিলতেছে যেহেতু, তার মানে কেউ রাখতেছে। কে রাখতেছে বের করতে হবে। এর জন্য আমরা সিসি ক্যামেরা বসাব।

    একটা স্বস্থি আসে আমাদের মাঝে সমাধান চলে আসতেছে ভাইবা।

    এর মাঝে প্রধান এইচার আজিরউদ্দিন উদ্দিন নাজির খুক খুক কাইশা বললেন, ইয়ে ... কিন্তু অল্প একটু সমস্যা ভাই?

    সিটিও হাসনাত ভাই বলেন, সেইটা কী?

    আজিরউদ্দিন নাজির বলেন, বাথরুমে সিসি ক্যামেরা, কেমন হইয়া যায় না ব্যাপারটা?

    তখন আমরাও ব্যাপারটা নিয়া ভাবি। আসলেই তো, এটা কোন যুক্তির কথা হয় না।

    প্রধান এঞ্জিনিয়ার আকমল খান পাঠান বলেন, তাইলে ভাই আমরা দরজায় ক্যাম লাগাইতে পারি, যাতে দেখা যায় কে গেল আর বাইর হইল। তখন ঐদিন যদি কালা চশমা মিলে তাইলে আমরা ক্যামে বইয়া দেখতে পারব কারা কারা গেছিল। সেইখানের একজনই কামটা করছে তখন মোটামোটি নিশ্চিত হওয়া যাইতে পারে।

    বুদ্ধিটা খারাপ না মনে হইল আমাদের।

    সিটিও হাসনাত ভাই বললেন, তা করা যায়, কিন্তু এর জন্য কেউ জানি আবার ভয়ে বাথরুম করা বন্ধ না কইরা দেয়। আর আমরা একটা চেক রাখতে পারি। অফিসের দরজায় চেক কইরা ঢুকানি হবে, আলমগির চেক কইরা দেখবে কারো কাছে কালা চশমা আছে কি না। না থাকলে তো আমরা শিওর হইয়া গেলামই আমাদের কেউ কামটা করতেছে না।

    আমাদের মার্কেটিং টিমের আবেগী লোক, হাফিজ মুহাম্মদ বলেন, তাইলে কি ভাই আপনাদের বিশ্বাস নাই আমাগো উপর? আপনেরা কি মনে করেন আমরাই এই কাজ করতেছি? আমরা কেন করব এইগুলা? ফাও ফাও সানগ্লাস ফেইলা রাখব।

    মার্কেটিং এর জুনিয়র এগজিকিউটিভ ইশতিয়াক পেছন থেকে হালকা স্বরে যোগ করেন, তাও এত দামি চশমা!

    হাসনাত ভাই বুঝাইয়া বলতে যান, বিশ্বাস অবিশ্বাসের কথা না। কথা হইল অদ্ভুত একটা জিনিস ঘটতেছে। এর জন্য আমাদের কামের ক্ষতি হইতেছে। এখন বের করতে হবে কেমনে এইটা হইতেছে। বের করার প্রথম স্টেপ হইল, এইটা নিশ্চিত হওয়া যে আমাদের কেউ এইটা করতেছে না। কারণ আমাদের এই পঞ্চাশ জনের মাঝে, আরেকজন করতেছে কি না, এইটা ১০০ ভাগ নিশ্চিত হইয়া তো আমরা বলতে পারি না। আমাদের মেইন কুশ্চেন, তাইলে কালা চশমা আসে কই থেকে?

    আমরা বুঝি কথাটা। হাসনাত ভাইয়ের কথায় যুক্তি আছে।

    পরের দিন থেকে স্থানে স্থানে ক্যামেরা বসল। আর অফিসে ঢোকার টাইমে চেক করা শুরু হইল। অফিসের সাহায্যকারী আলমগিরের কাজই হইল দরজায় বইসা থাকা আর চেক করা। মূল অফিসে কোন ব্যক্তি চেক ছাড়া ঢুকতে পারবে না, কঠোর নিয়ম।

    এইভাবে চললো।

    কয়েকদিন কালা চশমা মিললো না।

    তখন আমরা বলাবলি করতেছিলাম, তাইলে কি আমাদেরই কেউ এমন ফাইজলামিটা করতেছিল? ফাজিলের ফাজিল।

    এইটা বইলা আমরা আমাদের পজিশন বেশিদিন রাখতে পারলাম না। এর দুইদিন পরে, ময়লা ফেলার ঝুড়িতে শফিক ভাই আট খানা নতুন কালা চশমা পাইলেন।

    আর স্থানে স্থানে কালা চশমারা গোচরিভূত হইতে থাকলেন সময়ে সময়ে।

    আমাদের ধর্মভীরু সিইও আরিফ ভাই লা হাওয়া ওয়ালা… বলতে বলতে বুকে ফু দিতে লাগলেন।

    ভয় পাবারই কথা।

    কোন ক্লু ছাড়া এইভাবে পৃথিবীর আর কোথাও এমন কালা চশমারা ভাইসা উঠছে?

    আমার জানামতে উঠে নাই।

    অফিস বন্ধ হবার জোগাড় হইল।

    এমন অবস্থায় একদিন সকালে আমাদের সিইও সিটিও অফিসের সবাইরে গ্রাউন্ডে জড়ো কইরা বললেন, আপনেরা আমাদের ভাই বইনের মত। দয়া কইরা এই জিনিশ বাইরে কাউরে কইয়েন না। এইটা জানাজানি হইলে, পত্রিকাগুলা রিপোর্ট করব, আর আমাদের ব্র্যান্ড ভ্যালু নষ্ট হইয়া যাইব দেশে। মানুষ আমাদের অফিসরে ভয় পাইতে শুরু করব।

    আমরা মাথা নাইড়া বললাম অবশ্যই। আমরা তো চাই না আমাদের কর্মক্ষেত্রের অসম্মান হোক। আর মূলত এই কারণেই তখন এই কাহিনীটা নিয়া আমিও আর কাউরে বলি নাই বা এইটা নিয়া লেখি নাই।

    প্রজেক্ট ম্যানেজার সাদেক খান ভাই বললেন, কিন্তু আমাদের সল্যুশন কী ভাই? এইভাবে তো চলতে পারে না জিনিশটা।

    সিটিও হাসনাত ভাই বললেন, আমরা ব্যবস্থা নিতেছি। একজন বড় হুজুররে আনাইতেছি, আমাদের প্রোডাক্ট ডেভলাপমেন্টের আশফাক ভাই উনারে আনতে গেছেন। তিনি আইসা দেখবেন। খুব সতর্কতার সাথে কাজ করতে হইতেছে যাতে লোক জানাজানি না হয়।

    ইতিমধ্যে শ খানেক কালা চশমা জইমা গেছে আমাদের।

    এইগুলারে টেবিলে জড়ো কইরা রাইখা আমরা কথা বলতেছিলাম।

    হাসান ভাই আমাদের এসিও স্পেশালিস্ট, তিনি প্রশ্ন রাখলেন, কিন্তু এই কালা চশমাগুলির কী গতি করা যায়?

    নানা মত আসলো।

    কেউ বললেন ফালাইয়া দেয়া যায়।

    কেউ বললেন ফালানি ঠিক হবে না। অসম্মান হইতে পারে, আর তাতে ক্ষতির আশঙ্কা রইয়া যায়। কারণ বলা তো যায় না এইগুলা আসলে কালা চশমাই কি না, হইতে তো পারে এরা অন্য কিছু, হয়ত এনারা অন্য কেউ।

    কেউ বললেন ওয়ার্ড ক্যাম্পে আমরা মানুষরে উপহার হিসাবে স্টিকারের বদলে কালা চশমাগুলা দিতে পারি।

    এই প্রস্তাবটা ভালোই এক দিক দিয়া। কালা চশমার মত দামী উপহার দিলে লাভই হইত। কিন্তু এই পরিচয়হীন অদ্ভুত কালা চশমাগুলি উপহার হিসাবে দিতে আমাদের সাহস হইল না।

    আমাদের একাউন্টেন্ট আছিলেন তবারক আলি সাহেব, সারাক্ষণ টাকা বাঁচানির ধান্দা নিয়া তিনি দিনাতিপাত করতেন। তবারক আলি আস্তে কইরা বলতে শুরু করলেন, আমরা জিনিসগুলা বেঁইচা দিতে পারি, কী কন আপনেরা? পরস্তাবটা মন্দ না, কী কন?

    তার কথার সমর্থক মিললো না।

    ওইদিন বিকালে একজন হুজুর আসলেন। আমরা কাজকাম বাদ দিয়া বইসা বইসা তার জন্য অপেক্ষা করতেছিলাম। লম্বা একটা কালা জোব্বা পরা হুজুর, আইসা অফিসের চাইরদিক মাথা ঘুরাইয়া ঘুরাইয়া দেখলেন। আমাদের দেখলেন এক নজর।

    সিইও সিটিও গিয়া সালাম দিয়া তারে নিয়া আসছিলেন ভিতরে।

    হুজুর বললেন, আপনাদের নামাযের জায়গা কই?

    সিইও আরিফ ভাই গ্রাউন্ডের যে জায়গায় নামায হয় সেইখানে হুজুররে নিয়া গেলেন। হুজুর সেইখানে দাঁড়াইয়া দুই রাকাত নামায পড়লেন।

    এরপর বললেন, একটা বালতিতে পানি নিয়া আসেন।

    শফিক ভাই তাড়াতাড়ি গিয়া লাল বালতিতে পানি ভইরা নিয়া আসলেন।

    হুজুর পানিতে কয়েকটা ফু দিলেন।

    এরপর বললেন, এই পানি পুরা অফিসে ছিঁটাইয়া দেন। ছিঁটানির কালে বলবেন বিসমিল্লা।

    শফিক ভাই ও আলমগির কাজে লাইগা গেলেন।

    হুজুর বললেন, জিনিসগুলা নিয়া আসেন।

    এইচারের কাছে জমা ছিল সব জিনিশ, মানে কালা চশমাগুলা। একটা চটের বস্তায় ভইরা রাখা হইছিল। সেইগুলা হুজুরের সামনে আনা হইল।

    হুজুর এইগুলা দেখলেন। এরপর নিঃশব্দ একটা হাসি দিলেন, আর বললেন, জিনিশ পছন্দ হইছে আমার।

    তিনি বস্তাটা নিয়া উইঠা যাইতে শুরু করলেন।

    আমাদের সিটিও সিইও দৌঁড়াইয়া গিয়া ধরলেন তারে। বললেন, হুজুর আপনার হাদিয়া নিয়া যাইবেন না?

    হুজুর বললেন, এইগুলাই আমার হাদিয়া। আর কিছু নিব না আমি। টাকা নিয়া হাত ময়লা করি না।

    হুজুর ধীরে ধীরে হাঁইটা গেলেন দরজা পর্যন্ত। আমাদের দিকে ঘুইরা বললেন, আর কোন ঝামেলা হইব না।

    আসসালামু আলাইকুম।

    তিনি চলে গেলেন।

    এর আধ ঘন্টা পরে চিন্তিত মুখে আমাদের সিটিও ও সিইও দুইজন আইসা বললেন, আপনারা সবাই আজ চলে যান বাসায়। আশফাক ভাই এক্সিডেন্ট করছে।

    এক্সিডেন্ট করছে মানে? আমরা অবাক হই।

    সিইও আরিফ ভাই বলেন, মানে শাহবাগে উনি মাথা ঘুরাইয়া পড়ে গেছিলেন। এখন হাসপাতালে আছেন। একটূ আগে ফোন দিছিলেন। আমরা তারে দেখতে যাইতেছি।

    সবাই বাসায় যাইতে শুরু করলেন।

    আর তখন আমার মনে হইল একটা জিনিশ। আমি গিয়া সিইও আরিফ ভাইরে ধরলাম, আশফাক ভাই তো হুজুর আনতে গেছিলেন, উনি অসুস্থ হইয়া গেলেন, তাইলে হুজুর আনলো কে?

    চিন্তিত মুখে আরিফ ভাই উত্তর দিলেন, সেইটাই তো বুঝতেছি না ভাই।

    ওই জিনিশ আমাদের আর বুঝা হয় নাই। এই হুজুর কে ছিলেন, কই থেকে আসছিলেন।

    এও বুঝা হয় নাই কেন কালা চশমাগুলা মিলতেছিল আমাদের কর্মক্ষেত্রে।

    তবে এরপর থেকে আর কোনদিন কালা চশমা মিলে নাই অফিসে।

     

  • বিভাগ : অন্যান্য | ১৪ নভেম্বর ২০২১ | ১৫৩ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ১৪ নভেম্বর ২০২১ ২৩:৪৪501192
  • দূর এইটা তেমন জমল না। 
  • :|: | 174.255.128.154 | ১৫ নভেম্বর ২০২১ ০৩:৪১501209
  • এই গল্পটা প্রায় কুমুদির জন্য লেখা শ্রেয়াস পালের গল্পসত্যির মতো হয়েছে। খুব ভালো। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই প্রতিক্রিয়া দিন