• খেরোর খাতা

  • নিজের আঁকা ছবিকে চালালেন অরজিনাল ভেরমিয়ার বলে;সামনে এলো মিগরের প্রবঞ্চনা

    Debabrata Mondal লেখকের গ্রাহক হোন
    ১০ মে ২০২১ | ১৪৬ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • দক্ষিণ ফ্রান্সের রোকেনব্রুন শহর।উত্তাল সফেন সমুদ্র যেনো প্রতি মুহূর্তে চুম্বন এঁকে দিচ্ছে  শহরের ওষ্ঠে।শান্ত সমাহিত অথচ প্রানপ্রাচুর্যে ভরপুর দক্ষিণ ফ্রান্সের এই শহর।সালটা ১৯৩২।রোকেনব্রুন শহরের একপ্রান্তে প্রিমেভেরা নামক একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতে এলেন হ্যান ভা মীগরে নামের এক ব্যক্তি,আর তারপরেই রহস্যের জাল ঘনীভূত হয়ে উঠলো প্রিমেভারা কে নিয়ে।কিন্তু কে এই হ্যান ভা মীগরে?চিনতে না পারারই কথা,কারণ তখনও মিডিয়ার স্পটলাইট মীগরেকে নজরবন্দী করতে পারেনি।সেই সময় তিনি আপাত অখ্যাত এক চিত্রশিল্পী।যদিও পরবর্তীতে এই মীগরেই হয়ে উঠেছিলেন আমস্টারডামের ধনকুবেরদের মধ্যে অন্যতম।তবে শুধু এটুকু বললে মীগরে সম্পর্কে অনেককিছুই না বলা থেকে যায়।


    রং তুলি স্কেচবুক পেন্সিল এই ছিল মীগরের ছোট্ট বেলার সঙ্গী।প্রথাগত শিক্ষালাভের চিরদিনই বিরোধী তিনি।আঠেরো বছর বয়সে দেলফত বিশ্ববিদ্যালয়ে পদধূলি অঙ্কিত হলো মীগরের।এখানেই শিল্পী জীবনের সফলতার প্রথম স্বাদ গ্রহণ মীগরের।প্রতি পাঁচ বছর অন্তর দেলফত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে আয়োজিত হতো একটি প্রতিযোগিতা,সেখানেই প্রথম পুরস্কার লাভ করেন মীগরে।এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা চলাকালীন প্রথম প্রেম,বসন্তদিনের আনাগোনা।যে দুটি নীল চোখের প্রেমে পড়েছিলেন মীগরে তার হাতে হাত রেখে সারাটি জীবন অতিবাহিত করতে পারেননি তিনি।ঘটেছিল বিবাহবিচ্ছেদ।কারণ মীগরে তখন মত্ত জোহানার প্রেমে।অথচ তার প্রথম স্ত্রী অ্যানা তাকে ভালোবেসে এক কাপড়ে বাড়ি ছেড়েছিল।বিয়ের আগেই মীগরের ঔরসে গর্ভবতী হয়ে পড়ে তার প্রথম প্রেমিকা  অ্যানা, তারপর নিজের সমস্ত সুখ - স্বাচ্ছন্দ্য বিসর্জন দিয়ে মীগরেকে সঙ্গে নিয়ে সংসার - সীমান্তে একের পর এক লড়াই করেছে কিশোরী মেয়েটি,হেরেছে বারংবার কিন্তু না লড়াই ছাড়েনি।


    এই ঘটনাটার শুরু হচ্ছে একটি চিত্র প্রদর্শনী থেকে, পরবর্তীতে যার সঙ্গে জড়িয়ে যান এক অবিস্মরণীয় শিল্পী, ভেরমিয়ার।তবে তার কথা পরে, আগে শোনা যাক এই চিত্র প্রদর্শনীর গল্প।হ্যাঁ,প্রদর্শনীটির আয়োজক আর কেউ নয়।হান ভ্যা মীগরে,তবে সে নিজে প্রদর্শনী নিয়ে যতটা না উৎসাহিত তার থেকেও বেশি উৎসাহিত তার স্ত্রী অ্যানা।তার আশা কোনো একদিন বিশ্ব ললিতকলার সমঝদাররা বুঝবে তার স্বামী মীগরে একটি ক্ষণজন্মা প্রতিভা,লাখে একটা মেলে।এই আশায় সে বন্ধক দিয়ে বসেছে নিজের গহনাগুলো।প্রদর্শনী আয়োজন করতে যে অনেক টাকার দরকার।যদিও মীগরের ভাগ্যে শিকে ছেড়েনি শেষ পর্যন্ত।প্রদর্শনীর শেষ দিনে মীগরে ডেকে এনেছিল ডক্টর ব্রেডিউসকে।যিনি ছিলেন তৎকালীন শিল্প বোদ্ধাদের অন্যতম,কিন্তু বিধি বাম সান্ত্বনা বাক্য তো দূরের কথা ব্রেডিউস মীগরের মুখের উপর বলেন ছবি আঁকা তার জন্য নয়,সে বরং অন্য কোনো কাজে হাত দিক।ব্রেডিউস কি জানতেন তার এই অপমানই জন্ম দেবে পরবর্তীকালের এক  প্রবঞ্চকের?যে নির্দ্বিধায় ছেলেখেলা করতে পারে বিশ্ব ললিতকলার অন্যতম উৎকৃষ্ট সম্পদ ভেরমিয়ার নিয়ে অথবা যার তুখোড় বুদ্ধিমত্তার কাছে নতিস্বীকার করতে বাধ্য হন সেই সময়ের ধুরন্ধর সব শিল্প সমালোচক?


    না মীগরে এই অপমান ভোলেননি।তবে শুধু একবারই নন,এর পরেও একইভাবে বারংবার মীগরেকে ডক্টর ব্রেডিউসের চক্ষুশূল হতে হয়েছে।মীগরে উপযুক্ত প্রত্যুত্তর খুঁজে ফিরেছে বারংবার,কিন্তু উপযুক্ত জবাব আর দেওয়া হচ্ছিল না তার।অবশ্য বেশিদিন হাত গুটিয়ে বসে থাকার পাত্র নন মীগরে।সুযোগের অপেক্ষায় ছিল সে।আর সেই সুযোগ মিলেও গেলো হঠাৎ একেবারে অভাবিতভাবে।ততদিনে মীগরের জীবনের একটা যুগ অতিবাহিত হয়ে গেছে।তাকে ছেড়ে গেছে তার প্রথম স্ত্রী অ্যানা,মীগরে নতুন ভাবে প্রেমে পড়েছে জোহানার।মীগরে তখন জোহানার সঙ্গে প্রমোদ ভ্রমণে মত্ত।ঘুরতে ঘুরতে একসময় তারা এসে পড়লেন রোমে।সেখানেই মীগরে মুখোমুখি হলেন কারাভাগগোর ছবির।আর এই ছবির হাত ধরেই  জন্ম নিল এক প্রবঞ্চক,যে পরবর্তীকালে অবলীলায় থাপ্পড় মেরেছিল একের পর এক আর্ট কৌনসারের গালে।


    অন্যদিকে ডক্টর ব্রেডিউস ততদিনে ভেরমিয়ার সম্পর্কে একজন অথরিটি।সুতরাং এই তো সুবর্ণ সুযোগ ব্রেডিউসকে নাস্তানাবুদ করার,সমস্ত অপমানের প্রতিশোধ নেওয়ার।যেমন ভাবা তেমন কাজ।মীগরেকে এবার দেখা গেল রোকেনব্রুন শহরের সেই বাড়ি অর্থ্যাৎ প্রিমেভেরাই।না প্রবঞ্চনার এই অধ্যায়ে নিজের স্ত্রী জোহানাকেও কাছে রাখেননি মীগরে।অর্থ্যাৎ প্রিম্ভেরায় প্রবঞ্চনার একান্ত অনুশীলনে নামনেল মীগরে।যার ফলশ্রুতি মাস ছয়েক পরে মীগরের হাত ধরে আবিষ্কৃত হলো একটি অরজিনাল ভেরমিয়ার।হ্যাঁ অরজিনালই বটে।সে ছবি দেখে আসল - নকলের ফারাক করে কার সাধ্য।ছবি নিয়ে মীগরে এবার গেলেন ডক্টর বুনের কাছে।তার কাছে সুকৌশলে একটি আষাঢ়ে গপ্পো ফেঁদে বসলেন মীগরে। ডক্টর বুনকে জানানো হলো মাভরোক নামের মীগরের এক প্রেয়সী এই অরজিনাল ভেরমিয়ারটি খুঁজে এনেছেন। ডক্টর বুন জানালেন ছবিটি খরিদ করার আগে তিনি ব্রেডিউসকে দিয়ে একবার যাচাই করিয়ে নিতে চান।না মীগরে আপত্তি করেনি।কিন্তু আশ্চর্যের কথা স্বয়ং ডক্টর ব্রেডিউসও বুঝতে পারেননি ছবিটি অরজিনাল ভেরমিয়ার নয়,ছবিটি আসলে নকল।অবশ্য ব্রেডিউস কে নাস্তানাবুদ করতে কম কাঠ খড় পোড়াতে হয়নি মিগরেকে।দীর্ঘ ছ মাস ধরে তিনি বুনেছিলেন সেই প্রবঞ্চনার জাল, যার নাগপাশ থেকে মুক্তি পাওয়া অসম্ভব ছিল ব্রেডিয়াস এর কাছে।


    এরপর একের পর এক ছবি এঁকে সেগুলিকে ভেরমিয়ারের নামে বিক্রি করেছেন মীগরে। সেগুলি স্থান পেয়েছে বিশ্বের নানা আর্ট গ্যালারিতে।কিন্তু ব্রেডিউস দূরের কথা অন্যান্য আর্ট কৌনশারও মীগরের এই চক্রান্তের বিন্দুমাত্র হদিশ পাননি।মীগরে ততদিনে প্রতিশোধের নেশায় পাগল,একের পর এক দুঁদে শিল্প - বোদ্ধাদের নাকের ডগা দিয়ে নকল ছবিকে আসল বলে চালিয়েছেন তিনি।কিন্তু একসময় এই মীগরেও পুলিশের জালে উঠলেন।না নকল ছবি বিক্রির অপরাধে নয়,তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তিনি দেশের শিল্পসম্ভার বিদেশে পাচার করছেন।যা ছিল চূড়ান্ত মিথ্যে।পুলিশি জেরার মুখে মীগরে ততদিনে স্বীকার করেছেন তার প্রবঞ্চনার ইতিহাস।তথাকথিত শিল্প বোদ্ধাদের নাকে ঝামা ঘষে কিভাবে তিনি তার অপমানের প্রতিশোধ নিয়েছেন সেই ইতিহাস।


    এতদূর পর্যন্ত পড়ে মনে হতেই পারে শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ প্রবঞ্চক ছিলেন মীগরে।কিন্তু মুদ্রার উল্টো পিঠটি তাহলে না দেখায় থেকে যায়।মীগরে কি তার প্রবঞ্চনার মধ্য দিয়েই সমস্ত অপমানিত,লাঞ্ছিত শিল্পীদের প্রতিভূ হয়ে ওঠেননি যারা নিজেদের সর্বস্ব জলাঞ্জলি দিয়ে শিল্প - সমালোচকদের দোরে দোরে ঘোরে তার শিল্পের সঠিক কদরের আশায়?প্রশ্ন কিন্তু উঠতেই থাকবে।

     
    তথ্যসূত্র - ' প্রবঞ্চক ' - নারায়ণ সান্যাল
                   আনন্দবাজার পত্রিকা
     
  • ১০ মে ২০২১ | ১৪৬ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে মতামত দিন