• খেরোর খাতা

  • কিছু রত্ন ও উপরত্নের বিশেষত্ব

    Debarpan Chakraborty লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৫ মার্চ ২০২১ | ২৭৮ বার পঠিত
  • হকিক - মাথা ঠান্ডা রাখে, মানসিক প্রশান্তি আনে, কাজকর্মে মনোযোগী করে তোলে, মনে বিশুদ্ধ চিন্তার উদয় হয়। ভালো কাজের প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি পায়। স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে মনের মিল হয়, পরকীয়া প্রবণতা থেকে রাখা করে। হৃদরোগীদের ক্ষেত্রে হকিক বিশেষ ভাবে গ্রহণীয়। রক্তচলাচল স্বাভাবিক রাখে, দুর্ঘটনা, ব্ল্যাক ম্যাজিক ও নানারকম বিপদ আপদ থেকে রক্ষা করে।

    ম্যালাকাইট - এটি বুধের পাথর। উপরত্ন হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। অপরাধ, অসন্তুষ্টি, আধ্যাত্মিক অভিব্যাক্তি, আবেগপ্রবণ নিরাময়, সম্পর্ক, বন্ধুত্ব প্রভৃতি নিয়ন্ত্রণ করে। এই পাথর অতীত স্পষ্ট করার জন্যে বিশেষ ভাবে কাজ করে। মাথা ধরা, মাথা ঝিমঝিম করা প্রতিরোধ করে। ভালোবাসা ও বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে কাজ করে। কপারের সাথে পরা উচিত। দাম মোটামুটি ৩০০-৪০০ টাকা।

    ওপাল - চন্দ্র ও শুক্রের উপরত্ন হিসেবে ব্যবহার করা হয়। তীব্র কামনা থেকে রক্ষা করে। শত্রুদমন, কর্মে সফলতা, মানসিক শান্তি, শরীরী ও স্বাস্থ্যের বিশেষ সহায়ক। দৃষ্টিশক্তির উপর ওপাল রত্নের শুভ প্রভাব রয়েছে বলে মানা হয়।

    ফিরোজা - এই রত্নটি বুধের কাজ করে থাকে। স্বামী স্ত্রীর, প্রেমিক প্রেমিকাদের মধ্যে মনের মিল, পারিবারিক শান্তি বজায় রাখতে ফিরোজা ব্যবহার করা হয়। বিপদ আপদ থেকে রক্ষা করতে এই রত্নটি কাজ করে থাকে।

    সবুজ পান্না - সুখশান্তি, প্রশান্তি, পারিবারিক শান্তি, কর্মে সাফল্য, শত্রুদমন, শুভ কর্মসম্পাদন, শারীরিক ভাবে সক্ষমতা বজায় রাখার জন্যে সবুজ পান্না বিশেষ ভাবে কাজ করে। বুধ ও মঙ্গলের সমতল হিসেবে কাজ করে।

    ব্লাকস্টোন - রত্নটি ঘন কালো হয়। অস্বচ্ছ হলেও বেশ চকচকে হয়। এই রত্নটি মঙ্গলের সমতল ও শনির কাজ করে। পুরুষ ৫ থেকে ১৭ রতি নারী ৫ থেকে ৮ রতি ধারণ করতে পারে।

    স্পটিক - এই রত্নটি ঝকঝকে সাদা হয়। এই রত্নটির মধ্যে ছিদ্র করে বাম হাতে ধারন করতে হয়। এটি অর্ধস্বচ্ছ। এই রত্নটি চন্দ্র ও শুক্রের কাজ করে। পুরুষরা ৭ থেকে ১০ রতি ও মহিলারা ৪ থেকে ৮ রতি ধারণ করে থাকে।

    গোল্ডস্টোন - এই রত্নটি সৌভাগ্য বৃদ্ধিকারক। সোনার মতো বর্ণ বিশিষ্ট। পুরুষ ও মহিলা উভয়েই ১০ রতি ধারণ করতে পারে।

    আইস্টোন - এই রত্নটি অর্ধস্বচ্ছ বা অস্বচ্ছ হয়ে থাকে। এর ওপর চক্র বা চোখের মতো থাকে সাদা বা কালোর উপরে। তাছাড়া সামান্য খয়েরি রঙের রত্নের উপরেও নানা ধরণের চোখ থাকে। পুরুষরা ৬ থেকে ২০ রতি ও মহিলারা ৫ থেকে ২০ রতি ব্যবহার করতে পারে।

    রাজপট্ট - এটি বরফের মতো ঠান্ডা ও পিত্তনাশকারী রত্ন। মঙ্গলের সমতলে ভালো কাজ করে। নারীরা গহনায় ব্যবহার করলে সৌভাগ্য বৃদ্ধি করে। পুরুষরা ৭ থেকে ১৫ রতি ও নারীরা ৫ থেকে ১০ রতি ব্যবহার করতে পারে।

    নীলি - এটি বেশ স্বচ্ছ রত্ন। ওপরে পালিশ করা থাকে ও নীল বর্ণের হয়। এটিতে শনির কাজ হয়। পুরুষরা ৮ থেকে ১৬ রতি ও নারীরা ৫ থেকে ৮ রতি ব্যবহার করতে পারে।

    টাইগারআই - এটি সৌখিন রত্ন। এই রত্নটি মঙ্গলের প্রথম ও দ্বিতীয় সমতলে উপর একসঙ্গে কাজ করে। এটি দেখতে অনেকটা বাঘের চোখের মতো। এর উপরের অংশ মসৃন এবং তাতে কালো দাগ থাকে। এটি খুব সাফল্যদায়ক রত্ন এবং দামেও কম। পুরুষরা ৮ থেকে ১৫ রতি ও মহিলারা ৬ থেকে ৮ রতি ব্যবহার করতে পারে।

    গোলাপি টোপাজ - এই রত্নটি রবি ও চন্দ্রের খুব ভালো কাজ করে থাকে। এতে অল্প গোলাপি আভা দেখা যায়। মাঝখান থেকে সাদা আভা দেখা যায়। পুরুষরা ৭ থেকে ১২ রতি ও মহিলারা ৪ থেকে ৭ রতি ব্যবহার করতে পারে।

    জেড - এই রত্ন বুধের কাজ করে তবে খুব বেশি কাজ করতে পারে না। এটি সবুজাভ হলেও বিশেষ উজ্জ্বল নয়। অনেকে একে জেড পান্নাও বলে। ওনেক্স পানার থেকেও এর দাম কম। এটি অর্ধস্বচ্ছ। পুরুষরা ৮ থেকে ১০ রতি ও নারীরা ৫ থেকে ৮ রতি ব্যবহার করতে পারে।

    ব্ল্যাকষ্টার - এটি সাধারণত কালো রঙের হয়। অস্বচ্ছ রত্ন এটি। একদিকে পালিশ করা থাকে। পালিশ করা দিক কালো রং হয় এবং যেদিকে পালিশ থাকেনা সেদিকে ছাই রঙের হয়ে থাকে। কালো পালিশের ভিতরে একটি রেখার মতো উজ্জ্বল রং দেখা যায় এবং তার মধ্যে দিয়ে তারার মতো দেখায়। এই রত্নটি শনি ও মঙ্গলের সমতলের কাজ করে থাকে। অনেকে cats eye এর পরিবর্তে এটি ব্যবহার করে। পুরুষরা ৮ থেকে ১৬ রতি ও নারীরা ৮ রতি ব্যবহার করে থাকে।

    টারকুইজ বা ষ্টারস্টোন - এটি বিদেশী রত্ন হলেও বহুল ব্যবহৃত। এটি নানাপ্রকারের বর্ণের হয়। একদিক থেকে উজ্জ্বল রশ্মি বের হয় বা তারার মতো রশ্মি বের হয়। বর্ণ অনুযায়ী নানাগ্রহের জন্য ব্যবহার করা হয়। পুরুষরা ৭ থেকে ১৫ রতি এবং নারীরা ৫ থেকে ১০ রতি ব্যবহার করতে পারে।

    ব্ল্যাকস্যাফায়ার - এটি কালো রঙের হয় ও এর থেকে উজ্জ্বল আভা বের হয়। পোখরাজের মতো কিন্তু আলো আভাযুক্ত স্বচ্ছ রত্ন এটি। এই রত্ন শনি ও প্রথম মঙ্গলের কাজ দে। এটি কাটিং এবং আনকাটিং দুরকমের পাওয়া যায়। পুরুষরা ৮ থেকে ১৭ রতি ও নারীরা ৬ থেকে ৮ রতি ধারণ করতে পারে।

    মার্গাস পান্না - এটি কচি কলাপাতার মতো দেখতে হয়। অর্ধস্বচ্ছ ও বেশি উজ্জ্বল হয়না। দামেও কম এবং এটি বুধ ও কেতুর কাজ করে। পুরুষরা ১০ থেকে ১২ রতি ও নারীরা ৬ থেকে ১০ রতি ধারণ করতে পারে।

    ইয়েলো স্টোন - এটি অর্ধস্বচ্ছ রত্ন। এরবর্ণ সম্পূর্ণ হলদে। এটি বৃহস্পতির কাজ করে। পোখরাজের দাম বেশি বলে অনেকে ইয়েলো স্টোন ব্যবহার করে। এর থেকেও উজ্জ্বল আভা বের হয়। পুরুষরা ৭ থেকে ১২ রতি ও নারীরা ৭ থেকে ১০ রুটি ব্যবহার করে থাকে।

    ওনেক্স পান্না - এটি ভালো জাতের অথচ কম দামি পান্না। এটি উজ্জ্বল, সবুজাভ ও কচি কলাপাতার রঙের হয়। এটি বুধ ও মঙ্গলের সমতল ক্ষেত্রে ও কেতুর কাজ করে থাকে। পুরুষরা ৫ থেকে ১৫ রতি ও নারীরা ৫ থেকে ৮ রতি ব্যবহার করে থাকে।

     

  • আরও পড়ুন
    বার্ড - Sambaran Sarkar
    আরও পড়ুন
    জিগীষা - Tanima Hazra
  • বিভাগ : অন্যান্য | ১৫ মার্চ ২০২১ | ২৭৮ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। মন শক্ত করে প্রতিক্রিয়া দিন