• বুলবুলভাজা  ইস্পেশাল  শিশুদিবস  শিশুদিবস

  • তিতির বন্ধুরা

    স্বপ্নজা গিরি (চতুর্থ শ্রেণী)
    ইস্পেশাল | শিশুদিবস | ১৫ নভেম্বর ২০২০ | ৩০৩ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • একদিন সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে তিতির খুব মন খারাপ লাগছিল। ইচ্ছে হল জানালার কাছে গিয়ে একটু বসতে। তিতিদের জানালার কাছে ছিল এক বড়ো জাম গাছ। তিতি দেখল একজোড়া শালিক পাখি সেই গাছে বসে জাম খাচ্ছে। ওই গাছেই বোধহয় ওদের বাসা। হঠাৎ তিতির মনে হল, " আচ্ছা খাবার পর ওরা জল খায় না ! দেখি তো একটু জল দিয়ে .." । একটা বড়ো বাটিতে করে জল এনে তিতি রেখে দিল তার ঘরের জানালার বাইরের দিকটায়। বেশ কিছুক্ষণ পর তিতি লক্ষ্য করল শালিক পাখি দুটি এসে সেই বাটি থেকে জল খাচ্ছে।ওদের দেখে তিতির ভারি মজা হল। সেদিন থেকে তিতি রোজ বাটিতে করে জল রেখে দিত আর শালিক পাখিরা এসে সেখান থেকে জল খেয়ে যেত।ধীরে ধীরে ওরা তিতির বন্ধু হয়ে গেল।

    একদিন হঠাৎ তিতি জানালা দিয়ে দেখতে পেল ওদের পাশের বাড়ির বাগানের গাছপালা কাটার তোড়জোড় চলছে। তিতি খুব ভয় পেয়ে গেল...."জাম গাছটা কেটে ফেলা হবে না তো, ওখানে যে আমার পাখি বন্ধুরা থাকে।" এক ছুটে ও বাবার কাছে গিয়ে বলল, সেন কাকুদের বাড়ির বাগানের গাছ কাটা বন্ধ করতে বলার জন্য। বাবা তিতিকে অনেক বোঝালেন, কিন্তু কিছুতেই তিতির কান্না থামানো গেল না। শেষে তিতিকে নিয়ে বাবা গেলেন সেন বাবুদের বাড়িতে। ওনাদের সব কথা খুলে বললেন। সব শুনে সেন বাবুর মনে হল, একটা ছোট্ট মেয়ে যেভাবে ভাবছে, কই বড়োরা তো সেভাবে ভেবে দেখেনি কখনো। শুধু পাখিদের বাসা তো নয়, গাছ তো আমাদের সকলের পরম বন্ধু । অথচ তাকে কত সহজেই আমরা কেটে ফেলি। তিনি তিতির চোখের জল মুছিয়ে দিয়ে ওকে কথা দিলেন যে ওই জাম গাছটা কোনদিনও কাটা হবে না। তিতি আনন্দে নচতে নাচতে বাবার হাত ধরে বাড়ি ফিরল।


    ছবিঃ শরণ্যা কর ভৌমিক
  • বিভাগ : ইস্পেশাল | ১৫ নভেম্বর ২০২০ | ৩০৩ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • সম্রাট | 202.8.115.23 | ১৬ নভেম্বর ২০২০ ১৬:৫২100287
  • অসাধারন গল্প


    তিতিরাই আমাদের ভবিষ্যৎ 


    ওরা যত মহীরুহের মত ছেয়ে থাকবে, ততই সবার ভাল

  • kk | 97.91.195.43 | ১৭ নভেম্বর ২০২০ ০০:৫২100321
  • স্বপ্নজা, খুব ভালো লেখা হয়েছে। গাছটা কাটা হলে আমারও খুব মন খারাপ হয়ে যেতো! ভাগ্যিস সেনবাবু তিতির মনের কথা বুঝতে পারলেন!

    শরণ্যার আঁকাও সুন্দর হয়েছে।

  • aranya | 162.115.44.104 | ১৭ নভেম্বর ২০২০ ০৩:৩৫100333
  • খুব সুন্দর 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। কল্পনাতীত মতামত দিন