• খেরোর খাতা

  • #করোনার_দিনলিপি

    লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৭০ বার পঠিত
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • এইসব হাউসিং সোসাইটিগুলোর হোয়্যাটস্যাপ গ্রুপগুলো সাধারণতঃ অতি বিরক্তিকর হয়। নানারকম গাধাটে অনুপ্রেরণামূলক বার্তা, সঙ্ঘের উস্কানিমূলক মিথ্যা গল্পসমূহ, প্রচন্ড মোটা, দামড়াটাইপ গনেশের ছবি, ক্ষুদ্র উদ্যোগীর ময়ুর বেড়াল কানের দুলের ছবি ইত্যাদিতে ভরে থাকে। এতদসত্ত্বেও আমি যে এই গ্রুপগুলোতে থাকি তার কারণ হল এক নম্বর নতুন নতুন রেস্টুরেন্টের আর বাড়িতে তৈরী খাবার ডেলিভারির খবর পাওয়া আর দুই নম্বর হল বাড়ি বদলানোর সময় সরাসরি বাড়িমালিকের সাথে যোগাযোগ করতে পারবার সুবিধে।
    .
    তা জুলাই মাস থেকেই এইরকম গ্রুপগুলোতে 'মুভিং আউট সেল'এর ছড়াছড়ি লেগেছিল। ফ্রিজ, মাইক্রোওয়েভ, গাড়ি, স্কুটি, চেয়ার টেবিল, খাট, সোফা বিভিন্ন সাইজ ও আকারের র‌্যাক, টিভি, রাউটার ইত্যাদির পরে ক্রমশ বালতি গামলা, মগ, পাঁচ কেজি সার্ফ বা এরিয়ালের প্যাকেট, পাঁচ কিম্বা দশ কেজি চাল, গম/আটার প্যাকেট মায় ঝাঁটা আর ঘরমোছার ঝান্ডা পর্যন্ত বিক্রির জন্য লোকে বিজ্ঞাপন দিতে লাগল। তারপর কেউ হয়ত আপত্তি করে থাকবে তখন বালতি মগ ইত্যাদিরা 'রেয়ারলি ইউজড' আর ঝাঁটা ঘরমুছুনি 'ওনলি ওয়ান্স ইউজড' ট্যাগসহ আসতে লাগল। 

    .

    আমার বেজায় কৌতুহল কেউ রেয়ারলি ইউজড বালতি মগ আর ওনলি ওয়ান্স ইউজড ঘরমুছুনি কিনেছে কিনা জানতে। 
    .
    তো, তারপরে আগস্ট থেকে শুরু হল ভাড়ার জন্য খালি ফ্ল্যাটের বিজ্ঞাপন। সেপ্টেম্বরে  এসে খালি ফ্ল্যাটের বিজ্ঞাপন প্রায় সুনামির আকার ধারণ করেছে। আমাদের এই হিঞ্জেওয়াড়ি এলাকায় ফ্ল্যাটবাড়িগুলোতে তথ্যপ্রযুক্তিকর্মীরাই সংখ্যাগুরু। এদেরই জন্য বাড়িভাড়া আকাশচোঁয়া হয়ে দাঁড়িয়েছিল। এই জানুয়ারী মাসেও এক সহকর্মী বাড়িভাড়ার চুক্তির এগারোমাস শেষ হওয়ার পর তার বাড়িওলা তাকে ২০% বাড়াতে বলেন। সরকারি নিয়ম ১০% বাড়বে প্রতি বছর। সহকর্মী মৃদু আপত্তি জানানোয় বাড়িওলা তাকে বলেন অসুবিধে থাকলে ছেড়ে দিন আমি চার কিম্বা পাঁচজনকে শেয়ারড অ্যাকোমোডেশান হিসেবে ভাড়া দিয়ে দেব, সোজা ৬০% বেশী পাব। সহকর্মী কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে ২০% বাড়তি দিয়ে পরবর্তী এগারোমাসের জন্য চুক্তি করে।
    .
    করোনা এসে এই খেলাটা পুরো ঘুরিয়ে দিয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তিক্ষেত্রের প্রায় ৭৫-৯০ শতাংশ কর্মী বাড়ি থেকেই কাজ করছেন কোম্পানি দেখছে বাড়ি থেকে কাজ করালেই ওদের বেশী লাভ, কারণ ইনফ্রা'র খরচ পুরো বেঁচে যাচ্ছে। আগস্টে লক ডাউন কিছু হালকা হলে এক সহকর্মী ক্রোমায় গিয়েছিল বাড়িতে দীর্ঘক্ষণ কমপিউটারে কাজ করার জন্য আরামদায়ক চেয়ার কিনতে। সেখানে গিয়ে দেখে ফেজ থ্রিয়ের দুটো বড় কোম্পানির গাদা গাদা রিভলবিং অফিস চেয়ার সেখানে ডাঁই করে রাখা। দোকানের কর্মীরা জানান ঐ দুটি কোম্পানি প্রায় সাড়ে ছয় হাজার চেয়ার ওদের দোকানে ফেরত দিয়ে গেছে। এই চেয়ারগুলো সাধারণত মাসিক ভাড়ায় নেওয়া থাকে, চেয়ারগুলো রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব যে দোকান থেকে নেওয়া তাদেরই থাকে। কাজেই বোঝাই যাচ্ছে কর্মীদের শিগগিরই অফিস যাওয়ার কোন সম্ভাবনাই নেই। এই বছরে তো নয়ই, পরের বছরও প্রথম কয়েকমাস সম্ভবতঃ নয়।
    .
    তা এমন অবস্থায় লোকজন হুড়মুড় করে ভাড়াবাড়ি ছেড়ে নিজ নিজ হোম টাউনে ফিরছে। এইসময় বেশী মালপত্র প্যাকারস এন্ড মুভারস দিয়ে পাঠানোর নানা অসুবিধে। এছাড়া অবিবাহিত ছেলেমেয়ে যারা এক একটা ফ্ল্যাটে চার, পাঁচ কিম্বা ছয়জনে থাকত তাদের বালতি গামলা মগ চাল গম আটা সবই শেয়ার করে কেনা। ফলে বিক্রি করে টাকাটা ভাগ করে নিয়ে যাওয়া সুবিধে ও সাশ্রয়কর। সেই চেষ্টাতেই অতসব বিজ্ঞাপন। নিতান্ত বিক্রি করতে না পারলে বিলিয়ে দিয়ে যাওয়া। কিন্তু এখন সেসবও মুশকিলের। এক তো চট করে কেউ এসব নিতে ভয় পাবে। দ্বিতীয়ত হাউসিংগুলোতে সহায়তাকর্মীদের খুব সামান্য অংশকেই আসতে দিচ্ছে ভারপ্রাপ্ত কমিটিরা। ফলে বিলাতে চাইলেই বা নেবে কে? এই সাথেই ফার্নিশড অ্যাপার্টমেন্টের চাহিদাও শুন্যের কোঠায়। যদিবা কেউ নতু ফ্ল্যাটে মুভ করছে, যারা ছেড়ে যাচ্ছে তাদের থেকে অনেক সস্তায় আসবাবপত্র পেয়েই যাচ্ছে। খামোখা ফার্নিশড ফ্ল্যাটের জন্য মাসে ৫-৬ হাজার টাকা অতিরিক্ত গুণতে কেউ রাজী নয়।
    .
    এই সবকিছুর ফলে বাড়িভাড়ার বেশ ভাল কারেকশান এসেছে দেখছি। 2BHKগুলোর ভাড়া তিন থেকে পাঁচ হাজার পর্যন্ত কমে গেছে। 1BHKগুলো তেমন কমে নি অবশ্য, মোটামুটি দুই তিন হাজার কম চাইছে। সেই যে বাড়িওলা চারজনকে ভাড়া দিয়ে ষাট শতাংশ বাড়াবার স্বপ্ন দেখছিলেন তিনিই এখন আগের বছরের চুক্তির থেকে এক হাজার কমে রাজী। ব্যপার হল টিসিএস যেমন বলেছে ভবিষ্যতেও তাদের পঁচিশ শতাংশ কর্মীকেই অফিস আসতে হবে, বাকী পঁচাত্তর শতাংশ বাড়ি থেকেই কাজ করবেন। আমাদের কোম্পানিও শুনছি অফার দেবে বাড়ি থেকে কাজ অথবা অফিসে গিয়ে কাজের মধ্যে একটা বেছে নেবার জন্য। তো সেক্ষেত্রে স্রেফ ভাড়া দেবার জন্য তৈরী হওয়া এই বিপুল সংখ্যক বাড়ির কী হবে? যাঁরা বিনিয়োগ হিসেবে দুটি কি তিনটি ফ্ল্যাট কিনে রেখেছেন তাঁদের প্রাথমিক বিনিয়োগটুকু তুলতেই মুশকিল হবে।

    .

    রিয়েল এস্টেটের ফোলানো ফাঁপানো বেলুনটা এবার বোধহয় দুম ফটাশ হতে চলেছে

  • ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৭০ বার পঠিত
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু মতামত দিন