• বুলবুলভাজা  পড়াবই  মনে রবে

  • হরেক রঙের চরিত্রে বোনা আখ্যান জুড়ে ব্যক্তিমানুষের চিরন্তন সংকটের ছবি

    সঞ্চারী সেন
    পড়াবই | মনে রবে | ২৩ আগস্ট ২০২০ | ৫২৮ বার পঠিত
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • ২১ অগাস্ট ছিল উর্দু সাহিত্যিক কুররাতুলায়েন হায়দারের প্রয়াণদিবস। সেই উপলক্ষেই এ সপ্তাহে এই বিভাগে রইল তাঁর সাহিত্য নিয়ে দুটি লেখা। একটি লিখছেন সঞ্চারী সেন, অন্যটি দময়ন্তী



    কুররাতুলায়েন হায়দার। স্বাধীনতা-পরবর্তী জমানায় উর্দু সাহিত্যের বহুধাপ্রবাহিত আধুনিক ধারার একটি বিশেষ স্রোতের অন্যতম পথিকৃৎ—যা প্রবাহিত মূলত মনের বিচিত্র উপত্যকা দিয়ে। বহুবর্ণময় তাঁর সাহিত্যের চরিত্রগুলি—এদেশের, বিদেশের, নানা জাতের, নানা শ্রেণির, নানা ভাষার। তেমনই কথাসাহিত্যের বিভিন্ন ধারায় ছিল তাঁর অবাধ গতায়াত— উপন্যাস, ছোটোগল্প, নাটক, ভ্রমণকহিনি। সমসাময়িক অন্যান্য উর্দু সাহিত্যিকের থেকে তাঁর দরিয়ার প্রবাহ ভিন্নতর। আলোচনায় লেখক ও উর্দু থেকে বাংলা ভাষায় সাহিত্য-তরজমাকার সঞ্চারী সেন






    কুররাতুলায়েন হায়দার (২০ জানুয়ারি, ১৯২৭—২১ অগাস্ট, ২০০৭)



    পমপম ডার্লিং! জেনে অনেকেরই চোখ কপালে উঠবে, ঠিক এইভাবেই আধুনিক ভারতীয় সাহিত্যের অন্যতম স্রষ্টা মোহতরমা কুররাতুলায়েন হায়দারকে একটি নিবন্ধে সম্বোধন করেছিলেন তাঁর কিছুকাল আগের আর-এক অসাধারণ সাহিত্যস্রষ্টা ইসমত চুগতাই! দুই মহান স্রষ্টার পারস্পরিক কোপের কেচ্ছা-কাহিনি দিয়ে তাঁদের বিষয়ে লেখা শুরু করা কদাচ আমার উদ্দেশ্য নয়। কিন্তু কুররাতুলায়েন প্রসঙ্গে আলোচনা করতে হলে তাঁর প্রেক্ষিতটা বোঝা জরুরি, আর সেখানেই চুগতাইয়ের এই মন্তব্যের প্রাসঙ্গিকতা, কারণ এ সম্বোধন করেই তিনি নবীনাকে ভারী গুরুত্বপূর্ণ একটা উপদেশ দিয়েছিলেন—তুমি পারসিক গালিচার বিলাস ছেড়ে পৃথিবীর মাটিতে নেমে এসে দ্যাখো আসল জীবন বলতে ঠিক কী বোঝায়!

    কুররাতুলায়েনও যে এই সমালোচনা একেবারে বিনা বাক্যব্যয়ে মেনে নিয়েছিলেন এমনটা নয়। কারণ এক, তিনি নিজস্ব সাহিত্য-অঞ্চল থেকে সরে আসেননি এবং দুই, কোনো একসময়ে ইসমতের দুর্দমনীয় মনোভাবের কারণে তাঁকে ‘লেডি চেঙ্গিজ় খাঁ’ বলে আখ্যায়িতও করেছেন।

    এই কাহিনির একটি পূর্ব-ইতিহাস রয়েছে। সে প্রেক্ষাপটে এই আলোচনার শুরুতেই একবার দৃষ্টি নিক্ষেপ করা ভালো। ১৯৩২ সালে ‘অঙ্গারে’ নামে একটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছিল লখনউ শহর থেকে। এই গ্রন্থে ধর্মীয় রক্ষণশীলতার বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিবাদী কিছু গল্প এবং একটি নাটক প্রকাশিত হয়েছিল। ডক্টর রশিদ জাহাঁ সেই সময়ের এক নবীন মহিলা চিকিৎসক, তিনিও তাঁর একটি গল্প এবং আর-একটি নাটকে এই পুরুষতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রবল ধিক্কার জানিয়েছিলেন। বইটি সেসময়ে এমন অভিঘাত হেনেছিল যে সেটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল, তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখানো হয়েছিল এমনকি সেটিকে বাজেয়াপ্ত করার দাবিও উঠেছিল সেসময়ে, এবং এতটাই তীব্র ছিল সেই দাবি যে তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার শেষপর্যন্ত সেই বইটি বাজেয়াপ্ত করেন। এমনকি সেইসময় এই বইটির লেখকদের বিরুদ্ধে ফতোয়াও জারি করা হয়েছিল মৌলবাদীদের তরফে।

    এর ফলে বেশ কিছুদিন এমন প্রচেষ্টা বন্ধ থাকলেও তারপরে আবার ক্রমশ আধুনিক সাহিত্যের প্রভাব আমাদের দেশের সাহিত্যক্ষেত্রে নতুন করে এসে পড়বার পরে, মূলত কৃষণচন্দর, রাজিন্দর সিং বেদী, ইসমত চুগতাই এবং সাদাত হাসান মান্টো—উর্দু ছোটোগল্পের এই চার দিকপালের নেতৃত্বে—নেতৃত্বে এই কারণে বলছি যে তাঁরা প্রত্যেকেই তাঁদের নিজস্ব শৈলীতে লিখলেও, তাঁদের গল্পের বিষয়বস্তু প্রভাবিত করেছে আরও অসংখ্য রচনাকারকে—এক প্রগতিশীল গল্পলেখনের জোয়ার শুরু হল। এই সমাজের দরিদ্র, দলিত, নিঃস্ব মানুষের বিষয়ে অকথিত কথাগুলি সোচ্চারে বলবার একটা প্রবণতা দেখা দিল। এবং সেটি যে কত প্রার্থিত ছিল তা প্রগতি লেখক সংঘের জনপ্রিয়তা থেকে সহজেই বোঝা গেল।

    কুররাতুলায়েন হায়দার এই উত্তাল জোয়ারের একটু পরবর্তী সময়ের এবং ভিন্নতর ক্ষেত্রের সাহিত্যিক। সামাজিক প্রেক্ষাপটে তাঁর অবস্থান কিছুটা অন্যতর। একটি অত্যন্ত আধুনিক, স্বতন্ত্র এবং অভিজাত পরিবারে বড়ো হওয়ার কারণে—তাঁর পারিবারিক পরিচয় বিষয়ে পরে আসছি—তিনি মূলত ব্যক্তিমানুষের মনস্তত্ত্ব নিয়ে কাজ করেছেন। অস্যার্থ, উর্দু সাহিত্যের আধুনিকতার একাধিক ধারা তৈরি হচ্ছিল।

    দেশভাগের পর তিনি স্বেচ্ছায় নিজের পরিবারের সঙ্গে পাকিস্তানে চলে গিয়েছিলেন, এসম্পর্কে প্রত্যক্ষত কোনো বিক্ষোভ বা যন্ত্রণা তাঁর মধ্যে ছিল না এবং দেশভাগের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর উপন্যাস ‘আগ কা দরিয়া’-তে তিনি এক আবহমান কালের সন্ধান সম্পর্কে লিখেছেন, যে খোঁজ মানুষের নিজস্ব অস্তিত্ব সম্পর্কে খোঁজ, যে জিজ্ঞাসা আজও সমধিক বাস্তব। যুগ যুগান্ত ধরে অর্থনৈতিক ভাবে সুবিধাজনক জায়গায় থাকা মানুষ এবং কখনও বা সেসম্পর্কে উদাসীন মানুষ, সমাজ, অর্থনীতি নিরপেক্ষেতার নিজের সত্তাকে খুঁজেই চলেছে। এখানেই সেকালের অনেক রচনাকারের সঙ্গে তাঁর দৃষ্টিভঙ্গির এক বিরাট ফারাক হয়ে যায়। অবশ্য ১৯৪৭ সালে কুররাতুলায়েনের বয়স ছিল মাত্র কুড়ি, কাজেই মায়ের সঙ্গে দেশত্যাগ করে যাওয়ার সময় তাঁর পরিণতমনস্কতা বা নিজস্ব চিন্তার স্বাধীনতা নিয়েও সন্দেহের অবকাশ রয়েছে। পরবর্তীকালে পাকিস্তানের পিতৃতান্ত্রিক সমাজের নিগড়ে যখন হাঁপিয়ে উঠেছিল তাঁর মন, ততদিনে অবশ্য তাঁর ব্যক্তিত্বের স্বকীয়তা সম্পূর্ণরূপে তাঁর সাহিত্যের উপর প্রভাব ফেলতে শুরু করেছিল।

    পারিবারিক ভাবে কুররাতুলায়েন এক আশ্চর্য সৌভাগ্যের অধিকারিণী ছিলেন। জন্মেছিলেন আলিগড়ে, ১৯২৭-এর ২০ জানুয়ারি। পিতা সৈয়দ সাজ্জাদ হায়দার ইয়ালদরিম একজন সিভিল সার্ভেন্ট ছিলেন, কিন্তু তারচেয়েও বড়ো পরিচয় ছিল যে তিনি উর্দু ছোটোগল্পের লেখক ছিলেন, অর্থাৎ প্রথম ছোটোগল্প-লিখিয়েদের অন্যতম ছিলেন তিনি। নারীশিক্ষা নিয়েও যথেষ্টই উৎসাহী ছিলেন এবং স্ত্রীর সঙ্গে মিলে তাঁদের কন্যার বিদ্যারম্ভের আয়োজনে বিশেষ ভূমিকা নিয়েছিলেন।

    কুররাতুলায়েনের মাতৃগত উত্তরাধিকারও ছিল অসাধারণ। তাঁর মা নজ়র সাজ্জাদ হায়দার ছিলেন একজন নজরকাড়া ঔপন্যাসিক, গল্পলেখিকা এবং প্রথম যে ইসলাম ধর্মীয়া নারীরা এ দেশে অবরোধ ভেঙে বাইরে এসেছিলেন, নজ়র ছিলেন তাঁদের অন্যতমা। তাঁর গুরুস্থানীয়া মহম্মদি বেগমও ছিলেন সাহিত্যগুণসম্পন্না আর-এক নারী, অর্থাৎ পিতার দিক থেকে তো বটেই মায়ের দিক থেকেও কুররাতুলায়েন এক অসাধারণ সাহিত্যিক উত্তরাধিকার লাভ করেছিলেন । ফলে মাত্র এগারো বছর বয়সেই প্রথম গল্প ‘বিচুহিয়া’ (ইঁদুরকন্যা)-র প্রকাশ, ‘ফুল’ নামের শিশুপত্রিকায়, যার সম্পাদক ছিলেন সাজ্জাদ হায়দার নিজেই। এবং কৈশোরেই আরও একটি সাহিত্যসৃষ্টি—‘সিতারোঁ সে আগে’ (তারাদের ছাড়িয়ে)।

    কুররাতুলায়েন-এর পড়াশোনার দিল্লির ইন্দ্রপ্রস্থ কলেজ, তারপর লখনউ বিশ্ববিদ্যালয় এবং দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে। পরবর্তী কালে অধ্যাপনা দেশ-বিদেশের বিভিন্ন কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে, যার মধ্যে রয়েছে ক্যালিফোর্নিয়া, শিকাগো, আরিজোনা ইত্যাদি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ভারতবর্ষের আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটির উর্দু বিভাগও।

    কুররাতুলায়েনের পেশা ও লেখালিখিতেও ছিল বৈচিত্র্য। তিনি সাংবাদিকতা করেছেন, সাংবাদিকতা করার পাশাপাশিই ছোটোগল্প লিখেছেন। ইংরেজি ও উর্দুর পারস্পরিক অনুবাদ করেছেন, লিখেছেন উপন্যাস, উপন্যাসিকা, ভ্রমণকাহিনি। ‘ইমপ্রিন্ট’ পত্রিকার (মুম্বাইয়ের) ম্যানেজিং ডিরেক্টর ছিলেন। ‘ইলাস্ট্রেটেড উইকলি’ নামের সেসময়ের দারুণ জনপ্রিয় পত্রিকার এডিটোরিয়াল বোর্ডের সদস্য ছিলেন এবং এমনকি পাকিস্তানে থাকাকালীন একটি তথ্যচিত্রও বানিয়েছিলেন।

    ১৯৫৯ সালে লাহোর থেকে প্রকাশিত ‘আগ কা দরিয়া’, যার ইংরেজি অনুবাদ তিনি নিজেই করেছিলেন—River of Fire—সেখানে একজায়গায় তাঁর উপন্যাসের একটি চরিত্র সম্পর্কে লিখছেন—‘The human who found himself in god and who was himself a god…’ এমন চিন্তার যে তৎকালীন পাকিস্তানে কিছু লোকের চক্ষুশূল হবে তাতে আর আশ্চর্য কী! সুতরাং কিছু পত্রপত্রিকায় সমালোচনা শুরু হল এবং কিমাশ্চর্যম্‌, একটি কাগজে এই মর্মে লেখা হল যে, কমিউনিস্ট রশিদ জাহাঁ কুররাতুলায়েনের নিকটাত্মীয়া, এবং সম্ভবত একথার অর্থ হল এই যে এই আত্মীয়তাই তাঁর এই প্রচলিত ধর্মবিশ্বাস-বিরোধী উপন্যাসের জন্ম দিয়েছে। অর্থাৎ পঁচিশ বছরেরও আগে প্রকাশিত একটি প্রতিবাদী গ্রন্থ—অঙ্গারে—তখনও তাড়া করে ফিরছিল মৌলবাদীদের এবং সমস্ত বৈপ্লবিক কাজের পেছনেই রয়েছেন কমিউনিস্টরা, এমন ধারণা চিরকালের মতোই বলবৎ ছিল।

    যাহোক, এমন আলোচনা এবং প্রতি-আলোচনা কুররাতুলায়েনের আত্মসম্মানকে যথেষ্টই আহত করল, এবং মায়ের চিকিৎসার কারণে ১৯৬০ সালে ইংল্যান্ড চলে গিয়ে, সেখান থেকে ফিরলেন পাকিস্তানে নয়, ভারতে। এদেশ অবশ্য তার এই প্রত্যাবর্তিতা কন্যাটিকে সাদরে গ্রহণ করেছিল এবং বহুবিধ পুরস্কারে ভূষিত করতে কুণ্ঠিত হয়নি। সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার (গল্পগ্রন্থ ‘পতঝর কি আওয়াজ়’-এর জন্য), জ্ঞানপীঠ (‘আখির-এ-শব কে হমসফর-এর জন্য) এবং ২০০৫ সালে পদ্মভূষণ, তারই প্রমাণ। উদারমনা এই সাহিত্যিক ততদিনে আইনি আপা বা আইনিদিদি (আইনি কুররাতুলায়েনের ডাকনাম) আখ্যায়িত হয়ে পাঠকের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।

    প্রসঙ্গক্রমে ১৯৫৮-৫৯ সালে লেখা কুররাতুলায়েনের ‘জিলাবতন’ (নির্বাসিত) উপন্যাসের একটি অংশ উদ্ধৃত করলে হিন্দু-মুসলমান মিলিত সমাজ সম্পর্কে তাঁর দৃষ্টিভঙ্গির কিছুটা আন্দাজ পাওয়া যেতে পারে—“হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে সামাজিক ভাবে তেমন কোনো ফারাক ছিল না। বিশেষ করে গ্রামে-গঞ্জে । মহিলারা বেশির ভাগ শাড়ি পরতেন... অবিবাহিত মেয়েরা, কি হিন্দু কি মুসলমান, শাড়ি ছাড়া পাজামাও পরত, হিন্দুরা যাকে বলত ইজার। ভাষা এবং প্রবাদ একই ছিল। মুসলমান বাচ্চারা টিন পিটিয়ে বৃষ্টির জন্য প্রার্থনায় চিৎকার করে গাইত, ‘বরসো রাম-ধড়াকেসে, বুঢ়িয়া মর গয়ি ফাকেসে’, (লক্ষ করুন প্রবল বা অঝোর ধারায় বোঝাতে বলা হচ্ছে ‘রাম-ধড়াকেসে’, বুড়িটা যে মারা গেল অনটনে)। পুতুলের বিয়ের বরযাত্রী বেরোনোর সময় ওয়াজিফা (ইসলামি শুভকামনা) করা হত। যেসব মুসলমান পর্দানশিন নারীরা জীবনে কোনো হিন্দুর সাথে কথা বলেনি, রাত্রিবেলা ঢোলক নিয়ে বসে তারাও গাইত... ‘আমার ভরা গাগরি মাটিতে গড়িয়ে দিল শাম।’ কৃষ্ণের এমন ছবি তাদের ইসলামি ধ্যানধারণার সঙ্গে কোনো বিরোধ ঘটাত না। বরং এই গান, কাজরি, খেয়াল, জনপ্রিয় প্রবাদবাক্য, এই ভাষা, এদের সকলের কাছে বড়ো প্রিয় ঐতিহ্য বলে গণ্য হত।... ’

    কুররাতুলায়েনের প্রখ্যাততম উপন্যাস ‘আগ কা দরিয়া’, যার কাহিনির সময়কাল পূর্বসাধারণাব্দ চতুর্থ শতক থেকে দেশভাগ-পরবর্তী সময় পর্যন্ত। সেখানে চারটি চরিত্র—গৌতম, চম্পা, কামাল (ধর্মে মুসলমান) এবং সিরিল (জাতিতে ইংরেজ) বিভিন্ন সময় জুড়ে এই উপমহাদেশে বিচরণ করেছে। তাঁর আর-একটি বিখ্যাত উপন্যাস ‘চায় কি বাগ’ মূলত চা-বাগানের জীবনযাত্রা নিয়ে রচিত।

    তিনি চারটি উপন্যাসিকা লিখেছিলেন, তার মধ্যে একটি ‘অগলে জনম মোহে বিটিয়া না কিজো’ (পরের জনমে আমায় মেয়ে কোরো না) লিঙ্গবৈষম্যের ওপর ভিত্তি করে রচিত। নিজের পরিবারকে নিয়ে একটি গ্রন্থ লিখেছিলেন—‘কার এ জাহাঁ দরাজ় হ্যায়’ (সুবিশাল কর্মযজ্ঞ বিশ্বের)। আর-একটি বৃহৎ উপন্যাস ‘গরদিশ এ রঙ্গ্‌-এ-চমন’। এর বিষয়বস্তু হল ১৮৫৭ সালের মহাবিদ্রোহের পর অভিজাত পরিবারের নারীদের দুর্দশার কাহিনি। জ্ঞানপীঠ-প্রাপ্ত ‘আখির-এ-শব কে হমসফর’-এর প্রেক্ষিত নকশাল আন্দোলন ও তৎকালীন অস্থিরতা। দেশভাগের চল্লিশ বছর পরে মুসলমানদের সাধারণ সামাজিক অবস্থা নিয়ে লেখা তাঁর শেষ উপন্যাস চাঁদনি বেগম।

    গল্পের প্রসঙ্গে আসি। সেখানেও বহুবর্ণের চরিত্র, এদেশের, বিদেশের, নানা জাতের, নানা শ্রেণির। তবে ওই গোড়াতেই যে কথা উল্লেখ করেছি, সম্পন্ন পরিবারের ব্যক্তিমানুষের সংকটই জুড়ে আছে তাঁর রচনার সিংহভাগ।

    এবারে ব্যক্তিগত ভাবে তাঁর লেখা অনুবাদের অভিজ্ঞতা নিয়ে দু-কথা বলি। উর্দু থেকে তরজমা করেছিলাম একটি গল্প আর একটা নাটক। গল্পটির নাম ‘ইয়ে গাজ়ি ইয়ে তেরে পুরইসরার বন্দে’ (তোমার গোপন অনুচর এই ধর্মযোদ্ধারা)। এটি মূলত ইসলামি জঙ্গিদের নিয়ে লেখা। অসাধারণ গল্প। শুরু থেকেই পাঠককে টেনে নেয় রুদ্ধশ্বাসে। এক ক্যানেডিয়ান তরুণ ছাত্রী তামারার সঙ্গে পশ্চিম জার্মানির এক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের অতিসুদর্শন এক ইরানি প্রোফেসরের প্রেমের উৎসার দিয়ে গল্পটির সূচনা। দুজনেই সেদেশে নবাগত। তারপরে একদিন হঠাৎ সেখানকার এয়ারপোর্টে এক বিস্ফোরণের ফলে সেই অধ্যাপককে জঙ্গি হিসেবে জানা যায়। সুইসাইড স্কোয়াড-এর অন্তর্গত এক জঙ্গি। তামারার ভীষণ চেনা সেই সুন্দর দেহ বিস্ফোরণের ফলে তখন ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। টেলিভিশনে সে ছবি দেখার পর তামারার প্রতিক্রিয়া, তার নার্ভাস ব্রেকডাউন, আতঙ্ক ও মৃত্যুর অবিশ্বাস্য রকমের বর্ণনার বুনোট তাঁর এই গল্প।

    নাটকটির নাম ‘পালি হিল কি রাত’। তৎকালীন বম্বের পালি হিল-এ বেশ কিছু পারসি পরিবারের বসবাস ছিল। সেখানকারই দুই নিঃসঙ্গ অবিবাহিত বোনের কাহিনি। প্রবল বৃষ্টিতে আটকে পড়ে দুই ইরানি তরুণ-তরুণী সেই বাড়িতে কিছুক্ষণের জন্য আশ্রয় নেয়। দুই বোনের আলাপচারিতায় জানা যায়, তাদের একজনের পুলিশের-ভয়ে-ফেরার প্রেমিক তাদের সঙ্গে আজ দেখা করতে আসবে। নাটকের শেষ দৃশ্যে ডিনার টেবিলে খাবার সাজিয়ে, পিয়ানোয় ‘ওয়েডিং মার্চ’ বাজিয়ে তারা হুইলচেয়ারে বসানো একটি মোমের পুতুলকে নিয়ে আসে। তার মুখে সেই মৃত প্রেমিকের মুখের ছাপ দেওয়া ডেথমাস্ক!

    ভারতীয় উপমহাদেশের সর্বোত্তম ঔপন্যাসিকদের অন্যতমা তিনি। অসাধারণ রূপসি, বিদুষী, আকর্ষণীয়া আইনি অশীতিপর বয়সে ২০০৭ সালের ২১ অগাস্ট, প্রয়াণদিনটি পর্যন্ত একাকী জীবনযাপন কেন করলেন, সেকাহিনি অবশ্য আজও অকথিতই রয়ে গেল।

    লিখলে লিখতে পারতেন কুররাতুলায়েন নিজেই। ‘পতঝড় কি আওয়াজ়’ বা ‘হেমন্তে পাতা ঝরার শব্দ’ গল্পে লিখেছিলেন, আমাদের সমাজ এখনও শিক্ষিত মেয়েদের গ্রহণ করবার জন্য তৈরি নয়। সেটাই কি তবে কারণ?



    সহায়কগ্রন্থ:
    ১ . কুররাতুলায়েন হায়দার। সম্পাদনা মহিউদ্দিন বোম্বাইওয়ালা।
    ২. রোশনি কি রফতার (গল্পগ্রন্থ)। কুররাতুলায়েন হায়দার।

    সাহিত্য অকাদেমির তথ্যচিত্র কুররাতুলায়েন হায়দার

    ইংরেজি ও হিন্দি তরজমায় এবং মূল উর্দুতে কুররাতুলায়েন হায়দারের একাধিক বই কেনা যেতে পারে— এখানে


    ১) ‘আখির-এ-শব কে হামসফর’ নামটি প্রসঙ্গে মনে করা যেতে পারে ফয়েজ় আহমেদ ফয়েজ়-এর সেই শের: আখির-এ-শবকে হামসফর ফয়েজ়না-জানে কেয়া হুয়ে/ রহ গয়ি কিস জগাহ্‌ সবা, সুবোহ কিধর নিকল গয়ি। রাত্রি-শেষের সাথি, ফয়েজ়, না-জানি কী যে হল/ কোন্‌খানে যে পড়ে রইল হাওয়া, কোন্‌ পথে যে চলে গেল ভোর।। টীকা—সম্পাদক নীলাঞ্জন হাজরা


    থাম্বনেল গ্রাফিক্স: স্মিতা দাশগুপ্ত
  • বিভাগ : পড়াবই | ২৩ আগস্ট ২০২০ | ৫২৮ বার পঠিত
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • b | 14.139.196.11 | ২৩ আগস্ট ২০২০ ১৪:৫৭96571
  • আগ কে দরিয়া র বাংলা পড়েছিলাম, বহ্নি সাগর। যদ্দূর মনে পড়ে এন বি টি-র বই। অনুবাদকের নাম মনে নেই।

    কুর্রতুলয়েন হায়দারের অন্য বইগুলো কি বাংলায় অনূদিত হয়েছে? সঞ্চারী যেগুলি উল্লেখ করেছেন সেগুলি বাদে?
  • | ২৩ আগস্ট ২০২০ ১৭:৩১96576
  • হায়দারের প্রতিটি উপন্যাস এবং অধিকাংশ গল্পের নাম উর্দু কবিতার লাইন থেকে নেওয়া। নিজের দুটি উপন্যাস উনি নিজেই অনুবাদ করেছেন। আগ কি দরিয়াঁ - রিভার অব ফায়ার আর মেরে ভি সনমখানে - মাই টেম্পলস ট্যু। ক্রিটিকরা বলেন এই দুটি ট্র‍্যানস্লেশান নয় ট্র‍্যান্সক্রিয়েশান। উর্দু ও ইংরিজি ভার্সান বেশ কিছুটা আলাদা। ওঁর সাক্ষাৎকার যোগ করার জন্য ধন্যবাদ।

    ওঁর দ্বিতীয় উপন্যাস সাফিনা-এ-গম-এ দিল (শিপ অব সরোজ) এ লেখকের প্রোজেকশান আইনি হায়দার নামে উপস্থিত। এই সাক্ষাৎকারে শুনছি বলছেন মেরে ভি সনমখানে লিখেও দেশভাগের ভয়ঙ্কর অভিঘাত থেকে বেরোতে না পেরে এই দ্বিতীয় বইটাও লেখেন।

    তবে ওঁর মূল কাজ আমার মতে রিভার অব ফায়ার, ফায়ারফ্লাইজ ইন দ্য মিস্ট আর ওঁর নিজের মতে চাঁদনি বেগমও খুব গুরুত্বপূর্ণ।,এটা পড়ি নি এখনো।
  • মৌলিক মজুমদার | 2409:4066:16:c9c8::190b:d8a5 | ২৪ আগস্ট ২০২০ ০১:১৫96590
  • খুব মনোগ্রাহী আলোচনা। 

  • Tim | 2607:fcc8:ec45:b800:c187:4a4c:759d:e3f7 | ২৫ আগস্ট ২০২০ ১০:১৬96636
  • আলোচনা ভালো লাগলো। খুবই আগ্রহব্যঞ্জক হয়েছে লেখাটা। দময়ন্তীদির সিজনস অফ বিট্রেয়ালের সময় থেকে এই একটা প্রচন্ড কাজের কাজ হয়েছে যে অনেক এমন লেখা ও লেখকের কথা জানা যাচ্ছে যেগুলো আগে (আমার কাছে) অজানা ছিলো।
  • i | 14.200.81.61 | ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ০৬:২৮96917
  • সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত 'পতঝড় কী আওয়াজ' এর বাংলা অনুবাদ 'হেমন্তের কান্না' পড়েছি। সাহিত্য অকাদেমি থেকে প্রকাশিত, অনুবাদক পুষ্পিত মুখোপাধ্যায়। ছটি গল্প আর একটি উপন্যাসিকা ছিল সংকলনে।
    দময়ন্তীর অন্য লেখাটিতে, (https://www.guruchandali.com/comment.php?topic=18664) কুররাতুলায়েনের উপন্যাসে অজস্র চরিত্রর সমাবেশের কথা বলা হয়েছে। ঠিক কথা।
    গল্পও যতটুকু পড়েছি, সেখানেও চরিত্রর সমাবেশ, তাদের নিজস্ব গল্প অথবা গল্পের আভাস, তদুপরি গল্পে ধরা সময়ের বিস্তার গল্প সম্পর্কে আমার ব্যক্তিগত ধারণা, অভ্যাস ইত্যাদিকে চ্যালেনজ করেছে প্রতি নিয়ত। কখনও টানা পড়ে যেতে অসুবিধেও হয়েছে। টানা পড়ে যাওয়ার গল্প নয়- এও মানি। শেষ অবধি মনে হয়েছে, এক একটি গল্প যেন উপন্যাসের পর্ব - যার আগেও কিছু ছিল, পরেও লেখা হয়েছে- লেখক সম্ভবত বাকি পর্বগুলি ফেলে দিয়েছেন অথবা যে উপন্যাসগুলি লিখেছেন তা আমার সংগ্রহে নেই, হয়তো নামই জানি না - এই বোধ শেষ অবধি হেমন্তের কান্না ও আমার দড়ি টানাটানির খেলায় গল্পগুলিকেই জিতিয়ে দিয়েছিল।
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। চটপট মতামত দিন