• টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। যে কোনো নতুন আলোচনা শুরু করার আগে পুরোনো লিস্টি ধরে একবার একই বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গেছে কিনা দেখে নিলে ভালো হয়। পড়ুন, আর নতুন আলোচনা শুরু করার জন্য "নতুন আলোচনা" বোতামে ক্লিক করুন। দেখবেন বাংলা লেখার মতো নিজের মতামতকে জগৎসভায় ছড়িয়ে দেওয়াও জলের মতো সোজা।
  • করোনা ভাইরাস - সাধারন মানুষের জন্য রিলিফ

    dc
    বিভাগ : আলোচনা | ২২ মার্চ ২০২০ | ১৪৬৬ বার পঠিত
  • এই টইতে করোনা ভাইরাস জনিত সাধারন মানুষের জন্য যেসব রিলিফ ঘোষনা করছে সেগুলো রেকর্ড করে রাখছি। দরকারমত সবাই আপডেট করতে থাকুন।

    ১। ইউপি সরকার ২১ মার্চ ঘোষণা করেছে ডেলি ওয়েজ কর্মীদের মাসে ১০০০ টাকা করে দেওয়া হবে। সূত্রঃ

    indiatoday.in/india/story/covid-19-coronavirus-uttar-pradesh-yogi-adityanath-1658075-2020-03-21

    https://www.news18.com/news/india/up-govt-announces-rs-1000-aid-for-more-than-35-lakh-daily-wagers-to-make-up-for-coronavirus-hit-2545325.html
আরও পড়ুন
N-Deal-Freedom,CPIM-CONG - DC
আরও পড়ুন
'The market...' - Jhuma Samadder
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2
  • হখগ | 162.158.155.127 | ২৫ মার্চ ২০২০ ০৩:৪৮730269
  • https://www.ndtv.com/business/deadline-for-income-tax-returns-for-fy-2018-19-extended-to-june-30-nirmala-sitharaman-in-relief-meas-2199811?pfrom=home-topscroll

    নির্মলা সীতারামন এর ফাইনান্স বিলের বক্তৃতায় কতগুলো মেজার আছে:

    - ১) the deadline for filing income tax returns for the financial year 2018-19 has been extended to June 30, 2020 from March 31, 2020.
    -- ২) The interest rate on delayed payment of returns has also been cut to 9 per cent from 12 per cent.
    -- ৩) The government also extended the last date for linking PAN with unique biometric ID Aadhaar to June 30 from March 31.
    -- ৪) The finance minister added that the Vivad se Vishwas tax dispute resolution scheme has been extended by three months to June 30. Those availing the scheme by the extended deadline will not have to pay 10 per cent interest on the principal এমাউন্ট

    -- ৫) "Debit card holders who withdraw cash from any other bank ATM can do it free of charge for next three months," Ms Sitharaman said.
    -- ৬)No minimum balance maintenance fee will be charged by banks, Ms Sitharaman added.

    -- ৭) o help small companies facing the threat of defaults due to coronavirus-related lockdown, the government raised the threshold that would trigger insolvency proceedings to Rs 1 crore from current Rs 1 lakh.

    এতে সব মিলিয়ে কত টাকা রিলিফ হলো তার এস্টিমেট পাইনি, আর এই মেজার কে সত্যি সত্যি উনিভার্সাল বলা না গেলেও, কারণ ব্যায়ামকিং নেট তাই সবাই কভার করে না, সিলেকশন ক্রাইটেরিয়া তে ঘ্যান ঘ্যান কিসু নেই বলে এটা কে আপাত কালীন এনাউন্সন্সমেন্ট হিসেবে ইউনিভার্সাল বলা উচিত, ও ধরা হলো।

    হখগ
  • হখগ | 162.158.155.133 | ২৫ মার্চ ২০২০ ০৩:৫৮730270
  • --হিমাচল প্রদেশ সরকার ১০০০ টাকা এককালীন দেবে বলেছে কন্সট্রাকশান ওয়ারাকার দেড়
    (একেবারেই কম, বহুত কিপ্টে টাইপের sorakaar)

    হখগ
  • hkg | 141.101.99.226 | ২৫ মার্চ ২০২০ ০৪:০৯730271
  • দমু দেওয়া টুইট দুটো কারণে আমার ইন্ট্রিগিং লেগেছিলো

    1- দমু মোদী ভক্ত না
    ২ -- টুইট রয়েছে 'ওয়ারফেয়ার ফাণ্ড' তাও আবার রাজ্য নিয়ন্ত্রিত, খুব ই বিচিত্র লেগেছিলো কারণ জীবনে শুনি নিঁ, তারপরে ভাবলাম দমু তো বিনা কারণে ঢপ দেবার পাবলিক না

    এবার ফ্যাক্টা চেক করতে গিয়ে যেটা পাওয়া গেলো,

    কন্সট্রাকশন ওয়ারাকার দের একটা প্রতিটা রাজ্যে একটা workers welfare cess fund আছে। সেটা নাকি "লাইং ভেকাণ্ট" (বিচিত্র ইংরেজি, তাও যে ছাত এর দিকে উদাস ভাবে তাকিয়ে ইত্যাদি ডিটেল দে নি এই অনেক - কি সব রিপোর্টিং ) , তো সেই সেস ফান্ডে র আইনে একটি ক্লোজ কে কাজে লাগিয়ে শ্রমমন্ত্রী গাঙ্গোয়ার সায়েব ঘোষহানা করেছেন সেখান থেকে রাজ্য রা তো এই পার্টিকুলার ইন্ডাস্ট্রির শ্রমিক দের রিলিফ দিতে পারেন।

    তো এটা রাজ্য সরকার গুলো কি ভাবে লাগায় কত কাজে লাগায় এটা না দেখে এটাকে রিলিফ এর সরাসরি ঘোষহানা হিসেবে ধরাতে আমার আপত্তি আছে, কারণ ফান্ড রিলিজিং এজেন্সি হলো রাজ্য সরকার।

    যায় হোক , এই হলো সূত্র ও গাঙ্গোয়ার সায়েবের ঘোষহানার কভারেজ।

    https://www.business-standard.com/article/economy-policy/covid-19-govt-directs-states-to-transfer-cash-to-construction-workers-120032400746_1.html
  • hkg | 141.101.107.5 | ২৫ মার্চ ২০২০ ০৪:২০730272
  • এই হলো আইন টি-

    THE BUILDING AND OTHER CONSTRUCTION WORKERS’
    WELFARE CESS ACT, 1996
    ACT NO. 28 OF 1996

    http://legislative.gov.in/sites/default/files/A1996-28_0.pdf

    আর এই হলো, রেজিস্ট্রেশন , আদৌ কভারেজ কত, সেক্স রেশিও কিরকম, তার উপরে ইপিডাব্লিউ বেরোনো, সিডিই র করা সার্ভে। ক্লিয়ারলি এই ডেটা টা পুরোনো , এবং যেটা কে মেজর আনাউন্সমেন্ট হিসেবে চালানো হচ্ছে তার ফ্যাক্টা চেকিং আরও হবে।

    http://cdedse.org/wp-content/uploads/2018/06/7-3.পিডিএফ

    ক্যাপ্টেন ছাড়া ১০০০ টাকা জনপ্রতির বেশি কেউ বলে নি, ক্যাপ্টেন ৩০০০ চেয়েছেন কনস্ট্রাকশন ওয়ারাকার দের জন্য।
  • হখগ | 162.158.155.55 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১১:৫৪730275
  • ফারুখ আব্দুল্লা ট্রেন্ড সেটার

    - সুজন চক্রবর্তী সহ ২৬ জন বাম বিধায়ক ন্যূনতম ১০ লাখ করে মুখ্যমন্ত্রী/ডি এম দের ফান্ডে দিচ্ছেন বলে চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন। কিন্তু এটা ঠিক মানুষহের হাতে পৌঁছানো 'রিলিফ' না। হাসপাতাল পরিচালনায় হায়াত ব্যবহার হবে।
    -- বিজেপি এম পি রা যে কজন দেবেন বলেছেন একজন তিরিশ লাখ, অন্যেরা পনচাশ লাখ করে দেবার কথা ব্যক্তিগত ভাবে ঘোষহানা করেছেন। এটাও মানুষহের হাতে পৌঁছানো 'রিলিফ' না।

    https://www.anandabazar.com/state/coronavirus-in-india-left-mlas-to-donate-for-corona-fund-bjp-also-contributes-1.1126950?ref=home-more-news-six-stry-8

    হখগ
  • π | 172.68.146.157 | ২৫ মার্চ ২০২০ ১৯:১৮730281
  • এটা পড়েছেন? :))
    মমতাজ বেগম টু মাদার টেরেসা...
    @দেবাংশু ভট্টাচার্য্য

    মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে গোটা কলকাতা সোডিয়াম হাইপোক্লোরাইড মিশ্রিত রাসায়নিক স্প্রে করানোর সিদ্ধান্ত নিলেন ফিরহাদ হাকিম । এই সেই রাসায়নিক, যা শহরে শহরে স্প্রে করে চীন করোনার সংক্রমণ অনেকটা আয়ত্তে এনেছে । আর সেই একই স্প্রে ভারতের মধ্যে প্রথম করা হচ্ছে বাংলার "করোনা"র এপিসেন্টার কলকাতায় । এছাড়াও আরো সহস্র কাজ যা নিয়ে আলোচনা হয়েছে এতগুলো দিন...!

    ঈশ্বর কি বার্তা দিলেন ?

    যাকে মমতাজ বেগম বলে গালি দিয়েছেন তিনি আপামর বঙ্গবাসী বাঁচাতে নিজেকে উজাড় করে দিচ্ছেন ! তাতে যেমন ৩০% মুসলিম আছে, আছে ৭০% হিন্দুও ! মায়ের আঁচলে নিরাপদ আজ আপনাদের সযত্নে লেখা "তোষণ" শব্দটার অর্থ বদলে গিয়েছে... উনি মানব জাতির তোষক.. আমি জানতাম, একদিন আপনারা বুঝবেন ! আমাদের অহংকার, আমাদের মত কিছু মানুষ যারা তার পাশে দাঁড়িয়েছি চিরকাল, সেই আমরা তাকে চিনেছি সভ্যতার সুসময়ে, আজ আপনারা তাকে চিনছেন সভ্যতার দুঃসময়ে ! আর ভবগবান বলেছেন, দুঃসময়ে মানুষ চেনা যায়....

    এদিকে, মুসলিম বলে যে ফিরহাদ হাকিম কে মেয়র করায় আপনারা রেগে গিয়েছিলেন, সেই ববি হাকিম চীনের মত করে কলকাতাকে জীবাণু মুক্ত করার ব্যাবস্থা করছেন...! সেই কলকাতা, যার ৮০% হিন্দু ! বিধাতার কি পরিহাস !

    ঈশ্বর অসুর লেলিয়ে দিয়ে একটাই বার্তা দিলেন, আমাদের একমাত্র পরিচয় আমরা মানুষ । ধর্ম, জাত, ভাষা, রং, আয়, ভৌগলিক অবস্থান... কোনো বিভেদ নেই। আমাদের অধিকার নেই কাউকে দেশ থেকে তাড়ানোর, ঈশ্বর যদি তাড়ানো শুরু করেন, তখন কোথায় কার দেশ, আর কোনটা কার সীমা..! আজ প্রমাণিত, আমরা স্রেফ মানুষ...! আর সেই মানব জাতির রক্ষার্থে বাংলার নতুন মাদার টেরেসার নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, যিনি আঁতেল সমাজের কাছে বস্তির মেয়ে, ধর্মীয় উন্মাদের কাছে মমতাজ বেগম, সাধারণের দিদি, আর আমার মত হাজার হাজার সন্তানের মা....। লেখা: দেবাংশু ভট্টাচার্য্য
    --------
    পাশাপাশি এটাও থাক।

    https://www.thewall.in/news-allegation-of-mismanagement-in-beleghata-id-hospital/
  • হখগ | 141.101.99.76 | ২৬ মার্চ ২০২০ ০৬:৪৮730292
  • https://indianexpress.com/article/india/india-coronavirus-lockdown-unorganised-workers-economic-relief-package-6331941/

    শুধু লিংক না দিয়ে একটু আযানটেশান করে দিলে ভালো হয়, কারা হেডলাইন বেশির ভাগ সময়েই মিসলিডিং।

    প্রকাশ জাবেদকর আর সাদান্নতা গৌরহা দুজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলছেনা , (প্যারাফ্রেজড)
    - পিডিএস এ ইনভেস্টমেন্ট করা হবে, এমন ভাবে যাতে
    - ২৭টা কেজি গম ২ টাকা কেজি তে দেওয়া যায়, এবং
    - ৩৭ টাকা কেজির চাল, ৩ টাকা কেজি তে
    -- সর্বমোট ৭ কেজি খাদ্য শস্য দেওয়া যায়
    -- সর্বমোট, ৮০ কোটি লোকের কাছে নাকি এই রেশন পৌঁছাবে

    এতে নাকি এক লাক্সা ৮০ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে। আমরামুগ্ধ হতেই পারি, তবে এটা তিনমাসের জন্য। অতএব ২১ দিনের পরে আর নতুন লোকেশন হবে কিনা এখনো কেউ জানে না। এবং
    ২১ দিন ঘরে বসে লোকে প্র্যাকটিকাল তাহলে গড় পর্তা তিরিশ টা কেজির ৭ কেজি খাদ্য শস্য পাবে, মোট ২১০ টাকা র জিনিস হাতে পাবে।

    সরকার মহান।

    হখগ
  • hkg | 141.101.99.76 | ২৬ মার্চ ২০২০ ০৬:৫০730293
  • **আলোকেশন হবে কিনা
    *** সদানন্দ গৌড়া
    ***** গড় পরতা
  • hkg | 141.101.99.76 | ২৬ মার্চ ২০২০ ০৭:১৩730294
  • গ্রেট পিপুল থিংক আলাইক। :-))))))))))))))))))))))
    ডিসি,
    ইন্ডিয়ানা এক্সপ্রেস স্টেট ওয়াইজ সামারি দিয়েছে, রিলিফের যুক্তি কে পুরোনো ফালতু লজিক বলা হচ্ছিলো, তো দেখা যাচ্ছে অন্তত একটা কাগজ সর্ব ভারতীয় ক্সেত্রে মনে করেছে এটা পুরোনো ফালতু লজিক না, এবং অপ্রতুলতা তা প্র্যাকটিকাল ওয়াইডস্প্রেড। এই তালিকায় কেরালা , পব , দিল্লীর নাম নেই।

    এক অন্ধ্র প্রদেশে ১৫০০ টাকা দিচ্ছে, আর শুধু ফুড গ্রেন দিচ্ছে গুজরাটে , টাকার কোনো গল্প নেই। ডিরেকটা ক্যাশ ট্রান্সফার এর লজিক তখন ব্যবহার হয়, যখন সেটা দেখিয়ে ইনফরা স্ট্রাকচার কমানো যায়, সোশাল ইনভেস্টমেন্ট কমানো যায়, এখন মানুষহের একমাসের মাইনে স্ট্রেট দরকার, এখন হাতে ঠেকানো হচ্ছে ১০০০ টাকা আর কয়েক কেজি ফুড গ্রেন। ঘেন্না ধরে গেলো। পুরোনো লজিকে :-))))))))))))))))))))))

    https://indianexpress.com/article/india/india-coronavirus-lockdown-money-transfer-food-aid-schemes-daily-wagers-6331959/
  • hkg | 162.158.158.200 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১০:০৬730296
  • একটা ফোন লাইন কে রিলিফ বলে ধরতে হবে? :-)))))))) কোনো কথা হলো। :-))))
  • π | 162.158.22.153 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১০:৩৫730297
  • না, রিলিফ পাওয়ার অসুবিধা হলে সেটা কমুনিকেট করতে পারা।
  • hkg | 162.158.159.19 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১১:৩৭730298
  • পয়সা করি দিক আগে তার পরে দেখা যাবে
  • dc | 172.69.135.51 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১৫:৫৩730303
  • আরেকটা আপডেট হলো, তামিল নাড়ু সরকার যে ঘোষনাগুলো করেছিল সেগুলো অলরেডি ইমপ্লিমেন্ট হচ্ছে। সবুজ কার্ডধারী সবাইকে দু হাজার টাকা আর চাল-্ডাল ইত্যাদি দেওয়া হয়েছে।
  • hkg | 162.158.159.57 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১৭:০৪730304
  • ডিসি, থ্যাংক ইউ।

    এবার একটু ফ্যাক্টা চেক করে দাও। সময় থাকলে আর যত তা পারো। আমিও করবো । আমি ইন্ডিকেটিভ প্রশ্ন গুলো লিখে রাখলাম।
    ১) প্রথম তা কি শুধু বিপিএল না বিপিএল এপিএল না সবাই। তিনটে কেসে সরকারী কাউন্ট কত
    ২) মহিলা জন ধন আকাউন্ট কত। (ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজম পাবে, জন ধন োর ডিটেলে দেখেছে)
    ৩) বয়স্ক রেজিস্টার্ড কত, কি এন্ট্রি ক্রাইটেরিয়া
    ৪) মন রেগার লাস্ট রিপোর্টেড জব ডে নাম্বার টা স্টেট্ ওয়াইজ নাম্বার কিরকম আসবে।
    ৫) উজ্জ্বলা স্কীমে লোক কত, ৭-৮ কোটি ছিল আগে এখন কত।
  • dc | 162.158.166.56 | ২৬ মার্চ ২০২০ ১৯:১৮730306
  • এখানে বেশ কিছুটা অয়ানালিসিস করেছেঃ

    https://www.news18.com/news/opinion/why-govts-food-security-pledge-is-unlikely-to-help-the-poor-during-21-day-india-lockdown-2552377.html

    Below is a point-by-point rundown on what the package includes, the positives and the shortcomings, the questions that arise from it and the challenges that the government will face in fulfilling its commitments.

    1. Rs 50 lakh per person insurance cover for health and sanitation workers. This should benefit about 20 lakh such workers. It is not clear how such insurance would be provided, whether private sector insurance providers would be roped in and how much will the premium cost the government.

    2. Pradhan Mantri Gareeb Kalyan Anna Yojana: About 80 crore poor people, who are already entitled to get five kg wheat or rice every month, will be get double this entitlement each month for the next three months. Additionally, a kg of pulse (according to regional preference) would be provided per family.

    Agricultural experts point out that while the intention may be good, the actual implementation of this scheme is fraught with practical difficulties. The government’s godowns are stuffed with grain so availability wouldn’t be an issue but the huge logistics involved in doubling the grain entitlement would mean additional grain can reach the beneficiaries well after three weeks.

    If the intention was to help the poor tide over the 21-day lockdown period without going hungry, then additional foodgrain allocation wouldn’t solve this problem.

    3. First instalment of PM KISAN, the direct cash transfer scheme for farmers, to be disbursed immediately. This would mean Rs 2,000 to be front loaded or advanced for the beneficiaries. Again, this doesn’t really enhance the cash in hand for the farmers, merely allows the 8.3 crore beneficiaries to get a part of the allocation sooner.

    4. MGNREGA wages to be increased from Rs 182 to Rs 202 per day. This will benefit five crore families by providing an additional around Rs 2,000 each over three months. Again, experts have questioned this relief, since works against which MNREGA wages are paid are already hard to come by.

    5. Women Jan Dhan Account Holders will get an ex-gratia amount of Rs 500 per month in cash transfers for the next 3 months. The government says this step will benefit 20.5 crore women. A welcome initiative though the amount involved is too meagre to make a significant difference to a large section of the deprived.

    6. Elderly, widows, disabled to get Rs 1000. This will be given in two instalments over the next three months to three crore beneficiaries. Once again, the amount is too meagre for it to make a significant difference to a large section of the deprived.

    7. Free gas cylinders: the 8.3 crore BPL Ujjwala Yojana beneficiaries will be given free cylinders for the next three months. Unless these families have grain and vegetables to cook, offering free cooking gas is hardly going to solve matters.

    8. Collateral-free loans to 63 lakh Women Self-Help Groups to be doubled from Rs 10 lakh to Rs 20 lakh. The FM said this will money immediately in the hands of seven crore households.

    9. For the organized sector, government said it will pay the EPF contribution of both of the employer and employee (12% each) for the next 3 months. This is only for those establishments which have up to 100 employees, where 90% of employees are earning less than Rs 15,000 per month. The EPF scheme regulation will be amended to allow non-refundable advance of up to 75% of the amount or 3 months of wages, whichever is lower. This should affect 4.8 crore workers.

    10. For construction workers, the Centre has asked state governments to use the existing welfare fund for building and construction workers which has a corpus of Rs 31,000 crore. It is not clear how much comes to the share of each state and how many states will acquiesce to this diktat from the Centre.

    The government has neither explained the source of this Rs 1.7 lakh crore package nor can it ensure that the poor get immediate relief through many of the measures announced.

    The critical need to provide food and shelter to migrant workers, for example, who are trudging along on foot for thousands of kilometres to reach home amid a nationwide lockdown, may have been better addressed through a cash transfer into at least those accounts which are linked under the Direct Benefit Transfer Scheme.
  • hkg | 162.158.154.132 | ২৬ মার্চ ২০২০ ২০:৫৯730307
  • ওকে, ধন্যবাদ

    - প্রিমিয়াম এর পোয়েন্ট টা অবভিয়াস, প্যাকেজ এর ভেতর থেকে জাবে না বাইরে থেকে , প্রাইভেট সেকটর ইনক্লুড কিনা সেতা কনফারমেশন পাইনি, হয়্তো প্রেস কোনফারেন্সে বোলেছে। দেখে বোলছি। কিন্তু এতে প্রোটেকটিভ গিয়ার কভারেজ নেই বোলে মোনে হোছে, এতা ইসু, কারন গিয়ার নেই।
    -- এক্স্ট্রা লোজিস্টিক্স ইসু টা জেনেরাল পি দি এস এর সমালোচনা, কিন্তু লক ডাউনে হবে কি করে বলা মুশকিল। সপ্তাহে একাধিক দিন এর বদলে দুদিন তিনদিন দেবে, রোজ দেবে না অন্য কোন দেলিভারি মেকানিজম করবে জানি না।

    --৩,৪,৫,৬ - মেন পয়েন্ট হলো ভীষন কম আমাউন্ট। গদো গদো হোতে চাইলে আলাদা কথা।

    -- ৭ নং টা এগ্রি করি না, পেলে উপকার হবে, কিন্তু উজ্জঅলার কভারেজ লো, বিগ্যাপোনের তুলনায়।

    -- ৮ নং আকচুয়ালি ভালো। কিন্তু সেল্ফ হেল্প গ্রুপে কতো মেম্বার পার গ্রুপ না জানলে বোলা মুশকিল।

    -- ৯ নম্বর টা তো এম্প্লয়ার দের বেনেফিট পার্টলি, তোবে খারাপ না, ১০০ জনের কম যে কোং এ আছে তারা ছোটো কোম্পানি , কিন্তু এটাতে সার্ভিস সেকটরে স্টার্ট আপে খরচ হোয়ে গেলে মুশকিল। 4.8 কোটি ওয়ার্কার টা আমার বেশি লাগছে, তবে পি এফ ক্লিয়ার ডেটা থাকা উচিত। কিন্তু পি এফ ডিফল্টেড কোম্পানি র বা বি আই এফ আর এ রেফার্ড কোম্পানির এই সুবিধে টা না পেলেই ভালো। আর পি এফ এ সরাসরি পেমেন্ট হওয়াই ভালো, নৈলে ডিলে তে মেরে দেবে।

    ১০ - এটা কাল ৫২০০০ কোটি ছিল, আজ ৩১০০০ কোটি হয় কি কোরে। আর এটা এই আলোচনায় আসবে কেনো, প্যাকেজের ভেতরে না বাইরে এটা বুঝতে হোবে, এটা বরো অ্যালোকেশন এর ঘাপলা কিনা বুঝতে পারছি না।
  • hkg | 162.158.158.170 | ২৭ মার্চ ২০২০ ০৯:৪৫730319
  • -- ১৭০০০ কোটি কিষাণ সাহায্য টা অলরেডি বাজেটেড। অতএব আকাউন্টিং এর জুয়োচুরি।
    -- ২৫০০০ কোটি ডিস্ট্রিক্ট মিনেরাল ফান্ড এর হিসেবে টা ক্যাশ আউট না, তাই তার মধ্যে দেখা নো তাও বিশাল বার্হ জুয়োচুরি
    -- মাইগ্রান্ট লেবার এর সব চেয়ে খারাপ অবস্থা, কারণ আর কিছু না, সব ওয়েলফেয়ার স্কীম ই ঠিকানা র সঙ্গে যুক্ত।
    কোন কাভারেজ নেই, এই কেসে যারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত বা বিপজ্জনক অবস্থায়।

    ক্লান্ত লাগে, সরকারের ঘোষণা আর সরকার পন্থী দের বগল বাজানো দেখলে।
  • dc | 162.158.165.13 | ২৭ মার্চ ২০২০ ১০:২৬730320
  • হ্যাঁ মাইগ্রান্ট লেবারার বা এমনি ভবঘুরেদের অবস্থা সবথেকে খারাপ। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তাঁরা আটকে পড়েছেন, স্টেশান, বাসস্ট্যান্ড বা স্টেট বর্ডারগুলোতে। তাঁরা বাড়ি ফিরতে চান কিন্তু ট্রান্সপোর্ট বন্ধ আর পুলিশ ধরছে। এঁদের জন্য নানান জায়গায় ফ্রি খাবারের ব্যবস্থা করা উচিত। খুব অল্প কয়েকটা জায়গায় বোধায় খাবার দেওয়া হচ্ছে, কিন্তু সে হয়তো প্রয়োজনের ১%।
  • hkg | 162.158.159.57 | ২৭ মার্চ ২০২০ ২০:৩৩730334
  • haarsh maandaar er বক্তব্য

    https://indianexpress.com/article/opini on/columns/coronavirus-covid-19-lockdown-poor-6333452/
  • এবড়োখেবড়ো | 162.158.155.127 | ২৭ মার্চ ২০২০ ২১:১০730335
  • এই ১ লাখ ৭০ হাজার কোটির স্কিমে বিশাল ঘাপলা লুকিয়ে আছে যা হিসেব কষে দেখিয়েছি একটা টইতে। সেটায় নজর দিলে ভালো হয়।

  • হখগ | 162.158.166.54 | ২৮ মার্চ ২০২০ ০৩:০১730339
  • ,***সরকার বাহাদুর গণের
  • বাংলার খাদ্য রিলিফ | 172.69.135.51 | ০১ এপ্রিল ২০২০ ১৬:৫৫730408
  • পশ্চিমবঙ্গ সরকার
    খাদ্য ও সরবরাহ বিভাগ
    ১১/এ, মির্জা গালিব স্ট্রিট, কলকাতা
    নং- ১২২৪-এফএস/ও/সেকট/আইটি-১৯/২০১৮ তারিখ, ৩১মার্চ, ২০২০
    আদেশ
    কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) মহামারী ছড়িয়ে পড়ার আশংকায় লকডাউনের ফলে জনগণের অর্থনৈতিক অসুবিধা নিরসনের জন্য, পশ্চিমবঙ্গ সরকার সমস্ত AAY(অন্নপূর্ণা অন্তোদয় যোজনা), SPHH(বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত পরিবারসমূহ), PHH(সুবিধাপ্রাপ্ত পরিবারসমূহ) এবং RKSY-1(রাষ্ট্রীয় খাদ্য সুরক্ষাক যোজনা-১)-এ খাদ্যশস্য (চাল এবং গম /সুরক্ষিেত আটা) সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে-
    এক জন সুবিধাভোগী তাঁদের নিজ নিজ নির্ধারিত প্রাপ্য- সহ বিশেষ প্যাকেজে সুবিধাগুলি গণবন্টন ব্যবস্থার মাধ্যমে বিনামূল্যে ছয় মাসের জন্য ১লা এপ্রিল, ২০২০ থেকে ৩০ শে সেপ্টেম্বর,২০২০ পর্যন্ত (বিজ্ঞপ্তি নম্বর ১২০৫-এফএস/সেক্ট/ফুড/ 14আর-০১/২০১৩ (পার্ট-III) তারিখ ২৬.০৩.২০২০) রাষ্ট্রীয় খাদ্য সুরক্ষা০ যোজনা-২-এর উপভোক্তারা প্রতি মাসে এক কেজি চাল ১৩টাকা প্রতি কেজি এবং এক কেজি গম ৯ টাকা প্রতি কেজি দরে পাবেন।
    বিশেষ শিবিরের মাধ্যমে ডিজিটাল রেশন কার্ড প্রদানের জন্য যথাক্রমে দুটি ধাপে ৯ সেপ্টেম্বর,২০১৯ থেকে ও ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ প্রথম পর্যায়ে ও ৫ নভেম্বর, ২০১৯ থেকে ৫ ডিসেম্বর,২০১৯ পর্যন্ত দ্বিতীয় পর্যায়ে আবেদন সংগ্রহ করা হয়েছিল। কর্তৃপক্ষের তদন্ত ও অনুমোদনের পরে যোগ্য মানুষেরা যাঁরা বাদ পড়েছিলেন তাঁদের কার্ড বিলি করা হয়েছিল।
    তখন দেখা যায় যে সর্বোত্তম প্রচেষ্টা সত্ত্বেও বেশ কিছু ডিজিটাল রেশন কার্ড Form III,IV,VIII) যথাযথভাবে গ্রামীণ অঞ্চলের জন্য বিডিও দ্বারা অনুমোদিত ও পুর এলাকার এসসিএফএন্ডএসএস (খাদ্য দপ্তর) এবং কলকাতা পুরসভা এলাকায় খাদ্য বিভাগের সরস্বতী প্রেস দ্বারা ডিজিটাল রেশন কার্ড ছাপা না হওয়ার জন্য ও পরে লকডাউনের কারণে ডাক বিভাগের মাধ্যমে সুবিধাভোগীদের কাছে ২৫ মার্চ, ২০২০ থেকে বিলি করা সম্ভব হয়নি। ডিজিটাল রেশন কার্ডের অভাবে, এই সুবিধাভোগীরা যোগ্য হওয়া সত্ত্বেও বিনামূল্যে রেশনটির সুবিধা নিতে সক্ষম হবেন না।
    উপরোক্ত সমস্ত বিষয়গুলি বিবেচনা করে, খাদ্য ও সরবরাহ বিভাগ নিম্নলিখিত পদ্ধতিটি জনস্বার্থে এই সমস্ত সুবিধাভোগীকে খাদ্য কুপনের মাধ্যমে খাদ্যশস্য সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে:-
    ১. জেলা নির্ধারিত -> ব্লক /পৌরসভা এলাকায় ওয়ার্ডভিত্তিক) কলকাতা পুরসভা এলাকায় ওয়ার্ড ভিত্তিক ‘খাদ্য ও সরবরাহ দপ্তরের তালিকা অনুসারে এ জাতীয় যোগ্য সুবিধাভোগীদের বরাদ্দকৃত ডিজিটাল রেশন কার্ড নম্বর সহ তালিকা DCF&Ss/DDRSs দিয়ে দেওয়া হবে।
    ২. এই সুবিধাভোগকারীদের আদেশের নং.১২০৫-এফএস/সেক্ট/ফুড/১৪আর-০১/১২০৩(অংশ-III তারিখ ২৬.০৩.২০২০) অনুসারে খাদ্যশস্য গ্রহণে যাতে সক্ষম হন তার জন্য বিশেষ কুপন সরবরাহ করা হবে।

    ৩. গ্রামীণ অঞ্চলের ক্ষেত্রে বিডিও, পুরসভা এলাকার ক্ষেঅত্রে মহকুমা শাসক বা মহকুমা শাসক নিযুক্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ এবং কলকাতা পুরসভা এলাকার ক্ষেত্রে কমিশনার কর্তৃক নিযুক্ত আধিকারিকরা ক্রমিক সংখ্যা সহ খাদ্য কুপন ৭ এপ্রিল, ২০২০-র মধ্যে প্রদান করবেন(কুপনের বিন্যাসের একটি সংযোজন দেওয়া হল)।
    ৪. এরপরেই খাদ্য কুপনগুলি জেলা শাসক এবং কলকাতা পুরসভার ক্ষেহত্রে কমিশনার, সুবিধাভোগীদের দ্বারে পৌঁছে দিতে হবে। এবং তারা ৯ এপ্রিল, ২০২০-এর মধ্যে এই বিভাগে সংক্ষিপপ্ত প্রতিবেদন জমা দেবেন।
    ৫. এই সুবিধাভোগীদের খাদ্য শস্য বিতরণ ১০ এপ্রিল, ২০২০ থেকে তাঁদের নিজস্ব এফপিএস ট্যাগে শুরু করা হবে।
    ৬. প্রতিটি এফপিএস এই সমস্ত খাদ্য কুপনের মাধ্যমে খাদ্যশস্য সুবিধাভোগীদের বিলি করে একটি মাসিক প্রতিবেদন তৈরি করবেন।
    ৭. ডিডিপিএন্ডএস/ডিআর-রা যথাক্রমে এমআর/এসআর এলাকায় এফপিএস গুলিতে খাদ্যশস্য বিতরণ নিয়মিত হচ্ছে কীনা তা তদারকি করবেন।
    গুরুত্ব অনুধাবন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জনস্বার্থে এই চিঠি সকলকে দেওয়া হল।

    মনোজ কুমার আগরওয়াল
    প্রিন্সিপ্যাল সেক্রেটারি, পশ্চিমবঙ্গ সরকার
  • hkg | 162.158.50.241 | ০৪ এপ্রিল ২০২০ ২০:২৫730448
  • কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষনা করেছে, আয়ুশমান ভারত যোজনায় টেস্টিং ফ্রী হবে। দাবী হলো তাতে নাকি ৫০
    কোটি মানুষঃ কভার্ড।

    বলা বাহুল্য এই ঘোশনা না করা হলে, প্রাইভেট ল্যাবে মাস স্কেলে টেস্টিং করানো যেত না। তো ডকুমেন্টেশন কি লাগবে এলিজিবিলিটি প্রমাণে সেটা কেউ কয় নাই। পেলে নোট করা হবে।

    https://www.ndtv.com/india-news/coronavirus-covid-19-testing-treatment-to-be-free-for-ayushman-bharat-beneficiaries-2206189?pfrom=home-topscroll
  • dc | 162.158.186.17 | ০৭ এপ্রিল ২০২০ ০৯:১৬730466
  • চেন্নাইতে আর তামিল নাড়ুর অন্যান্য কয়েকটা শহরে অনেকগুলো শেল্টার খোলা হয়েছে, বিভিন্ন মিউনিসিপাল স্কুল, কর্পোরেশান অফিস, কমিউনিটি হল, ইত্যাদি জায়গায়। মূলতঃ উড়িষ্যা, বিহার, আসাম, আর পবর থেকে আগত মানুষজন এখানে জায়গা পাচ্ছেন। নিয়মিত খাবার দেওয়া হচ্ছে, কয়েকটা জায়গায় বোধায় টেস্টও করা হয়েছে।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত