• বুলবুলভাজা  বাকিসব  মোচ্ছব

  • কিংবদন্তীর আড়ালে যা কিছু থাকতে পারে

    বিপুল দাস লেখকের গ্রাহক হোন
    বাকিসব | মোচ্ছব | ০১ জানুয়ারি ২০২০ | ২০০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  •           কিংবদন্তীর ভেতরে একরকম আখ্যানমালা  আড়মোড়া ভাঙে। পাশ ফেরে, শিথান বদল করে। বালি খাতের নিচে অন্তঃসলিলা হয়ে বইতে থাকে নদী। খাতের ওপরে কান পাতলে হয়তো অস্পষ্ট শব্দ শোনা যায়। জাদুসঙ্গীতের মত একপ্রকার লোকায়ত গান ও বাজনা বয়ে যায় গোপনে। শব্দ বাজে গানের মত। ভাঙা সাঁকো, ভাঙা সারিন্দা, ধানের গোলা, লালনীল রাংতা, পাটের আঁশ ছাড়ানোর দৃশ্য, মুনিশমাইন্দরের সংলাপ --- আমের বোল আর সরষেফুলের গন্ধমাখা এইসব চিরন্তন শব্দাবলি ও দৃশ্যাবলি মরা বালির ওপর ছড়িয়ে থাকা কাশিয়ার খেতের ভেতরে ঘুরে বেড়ায়, মরাখাতের নিচে বয়ে যাওয়া জলের সঙ্গে ভেসে যায়। কোনও একদিন নদী পাশ ফেরে। আবার পশ্চিমবাহিনী হলে সেই সব আখ্যানমালার ঘুম ভাঙে। দুপারের নদীসভ্যতার পাঠক্রমে ঢুকে পড়ে হিংস্র একপাল কালো কুকুরের গল্প। অন্ধ এক নারীর আকাশে ওড়ার কিস্‌সা। অভিমান-কাতর এক গীদাল শুয়ে থাকে নবজলধারার পাশে। সেও অপেক্ষা করে আছে তার গল্প নিয়ে।

    কখনও পূর্ণচাঁদের আলোয়, কখনও সন্ধ্যার প্রায়ান্ধকারে একটা ঘোড়া ছুটে যায়। ঘোড়ার পিঠে দীর্ঘকায় এক পুরুষ। তার হাতে বন্দুক, আর তার কোলে নাকি এক সুন্দরী নারী বসে থাকে। ঘোড়াছুটেযাওয়া ওই পথের দুপাশ জুড়ে ছড়িয়ে যায় জমাটবাঁধা অসংখ্য ধূলিপিন্ড। প্রতিটি খন্ডের ভেতরে গল্প শোনা যায়। সেই গল্প কাঁধে তুলে নেয় কোনও পাগল কিংবা প্রেমিক। লোকজীবনের হাটেমাঠে, সিদলমাখা গরম ভাতের সঙ্গে, পালাগানের আসরে সেই গল্প শোনে জাপান ঘোষ, পূর্ণিমা বর্মন, ইছুপ মন্ডল।

             আর জোতদারের সেই বাদামি ঘোড়া তার দুরন্ত গতির ও অশ্বক্ষমতার যাবতীয় প্রবাদ নিয়ে গল্পের ভেতর দিয়ে ছুটে যায়। কুয়াশার রহস্যময়তার ভেতরে ক্লপ ক্লপ শব্দের সঙ্গে মিশে থাকে কোনও নারীর শীৎকার।  ঘোড়ার গল্প আবহমান কালের ইচ্ছাপূরণের কথামালা হয়ে গেলে হাটচালার নিচে কল্পপৃথিবীর জন্ম হয়। ক্রমে সেই ঘোড়া খ্যাতিমানতা অর্জন করে এবং বলা হয় যে নদীর পার ধরে যখন সে ছুটে যেত, তার শরীরের বর্ণ পালটে যেত। নীল আগুনের ফুলকি ছিটকে বেরোত তার খুর থেকে। বাতাস গরম হয়ে উঠত। এইভাবে লোককাহিনীর ক্যানভাসে স্থাপিত সেই ঘোড়া বিশ্বাস ও অবিশ্বাসের দোলাচলে রঙিন হয়ে যায়। একটা লোকপুরাণের ঘোড়া জেগে ওঠে তার সমস্ত জাদুকরি বাস্তব নিয়ে। থাকা ও না-থাকার দ্বন্দ্বের ভেতর দিয়ে চাঁদের আলো পিছলে পড়ে তার রেশম ত্বকের ওপর। আবহমানের নদীবরাবর ক্লপ ক্লপ শব্দ বাজতে থাকে।

             খন্ড খন্ড জনপদ থেকে জোতের পরিচয়জ্ঞাপক রঙিন নিশান নিয়ে মানুষের ঢল নামে হাটের দিকে। মানুষের ইতিহাসে হাট একরকম জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। হাট এক অবশ্যম্ভাবী উপাদান। হাটচালা, হাটের গান, নটি ও কুকুর, দাঙ্গা এবং গল্প বলার আসর এক হাট থেকে আর এক হাটে গড়িয়ে যায়। 

             আলপথের আড়ালে খোলস ছাড়ে সাপ। পুরনো খোলস হাওয়ায় উড়ে যায়। সেই বাতিল খোলসের গায়েও ছোট ছোট কথা লেখা থাকে। নির্জন প্রান্তরে সে সব কথামালা ছড়িয়ে দিয়ে ছড়ানো ফণা, বিষদাঁত, লেজের ঝাপট নিয়ে নতুন সর্পকথা ঢুকে পড়ে নতুন জনপদে। হাটের দিকে মানুষের যে ঢল নেমেছিল, সর্পকথা তাদের পাক দ্যায়। তাদের দৈনন্দিন ঘরদুয়ারের ভেতর দিয়ে জাগরণে এবং স্বপ্নে ঘুরে বেড়াতে বেড়াতে একদিন লোকগাথার অন্তর্গত হয়।

             দীর্ঘ সেই পুরুষ ঘোড়া থামিয়ে নদীর পাশে দাঁড়ায়। কাঁধ থেকে বন্দুক নামিয়ে অনেকদূরের বৈকুন্ঠপুর ফরেস্ট থেকে ভেসে আসা বাতাসে শরীর জুড়িয়ে নেয় একদন্ড। তাকে আবার অন্য হাটে যেতে হবে। গল্পের ভেতরে বন্দুকসহ ঘোড়সওয়ার তার ঘোড়া নিয়ে এলোমেলো ঘুরে বেড়ায় আর বাতাসে উড়ে যাওয়া কত রকমের শব্দ জুড়ে জুড়ে তৈরি হতে থাকে ভান্ডি সিং জোতের ঘোড়াপুরাণ।

             বন্দুক নিশ্চিত একজনের হাতে থাকে না। ইতিহাসের বন্দুক কেন্দ্র থেকে পরিধির দিকে সরে যায়, আবার সময়ের সঙ্গে পরিধি থেকে কেন্দ্রের দিকে তার সরণ হয়। শস্যশ্যামল উর্বর ভূখন্ডের দিকে, কালসর্প এবং প্রিয়দর্শিনী পরমার দিকে দৃঢ় পুরুষকার নিয়ে উপগমন হয় বিখ্যাত বন্দুকের। কিন্তু স্থিরচিত্র হয়ে থাকে বন্দুকহাতে ঘোড়সওয়ার। কথকতার ভেতরে এভাবে চলমান ও স্থির দুইপ্রকার বিষয় মিশে যায়।

             কালগর্ভ থেকে অতিকথন শুরু হলে এলোমেলো বাতাসে ওড়ে প্রাক্তন আমবাগানের ঝরাপাতা। নতুন জনপদের আড়ালে বসে হাই তোলে দুই ফেরেশ্‌তা। কলের গানের পৃথিবীর ভাঙা কালো টুকরো সরিয়ে হামাগুড়ি দিয়ে বেরিয়ে আসে মাহুতবন্ধু ও দূর বাথানের মইষাল বন্ধু। তখন নদী, সমুদ্র, অরণ্যের মায়ায় মুগ্ধ মানুষের দুচোখে জল আসে। চিরকালের চেনা সংসারে নিহিত আলোছায়াময় রহস্যময়তার ভেতরে খেলা করে আশ্চর্য কুহক জড়ানো এক সঙ্গীতধারা।

    ---- "সরমার সন্ততি" উপন্যাসের অংশবিশেষ। '
  • বিভাগ : বাকিসব | ০১ জানুয়ারি ২০২০ | ২০০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
আরও পড়ুন
আঁধি - Jahar Kanungo
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে মতামত দিন