এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  আলোচনা  বিবিধ

  • যাদবপুর - আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে একটি বিবৃতি

    অভিষেক তুঙ্গা লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | বিবিধ | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৩ | ১৩৫১২ বার পঠিত
  • যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে সাম্প্রতিক কিছু ঘটনাবলীর পরিপ্রেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট ছাত্র সংসদের থেকে আমরা একটি চিঠি পাই। সেটি খোলা চিঠি হিসেবে প্রকাশ করা হল। বলা বাহুল্য, লেখার বক্তব্য ও দৃষ্টিভঙ্গি লেখকের নিজস্ব।


    ----------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------


    ঠিক কী ঘটেছিল ?


      ঘটনার সূত্রপাত চতুর্থ বর্ষের ছাত্র PRINTING DEPT. এর মানিক হালদার এবং CONSTRUCTION DEPT. এর অনুপম ঘোষ ও IT DEPT. এর দ্বিতীয় বর্ষের একটি ছাত্রকে দিয়ে। সকলেই থাকত JADAVPUR UNIVERSITY-এর SALTLAKE CAMPUS-এর হস্টেলে। দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রটি এসেছিল দার্জিলিং থেকে, স্বাভাবিকভাবেই রয়ে গিয়েছিল ভাষা ও সংস্কৃতিগত ভিন্নতা। যদিও দার্জিলিং থেকে আসা বহু ছাত্র-ছাত্রীই ক্রমশ মিশে যায় যাদবপুরের সংস্কৃতির সাথে, এক্ষেত্রে তা হয়নি। প্রথম বর্ষেই যে কারণে ছাত্রটি কথা কাটাকাটির মধ্যে চতুর্থ বর্ষের এক ছাত্রের নাকে ঘুষি চালায়। তবে তখনকার মতো ঝামেলাটি নিজেদের মধ্যে মিটিয়ে নেওয়া হয়। ঘটনাপ্রবাহে ছাত্রটি নিজেকে আরও গুটিয়ে নিতে থাকে।


                         দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রটি অবৈধভাবে হস্টেলে নিজের রুমে দুজন প্রথম বর্ষের ছাত্রকে রাখতে শুরু করে। গত ২২এ অগাস্ট চতুর্থ বর্ষের প্রিন্টিং টেকনোলজির ছাত্র তথা হস্টেলের anti-ragging squad এর প্রাক্তন সদস্য মানিক হালদার তা হস্টেল সুপারের নজরে আনে, এতে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রটি প্রচণ্ড ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এরই মধ্যে কেউ বা কারা দ্বিতীয় বর্ষের ছেলেটির ঘরের কাঁচ ভেঙ্গে দিয়ে যায়। কে বা কারা ঘটনাটি কেন ঘটাল নাকি ঘটনাটি নিছকই দুর্ঘটনা, তা এখনও স্পষ্ট নয়। ২৩শে অগাস্ট ঘটনাটি নিজেদের মধ্যেই মিটিয়ে নিতে হস্টেলে একটি মিটিং বসে যেখানে মানিক, অনুপম ও অন্যান্য ছাত্ররাও উপস্থিত ছিল। মিটিং-এ দু-তরফেই উত্তপ্ত কথা কাটাকাটি চলে, ২য় বর্ষের ছাত্রটি সাহস থাকলে one to one লড়াই-এর চ্যালেঞ্জ জানাতে থাকে। এরই মধ্যে অনুপম মেজাজ হারিয়ে ২য় বর্ষের ছাত্রটিকে চড় মেরে বসে। যদিও মিটিংটি শেষ হয় সবাই-সবাই কে ক্ষমা চেয়ে নিয়ে। এমনকি অনুপম ও সেই ছাত্রটি পরস্পরকে কোলাকুলিও করে।


                        পরের দিন কেউ ২য় বর্ষের ছাত্রটির দরজার বাইরে মলত্যাগ করে যায়। এরকম পশুচিত কাজ কোন জানোয়ার করে গেল কে জানে, কিন্তু ২য় বর্ষের ছাত্রটি UGC –এর ওয়েবসাইটে অভিযোগ দায়ের করে। (অভিযোগটি র‍্যাগিং এর অভিযোগ হিসেবে দায়ের করেনি)



    এর পরের ঘটনাপ্রবাহঃ


    ১) VC ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তিন সদস্যের একটি FACT FINDING COMMITTEE তৈরি করে। যদিও কোন ছাত্র কোনোভাবেই এই তদন্ত কমিটির বিন্দুমাত্র অস্তিত্ব টের পায়নি।


    ২)এই কমিটি অনুপম ও মানিককে ডেকে পাঠায় ও সেদিনের চড় মারার ঘটনার স্বীকারোক্তি নানা ছলা-কৌশলে লিখিয়ে নেয়। যদিও এরা জানতই না এই কমিটি আসলে তথাকথিত র্যামগিং-এর তদন্ত কমিটি। এমনকি এই কমিটি ঘটনাস্থলে উপস্থিত সবাইকে জেরা করেনি।


    ৩) গত ১০ই  সেপ্টেম্বর anti-ragging committee-এর মিটিং ডাকা হয়, কোন agenda ছাড়াই। যেখানে on table agenda –য় এই প্রসঙ্গটির উত্থাপন করা হয়। যেহেতু প্রায় সব ছাত্রছাত্রীরাই র‍্যাগিং–এর বিরোধী, তাই ছাত্র-সদস্যরা ঘটনাটি র‍্যাগিং ধরে নিয়ে শাস্তির পক্ষে সম্মতি দিয়ে আসে, একমাত্র সল্টলেক ক্যাম্পাসের সদস্য মিঠুন ও সাধারণ সম্পাদক সৌভিক ছাড়া। এরা অল্পবিস্তর ঘটনাটি সম্পর্কে ওয়াকিবহল ছিল। শাস্তির পূর্বে নিয়ম অনুযায়ী অনুপম ও মানিককে শোকজ করা হয়।


    ৪) show-cause –এর জবাব পাওয়ার আগেই registrar মিডিয়াতে শাস্তির ঘোষণা করে দেয়।



    আমাদের বক্তব্য কী?


    ১) যে কেউ অভিযোগ করতেই পারে তাকে র‍্যাগিং করা হয়েছে,কিন্তু প্রকৃতই র‍্যাগিং হয়েছে কিনা,তার সঠিক অনুসন্ধান হওয়া উচিত।


    ২) গোটা ঘটনায় মানিক এর দোষ অবৈধভাবে রুম-এ ছাত্র রাখার ঘটনা সুপার-এর নজরে আনা! অনুপমের দোষ উত্যক্ত কথাকাটাকাটি মধ্যে চড় মেরে বসা,যেটা আবার নিজে মিটিয়েও ফেলে। বাকি ঘটনাগুলো কারা করেছে প্রমাণিত নয়, তাহলে কি করে এই দুজনকে র‍্যাগিং এর শাস্তি দেওয়া হচ্ছে?


    ৩) Fact Finding Committee এভাবে লুকিয়ে অনুসন্ধান চালানো কেন? এমনকি Anti Ragging Committee-এর মেম্বারও জানতে পারলো না!


    ৪) Anti Ragging Committee Meeting-এর আগেও agenda তে কেন সদস্যদের Ragging-এর অভিযোগ বা মিটিং এর বিষয়ে কিছু জানাল হল না?


    ৫) একটি বচসার ভিত্তিতে যদি Ragging-এর শাস্তি দেওয়া হয়, তাহলে কাল football মাঠে offside নিয়ে বচসা বা প্রেম নিয়ে senior-junior-এর মধ্যে গণ্ডগোলকেও Ragging বলে চালানো হবে।


    ৬) তবে চড় মারার ঘটনা অবশ্যই অনভিপ্রেত ও অপ্রীতিকর,তাই Hostel-এর Code of Conduct-এর নিয়ম অনুযায়ী অভিযুক্তের শাস্তি পাওয়া উচিত।


    ৭) কাচ ভাঙ্গা ও মলত্যাগ এর ঘটনা কঠোরভাবে নিন্দনীয়,অভিযুক্তদের অবিলম্বে খুঁজে বের করে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া উচিত।



    আমাদের দাবী কী?


    ১) এত অবিচার ও অস্বছত্তার জন্য  Anti Ragging Committee Meeting পুনরায় ডেকে পুরো ঘটনাটির পুনরালোচনা করা হোক।


    ২) যতক্ষণ না পুরো ঘটনাটির পুনারালোচনা করা হচ্ছে, ততক্ষণ শাস্তি লাগু করা যাবে না।



    আরো কিছু প্রশ্ন ও তার উত্তরঃ


    ১) ভিসি (উপাচার্য) কি আইনবিরোধী কিছু করেছেন?


    - র‍্যাগিং-এর শাস্তির আইন তো রয়েছেই, কিন্তু কর্তৃপক্ষ মিথ্যে অভিযোগে ব্যবস্থা নেবেন এরকম কোনও আইন নিশ্চয়ই নেই। কিন্তু এক্ষেত্রে সেটাই তো হয়েছে।


    ২) আমরা কেন আচার্য (রাজ্যপাল)-এর কাছে যাচ্ছি না?


    - ভিসি নিজে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনী। তিনি যদি এখানকার ছাত্রদের রুচি এবং মূল্যবোধ গুলিকে মাথায় না রেখে শুধুমাত্র মিথ্যে অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নিতে চান, তাহলে আমরা বাইরের কাউকে কীভাবে ভরসা করবো? আর, আচার্যের কাছে যাওয়া মানে তো পক্ষান্তরে মেনেই নেওয়া যে ভিসির ক্ষমতার আওতায় বিষয়টা মেটানো যাচ্ছে না।


    ৩) কর্তৃপক্ষ কি র‍্যাগিং-এর অভিযোগকে পুনর্মূল্যায়ণ করতে পারেন?


    - পারেন না এরকম কোনও আইন কিন্তু নেই। তার মানে নতুন করে তদন্ত ও বিচার করাই যায়।


    ৪) আমরা কেন আলোচনার বদলে আন্দোলনের (শান্তিপূর্ণ হলেও) রাস্তা বেছে নিলাম?


    -আমরা ভিসির সঙ্গে দেখা করেছিলাম, তিনি বললেন যে ইউজিসিকে রিপোর্ট পাঠানো হয়ে গেছে, ফলে সিদ্ধান্তগুলো আর পুনর্বিবেচনা করা যাবে না। সেক্ষেত্রে আলোচনার কোনও রাসতা তিনি খুলে রাখতে দিলেন না। ফলে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করতে হল।


    ৫) আমাদের আন্দোলনে কেন ভিসি, প্রোভিসি ও রেজিস্ট্রারকে অমানবিক ভাবে ঘেরাও করে রাখা হয়েছিল?


    - আমরা কাউকেই ঘেরাও করিনি। তাঁরা চাইলেই বেরিয়ে যেতে পারতেন। কিন্তু তাঁরা নিজেরাই থেকে গেছিলেন। তাঁদের কাছে খাবার জল বা ওষুধ ও পৌঁছোচ্ছিল। কিন্তু বাইরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থা মোটেও স্বাভাবিক ছিল না। স্বাভাবিক পড়াশোনার পরিবেশ বেশ কিছুদিন ধরেই ব্যাহত হচ্ছিল। সে নিয়ে তাঁদের খুব হেলদোল দেখা যায় নি।


    ৬) প্রো ভিসি অসুস্থ জানা স্বত্ত্বেও তাঁকে কেন আটকে রাখা হল?


    - আগেই বলা হল কাউকে আটকে রাখা হয় নি। মিডিয়ায় প্রো ভিসি-র অসুস্থতার খবর পাওয়ার সঙ্গেসঙ্গে তাঁর সঙ্গে আমরা দেখা করি। তিনি জানান যে ঠিক আছেন, কিন্তু আমরা তাঁকে আবারও বলি তিনি চাইলেই চলে যেতে পারেন। পুরো কথোপকথনটাই ভিডিও রেকর্ড করা আছে। মিডিয়া অন্যভাবে প্রচার করছে, কিন্তু মিডিয়া যেটা দেখাচ্ছে না যে তিনজন ছাত্র গুরুতর ভাবে অসুস্থ, তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


    ৭) ফেটসুর জিএস অ্যান্টি র‍্যাগিং কমিটির মিটিং-এ গিয়ে কেন ছাত্রদের শাস্তির পক্ষে মত দিয়েছিল?


    - ভুল তথ্য। অ্যান্টির‍্যাগিং কমিটির মিটিং-এর মিনিট দেখলেই সেটা পরিস্কার হয়ে যাবে। রেজিস্ট্রার নিজেও তা স্বীকার করেছেন?


    ৮) আমাদের আন্দোলনের কী কোনও রাজনৈতিক রং আছে?


    আমাদের আন্দোলনের গতিপ্রকৃতি ও পদক্ষেপগুলি জেনারেল বডির মিটিং-এ ঠিক করা হয়। এর মধ্যে কোনও রাজনৈতিক ব্যানারের পার্টি যুক্ত নেই।


     ৯) আমরা কি র‍্যাগিং এর সমর্থক?


    - কখনোই না। আমরা মনে করি র‍্যাগিং একটি সামাজিক ব্যাধি। আর সিনিয়র জুনিয়র হিসেবের বাইরেও সমাজের সর্বত্র র‍্যাগিং হয়ে আসে। কোথাও অফিসার অধস্তন কর্মচারীকে র‍্যাগিং করে, কোথাও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অথরিটি ছাত্রদের র‍্যাগ করে। তাই র‍্যাগিং-এর বিরুদ্ধে সর্বস্তরের সচেতনতা এবং র‍্যাগিং করবো না এই আত্মসচেতনতাও দরকার। শুধুমাত্র শাস্তি দিয়ে র‍্যাগিং নির্মূল করা যাবেনা।



    ছাত্রছাত্রী ও বৃহত্তর সমাজের কাছে আমাদের আবেদন-


    টানা ৫২ ঘণ্টা অবস্থান বিক্ষোভের পর আমাদের রিলে অনশন প্রায় ৯০ ঘণ্টা অতিক্রম হতে চলল। এখন অব্দি পিতৃসম কর্তৃপক্ষ একবার জানারও প্রয়োজন মনে করল না, ছাত্রছাত্রীরা কেমন আছে! এর মধেই আমরা পাচ্ছি বিশাল সমর্থন- দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্ররা তাদের fest- U-Turn স্থগিত রেখেছে, Electronics-এর দুই ছাত্র VC-র হাত থেকে switzerland-এর একটি নামী scholarship নিতে অস্বীকার কারেছে, Production ও Computer Science-এর বিভিন্ন বর্ষের ছাত্রছাত্রীরা অনির্দিষ্ট কালের জন্য নিজেদের ক্লাস বয়কট এর সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এছাড়াও চলছে বিক্ষিপ্ত ক্লাস বয়কট। রয়েছে প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীদেরও বিশাল সমর্থন- Virginia Tech থেকে Sector-V, IIT থেকে IIM চিঠি পাঠাচ্ছেন তারাও। JNU থেকে Presidency, আমরা পাচ্ছি বিভিন্ন কলেজের সমর্থন। আসলে সমর্থন ছাড়া আমাদের এই আন্দোলন কখনই টেনে নিয়ে যাওয়া সম্ভব ছিল না। এই আন্দোলন আর শুধু ইঞ্জিনিয়ারীং ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলনে আটকে নেই, Arts থেকে Science, সমস্ত Faculty-র ছাত্রছাত্রীরা এতে যোগদান করেছে। আগামী বুধবার বিকেল ৩টায় (সময় পরিবর্তিত হতে পারে) Union Room-এর সামনে থেকে একটি মিছিলের ডাক দেওয়া হচ্ছে- যেকোনো কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় নির্বিশেষে ,যেকোনো বয়স ও পেশার মানুষ এতে যোগদান করতে পারেন, অবশ্যই কোনোরকম রাজনৈতিক ব্যানার ছাড়া। উন্নততর ক্যাম্পাস গড়ে তুলতে পাশে চাই সবাইকে।


    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক।
  • আলোচনা | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৩ | ১৩৫১২ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • SD | 24.96.99.84 (*) | ০৫ অক্টোবর ২০১৩ ০৩:০০75793
  • Arre Debuda map tap cheyo nah....

    Eisob "a" b c d onek dekbe...r dekecho toh ! Eisob frustu Banchot gulo onek kichu bole...Abong juge juge asin thake.
    Guruchandali te 4 kolom likley bodhadha o jodhdha hoye jay naki !
  • kc | 188.61.96.29 (*) | ০৫ অক্টোবর ২০১৩ ০৩:৩১75794
  • উপরের এসডি নিকের 20:30:02 IST তে করা অতিশয় অসভ্য ও অভব্য পোস্টটিকে এক্দলা "ছি" দিলাম। ছিঃ।

    -যাদবপুরের আরেক প্রাক্তনী (ইঞ্জিয়ারিং)
  • | 24.97.152.47 (*) | ০৫ অক্টোবর ২০১৩ ০৩:৪৭75795
  • SD গুরুচণ্ডা৯'তে এক লাইনও বাংলা লেখার মুরোদ দেখাতে পারলেন না, আবার বোদ্ধা, যোদ্ধা এইসব ভ্যাজরাচ্ছেন!! র‌্যাগিং সমর্থক এইসব নর্দমার জীবের জন্য দলাবাঁধা কালচে একডেলা ঘেন্না রইল।
  • cm | 116.200.141.197 (*) | ০৫ অক্টোবর ২০১৩ ০৩:৫৫75796
  • সেই মানুষে মানুষে ইন্টার‌্যাকশনের মূলনীতিগুলি সম্পর্কেই ধারণা নেই। অপরকে কোন রকমভাবে আহত করা যায় না। সে অধিকার কারু নেই।
  • a | 132.179.15.175 (*) | ০৫ অক্টোবর ২০১৩ ০৪:৪১75797
  • দেবুবাবু কি একেই "মানুষ" করে্ছিলেন? ঃ)
  • ranjan roy | 24.96.88.126 (*) | ০৫ অক্টোবর ২০১৩ ০৫:৫২75798
  • নতুন কোন তথ্য নেই। গালাগাল আছে।

    @SD,
    না ভাই, আমরা কেউ বোদ্ধা-যোদ্ধা কিছু নই। সময় কাটাতে আড্ডা দিতে এখানে আসি।
    এই আড্ডার পরিবেশটা মাটি কোর না।
    ভালো থাক তোমাদের ম্যাচো ইমেজ আর সন্তানদল নিয়ে।
  • ranjan roy | 24.96.88.126 (*) | ০৫ অক্টোবর ২০১৩ ০৫:৫৮75799
  • এতসবের পরেও আমার বক্তব্য
    ঃশাস্তিপ্রাপ্ত ছেলেদের থেকে মুচলেকা লিখিয়ে এবারের মত মাপ করা হোক।
    সব সিনিয়রারা দায়িত্ব নিক এমন সব অসভ্যতা আর হোস্টেলে হবে না। হলে কর্তৃপক্ষ অ্যাকশন নেবে এবং তা' পূর্বাগ্রহ রহিত ' ( without prejudice) ধরা হবে।
  • কল্লোল | 125.241.94.75 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ০১:৪৫75800
  • দেখলাম এসডি নামে কেউ গাল দিচ্ছেন। তা ভালোই, যারা নিজেরা র‌্যাগিং করেছে ও সেটাকে আজও সমর্থন করে, তারা আর কি ভাষায়ই বা কথা বলবে। আর, গালাগালি আসছে মানে যুক্তি ফুরিয়ে গেছে। এই নিয়ে অ্যাতো মাথা ঘামানোর কি আছে। আমায় বানচোৎ বল্লেই আমি আমার বোনের সাথে শুয়ে পড়বো বা শুয়ে থাকি এমন তো আর নয়। তো বলুক না।
    আসুন এসডি আরও চাট্টি হয়ে যাক। শুধু একটা অনুরোধ নামটা এট্টু পাল্টাবেন। এসডি শুনলেই এক সুরের ঈশ্বরের কথা মনে পড়ে। তাঁর মুখে বানচোৎ - এটা ভাবতে বেশ ইয়ে মতো লাগছে।
  • ranjan roy | 24.99.135.194 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ০২:০৮75802
  • অয়ন,

    আসলে আমার সব্সত্ত্বেও ছাত্রদের জন্যে একটু আশা আছে; ছাত্র বলেই।
    আর সর্বসমক্ষে লিখিত মুচলেকা দিলে কোথাও একটা মর‌্যাল প্রেসার পড়ে; অন্ততঃ পিয়ারগ্রুপের মধ্যে।
    আর কিছু না হোক, দ্বিতীয়বার হলে ওর জন্যে সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা মবিলাইজ হবে না।
    ভেবে দেখ, সিনিয়ররা যা করেছে তাতে জুনিয়রের কাছে ক্ষমা চাওয়া ও সেটা ডকুমেন্টেড হওয়া ( এ'রম একটা হাইলি পাবলিসাইজড কেসে) ওদের ম্যাচো ইমেজে বেশ বড় আঘাত। র‌্যগারদের হেজিমনির বেলুনে ফুটো করা।
  • a | 132.179.47.78 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ০৪:২০75801
  • রন্জনদা, বুকে হাত দিয়ে বলুন তো এরকম কতশত মুচলেকা নিতে ও দিতে আপনি দেখেছেন? কোনটা বাইন্ডিং হয়েছে?
    ছাত্র ইউনিয়ন নিজেদের ইমেজ রক্ষার্থে এইসব ইস্যু নিয়ে আন্দোলন করবেই, কখনো টেকনিকাল ত্রুটি দেখিয়ে, কখোনো প্রমাণ নেই এই যুক্তিতে, কখোনো স্রেফ ইমোশনালি।
    সত্যি বলছি, যদি ইউনিয়ন ক্লাস বয়কট করত যদ্দিন না যে ছেলেরা এই দুষ্কর্ম গুলি করেছে তারা নিজে এগিয়ে এসে ভুল স্বীকার করে নিচ্ছে, তাহলে অনেক কন্স্ট্রাকটিভ আন্দোলন হত। কিন্তু ইউনিয়নের এত দম আছে?
    নাকি সস্তার আন্দোলন করে সস্তার নাম কুড়নৈ ইজিপিজি সলুশন, যাতে পরে সুইজার্ল্যান্ডে বা আমেরিকায় বসে একটু রেড ওয়াইনে চুমুক দিতে দিতে সেই আন্দোলনের জাবর কাটা যায়!!! এই অংশটা না লিখলেই ভাল হত, কিন্তু লিখে ফেলার পর মুছে দিতেও ইচ্ছা করল না।
  • sm | 122.79.37.22 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ০৬:৩১75803
  • @ দেবু, আপনি যদি ৯০ র ব্যাচ হন, তাহলে আপনি একজন মধ্যবয়স্ক ব্যক্তি। এখনো আপনি আপনার পাপকর্ম গুলির উপর এত সহানুভূতিশীল কেন? কেন ই বা টুম্পা দের স্মার্ট করার জন্য এত ব্যগ্রতা। আপনি যত্ন করে তাদের নেশা করা শিখিয়েছেন, সেটাই আপনার নিজ্জের সন্তান সন্ততি র উপর অন্য কেউ করলে খুশি হবেন তো ? কেউ এক স্টেপ এগিয়ে physical টর্চার করলে বা ড্রাগ এর নেশা ধরলে,sportingly নেবেন তো ?
    @SD , আপনি যে গালাগালি গুলো এখানে দিচ্ছেন সেগুলো অফিস র বস কে দিতে পারেন তো , নাকি unsmart হয়ে চুপ চাপ হজম করে যান? এমন কোনো প্রমান দিতে পারেন, যে আপনি ফ্রাস্টু জনতা নন? এতে আপনার নিজের ব্যক্তব্যর ই গ্রহণযোগ্যতা কমে।
  • riddhi | 117.217.133.184 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ০৮:২৫75804
  • উত্তর দেয়া হয়নি। রন্জনদাকে বলি, হ্যাঁ ঠিকি ধরেছেন কিন্তু ওটাও কন্টেক্স্ট-বহির্ভুত নয়। প্রচুর ক্ষেপাচো* ফার্স্ট ইয়ার থাকে যারা প্যান্ট খুলতে বল্লে বলবে গাঁড় মারাও। এগুলো র‌্যাগিং এর আওতায় পড়বে, কেননা সিনিয়ররা হায়ারার্কির সুযোগ নিয়ে মাঠে নেমেছিল। যাকে একটা 'রেগিং প্রসেস' বা রিচুয়াল বলে, সেটা তখন ওলরেডি চালু। এই রিচুয়াল ওরগানাইজ্ড এবং পূর্বপরিকল্পিত। আর একটা বড় বিষয় শাস্তির সিভিয়ারিটি । এধার ওধার এত কথার মধ্যে মধ্যে অন্তত একটা প্রতিষ্ঠিত সত্য অছে তো ? সেটা কি? যার সাথে বাকি ঘটনার সামান্যতম লিং পাওয়া যায় নি, তাকে শুধু চড় মারার জন্য হস্টেল + একাডেমিস্ক সাস্পেন্সন। এটা যে *প্রচন্ড* বাড়াবাড়ি সেটা বুঝতে কারুর অসুবিধে থাকবে কেন?

    অয়ন কে বলি, র‌্যাগিং হল কোন ফ্রেশারের মৌলিক স্বাধীনতা(প্রাইভেসি, খাওয়া দাওয়া, মুভমেন্ট, কোন কাজ করার বা না করার অধিকার) কেড়ে নেবার হুমকি, শুধুমাত্র ডমিনেশানের ইচ্ছে থেকে। এখানে দুটো ভেগ দিক আছে। হুমকি আর ইন্তেন্শান। তাই জন্য কন্টেক্স্ট মাথায় রেখে, সবার সাথে কথা বলে তদন্ত করা উচিত। কারেন্ট ডেফ গুলো ইকুয়ালি বা এর থেকেও ভেগ, কিন্তু প্র্যান্ক , টিসিং অবশ্যই বাদ যাবে।
  • riddhi | 117.217.133.184 (*) | ০৬ অক্টোবর ২০১৩ ০৮:৩৭75805
  • আর, আবার বলছি, সবরকম ঝামেলা কে আইনের আওতায় আনা ডেন্জারাস। বোঝাপড়ার মধ্যে মিটিয়ে দেওয়ার স্পেসটাই কাটিয়ে দেয়া হচ্ছে । যে কোন ছোট্খাট তর্কেও তো মানুষ হার্ট হয়, টিসড হয়।
    'আমরা" অনেক অনেক ক্ষোভ আর বাওয়াল কথাবার্তা, ইন্ত্রোস্পেকসান দিয়ে সামলেছি। এইসব করতে গিয়ে প্রচুর বিষয়ে নিজের স্ট্যান্ড কে ক্রমাগত রিভাইস করতে অভ্যস্ত হয়েছি। প্যরাডক্সিকালি, (এটা আমার মনে হয়) আমাদের মধ্যে অনেকেই পরে র‌্যাগিং বিরোধী স্ট্যান্স নিয়েছে ( ইগো-ফিডিং রিচুয়ালের বেশী কিছু না বলে জেনেছে) ঐ সেল্ফ-ডাউটিং অভ্যেসের কল্যানেই। যার উৎস আবার কিন্তু ঐ সিনিয়রদের সাথে কনফ্লিক্টের দিনগুলো।

    এর উল্টোদিকে রয়েছে, এই "আপোষহীন য়াগিং বিরোধী" দের বাইনারি কার্টুন জগত। সেখানে চিন্তার বিবর্তন হয় না। পয়দা হয়েই ঠিক/বেঠিক, র‌্যাগিং/বাওয়াল জলের মত পরিষ্কার। সব রুলবুক মাগ্গা। কলেজের এরকম কিছু পাবলিকের সাথে কথা হচ্ছিল। এদের পেটে একটু টোকা পড়লেই এগ্রেসান বমির মত উগরোবে। রন্ধ্রে রন্ধ্রে চাটনেচ্ছা, প্রতিহিংসা (সবার মতই) ভরা , প্রতি তৃতীয় বাক্য, পন্চম শব্দে এরা ধরা দেবে। কিন্তু এরা জানে " র‌্যাগিং=খারাপ" অথচ র‌্যাগিং বিরোধিতার সাথে এগুলো চলে না, এই ন্যুনতম আত্ম-জ্ঞান ও নেই।
    এখানে অয়নের হলুদ প্যান্ট পোস্ট একটা উদাহরন। ( আপত্তির সিন নেই, বরং এই রকম আলোচনায় একটু চড়া সুর খিস্তি খাস্তা ন্যাচারাল) কিন্তু ঐ অসঙ্গতি। সেদিন রি-ইউনিয়নে একজন কার উদ্দেশ্যে চু*খা* বল্ল। আরেক বন্ধু বলে "সে কি রে তুই না প্রগতিশীল, সেক্সিট গালি দিচ্ছিশ" তার উত্তর এল " কিন্তু আমাকে গালি দিল বলেই তো দিলাম, আমি বিলক্ষন জানি, সব গালি খারাপ, তার মধ্যে সেক্সিস্ট হল ওয়ার্স্ট কিন্তু আমাকে আগে না বল্লে, " they do not even understand the cause they are supposed to support। এদের থেকে এই এস দির মত জনতা অনেক সেফ।এই বাইনারি ওয়ালারাই তাদের অবিবর্তিত হাফ বেক্ড নীতিমালা নিয়ে কর্তৃপক্ষের গদিতে বসে আর ছাত্রদের মারা যায়।
  • র‌্যাগিং | 132.164.197.73 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০১:২৮75810
  • আচ্ছা, এবার বুঝেছি। র‌্যাগিং এর কারেন্ট ডেফিনিশন গুলো এক্সেপ্টেবল না, তাই সেগুলো বদ্লাতে হবে। শুধু বদলালেই হবেনা, সেই ডেফিনিশন এর আওতায় যে শাস্তি দেওয়া হয়েছে, সেটাকেও রেট্রোস্পেক্টিভলি বদ্লাতে হবে।

    তাহলে দুটো আন্দোলন করতে হবে। এর মধ্যে রেট্রোস্পেক্টিভলি আইন বদ্লানোর আন্দোলনটা অরেকটু কঠিন হবে মনে হচ্ছে।
  • র‌্যাগিং | 132.164.197.73 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০১:৩৬75811
  • এবার দেখা যাক "একটা চড় মারার জন্য" UGC কি শাস্তির বিধান করেছে। ("একটা চড় মারা" UGCর নিয়্মাবলী অনুসারে পরিষ্কারভাবে র‌্যাগিং এর আওতায় আসে):

    http://www.ststephens.edu/ragging.pdf

    The Anti-Ragging Committee may, depending on the nature and gravity of the guilt established by the Anti-Ragging Squad, award, to those found guilty, one or more of the following punishments, namely

    i. Suspension from attending classes and academic privileges.
    ii. Withholding/ withdrawing scholarship/ fellowship and other benefits.
    iii. Debarring from appearing in any test/ examination or other evaluation
    process.
    iv. Withholding results.
    v. Debarring from representing the institution in any regional, national or
    international meet, tournament, youth festival, etc.
    vi. Suspension/ expulsion from the hostel.
    vii. Cancellation of admission.
    viii. Rustication from the institution for period ranging from one to four
    semesters.
    ix. Expulsion from the institution and consequent debarring from admission to
    any other institution for a specified period.
    Provided that where the persons committing or abetting the act of
    ragging are not identified, the institution shall resort to collective punishment.

    দেখা যাচ্ছে, "একটা চড় মারার জন্য" vi ধারাটি প্রয়োগ করা হয়েছে।
  • riddhi | 146.165.223.192 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৩:৪৩75812
  • ১) আর ৬) । একাডেমিক সাস্পেন্সন ও তো রয়েছে। আর ৬) এর ভেতরেও হোস্টেল সাস্পেন্সন নয়, চিরতরে এক্সপালসন।

    আপনি যেটা কোট করছেন সেখানে
    whether by words spoken or written or by an act which has the effect of teasing, treating or handling with rudeness any other student, indulging in rowdy or undisciplined activities which causes or is likely to cause **annoyance** কলকাতার ৯০% জনতাকে এই মুহুর্তে কলেজ থেকে এটার ভিত্তিতে শাস্তি দেয়া যায়।
    তার থেকে আম্রুদেশে হেজিং নিয়ে এই ডেফিনিশন আরেকটু রিয়ালিস্টিক-
    Any action or situation which recklessly or intentionally endangers the mental or physical health or safety of a student or which willfully destroys or removes public or private property..... The term shall include, but not be limited to,.. any brutality of a physical nature, ..forced consumption of any food, liquor, drug or other substance, or any other forced physical activity which could adversely affect the physical health and safety of the individual, and shall include any activity which would subject the individual to extreme mental stress...
    আপনার মনে হয় ঝগড়ার সময়ে চড় মারাঅর পর যখন দু পক্ষ একে অপরকে সরি করে মিটিয়ে নেয়, তার পরেও প্রীতমের মেন্টাল সেফটি বা হেলথ was endangered, or he was in extreme mental stress, *due to anupam*??? হাগু তো পরের ব্যাপার আর তার সাথে অনুপমের সম্পর্ক কি???
  • riddhi | 146.165.223.193 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৩:৪৮75813
  • এস এম, জুনিয়রকে নেশা শেখানো পাপকার্য??
    উদহাউসের ঐ সমস্ত পাবলিক স্কুল নিয়ে গল্প গুলো ব্যান করে দেয়া উচিত তো !
  • র‌্যাগিং | 132.164.197.73 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৪:১৭75814
  • একটা ভুল হচ্ছে বোধহয়। এখানে আমার বা আপনার কি মনে হয় সেটা গৌণ। প্রীতমের মনে হয়েছিল তাকে বুলি বা টিজ বা র‌্যাগিং কিছু একটা করা হচ্ছে, তাই সে UGC তে কমপ্লেন করে। যে ভিক্টিম, সে য্থাযথ কর্তৃপক্ষকে নালিশ করেছে। এখানে কর্তৃপক্ষ ভিক্টিমের কথাই শুনবে, আমার আপনার ক্থা নয়।

    "প্রীতমের মেন্টাল সেফটি বা হেলথ was endangered, or he was in extreme mental stress, *due to anupam*???"

    এটা বিচারের সময়ে প্রীতমের ক্থাকেই গুরুত্ত্ব দেওয়া হবে, কারণ যেকোন হ্যারাসমেন্ট কেসে ভিক্টিমের ক্থাকেই গুরুত্ত্ব দেওয়া হয়।

    আর নালিশের বিচার UGC আইনেই হবে, আমেরিকা বা সুইত্জার্ল্যান্ড বা হনুলুলুতে আইন কিরকম সে প্রশ্ন এখানে অবান্তর।
  • র‌্যাগিং | 132.164.153.19 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৪:২৩75806
  • ' র‌্যাগিং হল কোন ফ্রেশারের মৌলিক স্বাধীনতা(প্রাইভেসি, খাওয়া দাওয়া, মুভমেন্ট, কোন কাজ করার বা না করার অধিকার) কেড়ে নেবার হুমকি, শুধুমাত্র ডমিনেশানের ইচ্ছে থেকে। এখানে দুটো ভেগ দিক আছে। হুমকি আর ইন্তেন্শান। তাই জন্য কন্টেক্স্ট মাথায় রেখে, সবার সাথে কথা বলে তদন্ত করা উচিত। কারেন্ট ডেফ গুলো ইকুয়ালি বা এর থেকেও ভেগ, কিন্তু প্র্যান্ক , টিসিং অবশ্যই বাদ যাবে।'

    সম্পূর্ণ ভুল বলা হচ্ছে, নিজের মনগড়া কথা বলা হচ্ছে। র‌্যাগিং এর কারেক্ট ডেফিনিশন এখানে আছেঃ

    http://www.ugc.ac.in/oldpdf/ragging/minuterag230409.pdf

    "Ragging" means the following:
    Any conduct whether by words spoken or written or by an act which has
    the effect of teasing, treating or handling with rudeness any other student,
    indulging in rowdy or undisciplined activities which causes or is likely to
    cause annoyance, hardship or psychological harm or to raise fear or
    apprehension thereof in a fresher or a junior student or asking the students
    to do any act or perform something which such student will not in the
    ordinary course and which has the effect of causing or generating a sense
    of shame or embarrassment so as to adversely affect the physique or
    psyche of a fresher or a junior student.
  • র‌্যাগিং | 132.164.153.19 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৪:২৯75807
  • 'আর, আবার বলছি, সবরকম ঝামেলা কে আইনের আওতায় আনা ডেন্জারাস।'

    এটা পড়ে অট্টহাসি ছাড়া আর কিছু পেল না। র‌্যাগিং করা হচ্ছে, অথচ সেটা র‌্যাগিংবিরোধী আইনের আওতায় আনা যাবেনা? তাহলে র‌্যাগিংবিরোধী আইন উঠিয়ে দেওয়ার জন্য আন্দোলন করলেই তো হয়!
  • a | 132.179.31.49 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৪:৩৭75815
  • ১। একটা চড় মারার জন্য হোস্টেল সাস্পেন্সন + ১ বছর একাডেমিক সাস্পেন্সন কতটা ভ্যালিড?
    হোস্টেল সাপেন্সন সম্পূর্ণ যুক্তিযুক্ত। ফোর্থ ইয়ার বলে একবছর সাস্পেন্সনটা একটু বেশি হয়ে গেছে, অন্য কোন ইয়ার হলে সেটাও সম্পূর্ণ ভ্যালিড হত।

    ২। র‌্যাগিং এর জন্যে কন্টেক্স্ট বিচার করতে হবে? কেন? হোস্টেলে কলেজে যান, প্রত্যেকে জানে কে কি করছে। বাচ্চা তো কেউ নয়!! সবাই ভাবে পার পেয়ে যাবে, তাই করে। এক দুজনকে একটু লোড দিলে বাকিদের এমনিতেই শুকিয়ে যাবে।

    ৩। বাকি রইল র‌্যাগিং এর ডেফিনিশন নির্ধারণ করা। শুরুটা ভালৈ হয়েছে, দেখুন কতটা ঐক্যমত্য করতে পারেন। আমার দিক থেকে বলে রাখি, আপনার বক্তব্য খুবই অন্তঃসারশুন্য বলে মনে হয়েছে।
  • riddhi | 146.165.223.194 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৫:২২75816
  • @র‌্যাগিং, পরিষ্কার করে লিখছি।

    ১) হোনোলুলু হোক বা ম্যডাগাস্কার, আজকের ইউজিসি আইন হোক বা দুশো বছর পরের, র‌্যাগিং এর সংজ্ঞায় প্রচুর সাবজেক্টিভিটি থাকবেই, "ইন্টেন্সান" কি "এনয়েন্স" কি ইঃ নিয়ে । এগুলোর জন্য কন্টেক্স্ট বিচার করার নীচে কোন অপশান নেই। আজকে যদি জানা যায় এই অনুপমরা সব জিবি মিটিংএ ই ছেলেটাকে খিস্তিয়ে দাবিয়ে রাখত, তাহলে এই চড় মারা অন্য রং পেত ।আমাকে আজ কেউ র‌্যান্ডমলি শুঃবাঃ বল্ল , আমি খুব দুঃখ পেয়ে "এনয়েড" হয়ে কাঁদতে কাঁদতে ডিনের কাছে চলে গেলাম- যেতেই পারি, তাই তো?

    ২) এবার ডিন তার ভিত্তিতে গালিকারক কে শাস্তি দিতেই পারে ত্তো? আমি তো ক্লিয়রলি এনয়েড, আমার বিচার প্রাপ্য।(যদি অভিনয়ও করি, তাও কে বুঝবে) ধরা যাক সত্যি, তাহলে পুরোটাই"ভিক্টিমের" সেন্সীতিভিটির ওপর নির্ভরশীল , সেক্ষেত্রে ৯৯% ছেলের শাস্তি প্রাপ্য। কেউ না কেউ কাউকে এনয় করেই চলেছে একটা দিনে। সেটা এভয়েড করার জন্য প্রশ্ন আসে ইন্তেন্সনের, সত্যি তাকে মানসিক আক্রমন করার জন্য এসব বলেছে কিনা। সেটা জানার জন্য আবার কন্টেক্স্ট। আর এই স্পেসিফিক কেসে তো আরো ঘাপলা, "এনয়েড" হবার পর মিটমাট হয়ে গেল, সেক্ষেত্রে মেন্টাল হ্যারসমেন্ট ঐ পার্টিকুলার ছেলেটার জন্য কতখানি হল ?

    ৩) (খুব জরুরী) ধরা যাক ১-২ এগুলো সর্ট আউট হয়ে গেছে, এবার র‌্যাগিং, বুলিয়িং বা বাওয়াল, যেমন একটা স্পেক্ট্রাম, তার শাস্তিও একটা স্পেস্ক্ট্রাম। ইউজিসি আইন ধরেই, স্শাস্তির একটা রেন্জ দেয়া আছে। সেটাই প্রচুর চয়েসের স্কোপ আছে , অথোরীটি এক্স্ট্রিম চয়েসটাই নিলেন। অথোরিটি কে এই নিয়ে প্রশ্ন করা যাবে না কেন?

    এই ১ থেকে ৩) , কিন্তু কারেন্ট আইন নিয়েই বল্লম। এর প্রত্যেকটা স্টেপেই, আইনের ডেফিনিশনেই প্রচুর সাবজেক্ট্ভিটি আর চয়েস আছে। আপনারা ভাব করেছেন, চুরি হয়েচে, চুরির শাস্তি তিন মাস জেল, ওপেন এন্ড শাট কেস। এইটা হল একটা gross misrepresentation। তর্কটাকে ট্রিভিয়ালইজ করছেন।
  • riddhi | 146.165.223.196 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৫:৪৫75817
  • যারা বলছেন "কন্টেক্স্ট" আবার কি, দয়া করে দুনিয়ার কলেজ স্ট্যটিউট গুলো দেখে আসুন। সব জায়গায় ক্লিয়ারলি লেখা কন্টেক্স্ট ছাড়া বিচার অসম্ভব। যেমন ডার্টমাউথ কলেজের সাইটে
    The determination of whether a particular activity constitutes hazing will depend on the circumstances and context in which that activity is occurring. সর্বত্র এরকম কিছু পাবেন।ভারতে অথোরিটি ব্রম্হজ্ঞান প্রাপ্ত না যে এগুলো ছাড়াই র‌্যাগিং হয়েছে কি না বুঝে যাবে।

    আর হ্যাঁ, তদন্ত প্রসিডিওর নিয়ে তো কিছু লিখলামই না।
  • র‌্যাগিং | 132.164.197.73 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৫:৪৮75818
  • ১) "হোনোলুলু হোক বা ম্যডাগাস্কার, আজকের ইউজিসি আইন হোক বা দুশো বছর পরের, র‌্যাগিং এর সংজ্ঞায় প্রচুর সাবজেক্টিভিটি থাকবেই, "ইন্টেন্সান" কি "এনয়েন্স" কি ইঃ নিয়ে ।"

    আবার ভুল হচ্ছে। UGC র‌্যাগিং নিয়ে একটি আইন প্রনয়ন করেছে, সেই আইন ভারতের সব কলেজে ফলো করা হয়। এর মধ্যে কোথাও "ইন্টেন্সান" কি "এনয়েন্স" নিয়ে সাবজেক্টিভিটি নেই, থাকলে কলেজে কলেজে এই আইনকে চ্যালেন্জ করে মামলা শুরু হয়ে যেত। এমনকি FETSU থেকে SFI আন্দোলনে নেমে পড়তো।

    ২) আর এই স্পেসিফিক কেসে তো আরো ঘাপলা, "এনয়েড" হবার পর মিটমাট হয়ে গেল, সেক্ষেত্রে মেন্টাল হ্যারসমেন্ট ঐ পার্টিকুলার ছেলেটার জন্য কতখানি হল ?

    মিটমাট হয়ে গেলে প্রীতম কমপ্লেন করলো কেন? নাকি খাপ পন্চায়েতের মতো ভিক্টিম এর ওপর চাপ দিয়ে মিটমাট করিয়ে দেবার চেষ্টা করা হয়েছিল?

    ৩) (খুব জরুরী) ধরা যাক ১-২ এগুলো সর্ট আউট হয়ে গেছে, এবার র‌্যাগিং, বুলিয়িং বা বাওয়াল, যেমন একটা স্পেক্ট্রাম, তার শাস্তিও একটা স্পেস্ক্ট্রাম। ইউজিসি আইন ধরেই, স্শাস্তির একটা রেন্জ দেয়া আছে। সেটাই প্রচুর চয়েসের স্কোপ আছে , অথোরীটি এক্স্ট্রিম চয়েসটাই নিলেন। অথোরিটি কে এই নিয়ে প্রশ্ন করা যাবে না কেন?

    একস্ট্রিম চয়েস নিয়েছে কি? vii, viii আর ix ধারা দেখুন, ওগুলো কিন্তু আরো একস্ট্রিম! আর তাছাড়া শাস্তি পাবার পরে লালুযাদব যদি তর্ক শুরু করে, বিচারক কেন আমাকে পাচ বছরের সাজা দিল, কেন ছয় মাসের সাজা দিলনা, তখন একটু হাস্যকর হয়ে ওঠে।
  • riddhi | 146.165.223.192 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৬:১৫75819
  • ১) মানে ইন্টেন্শন নিয়ে কোন এমবিগুইটি থাকা পসিবল না??
    অমুক কলেজে মামলা হয় নি, কারণ ঐখানে ইণ্টেন্সন ক্লিয়ারলি এস্ট্যাবলিশ্ড, তমুক কলেজে না। অপরাধ হলেই ইন্তেন্সন স্পেসিফায়েড হয়ে যায়??! বিশেষ করে র‌্যাগিং এর ক্ষেত্রে। আমরা দল বেঁধে একজনের ঘরে ঢুকে প্যান্ট খুলতে বল্লাম, আবার আমি বিরক্ত হয়ে কাউকে দুর বাল বোকাচোদা বল্লাম। দুটো ক্ষেত্রেই কেউ ভীষন মনোকষ্ট পাবে, কিন্তু দ্বিতীয় কেসে ইন্টেস্নান ধরতে পারবেন করতে পারবেন ওন্ব্জেক্টিভলি , আগু পিছু না জেনে?

    ইন্টেন্শান তো অন্য ক্রাইমেও দেখা হয়। আপনার যুক্তিতে বিচার ব্যাব্স্থা, ডিফেন্সের অনেকটাই রিডান্ডেন্ট হয়ে পড়ে। কোথায় আন্দোলন হচ্ছে বা হচ্ছে না, এটা কোন যুক্তি না। প্রচুর কলেজে ঐ রিচুআল ভিত্তিক হার্ড র‌্যাগিং হয়।
  • riddhi | 146.165.223.192 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৬:২১75820
  • একটা অতি জেনেরিক প্রশ্ন করি- পৃথিবিতে যে কোন কেসে পুনর্তদন্তের দাবিতে আন্দোলন হয়। শাস্তিকে চ্যালেন্জ করা হয়। মানে এইটা বিচারব্যবস্থা এলাউ করে। কেন করে বলুন তো? ডিফেন্স বলে জিনিসটাই বা কেন থাকে? আইন তো আছেই, সেটা তো ইম্প্লিমেন্টেদ হয়, আবার কি, ফালতু র কোর্ট কাছারি ,একগাদা বকবক। সব তো আইন মেনেই হয়েছে, তাই না। এই আইনগুলোর বিরুদ্ধে তো দেশজোড়া আইন অমান্য হচ্ছে না, আবার কি !
  • sm | 122.79.36.13 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ০৭:৫৪75821
  • @রিদ্ধি,আপনার বক্তব্য র সুত্র ধরে ই বলছি, এক্ষেত্রে তো কোর্ট র পথ খোলায় আছে। কোর্ট তো ব্যাপার টা ভালো করে ছানবিন করে,সাজার পরিমান কমিয়ে ও দিতে পারে বা কোনো caution দিয়ে ছেড়ে দিতে পারে। এখানে কোর্ট র পথে যেতে এত আপত্তি কিসের ? আদালাতের সবাই তো উজবুক নয় বা, চার আখ্ক্ষরের বোকা ও নয় ।
    দ্বিতীয়ত ফ্রেশার দের যত্ন করে নেশা করানো পাপ কার্য নয় এমন , ধারণা আপনার হলো কিকরে?
    আপনার ই ঘনিষ্ট কোনো জন এর নেশার শিকার হলে বা ক্যারিয়ার নষ্ট হলে আপনি কিভাবে, পরিস্থিতির মোকাবিলা করবেন?
  • riddhi | 117.217.133.184 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ১২:৫০75808
  • এই কারেন্ট ডেফিনিশন গুলো এক্সেপ্টেবল না, সেটাই বলা হচ্ছে। আগের পোস্ট গুলো পড়ুন। লেখা আছে বলেই বেদবাক্য না। এগুলো স্ট্রিকটলি ফলো করা হাস্যকর। বদলানো উচিত।
  • riddhi | 117.217.133.184 (*) | ০৭ অক্টোবর ২০১৩ ১২:৫৮75809
  • র‌্যাফিং হচ্ছে দশবার বলে গোলানোর চেষ্টা ভালই। ওদিকে অনেকক্ষন থেকে একটা স্পেসিফিক কোস্চেন করে যাচ্ছি। র‌্যাগিং হোক বাওয়াল হোক, বিপ্লব হোক, একটা চড় মারার জন্য হোস্টেল সাস্পেন্সন + ১ বছর একাডেমিক সাস্পেন্সন কতটা ভ্যালিড? আপানার ঐ সাধের আইন কিন্তু শাস্তির চয়েসে অনেক স্পেস দিয়েছে । সেক্ষেত্রে এই এক্স্ট্রিম শাস্তি কেন ? মাথায় চাঁটি মারার জন্য, দিনে দশবার পাছায় চাবুক মারা, বা চুরির জন্য হাত কেটে নেয়া, এগুলো সব যুক্তিযুক্ত তো? র‌্যাগিং র‌্যাগিং বলে না লাফিয়ে এগুলো নিয়ে ভাবুন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ মতামত দিন