এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  সমোস্কিতি

  • গুরু হোয়া গ্রূপের ২১শে

    Dr.Kunal Chattopadhyay
    সমোস্কিতি | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ৩৩২ বার পঠিত
  • ভাষা আন্দোলনের আগে বাংলা ভাষার চর্চা, উন্নতি, পুষ্টি, শ্রীবৃদ্ধি অনেক বেশি হয়েছে। বুদ্ধদেব বসু, সুকুমার সেন, জীবনানন্দ দাস, মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়, অতুলপ্রসাদ সেন, নারায়ন সান্যাল, নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, বুদ্ধদেব গুহ, সত্যজিৎ রায় প্রমুখেরা কেউ ই বাংলায় এম এ ছিলেন না। এমন কি রমেশ দত্তকে যখন বঙ্কিমবাবু বাংলায় সাহিত্যচর্চার জন্য অনুরোধ করেছিলেন তখন রমেশ দত্ত বলেছিলেন, 'আমি তো বাংলা লিখিনা, তেমন জানিও না'। তখন বঙ্কিমবাবু বলেছিলেন তু্মি যা লিখবে সেটাই বাংলা হবে। স্বামীজী তো শোভাবাজার রাজবাড়ির ঐতিহাসিক ভাষণ ইংরেজিতে দিয়েছিলেন। এই সবের মধ্যেও রবীন্দ্রনাথ রবীন্দ্রনাথ হয়েছেন ও বাংলা ভাষা গৌরবান্বিত হয়েছে। 
     
    এখন চর্চা ও সাধনা অপেক্ষা সেলেব্রেশন বা দিবস পালনটাই মুখ্য হয়ে উঠেছে।
     
    আমার ঢাকা অবস্থানকালে জনৈক বাংলাদেশের বাঙালি কলকাতায় পার্ক স্ট্রিটে একটাও বাংলা সাইন বোর্ড না দেখে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিল। আমি বলেছিলাম আপনি ফ্রান্সের কিছু রিভিয়েরায় কেবল ই জার্মান ভাষা পাবেন। পার্ক স্ট্রিটে আপনি নবদ্বীপ চাইবেন কেন? আর বলুনতো আমরা তো ৮ মে না পেলে ২৫ বৈশাখ পালি। আপনারা বাংলা ভাষা দিবস ইংরেজি মাসের একুশে পালেন কেনো?
     
     
     
     
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বাহঃ | 165.225.8.117 | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ০৩:২৬742309
  • এইটে বেশ ভাল লেগেছে 
  • হীরেন সিংহরায় | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ১৮:০৮742323
  • ঢাকা বিমান বন্দর থেকে বারিধারা গুলশান যে পথেই যান না কেন, বাংলায় লেখা সাইনবোর্ড চোখে পড়বে । কলকাতায় খুব সামান্যই দেখি।  শপারস স্টপে আমি বাংলায় প্রশ্ন করলে ভুল হিন্দি ইংরেজিতে জবাব পেয়েছি । কলকাতায় বাণিজ্য সূত্রে আগত মানুষের বাংলা বলবার কোন প্রয়োজন হয় না। 
    ফ্রান্সের রিভিয়েরাতে জার্মান সাইনবোর্ড দেখেছি বলে তো মনে পড়ে না , অন্তত নিসে নয় । 
  • Arindam Basu | ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ০০:৪১742324
  • হীরেনবাবু, "শপারস স্টপে আমি বাংলায় প্রশ্ন করলে ভুল হিন্দি ইংরেজিতে জবাব পেয়েছি ।"
    আপনি তো তবু জবাব পেয়েছেন, আমি একদা প্যান্টালুনস নামক গড়িয়াহাট চত্বরে কি কুক্ষণে প্যান্ট কিনে অল্টার করতে দিয়েছিলাম (কারণ সেবার আমার এয়ারলাইনস লাগেজ পৌঁছতে দেরী করেছিল, কাজেই একবস্ত্রে কাঁহাতক কাটানো যায়)। বিকেলে নিতে গিয়ে যতবার বাংলায় সামনের নিপাট বাঙালী ছেলেটিকে জিজ্ঞাসা করি কোথা থেকে পাব, ততবার ছেলেটি এমন ভান করে সে যেন শুনতে পায়নি, অথচ একটু আগেই জনৈকা মহিলার সঙ্গে বাংলায় হেসে গল্প করছিল। 
    তখন কিছুটা বাধ্য হয়ে অন্য একজনকে (কিউয়ি উচ্চারণে) ইংরিজিতে জিজ্ঞেস করতে হল। এবং তারপর যে অদ্ভুত রকমের "খাতির" পেলাম, তাতে আমার মনে হয়েছিল এদের হয়ত নিজের ভাষায় কথা বলা মানুষজনকে অবজ্ঞা করা বা উপেক্ষা করা শেখানো হয়, নয়ত এক ধরণের হীনমন্যতা কাজ করে। 
  • Kishore Ghosal | ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ২০:০৩742325
  • গড়িয়াহাটের  প্যান্টালুনস আমার বেশ প্রিয় শপিংয়ের জায়গা - জুলাই-আগষ্ট মাসে - যে সময় আপটু ৫০% ডিস্কাউন্ট নয়, বিশেষ কিছু ব্র্যাণ্ড সত্যি সত্যি ফিক্সড ৪০% ডিস্কাউন্ট দেয়। প্রায় বছর পনের হল আমার এই মরশুমি যাতায়াত।  কোনদিন বাংলা প্রশ্নের উত্তরে অবাংলা উত্তর কিন্তু লক্ষ্য করিনি। 
     
    পার্কস্ট্রিটে বাংলা সাইনবোর্ড না থাকা আর ঢাকা শহরের সব বোর্ড বাংলায় লেখা এটা আমার তেমন আশ্চর্য মনে হয় না। বাংলাদেশ মূলতঃ বাংলাভাষী দেশ।  কলকাতার চৌরঙ্গী - পার্কস্ট্রিটের চরিত্র কসমোপলিটান, তাই ইংরিজির  বাহুল্য, কিন্তু গড়িয়াহাট, শ্যামবাজার, হাতিবাগান, যাদবপুর সর্বত্রই বাংলা বোর্ডের ছড়াছড়ি।
     
    ভাষাগত এই অসুবিধেটা আমরা টের পাই চেন্নাই, ব্যাঙ্গালুরু বা হায়দ্রাবাদ নগরাঞ্চল ছেড়ে, ওই সব রাজ্যের ছোট শহরগুলিতে গেলে। সেখানে নিজেকে নিরক্ষর মনে হয়। ঠিক যেমন একজন তামিল ভদ্রলোক নিরক্ষর হয়ে যান, আমাদের কোচবিহার কিংবা রায়গঞ্জ গেলে। এই সমস্যা বাংলাদেশে নেই।  আমরা বাঙালীরাও তাই রাজধানীতে বাংলা ভাষার প্রয়োগ দেখে  মুগ্ধ হই।
     
    আবার কাশী, পুরী, হরিদ্বার, বৃন্দাবন, পাটনা এমনকি ব্যাঙ্গালুরু, মুম্বাই, উটিতেও  বেঁকা বেঁকা বাংলা অক্ষরের বোর্ড দেখে পুলকিত হই। "বাঙ্গালী দাদা/ মাসি/ দাদা-বৌদির ভাতের হোটেল - এখানে ভাত-মাছ-মাংস-পোস্ত-শুক্ত পাওয়া যায়"।     
     
                 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। মন শক্ত করে মতামত দিন