এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:92ee:922d:481e:c1fc | ১৪ জুলাই ২০২৩ ০৮:১৯521215
  • গৌড়ীয় বৈষ্ণবরা বোধহয় কৃষ্ণকেই সুপ্রিম গড বলে মানেন। তাদের মতে এমমকি নারায়ণ বা বিষ্ণুও কৃষ্ণের অবতার, উলটো নয়। কাজেই যত মত তত পথের তত্ত্বের সাথে তাদের মিশ খাওয়া মুশকিল।
  • দীপ | 42.110.144.189 | ১৪ জুলাই ২০২৩ ১৩:৪৭521224
  • ইসকন সাধুর মছলি-বার্তা
    ==================

    একজন সিদ্ধপুরুষ কি মছলি খা সাকতা হ্যায়? সিগারেট টানে মাছলি খায় সে কি আবার 'আধ্যাত্মিক' মানুষ হতে পারে? আর ওনার গুরু বলে দিচ্ছেন 'যত মত তত পথ'। বলুন তো দেখি, অস্ট্রেলিয়া কি যে কোন রাস্তা দিয়ে গেলেই পৌঁছাবেন? এইসব  বলে হাত-পা নেড়ে ভুরু নাচিয়ে তিলক কাঁপিয়ে কমেডি করার মত ভঙ্গিমায় ভক্তদের বিনোদন দিচ্ছেন দেখলাম ইসকনের এক সাধু। 

    ইসকনের সাধুদের মধ্যে এই ব্যাপারটা আছে। কয়েক বছর আগে মায়াপুরের মন্দিরে গিয়েছি, বন্ধুদের সঙ্গে ইতস্তত ঘুরছি, এক সাধু হঠাৎ ক্যাপচার করলেন। নরম মাটি ভেবে খুব কোপাতে লাগলেন প্রথাসিদ্ধ কয়েকটা কোদাল খুন্তি নিয়ে। জগৎ ও জীবন আসার, একমাত্র কৃষ্ণনাম সার, সুতরাং নাকে তিলক কেটে দুই বাহু তুলে নৃত্য করতে করতে বেরিয়ে আসা উচিত আমাদের--এই ছিল তার মূল বক্তব্য। তারপর আমরা প্রসঙ্গক্রমে বিবেকানন্দ রামকৃষ্ণের কথা তুললাম। তখন উনি এতটা কটুকথা বলেন নি অবশ্য। তবে আচরণে ইঙ্গিতে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন যে আমরা ইগনোরেন্ট পিপিল। তাই রামকৃষ্ণ নামক ফালতু লোকের পাল্লায় পড়ে জীবন নষ্ট করছি। আমারা অবশ্য বুঝিয়ে দিয়েছিলাম যে কারোর পদাশ্রয়ে মস্তক বিক্রয় করার বাসনা আপাতত জন্মায় নি। দরবিগলিত অশ্রুধারায় উন্মত্ত হয়ে কৃষ্ণপ্রেমে মাতোয়ারা জীবন কাটানোর সৌভাগ্যও আপাতত আমরা চাইছি না। তখন হতাশ হয়ে অন্য কারোর দিকে ধাবিত হয়েছিলেন সেই সাধু-প্রচারক।

    এখানেই পার্থক্য অন্য সংগঠনের সঙ্গে রামকৃষ্ণ মিশনের। পাঁচ বছর মিশনে থেকেছি, তারপর আরো দশ বছর কেটে গেছে, কেউ কখনো বলেনি দীক্ষা নাও। কেউ বলেনি রামকৃষ্ণ মিশনে সাধু হয়ে জীবন উৎসর্গ কর, না হলে তোমার জীবন ব্যর্থ হবে। মগজ ধোলাই-এর  টেকনোলজিতে বিশ্বাস করেন এমন কোন সন্ন্যাসীর ত্রি-সীমানায় যাইনি। এমন কাউকে দেখিওনি। কেউ বড়জোর বলেছেন স্বামীজীর বই পড়ো, ঠাকুরের কথামৃত পড়ে দেখো। উপর থেকে কোন বিশ্বাস চাপিয়ে দেওয়া হয়নি, যুক্তিবিচারকে সরিয়ে রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়নি। যুক্তিহীন ফাঁপা পলকা ভাবাবেগকে ভক্তি কিংবা আধ্যাত্মিকতা হিসেবে দেখানো হয়নি। সবচেয়ে বড় কথা, নিজেদের সংগঠন বৃদ্ধির জন্য অন্য প্রতিষ্ঠানের প্রতি কটাক্ষপাতের কালচার  কখনো দেখিনি সেখানে।

    বিবেকানন্দ যুক্তিহীন ভাবাবেগের চাইতে নাস্তিকতা বেশি পছন্দ করতেন। যুক্তি বিচারের সব সীমানা পেরোনোর পর মানুষ যেখানে পৌঁছায়, সেখানেই বিবেকানন্দের সূচনা। যুক্তি দিয়ে শুরু। যুক্তির সিঁড়ি দিয়ে মুক্তির মিনারে উঠতে হয়।খাদ্যাভ্যাস মানুষের শরীরে মনে প্রভাব ফেলে ঠিকই, কিন্তু সেসবই অত্যন্ত প্রাথমিক পর্যায়ে। চারাগাছকে বেড়া দিয়ে রাখতে হয় ছাগলের ভয়ে। গাছ মহীরুহ হলে আর সেই ভয় থাকে না। বিবেকানন্দ যে মহীরুহ ছিলেন সেটা তাঁর ৩৯ বছর ৫ মাসের কর্মকান্ড দেখেও যে বোঝে না বা বুঝতে চায় না তার কথার সমালোচনা করতে যাওয়াও সময়ের অপচয়।

    মাস্টারদা কিংবা নেতাজির মতো মানুষ শক্তি পেয়েছিলেন যে লোকটির পত্রাবলী ও অন্যান্য সাহিত্য থেকে, সামান্য মছলি আর সিগারেট যে তার বিশেষ ক্ষয়ক্ষতি করতে পারবে না, ঈর্ষাকাতর আহাম্মক ছাড়া  সবাই  বুঝবে সেই সত্য।

    সিদ্ধপুরুষ না দরকচাপুরুষ না কাঁচাপুরুষ সে বিতর্কে না হয় নাই গেলাম। সমকালীন সমাজ জীবনে রাজনৈতিক জীবনে বিবেকানন্দের প্রভাব দেখুন। স্বামীজীর দেশাত্মবোধ দেখুন, সমাজসেবার উদ্যম দেখুন। ভেতরটা দেখার মত চোখ অনেকেরই থাকে না। বাইরে থেকে দৃষ্টিপাত করেই দেখুন না হয়। জেনে নিন মহাত্মা গান্ধী কিংবা রবীন্দ্রনাথের বক্তব্য।

     আপনি মাছের কষ্ট বোঝেন কিন্তু মানুষের কষ্ট বোঝেন না। বিবেকানন্দ বলছেন অহিংসা করতে গিয়ে নির্বীর্য হয়ে পড়লে চলবে না। পিঁপড়েকে চিনি খাওয়াবো আর এদিকে ধর্মের নামে মানুষকে কচুকাটা করবো দুটো একসঙ্গে চলতে পারেনা। শাকপাতা খেয়েও যদি কেউ অপরের ক্ষতি করে, বিষয় চিন্তায় নিমগ্ন থাকে তাহলে সে ধার্মিক নয়। খাদ্যাভ্যাস সম্পূর্ণ শরীরের ব্যাপার ,বড়জোর মনের। সিদ্ধপুরুষ নামক যে ব্যাপারটা, সেখানে শরীর মনের চেয়েও গভীর কোন অস্তিত্বের কথা বলা হয়। মছলি কিংবা সিগারেট এত গভীর পর্যন্ত যেতে পারে না।

    আর মছলির কষ্টের কথা বলছেন? পুঁই গাছের প্রাণ নেই? ছোলা মুগ মটরদানা ধান গম এরাও কি সুপ্ত প্রাণ নয়? তাদের অস্তিত্বের অধিকার কেড়ে নেওয়ার অধিকার আছে? আমাদের (এবং  আপনার) কথার শব্দতরঙ্গে প্রতিনিয়ত অসংখ্য জীবাণুর প্রাণহানি ঘটছে, তাদের কষ্ট হচ্ছে না? অসংখ্য মৃত্যুর উপরেই কি আমাদের বেঁচে থাকা নির্ভরশীল নয়? 

    খাদ্যাখাদ্য বিচার সম্পর্কে অনেক বড় বড় কেতাবি আলোচনা আছে হিন্দু দর্শনে। সেসব প্রসঙ্গে না গিয়ে শরচ্চন্দ্র চক্রবর্তীকে বলা স্বামীজীর এই কথাগুলো পড়ুন মন দিয়ে--

    শরচ্চন্দ্র-- স্বামীজী, খদ্যাখাদ্যের সহিত ধর্মাচরণের কিছু সম্বন্ধ আছে কি?

    স্বামীজী-- অল্পবিস্তর আছে বই কি। 

    শরচ্চন্দ্র-- মাছ-মাংস খাওয়া উচিত এবং আবশ্যক কি?

    স্বামীজী-- খুব খাবি বাবা। তাতে যা পাপ হবে তা আমার। তোদের দেশের লোক গুলোর দিকে একবার চেয়ে দেখ দেখি-- মুখে মলিনতার ছায়া--বুকে সাহস ও উদ্যমশূন্যতা,পেটটি বড়, হাতে পায়ে বল নেই, ভীরু ও কাপুরুষ।.... ঘাস পাতা খেয়ে যত পেট রোগা বাবাজির দলে দেশ ছেয়ে ফেলেছে। ওসব সত্ত্বগুণের চিহ্ন নয়, মহা তমোগুণের ছায়া-- মৃত্যুর ছায়া। সত্ত্বগুণের চিহ্ন হচ্ছে মুখে উজ্জ্বলতা, হৃদয়ে অদম্য সাহস, ট্রিমেন্ডাস অ্যাক্টিভিটি; আর তমোগুণের লক্ষণ হচ্ছে--আলস্য জড়তা মোহ নিদ্রা এইসব। তারপর স্বামীজি বলছেন সত্ত্বগুণের যখন খুব বিকাশ হয় তখন মাছমাংসে রুচি থাকে না। কিন্তু সত্ত্বগুণের এইসব লক্ষণ জানবি-- পরের জন্য সর্বস্বপণ ইত্যাদি। যেখানে দেখবি মনে ওই সব গুণের স্ফূর্তি নেই অথচ অহিংসার দলে নাম লিখিয়েছে, সেখানে জানবি হয় ভন্ডামী না হয় লোক দেখানো ধর্ম।

    স্বামীজীর মধ্যে সত্ত্বগুণ ও রজোগুণের চূড়ান্ত বিকাশ দেখা যায়। স্বামীজীর যে কর্মকাণ্ড তার জন্য এই দুটোই দরকার ছিল। একই সঙ্গে তিনি তপস্বী ও কর্মী। তিনি অল্পবিস্তর মাংসাহরী হয়েও ধ্যানমগ্ন ও প্রেমিক। তিনি কান্ডজ্ঞান বর্জিত সিদ্ধপুরুষ নন। বনের বেদান্তকে ঘরে আনা তাঁর ব্রত। তাই তিনি জানতেন মানুষের প্রাণরক্ষা আগে, তারপর সময় ও সক্ষমতা থাকলে গরুদের জন্য ভাবনা। তারপর সাধ্য থাকলে মছলির জন্য ভাবনা, পুঁইগাছের জন্য ভাবনা। স্টেপজাম্প করে চলে গেলে হবে না। যে নিজের ভাইকে ভালোবাসে না, প্রতিবেশীকে ভালোবাসে না, সে দেশকে কি ভালবাসবে? সে বিশ্বজনীন প্রেমের ভাষণ দিলে কে শুনবে? ভাবের ঘরে চুরি তিনি পছন্দ করতেন না। প্রচন্ড ডাইনামিক চরিত্র স্বামীজি, তাকে বোঝার জন্য একটু অধ্যবসায় দরকার। মছলি আর সিগারেটের ধোঁয়ার মধ্যে তাঁকে দেখলে সেই দেখা আরও বেশি ধোঁয়াটে হয়ে যাবে। যাইহোক।

    যত মত তত পথ নিয়ে আর কি বলব। সম্পূর্ণ অন্য সংস্কৃতির মানুষ হয়েও সৈয়দ মুজতবা আলী বুঝেছিলেন রামকৃষ্ণকে। রামকৃষ্ণের এমন উদারতা ছিল যে ইসকনের এই সাধুকেও তিনি প্রেমালিঙ্গন দিতেন। কাছে টেনে নিতেন। হয়তো বলতেন একনিষ্ঠভাবে তোমার ভাবে সাধনা করে যাও। ব্যাকুল হয়ে অকপট হয়ে এগিয়ে গেলে নিশ্চয়ই তুমি সত্যের সন্ধান পাবে। হয়তো স্মরণ করিয়ে দিতেন ঈর্ষা আর কপটতা খুব আত্মঘাতী ব্যারাম। প্রতিটা মানুষ জেনে বা না জেনে নিজ পথে নিজস্ব গতিতে একই সত্যের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। ইসকনের এই সাধুও অগ্রসর হচ্ছেন হয়তো। 

    রামকৃষ্ণের এই বার্তা অতলস্পর্শী। অত্যন্ত গভীর অন্তর্দৃষ্টি থেকে "যত মত তত পথ" এর মত একটা  সূত্রের জন্ম হয়। কোন নির্বোধ কমেডিয়ানের পক্ষে এই বাক্যের মর্ম বোঝা সহজ নয়।  সব পথ দিয়ে অস্ট্রেলিয়া যাওয়া যায় কিংবা ইসকন মন্দিরের চূড়ায় পৌঁছানো যায়--একথা বোঝানোর মতলব রামকৃষ্ণের ছিল না।

    যাইহোক, ইসকনের সাধুকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তিনি এইসব আবোল তাবোল বকলেন বলে মানুষ রামকৃষ্ণ-বিবেকানন্দের চিন্তাভাবনার কথা নতুন করে চর্চা  করবে আরও কয়েকদিন। তাতে আল্টিমেট উপকারই হল।

    ©️ অপূর্ব সৎপতি
  • Sushmita Datta | ১৪ জুলাই ২০২৩ ১৮:২১521231
  • বেশ লাগলো । এর এক বিশাল ব‍্যবসায়িক দিক ও পরিকাঠামো আছে। অন‍্যকে ভাঙচি দিয়ে দলে টানার প্রচেষ্টাও কম নয়।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে মতামত দিন