এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • খবর এবং স্কুপ 

    সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায় লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৮ জুন ২০২৩ | ৪৭৫ বার পঠিত | রেটিং ৪.৭ (৩ জন)
  • হিন্দি সিরিজ পারতপক্ষে দেখিনা। কিন্তু স্কুপ দেখলাম নেটফ্লিক্সে। কারণ জিগিতা ভোরার 'মাই ডেজ ইন প্রিজন' বইটার নাম শুনলেও পড়া হয়নি। তো, সিরিজ দেখে বুঝলাম, পড়া উচিত ছিল। মহিলা একজন সাংবাদিক। অন্য একজন সাংবাদিক খুন হওয়া, এবং নিজের জেল খাটা, পুরোটাই ওঁর বর্ণনায় সত্যকথন। গপ্পের বর্ণনা দেবনা। কিন্তু সংবাদজগৎ, অপরাধজগৎ, তদন্তকারী সংস্থা এবং রাজনৈতিক ক্ষমতাধরদের আঁতাতকে একদম বে-আব্রু করে দিয়েছে জিগিতা ভোরার বর্ণনা। সেখানে সাংবাদিকরা কাজ করছেন তদন্তকারী সংস্থার মাউথপিস হিসেবে। তদন্তকারী সংস্থার কর্তারা 'বিশেষ সম্পর্ক' তৈরি করছেন কিছু সাংবাদিকের সঙ্গে। হাড়ের টুকরোর মতো মাঝে-মাঝে ছুঁড়ে দিচ্ছেন স্কুপ। আর সাংবাদিকরা তৈরি করছেন সেনসেশন। টিভিতে বিচারসভা বসছে, ঠিক করে ফেলা হচ্ছে কে অপরাধী। তাতে সব পক্ষেরই লাভ। ঠিক যেভাবে জনমতকে প্রভাবিত করতে চাওয়া হচ্ছে, সেভাবেই হচ্ছে। এই ব্যাপারে তদন্তকারীদের পিছনে আছেন রাজনৈতিক ক্ষমতার অধিকারী এবং শিল্পপতিরা। তাঁরা সংবাদসংস্থার নীতি তৈরি করে দিচ্ছেন। বাকি স্কুপ-টুপ ওই খেলারই অংশ। সবই সমসময় হিসেবমতো চলছে তা অবশ্য নয়। কোথাও কোথাও কিছু কিছু জিনিস মাঝে-সাঝে বেসুরো বাজছে। এই বেসুরো বাজা নিয়েই গপ্পো। তখন কোথাও খুন-জখম। যিনি বেসুরে বাজছেন তাঁর চরিত্রহনন। তিনিই হয়ে উঠছেন ভিলেন, বেসুরে বাজাটাই তখন খবর। মিডিয়ার খাদ্য। কাল যিনি খবর বানিয়েছেন, এবার তাঁকে নিতেই বসছে বিচারসভা। ইনোসেন্ট আনটিল প্রুভন আদারওয়াইজ? সে আবার কী জিনিস? 

    এইসব নিয়েই সিরিজ। অপরাধ প্রমাণ না হওয়ার আগেই মিডিয়ায় বিচার কীভাবে শেষ করে দেওয়া হয়, তারই ঘনঘোর কাহিনী। অবশ্য দেখে এও বুঝলাম, যে, আগে বইটা না পড়েও কোনো ক্ষতি হয়নি। কারণ, এগুলো আমরা সব্বাই জানি। চারদিকে রোজ দেখছি। এবং এই সুতোতেই নেচে চলেছি। এই বই যে সময়ের ঘটনা, ২০১১ মনে হয়, তখনও টিভির একাধিপত্য তেমন ভাবে আসেনি। খবরের কাগজ তখনও স্বমহিমায় বিরাজমান। এখন তো সবই টিভি। সেনসেশনের চূড়ান্ত। এখানে যা দেখানো হয়েছে, পুরো প্রক্রিয়াটা তার অন্তত দুগুণ গতি পেয়েছে। আমাদের চোখের সামনেই বেসুরো মতামতরা শহীদত্ব প্রাপ্ত হয়েছে। আমাদের চোখের সামনেই তেহেলকা শেষ নিঃশ্বাস ফেলেছে। টিভিতে এইভাবেই বিচারসভা বসানো হয়েছে তেজপালকে নিয়ে, 'ইনোসেন্ট আনটিল প্রুভন আদারওয়াইজ' নিয়ে তখনও কেউ মাথা ঘামায়নি, এখনও ঘামায়না। সবাই নিজের-নিজের 'কাজ' করেছে। আমাদের চোখের সামনেই রাজদীপ সরদেশাই ইন্ডিয়া-টুডে ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন, পরঞ্জয় গুহঠাকুরতা ইকনমিক অ্যান্ড পলিটিকাল উইকলি। সেসব 'খবর' হয়েছে, তারপর মিটে গেছে। গৌরী লঙ্কেশ খুন হয়েছেন, এনডিটিভি দখল হয়েছে। অন্যান্য মূলধারার চ্যানেলগুলো বাদই দিন, সে তো এমনিই বহুদিন ধরে অধিকৃত। গোটা দেশ জুড়ে সমস্ত চ্যানেলে এখন ছোটো-বড়ো অর্ণব গোস্বামীর রাজত্ব। সবাই 'এক্সক্লুসিভ' দিচ্ছেন। সেনসেশন দিচ্ছেন। তদন্তকারী সংস্থার ছুঁড়ে দেওয়া রুটি ব্যবহার করে মাউথপিসে পরিণত হচ্ছেন। এবং ক্ষমতার পক্ষের বিবরণ ছড়াচ্ছেন। বিরোধী নেতা-বুদ্ধিজীবীরাও যাচ্ছেন সেই সব শোতে। ন্যারেটিভের অংশ হচ্ছেন। প্রচারের নেশা বড় নেশা। ছাড়া মুশকিল।

    এঁরা সবাই রাত্রে ঘুমোচ্ছেন, কারণ সবাই তো নিজের 'কাজ' করছেন। পুলিশের কাজ আদেশ-পালন। সাংবাদিকের কাজ এক্সক্লুসিভ দেখানো। সেনসেশন তৈরি। আর বুদ্ধিজীবীদের কাজ সে বিষয়ে মতামত দেওয়া। ফলে সবই শান্তিকল্যাণ। কেবল এই চক্করে যিনি ফেঁসে যাচ্ছেন, তিনিই টের পাচ্ছেন, যে, পুরো জিনিসটা কীভাবে পচে গেছে। কীভাবে পচা মৃতদেহের উপর ধূপকাঠি জ্বালিয়ে পবিত্র করে রাখা হয়ে হয়েছে। ভোরার চরিত্রে যিনি অভিনয় করেছেন, তাঁর মুখে একটা সংলাপ আছে সিরিজে। 'আমি ওমুক লোককে খুন করিনি, কিন্তু সাংবাদিকতাকে যে খুন করা হয়েছে, তাতে আমারও হাত ছিল'। তাঁর সহবন্দিনী শুনে বললেন, 'ঠিক আছে, কাল থেকে তোকে আর নিরপরাধ ভাববনা'। তো, যাঁরা নানা ফর্ম্যাটে এই ব্যবস্থার চাকায় তেল জোগাচ্ছেন, দেখে নিতে পারেন সিরিজটা। তারপর আর নিজেকে নিরাপরাধ ভাবতে পারবেননা।
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • :|: | 174.251.162.0 | ০৯ জুন ২০২৩ ০৩:৫৯520324
  • আপনি একাই সমসময়কে নিয়ে লিখে যাচ্ছেন। প্রায় প্রতিদিনই। হয়তো জানেন লাভ কিছু হবে না; তবু যে নিষ্ঠার সঙ্গে ভয়েসটুকু রেকর্ড করে যাচ্ছেন এইজন্য অবশ্যই একটা ধন্যবাদ অন্ততঃ দেওয়া উচিৎ বলে মনে হলো। ধন্যবাদ ও নমস্কার জানবেন।
  • agantuk | 128.48.67.222 | ০৯ জুন ২০২৩ ০৪:৫৪520325
  • নামটা জিগনা ভোরা না? হয়ত টাইপো, ঠিক করে দিলে ভালো হয়। 
  • | ০৯ জুন ২০২৩ ০৯:১৩520326
  • রাজদীপ ইন্ডিয়া টুডে ছাড়লেন  কবে? ইন্ডিয়া টুডেতেই আছেন এবং বিভিন্ন প্রোপাগান্ডা দিব্বি শেয়ার করেন টরেন ট্যুইটারে যা দেখি। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই মতামত দিন