এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • মানসাই

    ইন্দ্রাণী লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ৭০৮ বার পঠিত
  • মানসাই
    প্রতিভা সরকার
    কারুবাসা প্রকাশনী
    মূল্য তিনশো টাকা

    এই লেখা কোনো রিভিউ নয়। ঠিক এক সপ্তাহ আগে পড়া বইটির পাঠপ্রতিক্রিয়া বলা যেতে পারে; চেষ্টা করছি , এই উপন্যাসের যে বৈশিষ্ট্যগুলি আমার কাছে ধরা দিয়েছে, তা লিখে রাখার। 
     "সময় -ধারাকে খুব স্পষ্ট ধরবার মতো কোনো যন্ত্র থাকলে তা থেকে যে ছবি বেরোত তার চেহারা অনেকটা ইকোকার্ডিওগ্রাম রিপোর্টের মতো হত বোধহয়। ঢেউয়ের মতো কোথাও উঠছে, একেবারে উত্তল, তো পর মুহূর্তেই অবতল। আবার ছোট ছোট ঢেউয়ের খাঁজখোঁজগুলো ও বেশ স্পষ্ট"- মানসাই, পৃষ্ঠা ৭৬। শ্রীমতী প্রতিভা সরকারের "মানসাই" উপন্যাসপাঠ শেষে উপরের লাইনগুলি ফিরে পড়লাম যেন আমাকে এই উপন্যাসটিকে থীম ধরে ছবি আঁকতে বলা হয়েছে, যেন আমার সামনে শূন্য ক্যানভাস- রেখা ফুটে ওঠার অপেক্ষায়। 

    আমরা জানি,  মানসাই একটি নদী- উত্তরবঙ্গে জলঢাকা আর মুজনাই নদীর মিলিত প্রবাহ। এই নামেই রাজবংশী ভাষায় একটি চলচ্চিত্র তৈরি হয়েছে - এও জেনেছি। এ নদীর চির সজীবতা ও জলজ প্রাণগুলির অভিনবত্ব বাঙালীর লেখাপত্রে কতটুকু ধরা আছে, গবেষক তা বলবেন।  ব্যক্তিগতভাবে,  প্রতিভার দুটি  ছোটোগল্পে এ নদীর উল্লেখ পেয়েছিলাম- 'দাঙ্গা পরবর্তী ' ও 'সহোদরা' য়। মানসাই যেন শুধুই ব্যাকড্রপ ছিল গল্পদুটির,  কিন্তু এই উপন্যাসে  এই নদী , এই জনপদ তার ভাষা, তার সংস্কৃতি  এবং ঐ কালখণ্ডের যতেক অস্থিরতা ধারণ করে  নিজেই মুখ্য চরিত্র; এই মহান বহমানতার অংশ মনুষ্য চরিত্রগুলি, তাদের জন্ম মৃত্যু, ভালোবাসা, রাজনৈতিক বিশ্বাস।

    গত শতকের  ছয়ের ও সাতের দশকে বাংলার রাজনৈতিক অস্থিরতা সর্বজনবিদিত। স্বাভাবিকভাবেই, এই পটভূমিকায় বহু গল্প উপন্যাস রয়েছে- নামোল্লেখ বাতুলতা এক্ষেত্রে। অথচ 'মানসাই'কে আলাদা করে চিনে নিতে অসুবিধা হয় না পাঠকের।  প্রতিভার আখ্যানের স্বাতন্ত্র্য, আমার মতে, লেখার  চলনে, পটভূমিতে, ভাষায় এবং সেই অর্থে নায়ক নায়িকার অনুপস্থিতিতে।  
     
    একটি ভয়াবহ গুপ্তহত্যায় যে কাহিনী শুরু হচ্ছে,  'জনপ্রিয়' আখ্যানের ধারা অনুযায়ী তার চলন হতেই পারত রুদ্ধশ্বাস , থ্রিলারধর্মী। লেখক অতীব দক্ষতায় চলনটি ইকোকার্ডিওগ্রামের রিপোর্টের আদলে রেখেছেন- উত্তল, অবতল, আবার শান্ত- জীবন যে রকম। অস্থির সময়ের উত্তেজনা তিনি অসীম নৈপুণ্যে নিয়ন্ত্রণে রাখেন এই আখ্যানে  অথচ অভিঘাত তীক্ষ্ণতা হারায় না বিন্দুমাত্র। রাজনৈতিক গুপ্তহত্যাটির অবশ্যম্ভাবিতায় তিনি পাঠককে অভ্যস্ত করান উপন্যাসের শুরু থেকেই, ফলত পাঠক অংশ হয়ে যান প্রীতির উদ্বেগের, দুশ্চিন্তার। বস্তুত  পাঠক এইখানেই উপন্যাসটির জীবনলগ্নতাকে চিনে নেন। ঘটনাপ্রবাহ কালানুক্রমিক- নদীর স্রোতের মতৈ- একমুখী, অবশ্যম্ভাবিতার দিকে ধেয়ে চলে।

    আখ্যান এই ক্ষুদ্র জনপদটির ভৌগোলিক গণ্ডী ছাড়ায় নি,  অথচ বহির্বাংলার রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহ লেখকের ধারাভাষ্যে আগাগোড়া ধরা থাকে- ডকুফিকশনের জনরা উঁকি দিয়ে যায় রচনায়।

    উপন্যাসের ভাষা স্বতন্ত্র উল্লেখ দাবি করে । প্রমিত , কথ্য , আঞ্চলিক ভাষার অনবদ্য নকশা এই উপন্যাস জুড়ে। যেমন ধরুন, 'আজকে এই বিসর্জনের ভিড়ে, বহু লোকের আনন্দ কোলাহলে সেদিন মঞ্চের ওপর অভিনীত নৃত্যনাট্যের শেষ দৃশ্যের গভীর ব্যঞ্জনা সম্পূর্ণ অনুপস্থিত।  আকাশ বাতাস পূর্ণ করে সেই বীণা ঝংকারের মতো কণ্ঠ অনুরণিত হচ্ছে না'র  মতো প্যারাগ্রাফটির পাশাপাশি পূর্ববঙ্গের কথ্য ভাষা 'দশমী আউজগা? হায় ভগবান, অন্ধের কিবা দিন, কিবা রাত্র! বাইচা আছি ক্যান কেডা জানে!', বা আঞ্চলিক  ভাষায় কথোপকথন  'মোর বাপৈটা ফিরি আসিল। এতদিন কুন্ঠে ছিলু রে বাপৈ'  - অক্লেশে লিখে গেছেন প্রতিভা এই আখ্যান জুড়ে।

    আশ্চর্য কিছু উপমা মনে থেকে যায়- যা কখনও কাব্যিক কখনও এমন জ্যান্ত যেন  হাতে নিলে খলবল করে উঠবে সে সব শব্দ। যেমনঃ ' সদ্য ধরা জ্যান্ত মাছের মতো উলসে উলসে উঠছিল হামিদুল'- এইখানে  উলসে শব্দের ব্যবহার এমনই সুপ্রযুক্ত যেন ছাপা অক্ষরগুলি হামিদুলকেই সশরীর নির্মাণ করে ফেলে চোখের সামনে।  বা , 'পুরোনো কিছু সম্পর্ক জিগা গাছের আঠার মতই লেপ্টে রয়েছে তার সঙ্গে' র মতো লাইন।  আবার  এই লাইনগুলির কাব্যময়তা পাঠকমনকে ছেয়ে ফেলে কেমন দেখুনঃ  'উৎসব মিটে গেলেও সর্বত্র তার একটা রেশ থেকে যাউয়। এযেন হঠাৎ কেউ কাঁচি দিয়ে নিপুণ কেটে দিয়েছে ফিতে, কিম্বা হঠাৎই বন্ধ হয়ে গেছে মাঝের বিরাট দরজা, কিছুক্ষণ আগের আলো ঝলমলে মুখরিত নদীপার আর এই অন্ধকারে ডুবে থাকা জল ও বালুচরকে কিছুতেই মেলানো যাচ্ছে না।'

    ডিটেইলিংয়ের অসাধারণ সব কাজ রয়েছে আখ্যানেঃ নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া মৃতদেহর মশারির চালে রোদ আড়াল করা চার ভাঁজ নকশি কাঁথাটি, রাসমেলার মাঠের বিবরণ....
    উপন্যাসের কাহিনী যে পরিবারটিকে ঘিরে আবর্তিত, তার কেন্দ্রে প্রীতিলতা - যতেক শোক ও বিপর্যয়ের মধ্যেও যিনি নবীনকে  দুই হাত বাড়িয়ে বরণ করে নিচ্ছেন; প্রীতিকে পাঠক দুঃখবেদনা জর্জরিত দেশের প্রতীক হিসেবেও দেখতে পারেন।
     
     অন্যান্য যে চরিত্রগুলি এই আখ্যানে উপস্থিত- প্রতিভা কখনও তাঁদের হাইলাইট করেছেন, কখনও আউট অফ ফোকাসে রেখেছেন- ফলত একটি অনন্য বুনন তৈরি হয়েছে, যেখনে প্রতিটি সুতোর গুছি কখনও সামনে আসে , নকশার প্রয়োজনে পিছনে চলে যায় আবার। 

    আমার সামনের ক্যানভাসে এবারে ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে ছবি। একটি কালচে লাইন যেন ফুটে উঠছে, সরলরেখা নয়, কোথাও উত্তল, কোথাও অবতল; একটি রেখার পাশে আরো রেখা ফুটলো ক্যানভাসে, কালো রেখা বদলে গেল নীলে, দুপাশে সবুজের পোঁচ পড়ল তারপর- সেই সব সবুজ রঙে ঘর বাড়ি মানুষজনের আদল স্পষ্ট হচ্ছিল; স্থির ক্যানভাস তারপর বদলে গেল চলচ্ছবিতে- লং শটে বহমান মানসাই নদী, দুপাশে জনপদ। ক্যামেরা প্যান করল মসৃণ- দুপাশে জনপদ, প্রবাহমানতার থেকে কেটে নেওয়া সময়ের খণ্ড- গত শতকের ছয়ের দশক শেষ হচ্ছে, সাতের দশক শুরু হল। ক্লোজ আপে মানসাই- বয়ে চলেছে।

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৫:১০516604
  • আমিও পড়েছি এবং ফেবুতে লিখেছি।  দাঁড়া গুরুতে তুলি।
  • ইন্দ্রাণী | ৩০ আগস্ট ২০২৩ ০১:১৯523071
  • এই ব‌ইটির জন্য শ্রীমতী প্রতিভা সরকার আজ একটি পুরস্কার পাবেন। গোপেশ্বরী দেবী স্মৃতি সম্মান।
     ব‌ইটির কথা এখানে লিখেছিলাম। তাই মনে হল আপনাদের জানাই । লেখক‌কে অভিনন্দন ও আন্তরিক শুভেচ্ছা।
  • Prativa Sarker | ৩০ আগস্ট ২০২৩ ১৪:০৯523079
  • অনেক ধন্যবাদ ইন্দ্রাণী ও দমু। তোমাদের মতো পাঠকের ভালো লাগার অর্থ আমার কাছে খুবই বিশেষ। 
  • Prativa Sarker | ৩০ আগস্ট ২০২৩ ১৪:১০523080
  • বইটি এখন ছাপাখানা প্রকাশনা  থেকে নতুন চেহারায় বেরচ্ছে! 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ প্রতিক্রিয়া দিন