বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • হিন্দু মহাসভার সেকাল ও একাল

    এলেবেলে লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৪ আগস্ট ২০২২ | ৪৪৮ বার পঠিত | রেটিং ৪ (৩ জন)
  • ১৯১৫ সালের ৯ এপ্রিল, হরিদ্বারের কুম্ভমেলায় প্রতিষ্ঠিত হয় ‘অখিল ভারতীয় হিন্দু মহাসভা’। গান্ধী হিন্দু-মুসলমানের ঐক্যবদ্ধ অসহযোগ-খিলাফত আন্দোলনের ডাক দিলেও অসহযোগের তীব্র বিরোধিতা করে কার্যত নিষ্ক্রিয় থাকে মহাসভা। চৌরিচৌরার হিংসার প্রেক্ষিতে গান্ধী আন্দোলন প্রত্যাহার করে নেওয়ার পরে ১৯২৩ সালে বিরাট হিন্দু পুনরুত্থান অভিযান শুরু করে তারা। সেই বছর অগস্ট মাসে পণ্ডিত মদনমোহন মালব্যের সভাপতিত্বে বারাণসী অধিবেশনে মহাসভা ‘শুদ্ধি’ কর্মসূচী গ্রহণ করে, ‘হিন্দু আত্মরক্ষা বাহিনী’ গড়ে তোলারও ডাক দেয়।

    অসহযোগ-খিলাফতের ব্যর্থতার পরে মুসলমান সমাজের আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে আনা এবং কংগ্রেসের সঙ্গে যোগসূত্র গড়ে তোলার জন্য, ১৯২৪ সালের ৪ মে লাহোরে অনুষ্ঠিত মুসলিম লিগের সভাপতির অভিভাষণে জিন্না বলেন: “স্বরাজ অর্জনের এক অপরিহার্য শর্ত হল হিন্দু ও মুলমানদের মধ্যে রাজনৈতিক ঐক্য... আমি এই ক্থা বলতে চাই যে, যেদিন হিন্দু ও মুসলমান মিলিত হবে সেদিনই ভারতবর্ষ ঔপনিবেশিক স্বায়ত্তশাসন পাবে।”

    অথচ, সেই সম্ভাবনাকে অঙ্কুরে বিনাশ করতে চেয়ে হিন্দু মহাসভার অন্যতম নেতা লালা লাজপত রাই ওই বছরেরই ১৪ ডিসেম্বর ‘দ্য ট্রিবিউন’ পত্রিকায় ঘোষণা করেন: “আমার পরিকল্পনা অনুযায়ী মুসলমানদের চারটি মুসলিম রাজ্য থাকবে: ১) পাঠান প্রদেশ বা উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত ২) পশ্চিম পাঞ্জাব ৩) সিন্ধু এবং ৪) পূর্ব বাংলা। যদি ভারতের অন্য কোনও অংশে একটি [আলাদা] প্রদেশ গঠনের জন্য যথেষ্ট সংখ্যক মুসলিম সম্প্রদায় থাকে, [তাহলে] তাদেরও একইভাবে গঠন করা উচিত। কিন্তু এটা স্পষ্টভাবে বোঝা উচিত যে, এটি অখণ্ড ভারতবর্ষ নয়। এর অর্থ হল, ভারতবর্ষকে স্পষ্টত একটি মুসলিম ভারতবর্ষ এবং একটি অমুসলিম ভারতবর্ষে বিভক্ত করা।”

    এই ঘোষণার পরের বছরে অর্থাৎ ১৯২৫ সালে হিন্দু মহাসভার অষ্টম অধিবেশনে সভাপতি হন লাজপত রাই। ওই বছরের বিজয়া দশমীর দিন কেশব বলীরাম হেডগেওয়ার-এর নেতৃত্বে একটি গোষ্ঠী হিন্দু মহাসভা থেকে বেরিয়ে এসে তৈরি করেন ‘রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘ’ (আরএসএস) নামে এক নতুন সংগঠন। স্বাধীনতা আন্দোলন সম্পর্কে আরএসএস-এর দৃষ্টিভঙ্গি প্রসঙ্গে সরসঙ্ঘচালক গোলওয়ালকর বলেন: “ব্রিটিশ বিরোধিতাকে দেশপ্রেম ও জাতীয়তাবাদের সমার্থক ভাবা হচ্ছে। এই প্রতিক্রিয়াশীল দৃষ্টিভঙ্গি আমাদের সমগ্র স্বাধীনতা আন্দোলন, তার নেতৃবর্গ ও সাধারণ মানুষের উপর বিনাশকারী প্রভাব ফেলছে।” অর্থাৎ তাঁর মতে ব্রিটিশ বিরোধিতা হচ্ছে ‘প্রতিক্রিয়াশীল দৃষ্টিভঙ্গি’!

    এহ বাহ্য! ১৯৪০ সালে জিন্নার লাহোর প্রস্তাবের ৩ বছর আগে ১৯৩৭ সালে, হিন্দু মহাসভার আহমেদাবাদ অধিবেশনে সভাপতির ভাষণে উগ্র হিন্দুত্বের জিগির তুলে বিনায়ক দামোদর সাভারকর খোলাখুলি বলেন: “...ভারতবর্ষে দুটি বৈরী জাতি পাশাপাশি বাস করে। ... ভারতবর্ষকে আজ আর একতাবাদী (Unitarian) এবং সমজাতীয় (homogeneous) জাতি বলে বিবেচনা করা যায় না। বরং পক্ষান্তরে এ দেশে প্রধানত দুটি জাতি রয়েছে: হিন্দু ও মুসলমান।”

    ১৯৩৮-এর ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হিন্দু মহাসভার নাগপুর অধিবেশনে সাভারকর আবারও বলেন: “আমরা হিন্দুরা নিজেরাই একটি জাতি... হিন্দু সাম্প্রদায়িক বলাতে হিন্দু জাতীয়তাবাদীদের আদৌ ক্ষমাপ্রার্থী হওয়া উচিত নয়। [কারণ] একটি সমজাতীয় সর্বভারতীয় জাতিসত্তা থাকতে পারে – এই ধারণাটি ছিল মরীচিকা, হিন্দু-মুসলিম বিভেদ ছিল একটি অপ্রীতিকর সত্য। এই ধারণার সঙ্গে আপস করা যাবে না। এর সমাধানের একমাত্র উপায় [হল], সমগ্র ভারতবর্ষ যে হিন্দুস্থান [অর্থাৎ] হিন্দুদের ভূমি এবং একই সঙ্গে তাদের পিতৃভূমি ও পূণ্যভূমি— সে কথা স্বীকার করে নেওয়া।” মনে রাখতে হবে, লাহোর প্রস্তাবের বহু আগেই এভাবে এ দেশে দ্বিজাতিতত্ত্বের সূচনা করে হিন্দু মহাসভা।

    দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়ে ব্রিটিশ সরকারের প্রতি দেশবাসীর দৃষ্টিভঙ্গি কী হবে, সেই প্রসঙ্গে সাভারকর ১৯৪১ সালে ভাগলপুরে হিন্দু মহাসভার ২৩তম অধিবেশনে বলেন: “So far as India’s defence is concerned, Hindudom must ally unhesitatingly, in a spirit of responsive co-operation, with the war effort of the Indian government in so far as it is consistent with the Hindu interests, by joining the Army, Navy and the Aerial forces in as large a number as possible and by securing an entry into all ordnance, ammunition and war craft factories।” যদিও ওই সেনাবাহিনীতে মুসলমানদের যোগ দেওয়ার ব্যাপারে তিনি নীরব ও নিষ্পৃহ থাকেন, কারণ তাঁর মতে “মুসলমানেরা প্রথমে মুসলমান, শেষে মুসলমান, এবং কদাচ ভারতীয় নয়।”

    অথচ, ক্ষমতার স্বাদ পেলে হিন্দু মহাসভা যে তার দীর্ঘলালিত মুসলমান-বিদ্বেষ এক লহমায় ভুলে যেতে পারে, এমনকি মুসলিম লিগের সঙ্গে কোয়ালিশন সরকার গড়তেও দ্বিধা করে না, তা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হওয়ার অব্যবহিত পরে কংগ্রেস মন্ত্রিসভাগুলির পদত্যাগের পর থেকেই স্পষ্ট হয়ে ওঠে। আমরা দেখি, ‘ভারত ছাড়ো’ আন্দোলনের ডাক দিয়ে যখন গান্ধী-সহ প্যাটেল, নেহরু, আজাদ প্রমুখ কংগ্রেসি নেতৃবৃন্দ জেলে বন্দিজীবন যাপন করছেন, তখন হিন্দু মহাসভার দ্বিতীয় প্রধান নেতা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় লাহোর প্রস্তাবের উত্থাপক ফজলুল হকের অর্থমন্ত্রী হিসেবে বাংলায় প্রায় ১১ মাস দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। একই ভাবে উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশে খান আব্দুল জব্বর খানের কংগ্রেস মন্ত্রিসভা পদত্যাগ করলে মুসলিম লিগের প্রধানমন্ত্রী সর্দার আওরঙ্গজেব খানের অর্থমন্ত্রী হচ্ছেন হিন্দু মহাসভার মেহরচাঁদ খান্না। আর ১৯৪৩ সালের ৩ মার্চ সিন্ধু প্রদেশের আইনসভায় পাকিস্তান প্রস্তাব পাশ হওয়ার পরেও স্যার গুলাম হুসেন হিদায়েতুল্লার নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করার প্রয়োজন বোধ করছেন না মহাসভার তিন মন্ত্রী। এর কারণ একটিই। কারণ ১৯৪২-এর ২৮ অগস্ট ‘দ্য বম্বে ক্রনিকল’ পত্রিকায় হিন্দু মহাসভার প্রতিনিধিদের নির্দেশ দিয়ে সাভারকর বলেন: “...যতটা সম্ভব রাজনৈতিক ও সামরিক শক্তি দখল করার জন্য হিন্দু সদস্যদের অবশ্যই প্রতিরক্ষা সংস্থা (Defence bodies) এবং কাউন্সিলে তাদের অবস্থানে অটল থাকতে হবে।”

    ব্রিটিশদের সঙ্গে সহযোগিতা করার হিন্দু মহাসভার এই নির্দেশের সঙ্গে সাযুজ্য রেখেই শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় ১৯৪২-এর ২৬ জুলাই বাংলার ছোটলাট জন হার্বার্টকে একটি চিঠি লিখে কংগ্রেসকে মোকাবিলা করার পরিকল্পনা ছকে দেন এই ভাষায়: “... কংগ্রেসের ডাকা সারা ভারতবর্ষ ব্যাপী আন্দোলনের ফলে এই প্রদেশে যে পরিস্থিতি সৃষ্ট হতে পারে, আমাকে এখন তার উল্লেখ করতে হবে। যুদ্ধের সময়কালে যদি কেউ গণ-অনুভূতিকে এমনভাবে জাগিয়ে তোলার পরিকল্পনা করে যাতে অভ্যন্তরীণ বিশৃঙ্খলা বা নিরাপত্তাহীনতা ঘটতে পারে, তবে যে কোনও সরকার, তার কার্যক্রমের মেয়াদ যদি স্বল্পকালীনও হয়, তবু সে অবশ্যই এই আন্দোলনকে প্রতিহত করবে।” শুধু তা-ই নয়, ব্রিটিশ সরকারের বিশ্বস্ত মন্ত্রী হিসাবে তিনি আন্দোলন দমন করার ক্ষেত্রে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়ে একই চিঠিতে ছোটলাটকে জানান: “ব্রিটেনের স্বার্থে নয়, ব্রিটিশরা লাভবান হতে পারে এমন কোনও সুবিধার জন্য নয়, বরং প্রদেশের প্রতিরক্ষা ও স্বাধীনতা রক্ষার জন্য ব্রিটিশদের ওপর ভারতীয়দের আস্থা রাখতে হবে। আপনি গভর্নর হিসাবে, প্রদেশের সাংবিধানিক প্রধান হিসাবে কাজ করবেন এবং আপনার মন্ত্রীর পরামর্শে সম্পূর্ণরূপে পরিচালিত হবেন।”

    অন্য দিকে আরএসএস-এর তাত্ত্বিক গুরু গোলওয়ালকর দেশটাকে হিন্দুরাষ্ট্রে পরিণত করার খোয়াবে মশগুল থেকে নির্দ্বিধায় উচ্চারণ করেন: “হিন্দুস্তানের অ-হিন্দু জনগণকে অবশ্যই হিন্দু সংস্কৃতি ও ভাষাকে [হিন্দি] গ্রহণ করতে হবে, হিন্দু ধর্মকে শিখতে হবে এবং সম্মান ও শ্রদ্ধা করতে হবে, হিন্দু জাতি ও সংস্কৃতির গৌরব ছাড়া অন্য কোনও ধারণাই গ্রহণ করতে হবে না।” তাঁর মতে, “. . . in a word they must cease to be foreigners, or may stay in the country, wholly subordinated to the Hindu nation, claiming nothing, deserving no privileges, far less any preferential treatment – not even citizens’ rights।” অর্থাৎ সোজা কথায়, কেবল হিন্দু ধর্মাবলম্বী ছাড়া অন্যদের কোনও কিছুই দাবি না করে, এমনকি নাগরিক অধিকারটুকুও বিসর্জন দিয়ে সম্পূর্ণত হিন্দু জাতির অধীনস্থ হয়ে এ দেশে থাকতে হবে। দেশ সদ্য স্বাধীন হওয়ার পরে ১৯৪৭ সালের ৭ ডিসেম্বর, দিল্লির রামলীলা ময়দানে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের বিশাল সমাবেশেও তিনি বলেন: “হিন্দু সমাজের সংহতিই আমাদের লক্ষ্য । এই আদর্শকে সামনে রেখে, সঙ্ঘ তার পথে অগ্রসর হবে এবং কোনও কর্তৃপক্ষ বা ব্যক্তিত্ব দ্বারা বাধাগ্রস্ত হবে না।”

    এই ঘটনার অল্প কিছু দিন আগে, ১৯৪৭ সালের ২২ জুলাই ভারতীয় সাংবিধানিক গণপরিষদে গৃহীত ভারতের জাতীয় পতাকাটিকেও সাভারকার বাতিল করে দেন। তার এক সপ্তাহ পরে, জুলাই মাসের ২৯ তারিখে তিনি এক বিবৃতি প্রকাশ করে বলেন: “একমাত্র ভাগোয়া [গেরুয়া পতাকা]— যার বুকে অঙ্কিত আমাদের জাতিসত্তার আপন উপস্থিতির প্রকাশে উদ্ভাসিত ওম, স্বস্তিক এবং তরবারি— ছাড়া সিন্ধু থেকে সমুদ্র অবধি বিস্তৃত অবিচ্ছিন্ন ও অবিভক্ত আমাদের পুণ্যভূমি এবং আমাদের পিতৃভূমি হিন্দুস্থানের আর অন্য কোনো কর্তৃত্বপ্রকাশী জাতীয় পতাকা হতে পারে কি? ...আমাদের হিন্দু-ইতিহাসের সমগ্র বিস্তৃত দৃশ্যপট এই পতাকায় প্রতিবিম্বিত। লক্ষ লক্ষ হিন্দু প্রকৃতপক্ষে এরই পুজারী। [তাই তারা] ...কোনও অবস্থাতেই হিন্দুরাজত্বের জাতীয় আদর্শ হিসেবে এই হিন্দু-অনুসারী ধ্বজা, এই ভাগোয়া পতাকা ছাড়া আর অন্য কোনও পতাকাকে আনুগত্যে অভিবাদন করতে পারে না।”

    যে হিন্দু মহাসভা কিংবা রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সঙ্ঘের সদস্যেরা সারা জীবন ভারতে ব্রিটিশ শাসনের শেষ দিন পর্যন্ত ঔপনিবেশিক শক্তির বিরুদ্ধে নিশ্চুপ থেকেছে, দেশের প্রত্যেকটি স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রতিটি অধ্যায়ের সরাসরি বিরোধিতা করে এসেছে, জন্মলগ্ন থেকেই দেশের মানুষকে সুচতুরভাবে হিন্দু-মুসলমানের বিদ্বেষ বিষে জর্জরিত করেছে, এই সেদিন পর্যন্ত জাতীয় পতাকার চূড়ান্ত অবমাননা করেছে— আজ তারাই সহসা দেশপ্রেমের ঠিকাদারি নিতে চাইছে একচেটিয়া ভাবে!

    এই পরিস্থিতিতে আগামীকাল আপনারা ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’ মার্কা মোদি-শাহ অ্যান্ড কোং-এর নবতম গড্ডলিকা প্রবাহের অন্যতম গড্ডল হবেন কি না, সে কথা ভেবে দেখুন।
     
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • এলেবেলে | 202.142.119.69 | ১৪ আগস্ট ২০২২ ২২:৩২510993
  • হেঁইয়ো।
  • | ১৫ আগস্ট ২০২২ ১৩:১১511012
  • আর এসএস বোধহয় ২০১৬ পর্যন্তও জাতীয় পতাকা তুলত না। যাই হোক একটু যোগ করি যা সম্প্রতি জেনেছি অরিজিতের থেকে। 
    "১৯৩০ এর দশকে আরএসএস এর এক নামকরা খুঁটি ছিলেন ডঃ বিএস মুঞ্জে - যিনি হেডগেওয়ারের মেন্টর হিসেবেও পরিচিত। তিরিশের দশকের শুরুতে ব্রিটিশ সরকারের সাথে ভারতের রাজনৈতিক নেতৃত্বের যে তিন রাউন্ড গোল টেবিল বৈঠক হয়েছিলো, সেখানে হিন্দু মহাসভার প্রতিনিধি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন মুঞ্জেও। ১৯৩১ সালের ১৫-২৪শে মার্চ মুঞ্জে রোম গেছিলেন মুসোলিনীর সাথে দেখা করতে। মুঞ্জের ডায়েরিতে প্রায় পনেরো পাতা জুড়ে ১৯শে মার্চ তারিখের সেই সাক্ষাতের বর্ণনা রয়েছে, আর রয়েছে ফ্যাসিস্ট সংগঠনগুলো সম্পর্কে উচ্ছ্বসিত প্রশংসা। বিশেষ করে Balilla আর Avanguardisti - যে দুটো ফ্যাসিস্ট সিস্টেমের কর্নারস্টোন ছিলো - কমবয়সীদের "তৈরী" করার জন্যে - সেই দুটো নিয়ে প্রায় দুপাতা জোড়া প্রশংসা।
    ভারতে ফেরার পর, ১২ই এপ্রিল, দ্য মারহাট্টা পত্রিকায় মুঞ্জের একটা সাক্ষাৎকার বেরোয় - যেখানে ভারতের হিন্দু সম্প্রদায়কে মিলিটারাইজ করার কথা বলেন মুঞ্জে - ফ্যাসিস্ট ইতালি আর নাজি জার্মানির ধাঁচে।
    "In fact, leaders should imitate the youth movement of Germany and the Balilla and Fascist organisations of Italy. I think they are eminently suited for introduction in India, adapting them to suit the special conditions. I have been very much impressed by these movements and I have seen their activities with my own eyes in all details."
    ১৯৩৪ সালের ৩১শে মার্চ, মুঞ্জে, হেডগেওয়ার আর লালু গোখেলের মধ্যে এক বৈঠক হয় জার্মানি আর ইতালির ধাঁচে হিন্দুদের মিলিটারি অর্গানাইজেশন নিয়ে। নীচের ছবিটা মুঞ্জের ডায়েরি থেকে এই বৈঠকের বিবরণ...হাইলাইট করা অংশগুলো একটু খুঁটিয়ে দেখবেন...সনাতন ধর্ম আর ডিক্টেটর নিয়ে বক্তব্যটা ইন্টারেস্টিং লাগবে।
    এই বিএস মুঞ্জের হাতেই নাসিকে প্রথম তৈরী হয়েছিলো ভোঁসলে মিলিটারি স্কুল ১৯৩৭ সালে। তার আগে অবশ্য ১৯৩৪ এই তৈরী হয় সেন্ট্রাল হিন্দু মিলিটারি এডুকেশন সোসাইটি, যার লক্ষ্য (ফের মুঞ্জেরই ভাষায়) ছিলো -
    "to bring about military regeneration of the Hindus and to fit Hindu youths for undertaking the entire responsibility for the defence of their motherland, to educate them in the Sanatan Dharma, and to train them in the science and art of personal and national defence..."
    অর্থাৎ, দেশটেশের চেয়ে এখানে অনেক বড় হল হিন্দু সম্প্রদায়টুকু। ১৯৩৭ সালে নাসিকে স্কুল তৈরীর অনেক পরে, ১৯৯৬ সালে নাগপুরে একটা শাখা তৈরী হয় এই ভোঁসলে মিলিটারি স্কুলের। নাসিকে ১৬০ একর আর নাগপুরে ৩০ একর জমির ওপর তৈরী এই দুটো স্কুল সেই শুরু থেকে হিন্দুত্বের "সৈন্য" তৈরী করার কাজ করে এসেছে সরকারের নাকের ডগায় বসে। সেনাবাহিনীর অনেক প্রাক্তনের মধ্যে হিন্দুত্বের যে রমরমা দেখতে পান বিভিন্ন চ্যানেলে আর মিডিয়ায়, তার পিছনে এই ভোঁসলে মিলিটারি স্কুলের অবদান খুব কম নয়। আর এই স্কুলেরই কৃতি ছাত্র এবং পরে শিক্ষক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল শ্রীকান্ত পুরোহিত - মালেগাঁও ব্লাস্টের অন্যতম কর্ণধার।"
     
     
    সূত্রঃ
    (১) Shadow Armies: Fringe Organizations and Foot Soldiers of Hindutva, Dhirendra Kr. Jha
    (২) Hindutva's Foreign Tie-up in the 1930s: Archival Evidence, Marzia Casolari, Economic & Political Weekly, Vol. 35, Issue 4, 22 Jan 2000
    (৩) Nehru Memorial Museum and Library, Moonje Papers, microfilm, diary 1932-36
    May be an image of text
     
  • | ১৫ আগস্ট ২০২২ ১৩:১৭511015
  • আরেকটু অরিজিৎ মুখার্জির ​​​​​​​থেকে ​​​​​​​নেওয়া ​​​​​​​---
     
    "১২ই অক্টোবর ২০১৫ - রাতভর বৃষ্টির পর সেদিন সকালে পুণের বৈকুণ্ঠ শ্মশানঘাটের ইলেকট্রিক চুল্লিতে হিমানী সাভারকরের দেহ যখন তোলা হয়, হিমানীর ছেলে সাত্যকি সাভারকরের সঙ্গে শ্মশানে দাঁড়িয়েছিলো অভিনব ভারতের সমস্ত সদস্য। হিমানীর দেহ ছাই হয়ে যাওয়ার পর সকলে যখন সাত্যকির কাছ থেকে বিদায় নিয়ে চলে যাচ্ছে, তখন একটাই কথা তারা প্রত্যেকে জানিয়েছিলো - হিমানীর মৃত্যুর সাথেই ছিঁড়ে গেছে তাদের সকলের "আদর্শ" দুই ঐতিহাসিক চরিত্রের সঙ্গে একমাত্র জীবন্ত যোগসূত্রটা।
     
    কে এই হিমানী সাভারকর?
    একদিকে গোপাল গডসে, অর্থাৎ নাথুরাম গডসের ভাইয়ের মেয়ে, অন্যদিকে বিনায়ক দামোদর সাভারকরের ভাই নারায়ণ সাভারকরের ছেলের বউ - হিমানী সাভারকর - একই সাথে সংঘ পরিবারের দুই সুপ্রীম নেতার লেগ্যাসি বহন করতেন। পেশায় ছিলেন আর্কিটেক্ট - ১৯৭৪ সালে থেকে ২০০০ সাল অবধি নিজের পেশাতেই নিযুক্ত ছিলেন মুম্বইয়ে। ২০০০ সালে আর্কিটেক্টের কাজ ছেড়ে পুণে চলে আসেন সাভারকরের সমস্ত লেখাপত্রের একমাত্র উত্তরাধিকারী হিসেবে সেইসব দেখাশোনার দায়িত্ব নিয়ে। গডসে এবং সাভারকর পরিবারের যৌথ লেগ্যাসিই তাঁকে নিয়ে আসে অভিনব ভারতের ছাতার তলায়। ২০০৮ সালের মালেগাঁও বিস্ফোরণে যখন অভিনব ভারতের সদস্যদের জড়িয়ে থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়, হিমানী তখন প্রকাশ্যে অভিনব ভারতকে ডিফেন্ড করতে গিয়ে বলেছিলেন - "বুলেটের বদলা বুলেট যদি হয়, তাহলে বিস্ফোরণের বদলা বিস্ফোরণ কেন হবে না?" [‘If we can have bullet for bullet, why not blast for blast?’, Outlook , 17 November 2008.]
     
    অভিনব ভারতের প্রতিষ্ঠার ব্যাপারটা একটু ধোঁয়াশায় ঢাকা। সংগঠনের নামটা অবশ্যই ১৯০৫ সালে ফার্গুসন কলেজে পড়ার সময় সাভারকরের তৈরী গুপ্ত সংগঠনের নামে - সেই সময়ে সাভারকর এই সংগঠনের নাম রেখেছিলেন গাইসেপ্পে মাজিনির "ইয়াং ইটালি" অনুপ্রেরণায়। প্রথমবার গ্রেপ্তার হওয়ার আগে অবধি সাভারকর বাস্তবিকই সশস্ত্র বিপ্লবে আস্থা রেখেছিলেন - সেই আদর্শের ওপর ভিত্তি করেই অভিনব ভারতের সদস্যদের হাতে একাধিক ব্রিটিশ অফিসার খুনও হয়েছিলেন - ইতিহাস সাক্ষী রয়েছে। ব্রিটিশ শাসন এবং ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রাম সম্পর্কে সাভারকরের মনোভাব সম্পূর্ণ বদলে যায় গ্রেপ্তারির পর, এবং আবারও ইতিহাস সাক্ষী - যে আরএসএস বা হিন্দু মহাসভা পরবর্তীকালে ব্রিটিশের সাথে সহযোগিতার রাস্তাতেই হেঁটেছে। সাভারকরের তৈরী সেই অভিনব ভারত বন্ধ হয়ে যায় ১৯৫২ সালে।
     
    ২০০৮ সালে, মালেগাঁও বিস্ফোরণের পর আউটলুকের ওই সাক্ষাৎকারে হিমানী জানান যে ১৯৫২ সালের আরো পঞ্চাশ বছরেরও কিছু পরে নতুনভাবে অভিনব ভারত শুরু করেছিলেন সমীর কুলকার্নি, আর তিনিই হিমানীকে অনুরোধ করেছিলেন সংগঠনের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নিতে - হিমানী সেই সময়ে ছিলেন হিন্দু মহাসভার সভাপতি। ২০০৮ সালে পুলিশের কাছে হিমানী জানান যে ওই বছরেরই এপ্রিল মাসে ভোপালে একটা মিটিঙে তাঁকে সংগঠনের সভাপতি হিসেবে ঘোষণা করা হয়। হিমানীর জবানবন্দী অনুযায়ী সমীর কুলকার্নি মূলতঃ মধ্যপ্রদেশেই ভিতরেই চেষ্টা করছিলেন অভিনব ভারতকে তৈরী করার। যে মিটিঙে তাঁকে সভাপতি স্থির করা হয়, সেই মিটিঙে উপস্থিত ছিলেন আরও কয়েকজন - স্বামী অমৃতানন্দ দেবতীর্থ (যাঁকে আরও অন্য কিছু নামে জানা যায় - সুধাকর দ্বিবেদী, সুধাকর ধর, আর দয়ানন্দ পাণ্ডে যার মধ্যে অন্যতম, এবং হিমানী যাঁকে জম্মু কাশ্মীর শঙ্করাচার্য্য বলে ডাকতেন), সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর, মেজর রমেশ উপাধ্যায়, সুধাকর চতুর্বেদী, এবং কর্ণেল শ্রীকান্ত প্রসাদ পুরোহিত - এই শেষের জনকে হিমানী অন্ততঃ দু বছর আগে থেকেই চিনতেন, পারিবারিক সম্পর্কের কারণে।
    “I know colonel Purohit personally, for over two years but our families have ties that go back a long time. But, he has never ever spoken to me about the Abhinav Bharat Trust – either that he founded it or about its work. Similarly, I do not know if he as involved with the Abhinav Bharat Sangathan in Madhya Pradesh.” [Interrogatories: 8, Malegaon Blast Documents]
     
    তবে, মালেগাঁও বিস্ফোরণের অন্যান্য টেস্টিমোনিয়াল থেকে মনে হয়ে অভিনব ভারতের আসল সংগঠক ছিলেন শ্রীকান্ত পুরোহিত নিজেই। তিনিই ২০০৬ সালের জুন মাসে ষোলোজন লোককে নিয়ে রায়গড়ে ছত্রপতি শিবাজীর দূর্গে অভিনব ভারত ট্রাস্টের সূচনা করেছিলেন। পুলিশের জেরায় সেই ষোলোজনের একজন জানান - “We took the blessings of Shivaji Maharaj’s throne and decided to name the trust Abhinav Bharat and prayed for its success” [Interrogatories: 1, Malegaon Blast Documents]। এর পরের বৈঠক হয় ২০০৬ সালের ১৬ই ডিসেম্বর - যেদিন উপস্থিত সদস্যরা একসাথে বিজয়দিবস (বাংলাদেশ যুদ্ধে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের জয়) সেলিব্রেট করেন। যদিও, ট্রাস্টের প্রথম অফিশিয়াল মিটিং হয় ২০০৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে, পুণের কারভে রোডের সন্ত কৃপা অ্যাপার্টমেন্টের এক ঠিকানায় - ট্রাস্টের অফিশিয়াল ঠিকানাও ছিলো এখানেই, ট্রাস্টের সদস্য এবং ট্রেজারার অজয় রাহিরকরের বাড়িতে।
    পরের মিটিং সম্ভবত হয় ২০০৭-এর জুন মাসে, নাসিকে, যেখানে পরশুরাম সাইখেদকর থিয়েটারে ট্রাস্টের উদ্বোধন হয়। কর্ণেল পুরোহিত মুম্বই থেকে বেশ কয়েকজন লোককে নিয়ে সেখানে গেছিলেন...গেছিলেন দেওলালি ক্যাম্পেও - যেখানে অমৃতানন্দ দেবতীর্থ তাঁর শিষ্যদের "দর্শন" দিচ্ছিলেন সেই সময়েই। পুরোহিতের সঙ্গে যাঁরা গিয়েছিলেন দেওলালিতে, তাঁদের একজন ১৪ই ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে পুলিশের কাছে জানান যে এই মিটিঙেই কর্ণেল পুরোহিত দেশের অবস্থা সম্পর্কে অনেক কথা বলেন - বলেন দেশে যা হচ্ছে তার অনেক কিছুই ভুল, এবং সেই ভুলগুলো শুধরোতে হবে - তার জন্যে একতা জরুরী। শঙ্করাচার্য্য, মানে অমৃতানন্দ বলেন - হিন্দু ধর্মকে রক্ষা করতে হবে, হিন্দু ধর্ম বিপদে (সেই বিখ্যাত "হিন্দু খতরে মে হ্যাঁয়") - আমাদের দায়িত্ব হিন্দুধর্মকে রক্ষা করা। সেই জন্যে দেশের সব হিন্দুকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে…শঙ্করাচার্য্যের বক্তৃতার সময়েই পুরোহিত টেবিলে নিজের ল্যাপটপ রেখে চালু করেন মিটিং রেকর্ড করার উদ্দেশ্যে। পুরোহিত নিজে জোরগলায় দাবী করেন যে মুসলমানদের সঙ্গে লড়াই করতে গেলে দরকারে বোমা বিস্ফোরণ অবধি যেতে হবে - যদিও কয়েকজন এই বক্তব্যের বিরোধিতা করেন। একজন সদস্য পুরোহিতকে বলেন এই ধরণের মিটিঙে যেখানে বিভিন্ন বিষয়ে বিতর্ক হতে পারে, সেখানে বোমা ইত্যাদিতে উৎসাহী কাউকে না ডাকতে, এবং তিনি নিজে বোমা বিস্ফোরণ, দাঙ্গা বা অন্যান্য হিংসাত্মক পন্থার বিপক্ষে - অভিনব ভারত ট্রাস্ট সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন করার জন্যে তৈরী হয়নি, ইত্যাদি... [Interrogatories: 2, Malegaon Blast Documents]।
    সেই বছরেরই সেপ্টেম্বর মাসে দেওলালিতে আরও একটা বৈঠক বসে - আবারও মুম্বই থেকে আসা বেশ কিছু লোক, এবং কর্ণেল পুরোহিত ছিলেন সেখানে। এইবারে আরেকজন নতুন লোক ছিলেন - পূর্ব দিল্লীর সাংসদ, ভারতীয় জনতা পার্টির বিএল শর্মা। শর্মার সঙ্গে অমৃতানন্দর পরিচয় আগেই ছিলো - ২০০৪ সালে, নিজের লোকসভা কেন্দ্র ঘোরার সময়ে - সেই কেন্দ্রের কাশ্মীরি পণ্ডিত উদ্বাস্তুদের মধ্যে অমৃতানন্দ বেশ জনপ্রিয় ছিলেন। ২৬শে ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে পুলিশের প্রশ্নের উত্তরে শর্মা জানান যে সেই মিটিঙে অমৃতানন্দ নিজের ল্যাপটপে ইসলামিক উগ্রপন্থীদের নানান ভয়ানক কাজের ভিডিও দেখিয়েছিলেন। ২০০৭ সালের নাসিকের বৈঠকে অমৃতানন্দই শর্মাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। সেদিন তিনি অখণ্ড ভারতের আইডিয়ার কথা বলেন - কীভাবে অভিনব ভারতের হাত ধরে ভারতবর্ষ হিন্দুরাষ্ট্র হয়ে উঠবে...
    "There he spoke about his idea of Akhand Bharat and of making India a Hindu Rashtra and he also talked about the Abhinav Bharat organisation. He told us that Prasad Purohit was trying to achieve Akhand Bharat through his Abhinav Bharat organisation. We were told that Sudhakar Chaturvedi was working full-time for the organisation. Our meeting lasted one hour during which we discussed the rape of Hindu women in J and K, their murder, etc…. I returned to Delhi after the meeting [Interrogatories: 6, Malegaon Blast Documents].
    পুলিশের বক্তব্য অনুযায়ী, মালেগাঁও বিস্ফোরণের গোটা ছক এবং তার খুঁটিনাটি তৈরী হয়েছিলো ২০০৮ সালে হওয়া চারটে মিটিঙে [Chargesheets and Miscellaneous Documents – Malegaon Case: 61]।
     
    ২০০৮ সালের ২৫-২৭শে জানুয়ারি প্রথম মিটিঙে কর্ণেল পুরোহিত, মেজর উপাধ্যায়, সমীর কুলকার্নি, সুধাকর চতুর্বেদী এবং অমৃতানন্দ দেবতীর্থ দেখা করেন ফরিদাবাদে "সেভ আওয়ার সোল" সংস্থার এক বাড়িতে যেখানে অমৃতানন্দ সেই সময়ে থাকতেন। এই মিটিঙের একটা বড় অংশ ইকোনমিক অ্যান্ড পলিটিকাল উইকলির ওয়েবসাইটে পাওয়া যায় - ক্রিস্টফ জাফ্রেলোর আর্টিকলের সাথে। পুলিশ তদন্তের সময়ে অমৃতানন্দের রেকর্ড করা এই মিটিঙের পুরো ভিডিও খুঁজে পেয়েছিলো - সেই ভিডিও থেকে জানা যায় যে আরও তিনজন ব্যক্তি এই মিটিঙে উপস্থিত ছিলেন - সাংসদ বিএল শর্মা, অ্যাপোলো হাসপাতালের ডঃ আরপি সিং, আর কর্ণেল আদিত্য ধর। ফরিদাবাদের এই মিটিঙে আরপি সিং গল্পচ্ছলে বলেছিলেন যে তিনি কীভাবে মকবুল ফিদা হুসেনের নামে মামলা করেছিলেন, এমনকি জামিয়া মিলিয়ায় এক অনুষ্ঠানে যেখানে হুসেনের বক্তৃতা দেওয়ার কথা ছিলো, সেখানেও উনি পৌঁছে গেছিলেন ১৫ লিটার পেট্রল নিয়ে - হুসেনকে আক্রমণ করার উদ্দেশ্যে - যদিও সুযোগ পাননি, কারণ অসুস্থতার কারণে হুসেন সেই অনুষ্ঠানে যাননি...
     
    এপ্রিলের ১১-১২ তারিখে এঁরাই (মানে, মূল পাঁচজন - পুরোহিত, উপাধ্যায়, কুলকার্নি, চতুর্বেদী আর অমৃতানন্দ) ভোপালে দেখা করেন প্রজ্ঞা সিং ঠাকুরের সঙ্গে, এবং মালেগাঁওয়ের কোনও একটা জনবহুল এলাকায় বিস্ফোরণ ঘটিয়ে মুসলমানদের ওপর বদলা নেওয়ার কথা স্থির করেন। পুরোহিত দায়িত্ব নেন বিস্ফোরক যোগাড়ের, প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর দায়িত্ব নেন বিস্ফোরণ ঘটানোর লোক যোগান দেওয়ার...এবং এই মিটিঙে উপস্থিত প্রত্যেকে একযোগে এই সিদ্ধান্ত সমর্থন করেন। পুলিশ এও প্রমাণ করেছিলো যে বিস্ফোরণে মূল অভিযুক্তরা ছাড়া অন্য কয়েকজনও এই মিটিঙে ছিলেন - এমনকি হিমানী সাভারকরও - তাঁর নিজের জবানবন্দী অনুযায়ীই।
    এরপর, ১১ই জুনের পরবর্তী মিটিঙে সাধ্বী প্রজ্ঞা তাঁর সঙ্গে আনেন আরও দুজন লোককে - রামচন্দ্র কালসাংরা, আর সন্দীপ ডাঙ্গে - বিশ্বস্ত সহযোদ্ধা যারা মালেগাঁওয়ে বোমা রাখার আসল কাজটা করবে - এইভাবেই এদের পরিচয় করিয়ে দেন অমৃতানন্দের সঙ্গে [Chargesheets and Miscellaneous Documents – Malegaon Case: 65]।

    ৩রা আগস্ট উজ্জয়িনীর মহাকালেশ্বর মন্দিরের ধর্মশালায় হওয়া এক মিটিঙে কর্ণেল পুরোহিতকে দায়িত্ব দেওয়া হয় কালসাংরা আর ডাঙ্গের জন্যে আরডিএক্স যোগাড় করার। পুরোহিতের নির্দেশে তাঁর সহযোগী রাকেশ ধাওরে (পুরোহিতের ভাষায় “a trained expert in committing explosions and assembling improvised explosive devices”), আগস্টের ৯/১০ তারিখে পুণেতে কালসাংরা আর ডাঙ্গের সঙ্গে দেখা করে তাদের হাতে বিস্ফোরক তুলে দেন [Chargesheets and Miscellaneous Documents – Malegaon Case: 66]।
     
    শুরু হয় চূড়ান্ত প্রস্তুতি - যার ফল মালেগাঁও বিস্ফোরণ, এবং সেই বিস্ফোরণের তদন্তের সময়েই প্রথম সামনে আসে স্যাফ্রন টেরর বা হিন্দু উগ্রপন্থার কথা।" 

    সূত্র 
    (১) Shadow Armies - Fringe Organisations and Foot Soldiers of Hindutva, Dhirendra Kr. Jha
    (২) Abhinav Bharat, the Malegao Blast and Hindu Nationalism: Resisting and Emulating Islamist Terrorism, Christophe Jaffrelot, Economic & Political Weekly, Vol. 45, Issue No. 36, 04 Sep, 2010
    (৩) Chargesheets and Miscellaneous Documents regarding the Malegaon কেসে  
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ভ্যাবাচ্যাকা না খেয়ে মতামত দিন