বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • সম্রাট অশোক ও অশোক স্তম্ভ  

    Milan Mandal লেখকের গ্রাহক হোন
    ১০ আগস্ট ২০২২ | ১২৮ বার পঠিত
  • সম্প্রতি নয়া সংসদ ভবনের মাথায় নির্মিত অশোক স্তম্ভকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়েছে ভারতীয় রাজনীতি। অনেকের অভিযোগ অশোক স্তম্ভে উপস্থিত সিংহ মূর্তিতে হিংস্রতা আনবার ফলে সম্রাট অশোক ও দেশের শান্তিপ্রিয় সহিষ্ণু ভাবমূর্তিতে স্পষ্ট ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছে। আবার অনেকেই অশোক স্তম্ভে উপস্থিত সিংহ মূর্তিতে হিংস্রতা আনবার বিষয়টিকে সমর্থন জানাচ্ছে। তৈরি হয়েছে বিতর্ক। এই বিতর্কের অবসান করতে হলে আমাদের ফিরে যেতে হবে ইতিহাসের পাতায়। প্রথমেই মাথায় রাখতে হবে ভারতবর্ষের জাতীয় প্রতীক অর্থাৎ অশোক স্তম্ভের সাথে মহান সম্রাট 'অশোকের' নাম জড়িয়ে এবং সম্রাট অশোকের আদর্শের বার্তাবাহক এই স্তম্ভ।

    বহু ঐতিহাসিকের মতে সম্রাট অশোক ছিলেন সমগ্র বিশ্বের সর্বকালের শ্রেষ্ঠ নরপতিদের মধ্যে একজন। ইতিহাস এমন বহু শাসকের সাক্ষ্য বহন করে যারা নিজের অধীনস্থ প্রজাদের প্রতি জন্তু-জানোয়ারের মতো আচরণ করেছে আবার ইতিহাস সম্রাট অশোকের মতো প্রজা কল্যাণকামী, মানবিক শাসকদেরও সাক্ষ্য বহন করে। সম্রাট অশোক সদর্পে ঘোষণা করেন 'সব মুনিসে প্রজা মমা' অর্থাৎ সকল প্রজাই আমার সন্তান। অশোক প্রথম জীবনে ব্রাহ্মণ্য ধর্মের অনুসারী ছিলেন। তবে কলিঙ্গ যুদ্ধের ভয়াবহতা তাঁর মনে গভীর অনুশোচনার সৃষ্টি করায় তিনি বৌদ্ধ ধর্মে দীক্ষা গ্রহণ করেন। বৌদ্ধ ধর্মে দীক্ষিত হবার পর থেকেই নিজের বাকি সম্পূর্ণ জীবন তিনি প্রজাদের ইহলৌকিক ও পারলৌকিক কল্যাণ সাধনের উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করেন। তিনি 'ব্যবহার সমতা' ও 'দন্ড সমতা' নামক দুই শাসন নীতির প্রবর্তন করেন। ফলস্বরূপ একই অপরাধের জন্য সকলের সমান শাস্তির বিধি আরোপিত হয়। বিভিন্ন ধর্মের সর্বজনীন আদর্শের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ এবং দিন-মজুর, দুঃস্থ ও বৃদ্ধদের স্বাচ্ছন্দ্যের প্রতি দৃষ্টি রাখবার জন্য তিনি 'ধর্মমহাপাত্র' নামক রাজ কর্মচারীদের নিয়োগ করেন। সম্রাট অশোক ব্যক্তি ও সমাজ জীবনকে পরিশুদ্ধ করবার জন্য বেশকিছু নৈতিক বিধি ও সদাচারের কথা প্রচার করেন, যা অশোকের 'ধম্ম' নামে পরিচিত। বিপুল সামরিক শক্তি থাকা সত্ত্বেও কলিঙ্গ যুদ্ধের পর তিনি আর অপর কোন রাজ্যকে আক্রমণ করেননি। প্রতিবেশী রাজ্যগুলির সাথে মিত্রতার সম্পর্ক স্থাপন করেন।

    উক্ত আলোচনা থেকেই স্পষ্ট হয় সম্রাট অশোকের মতো সৎ, প্রজা কল্যাণকামী, পরধর্ম সহিষ্ণু, অহিংস এবং শান্তিপ্রিয় শাসকের আদর্শের বার্তাবাহক স্তম্ভের সিংহ মূর্তিতে হিংস্রতা আনা এক সম্পূর্ণ যুক্তিহীন সিদ্ধান্ত এবং সম্রাট অশোকের ভাবমূর্তিতে আঘাত আনাও বটে।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই মতামত দিন