ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • "ফ্রন্ট অফ দি ক্লাস" ও টুরেট সিনড্রোম

    AR Barki লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৬ জুলাই ২০২২ | ১০৮ বার পঠিত
  • জর্জ কোহেন লিখিত এই নামে একটি উপন্যাস থেকে 2008 সালে হলিউডে একই নামে একটি ছবি তৈরি হয়। ছবির নায়ক কোহেনের আজীবনের স্বপ্ন স্কুল শিক্ষক হওয়ার।
    .
    কিন্তু একটি শারীরিক ত্রুটি তার এই স্বপ্নপূরণের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কোহেন ছোটবেলা থেকেই টুরেট সিনড্রোম নামে একটি দুরারোগ্য স্নায়বিক ব্যাধিতে আক্রান্ত।
    .
    1885 সালের ডা. জর্জ জিল ডে লা টুরেট নামে একজন ফরাসি চিকিৎসক ও নিউরোলজিস্ট সর্বপ্রথম তার 9 জন রোগীর মধ্যে এ ধরনের ব্যতিক্রমী আচরণের লক্ষণ খুঁজে পান। তাঁর নামানুসারে এই সিনড্রোমের নামকরণ করা হয় টুরেট সিনড্রোম।
    .
    এই সিনড্রোমের মূল সমস্যা হলো বিভিন্ন ধরনের Tics বা মাংসপেশির অনিয়ন্ত্রিত বিক্ষোভ। এর ফলে আক্রান্ত ব্যাক্তি ঘন ঘন কাশি দেয় বা চিৎকার করে উঠে। একটু পরপর দাঁত দিয়ে ঠোঁট কামড়ে ধরে বা মুখ দিয়ে অদ্ভুত আওয়াজ করতে থাকে।
    .
    আটলান্টা শহরের প্রায় সবকটি ইস্কুলের শিক্ষক নিয়োগের ইন্টারভিউ বোর্ড থেকে তাঁকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। একটু পর পর মুখ দিয়ে অদ্ভুত শব্দ করতে থাকা শিক্ষককে কেউ সুযোগ চায় না।
    .
    আবার সুযোগ দিলেও ছাত্ররা তাকে কিভাবে নেবে ? অভিভাবকরা কি ভাববে ? এই চিন্তাও রয়েছে। তবে একটি স্কুলের প্রিন্সিপাল তাকে একটা সুযোগ দিতে মনস্থ করেন।
    .
    ক্লাসে কোহেন প্রথম দিনই তার ছাত্রদের সাথে নিজের শারীরিক সমস্যা নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করে নেয়। আশ্চর্যের বিষয় বাচ্চারা ব্যাপারটি বেশ সহজেই গ্রহণ করে। এর পরে আর কোন সমস্যা হয়নি।
    .
    ধীরে ধীরে সে হয়ে ওঠে আটলান্টা শহরের পুরস্কার প্রাপ্ত শিক্ষক। বিশ্বের অন্যতম বিখ্যাত ফুটবলার ডেভিড বেকহাম , মোজার্ট , লেখক স্যামুয়েল জনসন সহ অনেকেই টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত ছিলেন।
    .
    বলিউডে 2018 সালে মুক্তিপ্রাপ্ত "হিচকি" ছবিতে টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত একজনের চরিত্রে অভিনয় করেন রানী মুখার্জি। তিনি নিজেও শৈশবে টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত ছিলেন।
    .
    এই রোগের এখন পর্যন্ত কোনো সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা বের হয়নি। আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসকরা বিহ্যাভেরিয়াল ও সাইকোথেরাপি নিতে উপদেশ দিয়ে থাকেন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় প্রতিক্রিয়া দিন