ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • অণুগল্পঃ আলোয় আনন্দ

    pradip kumar dey লেখকের গ্রাহক হোন
    ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | ১৫৮ বার পঠিত
  • গল্পটির বাংলা এবং ইংরেজী অনুবাদ দিলামঃ
    ------------------------
    আনন্দ মাহাতো। জন্ম পুরুলিয়ার অঁজ পাড়াগাঁয়ে। বাবা মা গরীব। ঠাঁই হয় অনাথ আশ্রমে। বাপ মা আর ফিরে আসেনি। হয়তো ওরাও অভাবের দুনিয়া থেকে পালিয়ে গেছিল। সেই রকমই কিছু কথা শোনা যায়। যা একপ্রকার মেনেই নিয়েছিল আনন্দ।
     
    যা হোক টেনেটুনে অষ্টম শ্রেণীর গন্ডি পেরিয়েছিল সে। তারপর হঠাৎই ব্যক্তিগত মালিকের আশ্রমটি অর্থসংকটে বন্ধ হয়ে যায়। আনন্দ কাজ নেয় পুরুলিয়ার স্টেশন সংলগ্ন এক চায়ের দোকানে। সেই দোকানের মালিক সব জেনে আনন্দকে দুঃখ ভুলে যেতে পরামর্শ দেয়।আর জীবনটাকে পরের উপকারে লাগাতে বলে। আনন্দর ভালো লাগে। তার দেওয়ার কিছু না থাকায় সে সবসময়ই মানুষকে খুশির পথ দেখাতে চায় --তার নামের সার্থকতায় আনন্দ দান করে।
     
    যারাই তার ওই চায়ের দোকানে আসতো তারাই আনন্দের ব্যবহারে মুগ্ধ হত। ওদের জন্য সব রকম সাহায্য করতো সে। কারোর বাজার করে দিত আবার কারোর বা বাড়ি গিয়ে অনেক কাজ করে দিয়ে আসতো।
     
    স্থানীয় এক পুলিশের নজরে আসে ব্যাপারখানা। আনন্দ র জন্য ওই দোকানে সেও আসতো প্রায়। একদিন ওই পুলিশের এক ছেলে অসুস্থ হয়ে পড়ে।
    হতাশার রোগ তাকে প্রায় মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়।
    নেশাগ্রস্ত হয়েছিল সে। 
     
    পুলিশটি আনন্দকে সব বলে। অসহায় অবস্থা তার। আনন্দ কাজে লেগে পড়ে। প্রথমে হসপিটাল তারপর বাড়ি।হতাশা থেকে আলোয় ফেরার গল্পে বশ করে পুলিশের পুত্রকে। 
     
    ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠে ওই পুত্র,  আনন্দ 'র হাত ধরে অন্ধকার থেকে আলোয়।
    ------------------------
     
    Ananda Mahato. Birth place is in the heart of Purulia. They are poor. So Ananda kept in an orphanage. The father did not come back again. Maybe they also fled from the world of lack, Something like this is heard. Ananda that took place in one of kind. However, He was passed eight class at last. Then suddenly the private owner's monastery was closed in finance. Ananda takes a job at tea shop adjacent to Purulia Station. The owner of that shop advises Ananda to forget sorrows and tell him put the lives to the next benefit of others life. Because there is nothing to give him, he always wants to show people the way of happiness - as joy the name of his Ananda . They, who came to his tea shop they were fascinated by enjoyment. He helped all the way for them. Did anyone market again and went home and did a lot of work. The local policeman came to the eye. He also came to the shop for Ananda. One day a son of this policeman became ill. The disease of frustration pushes him to death. He was addicted. The police tells all of the story related with his son. The condition of sons now became very bad . Ananda falls in work. At first he served at the Hospital for the addicted son and afterwards at  the house of the police wth his kindness. It is the story of returning to light from the darkness. Gradually, the son became cured and well with joy, is light up from darkness.
    ------------------------ 
     
    Pradip Dey ~
     
    শব্দঃ ৪৫৬
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় মতামত দিন