ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  আলোচনা  স্বাস্থ্য

  • ওমিক্রন – সার্স-কোভ-২-এর নতুন মিউটেশন – পরিণতি?

    জয়ন্ত ভট্টাচার্য
    আলোচনা | স্বাস্থ্য | ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ১৬১৫ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার Technical Advisory Group on SARS-CoV-2 Virus Evolution (TAG-VE) গত ২৬ নভেম্বর সার্স-কোভ-২-এর যে নতুন প্রজাতি “ওমিক্রন” (গ্রিক অ্যালফাবেট অনুযায়ী নামকরণে ইংরেজির O) আফ্রিকায় উদ্বেগ বাড়িয়েছে তাকে VOC (Variant of Concern) বলে অভিহিত করেছে। আমরা, ভারতের পৃথিবীর সমস্ত সাধারণ মানুষ, ঘরপোড়া গরু। তাই সিঁদুরে মেঘে ডরাই। আমরা এখনো স্বাভাবিক জীবনের ছন্দে ফিরতে পারিনি। যতই “নিউ নর্ম্যাল”-এর মতো আদুরে নামে ডেকে একে স্বাভাবিক বানানোর চেষ্টা হোক না কেন, আমাদের এ জীবন পূর্নত অ-স্বাভাবিক। এজন্য এই মারণান্তক ভাইরাসের (২০১৯-এর নভেম্বরের শেষ থেকে যার নমুনা মিলছিল চিনের য়ুহান প্রদেশে) দাপট ২ বছর পার করলেও নতুন নতুন চেহারায়, নব নব অবতার রূপে হাজির হচ্ছে এই ভাইরাস। আমরা চাপা আতঙ্কে বাস করছি – আবার কোন প্রিয়জনকে হারাতে যেন না হয়।

    নতুন চেহারার এই ভাইরাসের বৈজ্ঞানিকদের কাছে পরিচিতি B.1.1.529 variant বলে। দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম শনাক্ত হয় ২৪ নভেম্বর, ২০২১। যদিও তার আগে ৯ নভেম্বর, ২০২১-এ এক আক্রান্তের শরীর থেকে এই ভাইরাসের নমুনা মিলেছিল।
    WHO ২৬ নভেম্বর, ২০২১-এ পৃথিবীর সমস্ত দেশের নিম্নোক্ত নির্দেশিকা পাঠিয়েছে।

    As such, countries are asked to do the following:


    • enhance surveillance and sequencing efforts to better understand circulating SARS-CoV-2 variants.
    • submit complete genome sequences and associated metadata to a publicly available database, such as GISAID.
    • report initial cases/clusters associated with VOC infection to WHO through the IHR mechanism.
    • where capacity exists and in coordination with the international community, perform field investigations and laboratory assessments to improve understanding of the potential impacts of the VOC on COVID-19 epidemiology, severity, effectiveness of public health and social measures, diagnostic methods, immune responses, antibody neutralization, or other relevant characteristics.


    ২ নম্বর নির্দেশিকাটি গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের মতো যেসব দেশে জেনোমিক স্টাডি এবং sero-surveillance-এর ব্যবস্থা দুর্বল জায়গায় রয়েছে, যেসব জায়গায় পাবলিক হেলথ সিস্টেম ভঙ্গুর বা দুর্বল এবং প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থা বেহাল সেসব দেশে “associated metadata” বিশ্বাসযোগ্যভাবে সংগৃহীত হবে কিভাবে সেটা বাস্তবিকই চিন্তার বিষয়।

    নতুন ভ্যারিয়েন্টের চেহারা সার্স-কোভ-২-এর মতো একইরকম, পরিবর্তন শুধু জেনোমিক সিকোয়েন্সে। আমরা এতদিনে জেনে গেছি সার্স-কোভ-২ ভাইরাস একটি আরএনএ ভাইরাস এবং এতে ২৯,৯০৩টি অ্যামিনো অ্যাসিড থাকে। আরএনএ ভাইরাস হবার জন্য চরিত্রগতভাবে “erroro-prone”। ভাইরাসের যখন রেপ্লিকেশন হয়, অর্থাৎ একটি ভাইরাস থেকে আরও অনেক ভাইরাসের জন্ম যখন হচ্ছে তখন এর আরএনএ-র অ্যামিনো অ্যাসিডের সজ্জা পরিবর্তিত হয়ে যায়। একে বিজ্ঞানীরা বলেন মিউটেশন। মিউটেশন যত বেশি হবে ভাইরাসের চরিত্রেরও তত বদল হবে। এর মধ্যে কয়েকটি ভ্যারিয়েন্ট বিপজ্জনক হয়, কিছু বিশেষ ক্ষতি করতে পারেনা।

    এখানে আরেকটি ব্যাপার ভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ – একে বলা হয় R0 (রিপ্রোডাক্টিভ নাম্বার)। এই ভাইরাসের প্রথম যে জ্ঞাতি পাওয়া গিয়েছিল তার R0 কমবেশি ২-এর আশেপাশে। এর অর্থ হল একজন মানুষ ২ জনকে সংক্রমিত করতে পারবে। তারা আবার জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পাবে।



    রিপ্রোডাক্টিভ নাম্বার


    এর আগে যে ডেল্টা-প্লাস ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে আমরা আতঙ্কিত হয়েছিলাম তার R0 ৬ থেকে ৮-এর মধ্যে। তাহলে অনুমান করা যায়, কি বিপুল পরিমাণ মানুষ অল্পসময়ের মধ্যে আক্রান্ত হবে। ওমিক্রনের ক্ষেত্রে R0 এখনও নিশ্চিতভাবে বলা না গেলেও ধরে নেওয়া হচ্ছে এটা ডেল্টা-প্লাসের মতই হবে। সেক্ষেত্রে একদিকে ভাইরাসের transmissibility (ছড়িয়ে পড়ার ক্ষমতা বিপুল), অন্যদিকে infectivity (সংক্রমণের ক্ষমতা)-ও যথেষ্ট বেশি। নেচার জার্নালে ২৭ নভেম্বর, ২০২১-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন জানাচ্ছে “Heavily mutated Omicron variant puts scientists on alert”। এ প্রতিবেদনে বলা হল – “Researchers spotted B.1.1.529 in genome-sequencing data from Botswana. The variant stood out because it contains more than 30 changes to the spike protein — the SARS-CoV-2 protein that recognizes host cells and is the main target of the body’s immune responses. Many of the changes have been found in variants such as Delta and Alpha, and are linked to heightened infectivity and the ability to evade infection-blocking antibodies.”

    এখানে আরও বিপত্তি তৈরি হল। প্রথম, যে স্পাইক প্রোটিনকে টার্গেট করে ভ্যাক্সিন তৈরি হচ্ছে সে স্পাইক প্রোটিনের যদি ৩০টির বেশি পরিবর্তন ঘটে তাহলে ভ্যাক্সিন কোন স্পাইক প্রোটিনকে রিসেপ্টরের সাথে জোড় বাঁধাকে আটকাবে? এজন্য ফাইজার-বায়োএনটেক ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছে যে এই ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে এদের ভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা নিয়ে এরা নিশিত নয়। সম্ভবত কাজ করবেনা। মডার্না এবং অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার অবস্থান এই ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে আরও গবেষণার পরে ফলাফল বলা যাবে।
    সায়ান্স পত্রিকায় ২৭ নভেম্বর, ২০২১-এ প্রকাশিত “'Patience is crucial': Why we won't know for weeks how dangerous Omicron is” প্রতিবেদনে বলা হয়েছে – “A mutation called E484K has long been worrying because it changes the shape of the site that class 2 antibodies recognize, making them less potent. Omicron carries a mutation called E484A in this site and similar changes in the sites for the other two classes of antibodies.”
    এখানে দুটি বিপত্তি লুকিয়ে রয়েছে – (১) মানুষের দেহ বহিরাগত ভাইরাস, ব্যাক্টেরিয়া, ফাংগাস বা অন্য যে কিছু দিয়ে আক্রান্ত হলে শরীরের নিজস্ব ইমিউন সিস্টেম একটি তাৎক্ষণিক প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তোলে শরীরের রক্তে প্রবাহিত নিট্রালাইজিং অ্যান্টিবডির সাহায্যে। যদি ভাইরাসটি একটি প্রোটিনের চাদর তৈরি করে চোরের মতো এর হাত থেকে পালিয়ে যেতে পারে (evade) তাহলে প্রতিরোধ ব্যবস্থা আর কার্যকরী হবেনা, এবং (২) যদি ইমিউন সিস্টেম ঠিকমতো উদ্দীপিত না হয় তাহলে মেমরি সেল কাজ করবেনা। পরিণতিতে আমাদের ইমিউনিটি আমাদের দেহকে ভাইরাসমুক্ত করতে পারবেনা।

    নেচার-এ ২৯ জুলাই, ২০২১-এ প্রাকশিত “How the coronavirus infects cells — and why Delta is so dangerous” প্রতিবেদনে এ বিষয়ে আরও বিশদ গবেষণায় জানানো হয়েছিল – “First, the virus eliminates the competition: viral protein Nsp1, one of the first proteins translated when the virus arrives, recruits host proteins to systematically chop up all cellular mRNAs that don’t have a viral tag...
    Second, infection reduces overall protein translation in the cell by 70%. Nsp1 is again the main culprit, this time physically blocking the entry channel of ribosomes so mRNA can’t get inside, according to work from two research teams. The little translation capacity that remains is dedicated to viral RNAs... Finally, the virus shuts down the cell’s alarm system. This happens in numerous ways, the virus prevents cellular mRNA from getting out of the nucleus, including instructions for proteins meant to alert the immune system to infection.” -- একথাগুলো হয়তো ওমিক্রনের ক্ষেত্রে অধিকতর সত্যি হতে পারে। আমরা চাইবো সত্যি না হোক!

    অবশ্য খানিকটা বিপরীত তথ্যও আমাদের কাছে আসছে। রয়টার্সের সংবাদ অনুযায়ী (২৯ নভেম্বর, ২০২১) “S. African doctor says patients with Omicron variant have "very mild" symptoms”। আরেকটি খবরও নজর দেবার মতো। CITY A.M. সংবাদসংস্থার খবর অনুযায়ী (২৮ নভেম্বর, ২০২১) “Blessing in disguise: Omicron variant may be ‘very positive’ news for the world if new Covid mutation kills off more lethal Delta coronavirus”। এদের রিপোর্ট অনুযায়ী, “Around 90 per cent of all new infections in the Johannesburg region are now caused by the Omicron strain but, so far, the Covid death rate and even hospital admissions appear not to be increasing significantly, local media report.” যদিও এ সংবাদেই হু-কে উদ্ধৃত করে জানানো হয়েছে “preliminary evidence suggests the variant has an increased risk of reinfection and may spread more rapidly than other strains, including Delta.”

    “ভ্যাক্সিন জাতীয়তাবাদ” এবং “ভ্যাক্সিন অসাম্য” ভাইরাসের নতুন নতুন স্ট্রেইন তৈরি হবার পেছনে একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ। ভ্যাক্সিন যত কম হবে তত বেশি সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকবে। আবার যত বেশি সংক্রমণ হবে ভাইরাসের রেপ্লিকেশন তত বেশি হবে। রেপ্লিকেশন বেশি হওয়া মানেই মিউটেশনের সম্ভাবনা বেড়ে যাওয়া। WHO এবছরের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে পৃথিবীর সমস্ত দেশের ক্ষেত্রে অন্তত ১০% জনসংখ্যাকে ভ্যাক্সিন দেবার কথা বলেছিল। ৫০টির বেশি দেশ এই টার্গেট মিস করেছে। তার মধ্যে বেশিরভাগই আফ্রিকা মহাদেশে। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস সংবাদপত্রের (২৭ নভেম্বর, ২০২১) একটি খবর – “Omicron puts focus on low vaccine coverage in developing countries”। প্রায় ৬ মাস আগে সুবিখ্যাত নিউ ইয়র্কার সংবাদপত্রের একটি খবরের (৫.০৬.২১) শিরোনাম ছিল “The Peril of Not Vaccinating the World”। এখানে সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে – “যদি ভ্যাক্সিন অনুপস্থিত থাকে তাহলে বিশ্বব্যাপী এক অতল সংকটের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।” নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিন-এর মতো মান্য পত্রিকায় “From Vaccine Nationalism to Vaccine Equity – Finding a Path Forward” (এপ্রিল ৮, ২০২১) প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল – “বহুসংখ্যক দরিদ্রতম দেশে ভ্যাক্সিনের সরবরাহের কোন অস্তিত্বই নেই, এবং বিশেষজ্ঞরা অনুমান করছেন কম-সম্পদ সম্পন্ন ৮০% দেশে এ বছর (২০২১) একটিও ভ্যাক্সিন পাবেনা।” ল্যান্সেট-এর মতো বন্দিত জার্নালে প্রকাশিত হয়েছিল “The long road ahead for COVID-19 vaccination in Africa” (৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১)। এ প্রবন্ধ জানিয়েছিল, আফ্রিকার জনসংখ্যার মাত্র ২.৫%-এর টিকাকরণ হয়েছে। সামনে অনেক বড়ো রাস্তা – সে রাস্তায় রয়েছে ওমিক্রনের মতো ভ্যারিয়েন্ট।



    “ভ্যাক্সিন অসাম্য” - দেশভিত্তিক পার ক্যাপিটা ভ্যাকসিনের ডিস্ট্রিবিউশন (সূত্রঃ https://ourworldindata.org/covid-vaccinations)


    তাহলে আমাদের করণীয় কি? দুবছরের গবেষণায় আমরা প্রায় নিশ্চিতভাবে জেনেছি যে এই ভাইরাস এরোসলের মাধ্যমে অর্থাৎ বায়ুবাহিত হয়ে মানুষের নাক, গলা হয়ে ফুসফুসে পৌঁছয়। এজন্য বাইরে বেরোলে নাক-মুখ ঢাকা মাস্ক পরতেই হবে। দ্বিতীয়, বাইরে বেরোলে ব্যক্তিগত দূরত্ব রক্ষা করার (৬ থেকে ৮ ফুট) চেষ্টা করতে হবে। তৃতীয়, হাতের পরিচ্ছনতা (২০ সেকেন্ড ধরে ফেনা ওঠা সাবান জলে হাত ধোয়া কিংবা ৭০% আইসোপ্রোপিল অ্যালকোহলযুক্ত স্যানিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করা) রক্ষা করতে হবে। চতুর্থ, ঘরে যথেষ্ট আলোবাতাস খেলতে হবে। ঘর যেন বদ্ধ না থাকে। এবং, সর্বোপরি, বলার অপেক্ষা রাখেনা অন্তত ৭০% (কোন কোন হিসবে ৮৫%) জনসংখ্যার পূর্ণ টিকাকরণ।

    এছাড়া আপাতত আর কোন প্রতিরোধের হাতিয়ার আমাদের হাতে নেই। আবার ফিরে যেতে হবে বুনিয়াদি পাবলিক হেলথের কাছে। একে রাষ্ট্রের তরফে সজীব ও সক্রিয় করতে হবে। আরও অনেক জেনোমিক স্টাডি এবং সেরো সার্ভেইলেন্স করা প্রয়োজন। আমরা এগুলো দায়িত্ব নিয়ে করবো তো? শুধুমাত্র টিকার ওপরে ভরসা করে এই মারাত্মক ভাইরাসের বিরুদ্ধে উপযুক্ত প্রতিরোধ গড়ে তোলা যাবেনা।

  • | রেটিং ৪ (১ জন) | বিভাগ : আলোচনা | ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ১৬১৫ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • দিলীপ দে সরকার | 103.217.232.91 | ৩০ নভেম্বর ২০২১ ০৯:৩৮501541
  • ভালো লাগলো, ধন্যবাদ আপনাকে l
  • Basudev Banerjee | 45.250.246.246 | ৩০ নভেম্বর ২০২১ ১০:০৪501546
  • খুব ভালো লেখা ।.সমৃদ্ধ হলাম .
    শেয়ার করলাম .
  • সুদীপ্ত বসু | 2401:4900:3a07:19e0:eb20:8a7f:4427:2a06 | ৩০ নভেম্বর ২০২১ ১১:৩৩501548
  • ধন্যবাদ স্যার, সমৃদ্ধ হলাম 
  • ওয়ালিউল ইসলাম | 2409:4060:113:aac1:3d9b:5f67:bb2d:c8f0 | ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ১০:০২501578
  • অসাধারণ, জয়ন্ত দা। সমৃদ্ধ হলাম।❤️❤️
  • সুদীপ্ত বসু | 2409:4060:82:165::141f:f0ac | ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ১০:২৭501579
  • আপনার সান্নিধ্যে অনেক অজানা তথ্য জানছি , অসংখ্য ধনযবাদ স্যর
  • Kanchan Mukherjee | 42.110.143.34 | ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ১১:২৭501586
  • খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রবন্ধ। ডা: ভট্টাচার্য কে ধন্যবাদ। 
  • Subhabrata Lahiri. | 45.250.48.202 | ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ২১:২৫501600
  • Enlightened man like me is very much up dated time to time from the information get from Dr. Joyanta Bhattacharya's writings about deficult medial and social matters. Thangs to Dr. Bhattacharya.
  • Bijayanta Sircar | 2409:4061:2dc9:be66::5989:8309 | ০২ ডিসেম্বর ২০২১ ১০:০৪501613
  • পুরোটা পড়লাম স্যার। খুব পড়াশোনা করে সুন্দর এবং সহজ ভাবে বুঝিয়ে লিখেছেন। ২০২০ এর মার্চে COVID-19 এর উপর একটা রিভিউ আর্টিকেল লিখেছিলাম যেটা Acta Scientific Pharmaceutical Science জার্নালে প্রকাশিত হয়েছিল। তারপর সেভাবে আর কোভিড নিয়ে পড়াশোনা করার সুযোগ হয়ে ওঠেনি। আপনার এই লেখা পড়ে খুবই সমৃদ্ধ হলাম। 
  • debalina | 2409:4060:2e89:b66::4509:4d05 | ০২ ডিসেম্বর ২০২১ ২১:৫৭501626
  • ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ  একটি  লেখা। সমৃদ্ধ  হলাম।  
  • partha chakrabort | 103.217.235.99 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ০৯:১১501683
  • পুরোটাই ভাওতা। প্রমাণ, there is no scientific proof of pandemic/ medical emergency. 
    কোনো রকম কিচ্ছু বিপদ নেই। আমরা পুরো scientific debate করতে চাই, কিন্তু বললেই এই সব পণ্ডিত পালিয়ে যায়।  সরল যুক্তি, এই pandemic/ medical emergency/ অতি মারী / cvoid 19 ভাইরাস এর প্রমাণ কই? প্রমাণ চাইলে খালি যাত্রা করে, কি সব ভাইরাস লাফাচ্ছে, হাসছে, মৃত্যু মিছিল, ওদিকে মৃত্যু ২০২০ তে গেছে কমে
  • π | ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ১৮:২৭501695
  • পার্থবাবু, বলতে চাইছেন কোভিড ১৯ এ লোকে মরেনি! 
     
    এবছরের এপ্রিল মে তে আপনি এই দেশে,  কোন শহর টহরে ছিলেন? 
  • dc | 122.164.217.47 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ১৯:২১501697
  • "প্রমাণ চাইলে খালি যাত্রা করে, কি সব ভাইরাস লাফাচ্ছে, হাসছে,"
     
    একদম একমত। ​​​​​​​এদ্দিন ​​​​​​​ছিল ​​​​​​​লাফিং ​​​​​​​গ্যাস ​​​​​​​আর ​​​​​​​লাফিং ​​​​​​​বুদ্ধা, ​​​​​​​এখন ​​​​​​​হয়েছে ​​​​​​​লাফিং ​​​​​​​ভাইরাস। ​​​​​​​সব ​​​​​​​ডিপ ​​​​​​​স্টেটের ​​​​​​​চক্রান্ত। ​​​​​​​
  • π | ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ১৯:২৩501698
  • এখানে আবার এটা বলছে,
    How well the variant spreads elsewhere might depend on factors such as vaccination and previous infection rates, says Aris Katzourakis, who researches viral evolution at the University of Oxford, UK. “If you throw it into the mix in a highly vaccinated population that has given up on other control measures, it might have the edge there.”
     
  • dc | 122.164.217.47 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ১৯:৩৯501699
  • পার্থবাবু তো বলেই দিয়েছেন প্যান্ডেমিক বা মেডিকাল এমার্জেন্সি বলে কিছু হয়না। 
     
    আসলে হাসপাতালের এমার্জেন্সি বিভাগগুলো সব ভাঁওতা। ওখানে ডিপ স্টেট নিজেদের এক্সপেরিমেন্ট করে।  
  • সৌরেন্দু ঘোষ | 103.242.189.166 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ২১:৩৬501708
  • যা জানা যাচ্ছে আমিরখান ভাইরাস ভুত ফোকলা, রূপ পাল্টে বুড়ো হয়ে গেছে, ঘাড়মোটকাবার ক্ষমতা নেই, এবার মনে হয় ঘাড় থেকে নামবে।
  • π | ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ০৯:০৩501742
  • এই যে, ওমিক্রন সংক্রান্ত হস্পিটালাইজেশ্ন মূলত আনভ্যাক্সিনেটেড লোকজনের।
     

    She added that hospital admissions have been increasing nationally, adding that admission trends in Gauteng are higher than in the previous waves.

    There are 1,351 patients in Gauteng hospitals. Nationally, the general bed occupancy is at 1.9 per cent and for ICU it is 4.2 per cent, Phaahla was quoted as saying.

    “Indications are that the new Omicron variant is highly transmissible and most hospitalizations are as a result of unvaccinated people,” said Phaahla, even as he urged people to get vaccinated as the first line of protection from the virus.

  • Ajit Kanungoe | ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ ১৩:০৩501806
  • আরেকটু সহজবোধ্য হলে ভালো হতো।
  • তমা দাস | 2409:4061:4e93:196b:395e:69a0:808b:4abd | ১৫ ডিসেম্বর ২০২১ ১৪:২৩502116
  • খুব সুন্দর তথ্যপূর্ণ  লেখা। সমৃদ্ধ হলাম। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ভালবেসে প্রতিক্রিয়া দিন