• খেরোর খাতা

  • ওরা পরীক্ষা কেমন করে দেবে, ভেবেছেন মাননীয়া!

    বন মানুষ লেখকের গ্রাহক হোন
    ৩০ মে ২০২১ | ৩১৮ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • উদায়ন পণ্ডিত যতই পাঠশালা চালু রাখতে চান না কেন, হীরক রাজা মনে করেন, "লেখাপড়া করে যে, অনাহারে মরে সে"। করোনা আবহে বঙ্গের শিক্ষাব্যবস্থাও এখন সেই পর্যায়ে পৌঁছেছে। স্কুল-কলেজ খোলা না থাকুক, বিকল্প পথে পড়াশুনা চালু রাখা যেতেই পারত। কিন্তু সরকারের অনীহা বাধ সেধেছে তাতে। প্রত্যন্ত গ্রামের স্কুলের মাধ্য়মিক বা উচ্চ মাধ্য়মিক পরীক্ষার্থীটি কোন ভরসায় পরীক্ষা দেবে, ভাবলে শিহরিত হতে হয়। গত বছর লকডাউন  হওয়ার পর টানা স্কুল বন্ধ। গরমের ছুটি, পুজোর ছুটি মিলেমিশে একাকার। এখন শুধুই ছুটি। শহরের কিছু স্কুলে চক্ষু লজ্জার খাতিরে অনলাইন ক্লাস করিয়েছেন শিক্ষকরা। তবে, তাঁরা মেনে নিয়েছেন, ক্লাসের মোট ছাত্র-ছাত্রীর মাত্র ২০ শতাংশকে শিক্ষাদান করা সম্ভব হয়েছে। তাও সব পাঠক্রম সম্পূর্ণ হয়নি। আর এই হার যদি গ্রামের কোনও স্কুলে ধরা হয়, বেআব্রু হয়ে পড়বে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা।


    একজন মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী কী প্রস্তুতি নিয়ে পরীক্ষা হলে যাবে? প্রথম লকডাউনে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকা দরুন বেশ কিছুদিন পড়ুশুনা হয়নি ছাত্র-ছাত্রীদের। এরপর শিক্ষা দফতরের নির্দেশিকা আসে, অনলাইনের মাধ্যমে ক্লাস নেওয়া হবে। অনলাইনে ক্লাস মানে তো ইন্টারনেট থাকা জরুরি! সবার বাড়িতে কি ইন্টারনেট সংযোগ রয়েছে? 'ডিজিটাল ইন্ডিয়া' বলে যে হিড়িক তুলি, তা বলে কি আমরা সবাই ডিজিটাল হতে পেরেছি। জিও-র এক জিবি ইন্টারনেটে ওই ফেসবুক, ইউটিউব কিংবা জি বাংলার সিরিয়াল দেখা ছাড়া আর কি বা করা যায়?ইন্টারনেট আর অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল যাদের আছে, তাদের দিয়েই শুরু হয় অনলাইন ক্লাস। বাকিদের ক্ষেত্রে সরকার নিশ্চুপ। এরপর নির্বাচন এসে পড়ে। তড়িঘড়ি সরকারের ঘোষণা, প্রত্যেক ছাত্রছাত্রীকে ট্যাব দেওয়া হবে। শেষমেশ ট্যাবের জোগান করতে না পারায় নগদ টাকা দেওয়ার ঘোষণা করা হয়। তাতেও বিপত্তি। কত জনের ঘরে সে টাকা পৌঁছেছে, সন্দেহ রয়েছে। আর যারা টাকা পেয়েছে, করোনা মহামারীতে পেটের ভাত চুরি হওয়া সন্তানরা সেই টাকা দিয়ে ট্যাব কিনবে না পেটের ক্ষিদে মেটাবে, প্রশ্ন থাকছেই। অর্থাৎ টাকা দিয়ে ক্ষান্ত হয়ে গেল সরকার। শিক্ষা যে মৌলিক অধিকার, তা সুনিশ্চিত করার দায় সরকারের ঘাড়ে বর্তাল না। আমাদের শিক্ষামন্ত্রীকে কেউ প্রশ্নও করলেন না, ওদের শিক্ষা কে দেবে? প্রাইভেট টিউটর?


    নাম না করে এক বেসরকারি ইস্কুলের উদাহরণ টানছি। অভিজাত স্কুল। সাধারণত বিত্তশালী পরিবারের সন্তানরাই পড়াশুনা করে সেখানে। লকডাউন হওয়ার পর শিক্ষক-শিক্ষিকাদেরও তৎপরতা দেখা যায়। গুগল মিট বা মাইক্রোসফ্ট টিমে অনলাইন ক্লাস প্রশিক্ষণ হয় তাঁদের। নিয়ম করে প্রতিদিন ক্লাস করেছেন। এমনকী নাচ-গান, আঁকা, পিকনিক, সব আয়োজনই হয় অনলাইনের মাধ্যমে। আসলে এই উদাহরণ টেনে বলার একটাই কথা, ওই স্কুলে শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং কর্তৃপক্ষের যে উৎসাহ ও ইচ্ছাশক্তি প্রশংসনীয়। কিন্তু সরকারি স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে যেমন মাথাব্যাথা নেই সরকারের, তেমন অধিকাংশ শিক্ষক-শিক্ষিকাদের। মাইনে বাড়ানোর জন্য মাসের পর মাস শিক্ষক-শিক্ষিকারা অনশন করতে পারেন, কিন্তু না পড়িয়ে মাসের পর মাস মাইনে নিতে কুণ্ঠাবোধ হয় না। শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বিরুদ্ধে এমন কথা বলতে রুচিতে বাধলেও বাস্তবে তা সত্যি।  


    লকডাউন হওয়ার পর সরকার কিছুটা সময় পেয়েছিল ধাতস্থ হওয়ার। একদিকে বিপুল সংখ্যার পরিযায়ী শ্রমিকের ঘরে ফেরা, অন্যদিকে বাড়ন্ত করোনার প্রকোপ কমানো- এই দুই পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সরকারের কাছে যথেষ্ট চ্যালেঞ্জ ছিল। তা বলে রাষ্ট্র একমুখী হতে পারে। তাকে ভাবতে হয় পরিবারের সব সদস্যের কথা। কঙ্কালসার স্বাস্থ্যব্যবস্থার তালিতাপ্পা দিতে গিয়ে অন্যান্য ক্ষেত্রের মতো শিক্ষাব্যবস্থাও অবহেলিত হয়ে পড়েছে। বলা ভাল, তলানিতে ঠেকেছে। ছাত্র-ছাত্রীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে এভাবে ছিনিমিনি খেলা এই গণতন্ত্র পরিকাঠামোয় রাষ্ট্রের আদৌ অধিকার আছে কিনা প্রশ্ন ওঠে। করোনা মহামারী মোকাবিলা করা স্বাস্থ্য দফতরের কাজ। যার মাথার উপর রয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী। বাকি বিষয় সামলানোর জন্য তো আরও অন্যান্য দফতর রয়েছে। তার মন্ত্রীও রয়েছে। প্রতি বছর যে মন্ত্রী এসএসসি পরীক্ষা সঠিকভাবে করাতে পারেন না, এমন অভাবনীয় সময়ে এই অভূতপর্ব কাজটা তাঁর পক্ষে করা সম্ভব নয়। গত পাঁচ বছরে নিজেই তার প্রমাণ দিয়েছেন।

  • আরও পড়ুন
    পথ - বন মানুষ
  • ৩০ মে ২০২১ | ৩১৮ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন