ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • Not For Sale

    Shah Alam Ranzu লেখকের গ্রাহক হোন
    ২২ এপ্রিল ২০২১ | ৯০৪ বার পঠিত
  • নিস্তব্দ কনফারেন্স রুম। আশফাক আলীর শরীর থেকে ঘাম ঝড়ছে। স্ত্রী আয়েশা পাশেই বসে আছে। আজকের এই পার্টির কাছে মাল বেচঁতেই হবে যে করেই হোক। এর আগেও কয়েকটা পার্টি দেখে গেছে, পড়ে জানাবে বলে আর জানায়নি। ফোন দিলেও ধরে না হারামজাদারা। একবার তো এক পার্টি প্রায় ফেঁসে গিয়েছিলো। আশফাক আলী ভালো জাল বিছিয়ে ছিলো। পার্টিও কথা দিয়েছিলো কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর কেনেনি বদমাইশের বাচ্চা। আশফাক আলী বারবার ঘড়ি দেখছে। স্ত্রীর দিকে চিন্তিত মুখে তাকাচ্ছে। বারবার পানি খাচ্ছে। ম্যানেজার এসে খবর দিলো পার্টি এসে গেছে। আশফাক আলী তরতরিয়ে ঘামতে লাগলো। স্ত্রী রোকেয়া আর ছেলে সমসের কে নিয়ে উছমাত মোল্লা কনফারেন্স রুমে প্রবেশ করলেন। আশফাক আলী ও তার স্ত্রী তাঁদের সদরে আমন্ত্রণ জানালো। এক গাল হেসে কর মর্দন করলো। পথে আসতে কোন অসুবিধা হয়েছে কিনা জীজ্ঞেস করতেও ভুললো না। উছমাত মোল্লা হাসতে হাসতে বসলেন। ধীরে সুস্থে সব প্রশ্নের উত্তর দিলেন। একটিও ভুললেন না। তিনি বললেন "চলুন দেরী না করে প্রডাক্ট দেখি। প্রডাক্ট পছন্দ হলে বাকী কথা হবে।" আশফাক আলী স্ত্রীর দিকে ইশারা করলো। স্ত্রী উঠে গেল। খাবারের ট্রে হাতে ম্যানেজার ঢুকলো। আশফাক আলী হাসতে হাসতে বললো " সামান্য কিছু নাস্তা এনেছিলাম, নিন নাস্তা নিন।" উছমাত মোল্লা, সমসের, স্ত্রী সবাই টেবিলের উপর সাজিয়ে রাখা খাবার নিয়ে খেতে লাগলো। বেরিয়ে এলো রূপ-লাবণ্যে ভরা আশফাক আলীর সাতাশ বয়সী কন্যা ইলমা। নড়েচড়ে বসলো সমসের। উছমাত মোল্লা খুব নজর করে দেখতে লাগলেন। বললেন "একটু হেটে দেখাও তো মা।" দাঁত দেখতে লাগলেন। না, কোন খুঁত চোঁখে পড়ল না। প্রডাক্ট ভালো আছে। একটু বয়স বেড়েছে, পুরোনো দেখায় এই আর কি। উছমাত মোল্লা ছেলের দিকে তাকালেন ছেলে মাথা নেড়ে সম্মতি দিলো,  স্ত্রী রোকেয়ার দিকে তাকালেন স্ত্রী মাথা নেড়ে সম্মতি দিল।

    আশফাক আলী বলতে লাগলো "একে দিয়ে আপনি ২৪ ঘন্টা  কাজ  করাতে পারবেন।" স্ত্রী আয়েশা বলল "আমি সব রকম ঘরের কাজ শিখিয়েছি।" আশফাক আলী আবার বললো "সুতরাং আপনাদের আর কাজের মেয়ে লাগবে না।" উছমাত মোল্লার স্ত্রী রোকেয়া একগাল হেসে বললেন "তাহলে তো খুবি ভালো, এমনিতেও কাজের লোকের প্রতি আজকাল আর ভরসা রাখা যায় না।" আশফাক আলী সমসেরের দিকে একবার তাকালো, তারপর উছমাত মোল্লার দিকে তাকিয়ে বলতে লাগলো "একে আমরা গান, নাচ সব শিখিয়েছি। সুতরাং আপনাদের বিনোদনের ভার এর উপর। যখন মন চাইবে গান শুনবেন, নাচ দেখবেন।" সমসের হাসলো, সঙ্গে উছমাত মোল্লাও। উছমাত মোল্লা বললেন "দেখি প্রডাক্টের সঙ্গে কথা বলে।" উছমাত মোল্লা জীজ্ঞেস করলেন "তুমি কতদূর পর্যন্ত পড়েছো?" ইলমা উত্তর দিলো  "ইন্টার।" উছমাত মোল্লা বললেন "পড়াশোনা ছাড়লে কেন, ছাত্রী ভালো ছিলে না?" সঙ্গে সঙ্গে আশফাক আলীর স্ত্রী আয়েশা বলল" ছাত্রী খুবি ভালো ছিল। এস,এস,সি এবং ইন্টার, দুটোতেই গোল্ডেন এ প্লাস।" ইলমা বলতে লাগলো "বাবা মা ছাড়িয়ে দিলো। বললো, পড়াশোনা করে কি হবে! ঠেলতে তো হবে সেই হেসেল। হেসেল ঠেলার জন্য তো আর পড়াশোনা লাগে না।" উছমাত মোল্লা আশফাক আলীর দিকে তাকিয়ে বললেন "বাহ্, বেশ ভালো শিক্ষা দিয়েছেন তো।" সঙ্গে সঙ্গে আশফাক আলী বললো "বেকার ঝামেলাতে যাবোই কেন!" তারপর গর্ব করে বলল "মেয়েকে আমরা উচ্চ শিক্ষা দেইনি, সুতরাং সে কখনোই ইন্ডিপেন্ডেট হতে পারবে না। আপনাদের কোন চিন্তা নেই।" উছমাত মোল্লা আবার মেয়েকে জীজ্ঞেস করলেন "ধরো কাপ, পেল্ট, গ্লাস ভাঙলে কিংবা কোন কারণ ছাড়াই হাত নিসপিস করছে- দু-চারটে চড়/ থাপ্পড় খেতেই পারো, এটাই স্বাভাবিক। কোন আপত্তি নেই তো?"

    আশফাক আলী উত্তেজিত হয়ে বললো "মেয়েকে সে শিক্ষাই দেই নি, সাত চড়েও রা করবে না, বিশ্বাস না হলে দিয়ে দেখতে পারেন একটা।" ইলমা বললো "না, আপত্তি করবো না। অকারণে বাবা,মা চড়/থাপ্পড় মেরে আমাকে প্রস্তুত করেছেন। একবার বন্ধুদের সাথে পিকনিকে যেতে চেয়ে চড় খেয়েছি। তখন থেকেই বুঝেছি অকারণে চড়/থাপ্পড় খাওয়া মেয়েদের ভাগ্য লিখন। আমার মাও খেয়ে এসেছে, আমিও পারব।" উছমাত মোল্লা আবার প্রশ্ন করলেন "এই বিয়েতে তুমি রাজি হলে কেন?" ইলমা উত্তর দিলো "আমার মতের কোন মূল্য নেই।" তারপর বাবা মাকে দেখিয়ে বললো "উনারা জ্ঞানী মানুষ, বিঙ্গ মানুষ। যা সিন্ধান্ত নিবেন ভালোর জন্যই নিবেন। তাছাড়া বাবা মায়ের বুকে বোঝা হয়ে কত দিন থাকবো।" উছমাত মোল্লা আনন্দিত হয়ে আশফাক আলীকে বললেন "আই এপ্রিশিয়েট ইউর এফোর্ড। প্রডাক্ট আমাদের পছন্দ হয়েছে। এখন প্রডাক্ট আর ইউজার নিজেদের মধ্যে কথা বলে নিক।" আশফাক আলী মনটা যেন একটু খারাপ করলো।

    অন্য একটি রুমে ইলমা ও সমসের পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আছে।
    সমসের: তোমার ফিগারটা কিন্তু জোস, দারুন মেনটেন করে রেখেছো।
    ইলমা: আসার পর থেকে তো ঐদিকেই তাকিয়ে আছো।
    সমসের: অবশ্যই, দেখার জন্যই তো এসেছি। কোন হবি?
    ইলমা: লাভ আছে? বিয়ের পর আমার কি কোন ইচ্ছা থাকবে?
    সমসের: না, তা অবশ্যই থাকবে না। তোমাকে আমার পছন্দ হয়েছে। টেস্ট ড্রাইভ ?
    ইলমা: নো টেস্ট ড্রাইভ। মা বলেছে লজ্জা নারীর গয়না। একবার চলে গেলে আর আসে না। সুতরাং লং ড্রাইভ বিয়ের পরে। ইচ্ছা মত খাস মিটিয়ে নিও। এমনিতেও আমার কোন ইচ্ছা বলে তো কিছু থাকবে না।
    সমসের: (খুশি হয়ে) তার মানে তুমি ভার্জিন?
    ইলমা: হ্যা, প্রেম করার কোন সুযোগ ছিল না। মা বোরখা দিয়ে ঢেকে কলেজে নিয়ে যেত, বোরখা দিয়ে ঢেকে নিয়ে আসতো।
    সমসের: তোমার মাকে আমার ধন্যবাদ দিয়ো।

    এপর্যায়ে ইলমা ফেটে পড়ে। তুমুল এগ্রেসিভ হয়ে বলে "সিরিয়াসলি? তোমার কি একটুও লজ্জা বোধ নেই? তোমরা কি এখনো মেয়েদের বাজারে পণ্য ভাবো?
    সমসের মৃদু হেসে বলে "বিক্রি তো হচ্ছ। "

    ইলমা শুনতে পায়। তার বাবা আশফাক আলী ও উছমাত মোল্লা দেন মোহরের দাম, দামাদামি করছে। আশফাক আলী বলছে "না না ভাই, ৭০ লাখের নিচে এক টাকাও কম হবে না। আপনি প্রডাক্টের ফিচার দেখেন।" উছমাত মোল্লা বলছে "প্রডাক্টের বয়স বেশী, দেখতে পুরোনো লাগে। ৫০ এর বেশী আমরা পারবো না।

    Inspired by a Bollywood Short Film

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • π | ২৫ এপ্রিল ২০২১ ১০:৪৪105131
  • কোন শর্ট ফিল্ম?  


    এদেশে তো এসবের পরেও মেয়েদের তরফেই টাকাটা দিতে হয়!  

  • Shah Alam Ranzu | ১৩ আগস্ট ২০২১ ২০:৫৮496736
  •  short film টাতেও ওরা যৌতুক দেখিয়েছে, কিন্তু আমি দেখিয়েছি মুসলিম ধর্মীয় দিক থেকে।

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা খুশি প্রতিক্রিয়া দিন