• বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  উপন্যাস  শনিবারবেলা

  • ধারাবাহিক উপন্যাস: গল্প চা (পর্ব-৫)

    বিতস্তা ঘোষাল
    ধারাবাহিক | উপন্যাস | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১৮৩ বার পঠিত | ১ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ঘড়ির কাঁটা এগিয়ে চলেছিল তার নিজস্ব গতিতে। তিয়াসা উদগ্রীব হয়ে শুনতে চায় পরের অংশ। সেই মুহূর্তে তার মনে হয় এই কাহিনি শেষ হবার জন্য শুরু হয়নি। সে যেন একটা লম্বা ট্রেনের সওয়ারি। সেই ট্রেনের কামরা ভর্তি না-বলা কথারা কিংবা লুকিয়ে রাখা নানান চরিত্রগুলো তাদের সুখ দুঃখের ভাণ্ডার নিয়ে আজ হঠাৎ করে তাকে সামনে দেখতে পেয়ে উন্মুক্ত করে দিচ্ছে নিজেদের। এই ট্রেনের যাত্রাপথ ছুঁয়ে যাচ্ছে একের পর এক স্টেশন। প্রতিটি স্টেশনেই তৈরি হচ্ছে নতুন কাহিনি। সে খালি এখন শ্রোতা যার গন্তব্য পৃথিবীর শেষ স্টেশন। নীরব সেই যাত্রার ঘোর ভাঙিয়ে আবার শুরু হল গল্প।

    এই পর্যায়ে যুবকটির সঙ্গিনী বক্তা।

    সার্কাস ছেড়ে যাবার পর সেই মেয়ে জাদুকরী মিস কামনা কাজ পায় এক নামকরা ব্যক্তির অফিসে সেক্রেটারি হিসেবে। শীঘ্রই নজরে পড়ে যায় এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার। তার আবার রমণী মোহের কুখ্যাতি আছে। ইতিপূর্বে তার চারটে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটেছিল ও পাঁচটি কন্যাসন্তান ছিল। এছাড়াও ছিল অগণিত নারীসঙ্গ৷ সে এবার তার কামনা চরিতার্থ করার জন্য এই নতুন সেক্রেটারিকে নিশানা করল।

    সেক্রেটারি বেশ বুদ্ধি দিয়ে বারবার তার এই আকাঙ্ক্ষাকে প্রতিহত করছিল৷ এতে লোকটির আকাঙ্ক্ষা আরো বেড়ে গেল৷ নানা প্রলোভন, উপহারসহ সব চেষ্টা বৃথা যাওয়ার পর শেষ অস্ত্রের সাহায্য নেয় সে৷ এবার প্রকাশ্যেই নিজের মনোবাসনা পূরণ করার ইঙ্গিত দিয়ে বলে যদি তার কামনা পূরণ না হয় তবে চাকরি থেকে বহিষ্কার করা হবে তাকে৷

    মেয়েদের কোথাও শান্তি নেই। পুরুষ যেভাবেই হোক তাকে ভোগ করতে চাইবেই। আর না হলে…, তিয়াসার গলার স্বরে আক্ষেপ।

    সেই..., গল্পকার বলে চলল, এই সেক্রেটারি মানে মিস কামনা আবার ছবি আঁকত। এ বিষয়ে বেশ হাত ছিল তার। সে একদিন সেই কর্মকর্তাকে জানালো যে, স্যার আমি আমার আঁকা ছবির একটা প্রদর্শনী করতে চাই৷ আপনি পাশে থাকলে ধন্য হব। আপনার তো অনেক যোগাযোগ... অবশ্য তার আগে একদিন যদি আমার স্টুডিওতে আসেন...

    তার আমন্ত্রণ গ্রহণ করে সেই কর্মকর্তা একদিন তার স্টুডিওয় এল। সব ছবি দেখার পর সে একটি ছবি খুব মনোযোগ দিয়ে দেখতে লাগলো৷ ছবিটার গভীরতা দেখে যেন পাথর হয়ে গেল কিছুক্ষণের জন্য৷ নরকের দৃশ্যায়নের ছবি৷ কুৎসিত মুখশ্রীর শয়তান উপভোগ করছে কোন এক পাপীর উপর অত্যাচারের ভয়ঙ্কর দৃশ্য, যে নিজে তার জীবনকালে নানা পাপে নিমজ্জিত ছিল৷ যখন সে পাপীর মুখ দেখতে উবু হয়ে ঝুঁকলো মনে হলো যেন নিজেকে আয়নায় দেখছে৷ আশ্চর্যজনক ভাবে সে আবিষ্কার করল মূল শিল্পী তার মুখের অবয়বই সেখানে দারুণভাবে ফুটিয়ে তুলেছে৷

    আসলে শিল্পীর অবচেতন মনে লোকটার স্থান ছিল শয়তানের সমগোত্র। তাই ছবি আঁকার সময় পাপীর মুখ এঁকেছে। তিয়াসা নিজের মনেই ঠোঁট নাড়ল।

    তার ঠোঁট নাড়া লক্ষ্য করে গল্পকার স্মিত হাসল। সেই মুহূর্তে সেই ব্যক্তির নিজের ভিতর কী যেন ভেঙেচুরে গেল৷ সেক্রেটারিকে বহিষ্কারের পরিবর্তে সে নিজেই সেখান থেকে চলে গেল৷ তারপর প্রত্যন্ত এক গ্রামে এক আশ্রমে বসবাস শুরু করলো৷ সেখানে ছিল শারীরিক চাহিদার ঊর্ধ্বে নিষ্কাম সরল জীবনযাপন৷ তার মনের রূপান্তর ঘটে গেল। সে নিজেকে নিয়োজিত করল অসহায় মানুষের সেবায়।

    এত অবধি বলে গল্পকার দুজন একে অপরের দিকে চেয়ে রইলো। মনে হল তারা একসঙ্গে নতুন কোনো গল্প বানাচ্ছে আর সেই গল্প তাদের চোখের ভিতরে লেখা হচ্ছে বিনা কলমে, বিনা খাতায়।

    মানুষের মন কীভাবে বদলে যায় তাই না? শুধু নির্দিষ্ট ঘটনাটা ঘটার অপেক্ষা।

    ও পাশ থেকে কোনো উত্তর এল না। তারা নিজেদের মধ্যে মগ্ন।

  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১৮৩ বার পঠিত | ১ জন)
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Mahua Chaudhuri | 2401:4900:314a:44c2:f2c9:7361:c7e3:afdd | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ২১:০৩102891
  • সূন্দর 

  • বিপ্লব রহমান | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৯:১৩103003
  • এই পর্ব থেকেই পাঠ শুরু। লেখার সাবলীল ধরণটি দারুণ! তারপর? 

  • শ্যামলী সেনগুপ্ত | 2409:4061:301:4fa8::167f:90a0 | ০৫ মার্চ ২০২১ ০৯:১৭103174
  • আসল শুরু এখান থেকে।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

Bitasta Novel, Bitasta Ghoshal Novel, Saturday Literature, Weekend Literature, Bangla Novel, Bengali Novel, Dharabahik Uponyas
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। আলোচনা করতে মতামত দিন