• বুলবুলভাজা  ইস্পেশাল  শিশুদিবস  শিশুদিবস

  • একটা গাছে চারটে ফুল

    দেবাদৃতা ভাদুড়ি (তৃতীয় শ্রেণী)
    ইস্পেশাল | শিশুদিবস | ১৫ নভেম্বর ২০২০ | ৩৯০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • একটা গভীর জঙ্গলের গল্প বলি। দূর থেকে সবুজ গাছগুলোকে নীলচে দেখাতো। গ্রামের ধারে সেই জঙ্গলের ভিতর একটাই ঘর ছিল। সকলে দূর থেকে অবাক হয়ে দেখে ভাবতো, ওই বাড়িতে যারা থাকে তারা কত্ত সাহসী। নাহলে বুনো পশুদের মাঝখানে অমন করে থাকা যায় নাকি?এমনিতেই একটা নেকড়ে বাঘের ভয়ে সবাই কাঁটা হয়ে থাকতো। মাঝে মাঝেই গ্রামে হামলা করতো মানুষখেকো নেকড়ে। সে তো জঙ্গলে রাজা। যে সময়ের কথা বলছি তখন অন্যরকম সময়। আকাশের দেবতারা মাটির মানুষের সঙ্গে কথা বলতে পারতো। ভূত ,প্রেত , বাঘ , সিংহের ভয় ছিলো খুব। ম্যাজিকও হতো। তো গ্রামের লোকজনযে বাড়িটা নিয়ে কথা বলতো, সেখানে থাকতো দুই ভাইবোন—রবি আর শশী আর ওদের বাবা। মা ছিলো না। সেই ছোট্টবেলায় গ্রামের জলাশয় থেকে নেকড়ে বাঘ টেনে নিয়ে গিয়েছিলো ওদের মাকে। সেই থেকে বাবা কেমন পাগল পাগল হয়ে গেলো। ওদের কোলে করে জঙ্গলের মধ্যে নিয়ে চলে এলো। ঘর বানিয়ে থাকতে লাগলো। বলতো, রাতের বেলা মা নাকি এসে কথা বলে। ছোটো থেকেই রবি আর শশী এমন করেই বড়ো হয়েছে। নিজেরাই জঙ্গলে ঘুরে খাবার জোগাড় করে, নিজেরাই রান্না করে আর বাবাকেও খাওয়ায়। কোনোদিন কিছু কিনতে গ্রামে গেলে সবাই কেমন থাকায়। ওরা বোঝে লোকে ওদের ভয় পায়। পছন্দ করে না একদম। ওরাও রেগে রেগে থাকে। শুধু বাবাকে ভালোবাসে। কারণ কোনো কোনোদিন বাবা ওদের সঙ্গে আদর করে কথা বলে। মায়ের কথা শোনায়। রবি আর শশী মায়ের কথা ভাবে আর ঘুমিয়ে পড়ে। ওদের কেউ নেই তো!

    এদিকে ওই মানুষখেকো নেকড়ে আরো লোভী হয়ে উঠলো। রবি আর শশীর নরম মাংস খাওয়ার জন্য ওর জিভ দিয়ে জল পড়তে লাগলো। মাঝে মাঝেই ওদের কুটিরের চারপাশে লেজ নেড়ে ঘুরে বেড়াতো ব্যাটা। একদিন খুব বৃষ্টি পড়ছে। খুব। বাইরে জামা শুকোতে দিয়েছিলো শশী। বৃষ্টি হচ্ছে বলে তাড়াতাড়ি জামাটা নিতে গেছে, অমনি নেকড়েটা লাফিয়ে এলো সামনে। শশীকে খাবে। শশী তো কান্না শুরু করলো। রবি এসে যেই ডেকেছে—‘ বোন। ’ অমনি নেকড়েটা ওর দিকে আগুনের মতো চোখ করে তাকালো। ভাই বোনের কান্না আর নেকড়ের গর্জনে গ্রামের লোক বুঝলো আজ খারাপ কিছু ঘটবে। নেকড়ের মনে খুব আনন্দ। পছন্দের খাবার পেয়েছে। থাবা চাটতে লাগলো ঝাঁপিয়ে পড়বে বলে। এমন সময় ঘরের ভিতর থেকে ওদের আধপাগলা বাবা ছুটে এলো সামনে। বাবারও চোখ জ্বলছে। বাঘের মতোন। বাবা রেগে রেগে বললো,‘ আমার ছেলে মেয়েকে খাবি না তুই। ’ রবি আর শশী বুঝতে পারলো, আসলে বাবা ওদের খুব খুব ভালোবাসে। ওদের জন্য লড়াই করবে নেকড়ের সঙ্গে। নেকড়ে তো গর্জন করে দিয়েছে এক লাফ। বাবাও লাফিয়ে পড়লো। তারপর দুজনেই পড়ে গেলো। রবি শশী দেখে নেকড়েটার শরীর রক্তে ভেসে যাচ্ছে। বাবার হাতে একটা ধারালো ছুরি ছিল। নেকড়ে মরলো ওদের চোখের সামনে। কিন্তু বাবাও বাঁচলো কই?ওই একই সঙ্গে বাবাও চলে গেলো ওদের ছেড়ে। রবি আর শশী কাঁদতে কাঁদতে কুটির ছেড়ে বেরিয়ে পড়লো। ওরা বুঝতেই পারলো না ওদের পিছন পিছন ছায়া হয়ে ওদের বাবা মাও চলেছে। পাহারা দিয়ে। তারপর যখন ওরা কেঁদে কেঁদে ঘুমিয়ে পড়লো , একটা ম্যাজিক হলো। আকাশের সূর্য আর চাঁদ থেকে দুজন দেবদূত নেমে এসে ওদের নিয়ে চলে গেলো। রবি রইলো সূর্যের মধ্যে আর শশী চাঁদের মধ্যে। ওদের কুটিরটা বাতাসে মিলিয়ে গেলো। পরের দিন গ্রামবাসী এসে দেখলো কুটিরের জায়গায় একটা ফুলগাছ জন্মেছে। তাতে একটা থোকায় চারটে ফুল। যেন রবি শশী আর ওদের বাবা মা! দূরে শয়তান নেকড়ের শরীর জ্বালিয়ে দিয়ে গ্রামবাসী ওই গাছটাকে বেড়া দিয়ে ঘিরে দিলো। আর যেন কেউ গাছটার ক্ষতি করতে না পারে। রোজ একজন করে এসে ওই গাছের যত্ন করে যেতো। সবাই অবাক হয়ে দেখতো গাছটায় চারটে ফুল সবসময় একসঙ্গে ফুটে থাকে। রবি আর শশীর মনের ইচ্ছের মতো।


    ছবিঃ দেবাদৃতা ভাদুড়ি
  • বিভাগ : ইস্পেশাল | ১৫ নভেম্বর ২০২০ | ৩৯০ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Mahua Dasgupta | ১৬ নভেম্বর ২০২০ ১৫:১৬100284
  •  বাহ বাহ । অনেক বড়  হও দেবাদৃতা। 

  • শিপ্রা ঘোষ | 2409:4060:0:7673::3a2:38ad | ১৬ নভেম্বর ২০২০ ১৫:৩৭100285
  • খুব সুন্দর  লিখেছ। আরো লেখো।  কেমন? আরো গল্প শোনাও।

  • Suman Adhikary | 2409:4060:84:a21a::2504:68b1 | ১৬ নভেম্বর ২০২০ ১৬:১৪100286
  • খুব সুন্দর , অনেক আশীর্বাদ 

  • দেবাঞ্জনা মণ্ডল | 202.142.124.221 | ১৬ নভেম্বর ২০২০ ১৮:৩৮100295
  • খুব ভালো হয়েছে। আরো লেখো।

  • ডানাওয়ালা মানুষ | 157.40.26.107 | ১৬ নভেম্বর ২০২০ ২১:৫১100303
  • বাহ বাহ! খুব সুন্দর গল্প হয়েছে দেবাদৃতা। আরো লেখ। আরো আরো লেখ। অনেক আদর। 

  • kk | 97.91.195.43 | ১৭ নভেম্বর ২০২০ ০০:৪৬100318
  • ভারী সুন্দর লেখা হয়েছে দেবাদৃতা। গল্পটা পড়ে দুঃখ হচ্ছিলো, আবার শেষটা কী সুন্দর! ম্যাজিকের গল্প আমার খুব ভালো লাগে।

  • kk | 97.91.195.43 | ১৭ নভেম্বর ২০২০ ০০:৫০100320
  • আর বলতে ভুলে গেছিলাম, ছবিটাও ভীষণ ভালো হয়েছে!

  • অরুণা মাসি | 2409:4061:61b:3d80:b1e2:3e89:ba94:ca4e | ১৭ নভেম্বর ২০২০ ০১:০১100322
  • খুব ভালো লাগলো গল্প টা কুহু,ফুলের মতোই সুন্দর হয়ে উঠুক তোমার ভবিষ্যৎ।

  • আর.জে. কৃষ্ণকলি | 2409:4060:2083:85ea:7520:3864:26d0:8c40 | ১৭ নভেম্বর ২০২০ ০১:৩৮100326
  • দারুণ হয়েছে দেবাদৃতা। যেমন গল্প লেখা, তেমন সুন্দর আঁকা। এভাবেই এগিয়ে যাও। আরও লেখো। অনেক আদর। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে মতামত দিন