এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • Fraud  Alert - ১

    লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৭ মে ২০২৪ | ৪৪৪ বার পঠিত
  • হয়েছে কি আমার কালীতারাকে (অল্টো এলএক্সআই ) তো ডিসেম্বর মাসে বিক্রি করে দিলাম, এদিকে গাড়িতে যে ফাস্ট্যাগ স্টিকার রয়ে গেছে সেটার কথা বেমালুম ভুলে গিয়েছিলাম। তাতে আবার ৫০০/- ভরাও ছিল। কিন্তু জীবন তখন এমনই ধোবিপাটে আছড়াচ্ছে আর গাড়ি বিক্রিটা এমনই দ্রুত করেছিলাম যে ফাস্ট্যাগের ব্যপারটা মাথা থেকে এক্কেবারে বেরিয়ে গেছে, হুঁশ ফিরল মার্চে যখন মোবাইলে মেসেজ এলো তোমার ফাস্ট্যাগ থেকে xx টাকা কাটা হয়েছে অমুক টোলগেটে। তাড়াতাড়ি অনলাইনে ফাস্ট্যাগ ডি-অ্যাক্টিভেট করতে গিয়ে দেখি ব্যালেন্সটা ওয়ালেটে দেবে বলছে। এই মুহূর্তে নতুন গাড়ির প্রয়োজন নেই, HDFC র কাস্টমার কেয়ারে ফোন করলাম। সেখানে এক ছোকরা দেখে টেখে বলে তুমি যদি ওয়ালেটও বন্ধ করো তাহলে বাড়িতে ব্যাঙ্কার্স চেকে টাকা পাঠানো হবে। ওদিকে রেজিস্টার্ড ঠিকানা তো পুণে মেগাপোলিসের। অতএব খানিক পাঁপড় বেলে সে ঠিকানা  আপডেট করে হালনাগাদ করা গেল। ইতোমধ্যে মে মাসে আবার মেসেজ এলো ফাস্ট্যাগে অত টাকা কাটা হল তমুক টোলপ্লাজায়।

    তো লম্বা গল্প ছোট করে এইটুকু বলি যে ১৫ই মে HDFCর সাইটে ওয়ালেট ক্লোজার রিকোয়েস্ট উত্থাপন করা গেল। তাতে ব্যালেন্স টাকা ফেরানোর জন্য নেট ব্যাঙ্কিঙ অপশান ছিল। সেখানে অ্যাকাউন্ট নম্ব IFSC Code দিলাম। সেই অ্যাকাউন্টের ক্যান্সেল চেকের ছবি দিলাম। তারপর কেটে গেল আট দিন। কোন সাড়াশব্দ নেই। বাধ্য হয়ে ওদের কাস্টমার কেয়ারে মেল করলাম। তারা বলে গ্রিভ্যান্স রেইজ  করো আমরা দেখছি। সেটা করতে গিয়ে দেখলাম ওয়ালেট ক্লোজ হয়ে গেছে কাজেই এই ফোন নাম্বার দিয়ে আর কিছুই করা যাবে না। রেগেমেগে ট্যুইটারে HDFCCares কে ট্যাগ করে লিখলাম। তারা বলে তোমার ফোন নাম্বার দাও আর ইস্যুটা বিস্তারিত দাও আমাদের ইনবক্সে। এবারে সে ইনবক্স দেখি কিছুতেই খোলে না (হালার ভোডাফোন কানেকশান।) বিরক্ত হয়ে ক্ষণিকের ভূল সিদ্ধান্তে ওদের ট্যুইটের উত্তরে ফোন্নং আর ওই ক্লোজার রিকোয়েস্টের SR no ট্যুইট করে দিলাম। এটা হল শুক্রবার রাত্রে। শনিবারে আমার এক জায়গায় কিছু কাজ ছিল, গেলাম সেখানে।

    দুপুর দুটোর দিকে এক ব্যটা ফোন করে বলে HDFC কাস্টমার কেয়ারের সোশ্যাল মিডিয়া টিম থেকে বলছি বল কী হয়েছে। আমি বললাম হিন্দি বুঝি না ইংরিজিতে বল। সাথে সাথে আরেকজনকে ফোন দিল, ‘ইংলিশ স্পিকিং’। বেশ কথা,  বললাম বিস্তারিত। সে এবারে আমার ইমেল আইডি কনফার্ম করতে পুরো এইচএমই হয়ে গেল। অনেক কষ্টে তো টি ফর তামিলনাড়ু ডি ফর ডেল্লি করে বোঝালাম। সে বলল মেল করেছি দেখো, দেখে কনফার্মেশান পাঠাও। দেখলাম, কোন মেল আসে নি। খানিক ‘হ্যাঁ পাঠিয়েছি, না আসেনি’র পরে বলল জিমেল আইডি দাও। দিলাম। সেখানেও মেল এলো না। এবারে বলল হোয়াটস্যাপে পাঠাচ্ছি। বেশ। ওমা সেখানে দেখি হোয়াতে কল করছে, সে আবার ভিডিও কল। এইবারে একটা অ্যান্টেনা স্লাইট খাড়া হল, কেটে দিলাম। তখন অডিও কল করে বলে ভেরিফিকেশান দরকার, আমি বললাম নাহ ভিডিও কল ধরব না। তোমার মেল পেলে কনফার্ম করে দেব। তখন আমাকে বিশাল হেজিয়ে বলতে লাগল জিমেলে অল মেল স্প্যাম মেল ইত্যাদি কী করে চেক করে। দিলাম একটা জবরদস্ত ধমক।

    তাড়াতাড়ি সরি সরি করে একটা লিংক পাঠিয়ে বলল জয়েন করো। বারেবারে জিগ্যেস করছে কত টাকা ছিল ওয়ালেটে। মোটামুটি বলে বললাম চেক করো। তারপরে বলে  আমি এক্ষুণি রিটার্ন করে দিচ্ছি, কোন অ্যাকাউন্ট থেকে ডেবিট হয়েছিল বলো। বললাম মনে নেই। বলে HDFC ক্রেডিট কার্ড আছে? বললাম নাহ কোন ক্রেডিট কার্ড থেকে ওয়ালেট চার্জ করি নি। দেখলাম গুগল মিটের লিংক। করলাম জয়েন। বলে অমুক তমুক করে স্ক্রিন শেয়ার করো। এইবারে মোটামুটি আমার সবকটা অ্যান্টেনা খাড়া হয়ে উঠেছে। যে নাম্বার দেওয়া ছিল, সেই সিম যে ফোনে আছে সেখান থেকে কোনরকম পেমেন্ট অ্যাকটিভিটি হয় না। কিন্তু গুগল লগিন কমপ্রোমাইজড হলে অন্য ফোনের তথ্য পাওয়া আর এমন কি! যাই হোক হাতে সময় আছে যখন দেখি কদ্দুর যায়। আমাকে খুব করে বোঝালো কেন স্ক্রিন শেয়ার করতে হবে, তা আমি ফুলস্ক্রিন না করে উইন্ডো শেয়ারিং সিলেক্ট করলাম। গাঁইগুই করে বলল ঠিকাছে চল এবারে তোমার  মেলবাক্স খোলো। আমি বললাম নাহ মেল খুলব না, মেল এলেই কল কেটে তোমায় কনফার্মেসান পাঠিয়ে দেব।

    এদিকে গুগল মিটে দিব্বি সুন্দর HDFCর লোগো জ্বলজ্বলিং, পাশে আবার একটা কিউয়ার কোড। তো লোগোর পাশের তিনটে ডট থেকে (মেন স্ক্রিনের তিনটে ডট নয় কিন্তু) প্রোভাইড ডিটেলস অপশানে গিয়ে দেখি অবিকল HDFCর গ্রিভ্যান্স ফর্ম খুলে গেল। সেখানে পুরো ডিটেলস লিখলাম। সেসব সুন্দর করে সাবমিটও হল। এইবারে বলে কোথায় পাঠাব ব্যালেন্স টাকা। বললাম আমি তো অ্যাকাউন্ট ডিটেলস দিয়েছি, সেখানে নেফট করো। বলে তোমার ব্যাঙের মোবাইল ব্যাঙ্কিং খোলো। আমি বললাম উঁহু টাকা পাবার জন্য আমায় কিচ্ছু খুলতে হবে না, তুমি পাঠাও। বলে নেফটে সমস্যা হচ্ছে, আসলে আমরা পাঠিয়েছিলাম কিন্তু ব্যাঙ্ক থেকে রিটার্ন হয়ে গেছে। তোমার জিপে, ফোনপে কিচ্ছু নেই? বললাম হ্যাঁ জিপে আছে তো। ইউপিয়াই আইডি হোয়া চ্যাটে দিয়ে বললাম পাঠাও এখানে, তুরন্ত এসে যাবে। বলে আচ্ছা এই ব্যাঙ্কের ডেবিট কার্ডের শেষ চারটে ডিজিট এখানে শো করো। মাথা ঠান্ডা রাখতে না পেরে আবার গাঁক করে উঠলাম।   

    তারপরে এরকম হল
    ~ তুমি বাকী কার্ডটা হাতে চাপা দিয়ে শুধু শেষ চারটে ডিজিট দেখাও।
    ~ ও তুমি তার মানে জামতাড়া গ্যাঙ? আগেই ভাবছিলাম ...
    ~ আরে না না ভয়ের কিচ্ছু নেই, তুমি HDFCর লোগো দেখছ তো? আমি এক্ষুণি টাকাটা রিটার্ন করে দেব। ব্যাস তুমি সোশ্যাল মিডিয়ায় কাস্টমার কেয়ারের ভাল ফীডব্যাক দেবে।
    ~ বহুত খুব। দাও রিটার্ন করো, ওই যে ইউপিয়াই আইডি, হোথায় করো।
    ~ আচ্ছা তুমি তাহলে তোমার গুগল পে ওপন করো, আমি ট্র্যান্সফার করে দিচ্ছি।
    ~ না হে ফ্রডেশ্বর আমি কিস্যু ওপন করব না, টাকা দাও, পেলেই বলে দেব।
    ~ হয় ডেবিট কার্ডের শেষ ৪টে ডিজিট ক্যামেরায় দেখাও নয়ত জিপে ওপন করো। নাহলে তো টাকা পাঠাতেই পারব না। আমি এক্ষুণি পাঠিয়ে দিতে চাইছিলাম।
    ~ আমি এরপরে RBI guideline নিয়ে একটা কচিমত লেকচার দিয়েছি গাঁক গাঁক করে। তারপরে যেই বললাম ভাই ট্র্যান্সফার তো তুমি করবে, তা তোমার স্ক্রিন শেয়ার করে জিপে খোলো আমি বলে দিচ্ছি কীভাবে ট্র্যান্সফার করতে হয়, অমনি কটাশ করে ফোন কেটে দিল।

    আগরওয়াল প্যাকার্স একটা জিনিষ ড্যামেজ করায় তার ইনশিওরড ভ্যালু ফেরত দেবার সময় হোয়াতে ড্যামেজড জিনিষটার ছবি পাঠাতে বলেছিল। কাজেই হোয়া কল অবধি সন্দেহ হয় নি। স্ক্রিন শেয়ার করতে বলাতেই প্রথম সন্দেহ হয়।
     
    এই যে ফ্রড কেয়ার বলে যে  নম্বরটা, এটা এসেছিল এমনি সাধারণ ফোন নম্বর হিসেবে। ট্র্যু কলার কোন লাল অ্যালার্ট দেয় নি। আর হোয়াটস্যাপ কল যে নম্বর থেকে এসেছিল তার ট্র্যু কলার এন্ট্রি ছিল Tinkiya Rani নামে। কে জানে হয়ত রিঙ্কিয়া কি বহেনা। ব্লক করে কমেন্ট দেবার পরে আজ  দেখি তার নাম হয়েছে সন্তোষ নায়েক।  

    শনিবারে এইসব হবার পরে  আজ  আবার  সেই ফেক ফেডেক্সের কল। একবার ভাবলাম ০ টিপে খানিক বচনসুধা শোনাই। তারপরে আর ইচ্ছে করল না। নম্বরগুলো সব ছবিতে রয়েছে। চাইলে প্রো-অ্যাক্টিভলি বন্ধ করে রাখতে পারেন।  

    সেই ট্যুইটটা তার পরেই ডিলিট করেছি বটে, কিন্তু যা বুঝছি ট্যুইটারে ফন্নং দেবার পাপে এখন কয়েকদিন ভুগতে হবে।
     
    শেষ কথা হল টাকা ফেরত পেতে গুগল পে ইত্যাদির জন্য স্রেফ ইউপিয়াই আইডি আর NEFT র জন্য অ্যাকাউন্ট নম্বর আর IFSC Code টুকুই লাগে। যে যাই বলুক কোনভাবেই অন্য কিছু শেয়ার করবেন না। 
     
    রিঙ্কিয়াকি বহেনা 
     
     
    কল এসেছিল কাস্টমার কেয়ার নামে। 
     
     
    ফেডেক্স ফ্রড 
     

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাপাঙ্গুল | ২৭ মে ২০২৪ ২০:৪১532397
  • "সাথে সাথে আরেকজনকে ফোন দিল" -  এটা মনে হয় একটা লাল পতাকা ছিল। অরিজিনালরা ধরতে বলে তারপর সরাসরি ট্রান্সফার করে দেয়। তবে টুইট ট্র্যাক করে জালি করছে , এরকম প্রথম শুনলাম। চাপের ব্যাপার।
  • | ২৭ মে ২০২৪ ২০:৫০532398
  • না না হোল্ডে দিয়েই ট্র‍্যান্সফারই করেছিল। কিন্তু সে প্রায় নেগলিজিবল টাইমে গ্যাপে। হোল্ডের মিউজিক বেজেই থেমে গেল। 
     
    ফেডেক্স ফ্রডটাও হেব্বি কেৎের করেছে। পুরো  IVR system।  ০ টিপলে কাসটমার কেয়ার এগজিকিউটিভ আম্রিকান অ্যাকসেন্টে বলে তোমার ফেডেক্স প্যাকেজে ইল্লিগাল ড্রাগ/ গান পাওয়া গেছে। পুলিশ সিজ করেছে ব্লা ব্লা।
  • পাপাঙ্গুল | ২৭ মে ২০২৪ ২০:৫৪532399
  • ও আমি ভাবলাম পাশে কেউ দাঁড়িয়ে ছিল ফোন ধরিয়ে দিয়েছে laugh
  • :|: | 174.251.161.133 | ২৭ মে ২০২৪ ২১:১৮532404
  • "সে এবারে আমার ইমেল আইডি কনফার্ম করতে পুরো এইচএমই হয়ে গেল।" এইচএমই পুরো কথাটা কী?
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:f01a:8f88:d642:88a8 | ২৭ মে ২০২৪ ২১:৩৯532406
  • এটা আগের সপ্তাহের ঘটনা। 
     
    আমাদের একটা পুরনো সোফাসেট আছে, সেটা বিক্রি করার জন্য ওলেক্সে অ্যাড দিয়েছি। পরেরদিন মেসেজ এসেছে তোমার ফোননং দাও, কথা বলবো। এটা অনেক সময়েই হয়, তাই ফোননং মেসেজ করেছি। খানিক বাদে একজন ফোন করেছে, ট্রুকলারে কোন অ্যালার্ট দেয়নি, ফোন ধরেছি। পরের কথোপকথনঃ 
     
    কঃ আপনার সোফাসেটের ব্যাপারে কথা বলবো। আপনি এতো দাম দিয়েছেন, আমি অতো দেবো। 
    আমিঃ বেশ, আগে এসে দেখে যান, পছন্দ হলে দামের ব্যাপারে কথা বলবো। 
    কঃ দরকার নেই, আমি কাঠের দোকানের মালিক, ছবি দেখেই বুঝতে পারছি। অতো দামে রাজি হলে বলুন। 
    আমিঃ ঠিক আছে। তবে ট্রান্সপোর্টের ব্যবস্থা আপনাকে করতে হবে। 
    কঃ ঠিক আছে, আপনি ওলেক্সের থেকে অ্যাডটা ডিলিট করে দিন। 
    আমি (ঘাবড়ে গিয়ে)ঃ আপনি আগে এসে দেখুন তো! বিক্রি না হলে আমি কিকরে ডিলিট করি? 
    কঃ নানা, আমি কিনবোই। ঠিক আছে, আমি আপনাকে পাঁচ হাজার জিপে করে দিচ্ছি। এই নম্বরেই করবো তো? 
    আমিঃ হ্যাঁ এই নম্বরেই করতে পারেন, কিন্তু আগে এসে কথা বলে নিলে হয়না? 
    কঃ নানা আমি এখুনি টাকা ট্রান্সফার করে দিচ্ছি। আপনার হোয়াতে দেখুন, মেসেজ এসেছে। 
    আমিঃ হোয়াতে??!!!?? 
    কঃ হ্যাঁ আমি কিউআর কোড পাঠিয়েছি, ওটা স্ক্যান করলে টাকা পেয়ে যাবেন। 
    আমিঃ ধরুন দেখি। 
     
    আমি কম্পুতেই ছিলাম, হোয়া খোলা ছিল, দেখি একটা কিউআর কোড ওলা মেসেজ এলো, তার ওপরে লেখা রিসিভ ৫০০০ ফ্রম ওমুক। আমি ততোক্ষনে বুঝে গেছি, তাও সেটা স্ক্যান করে দেখি জিপেতে লিখছে পে ৫০০০ টু অমুক। 
     
    আমিঃ এটা তো আমাকে পে করতে বলছে! 
    কঃ নানা, ওর ওপরে তো লেখা আছে রিসিভ! তুমি স্ক্যান করে সেন্ড টেপো, টাকা পেয়ে যাবে। 
     
    তারপর আর কি, আমি ধমক দিয়ে বললাম দাঁড়াও এই ফোন নম্বরটা পুলিসে রিপোর্ট করছি। তারপর খানিক কথা কাটাকাটি হয়ে ফোন কেটে দিলাম। একটা ভুল করেছি, ততক্ষনাত হোয়া নম্বরটা ব্লক করে রিপোর্ট করেছি, ফলে কিউআর কোডটাও আর নেই। নাহলে এখানে আপলোড করে দিতাম। 
  • | ২৭ মে ২০২৪ ২৩:২১532416
  • এইচএমই হল হেগেমুতেএকশা। 
     
    উফফ ওএলেক্স পুরো ফ্রডের আড্ডা হয়ে উঠেছে। আমি পুণে ছাড়ার আগে কয়েকটা জিনিষ দিয়েছিলাম। ঠিক এইরকম আমায় সে জোর করে টাকা দেবেই। তা আমি ফোন্নং দিই নি, বললাম ভাগ বিক্রি করব না তোমায়। সে কি রাগ বলে ওলেক্সে রিপোর্ট করব। আমি বললাম যা ওলেক্স কেন তোর মোদীবাপকে গিয়ে নালিশ কর। বে ব্লক করলাম। 
  • অরিন | 2404:4404:1732:e000:e94a:c6f5:58c9:bc23 | ২৮ মে ২০২৪ ০০:৩৪532420
  • "" এইচএমই পুরো কথাটা কী?"
    হে... তে  ... একশা ।
    বুঝে নিন। 
    ;-)
  • :|: | 174.251.161.133 | ২৮ মে ২০২৪ ০১:১৪532421
  • ধন্যবাদ ২৩:২১ এবং ০০:৩৪ দুটোর জন্যই। 
    প্রিয় কবিতার যেমন টই আছে অথবা এই লোকঠকানোর ঘটনাবলীর জন্য শুরু হলো এইটি -- তেমনই একটা ফেক ভিডিও টই থাকলে ভালো হতো। 
  • Aditi Dasgupta | ২৮ মে ২০২৪ ১৯:৫৯532449
  • শুনে আমার গায়ে দিচ্ছে কাঁটা! 
  • | ০৩ জুন ২০২৪ ১৫:৪৩532661
  • Update: - HDFC balance amount transfer করে দিয়েছে। আবার ৩৫/- টাকা বেশী দিয়েছে, কেন কে জানে! 
     
    অদিতি, খুব সাবধান নানারকম ফ্রডের ফাঁদ পাতা ভুবনে। 
  • Aditi Dasgupta | ০৩ জুন ২০২৪ ১৬:২৯532663
  • @দ -ঠিক 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। না ঘাবড়ে মতামত দিন