এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  খ্যাঁটন   অবাক জলপান

  • চা আর কফি

    Arindam Basu লেখকের গ্রাহক হোন
    খ্যাঁটন | অবাক জলপান | ১০ এপ্রিল ২০২৪ | ৯৯০ বার পঠিত
  • দিন দুয়েক আগে এখানকার একটি জাপানী দোকানে দেখলাম কাগজের পাউচে দুপাশে শক্ত কাগজের ডানার মতন কফির স্যাচেট বিক্রি করছে, পাঁচটা বা দশটার একেকটা প্যাক। এগুলো ইনস্ট্যান্ট কফি নয় (নেসকাফে বা ব্রু ধরণের কফি) নয়, আপনাকে পাউচ খুলে তার ওপরের কাগজের একটা দিক ছিঁড়ে তার মধ্যে ফুটন্ত (~৯০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড) জল খুব ধীরে ঢালতে হবে (ধরুণ আন্দাজ ২-৩ মিনিট ধরে) | এক কাপ সুমিয়াকি কফি করতে কিছুটা তরিবত করতে হয় বটে তবে সে কফির স্বাদ অসাধারণ।
     
     
    পুরোটাই ডিসপোজেবল, একবার ব্যবহার করে ফেলে দিলেই হল।
    Pour Over কফি v60 তে করে খেতে আমার খারাপ লাগে না, তবে বড্ড কাগজের ফিল্টারের অপচয় হয়, যে কারণে কফি মেকারের পোড়া তিতকুটে কফি না পসন্দ। 
     
    আর একটা জিনিস দেখলাম, আজ তিরিশ বছর ধরে জাপানে সিরামিকের "pour over" কফি ফিল্টার চলছে Kyuemon কোম্পানীর, ব্যাপারটা দেখে মনে হল বেশ ভাল আর কফি করার ঝামেলাও বিশেষ নেই | বেসিকালি একটা সিরামিকের ভাঁড়, যাতে (চা) বা কফি গুঁড়ো দিয়ে গরম জল দিলেই দিব্যি কফি তৈরী।
     
    এতদিন আমি চটজলদি কফি করতে গেলে ফ্রেঞ্চ প্রেস ব্যবহার করতাম, না হলে এসপ্রেসো মেশিন, সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে তাতে কফি করতে যাওয়া  হাঙ্গামা, কফির বিন গুঁড়ো কর রে, ট্যাম্প কর রে, যন্ত্রের সামনে হাঁ করে দাঁড়িয়ে থাক, তবে খাসা এসপ্রেসো হয় অবশ্য | কিউরিগ টাইপের কফি করার যন্তর আমার একেবারে পোষায় না। 
     
    এই হচ্ছে সে জিনিস,
     
    এর সমগোত্রীয় ভিয়েতনামের ফিন ধরণের পাত্র, স্টেনলেস স্টীলের কাপ, তার তলায় ফুটো করা, কাপের ওপর বসিয়ে কফি ঢেলে করা যায়, তবে তাকে পরিষ্কার করার বেজায় হ্যাপা। তবে কফি হয় উমদা। ভিয়েতনামের কফি রোবাস্টা বিনের, অন্য রকমের স্বাদ। 
    চা/কফি নিয়ে কার কার কি কি ভাল লাগে?
    কাগজের ঢালা জাপানী কফি আর কে কে ব্যবহার করেছেন, কি অভিজ্ঞতা আপনার?
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:ca8:bf74:df80:ee21 | ১০ এপ্রিল ২০২৪ ১৬:০৪742747
  • কফি সম্বন্ধে দুচার কথা আমিও জানি, যদিও, চা সম্বন্ধে আমার জ্ঞান নিয়ে কেউ কেউ সন্দেহ প্রকাশ করেছে। 
     
    আমার কাছে চার রকম কফি বানানোর মেশিন আছে। ফ্রেঞ্চ প্রেস, হারিও v60, ডেলংগি EC265, আর একটা সাউথ ইন্ডিয়ান কাপি ফিল্টার। 
     
    ডেলংগি সাধারানত রোববার সকালে সবাই মিলে কফি খাওয়ার হলে বার করি। এটায় অসাধারন নেসপ্রেসো আর কাপুচিনো হয়, আর নেসপ্রেসো প্ড দিয়েও অসাধারন কফি হয়, তবে ধোয়াধুয়ির ঝামেলা থাকে। হারিও আর ফ্রেঞ্চ প্রেস, দুটোতেই খুব ভালো কফি হয়। তবে হ্যাঁ, হারিওতে একেকবারে একটা করে ফিল্টার লাগে, যেমন বললেন, তাই ওটা খুব বেশী ব্যবহার করি না। এসব দিক থেকে ফ্রেঞ্চ প্রেস সবচেয়ে সুবিধা, গ্রাউন্ড কফি ঢেলে ব্রু করে প্রেস করলেই হলো। মাঝে মাঝে অবশ্য ফিল্টার পাল্টাতে হয়। 
     
    তবে আসল কাপি খেতে হলে ড্রিপ কফি ফিল্টারের কোন জুড়ি নেই। এই জিনিষটাঃ 
     
     
    এটায় বানাতেও সুবিধা, ধুতেও সুবিধা, আর কফির টেস্টও অসাধারন হয়। 
     
    কফি বিন আর গ্রাউন্ড কফি প্রচুর ট্রাই করেছি। চেন্নাইতে ফিল্টার কাপির লোকার ব্র‌্যান্ড কিছু পাওয়া যায়, আর নীলগিরির কিছু গ্রাউন্ডস পাওয়া যায়, সেসবই অসাধারন। যেমন টেস্ট, তেমনি আরোমা। এই ব্র‌্যান্ডগুলোর খোঁজ অনেক বছর ধরে দিয়েছেন আমার চেনা চা-কফির এক দোকানদার, যিনি আমাকে বার্গামট চা গছিয়েছিলেন। তবে নানারকম কফির খোঁজ দেওয়ার জন্য আমি ওনার কাছে কৃতজ্ঞ থাকবো। বছর দুয়েক আগে কুর্গ গেছিলাম, সেখান থেকে এক প্যাকেট করে আরাবিকা আর রোবুস্তা বিন নিয়ে এসেছিলাম। পরে উনি সেরকম বিনসও আনিয়ে দিয়েছিলেন।  
     
    আর ইনস্ট্যান্ট কফির মধ্যে আমার সবচেয়ে ভাল্লাগে নেসকাফে গোল্ড।  এই তো হলো ব্যাপার। 
  • | ১০ এপ্রিল ২০২৪ ১৮:০৪742748
  • চা একদমই খাই না, পছন্দ করি না। 
    আমি বাড়িতে খুব বেশী কিছু চেষ্টা করি না।  একটা ইনফিউজার আছে, ওতেই গুঁড়ো কফি দিই। আমার অ্যারাবিকা বেশ পছন্দ। ব্লু-টোকাই থেকে ভিয়েনা ডার্ক রোস্ট  নিই সাধারণত। এক বন্ধু একবার ইথিওপিয়া থেকে কফি এনে দিয়েছিল। সেও বেশ লেগেছিল।  কেনার সময় ১০০% কফি দেখে নিই। চিকোরি মেশানোগুলো ভাল্লাগে না। 
     
    ইন্সট্যান্ট সাধারণত খাই না। তবে  বেড়াতে যাবার সময় কলাম্বিয়াn ব্র‍্যু এর প্যাকেট আর একটা ফোল্ডিং ইলেকট্রিক কেটল নিয়ে যাই। নাহলে নেসক্যাফে গুলে খাইয়ে দেয় আর সেটা একেবারে কাঠের গুঁড়োর মত লাগে। 
     
    এই যে এই মেকারটা ব্যবহার করি।  সবচেয়ে বড় সুবিধে গ্যাস ওভেন আর ইন্ডাকশান কুকটপ দুইয়েতেই ব্যবহার কতা যায়।
     
  • r2h | 192.139.20.199 | ১০ এপ্রিল ২০২৪ ১৮:২৪742749
  • কাগজে ঢালা কফি মাঝে মাঝে ব্যবহার করি, তবে জাপানি না, আমেরিকান, কী নাম টাম ভুলে গেছি; কখনো বনের ধারে ক্যাম্প পাতিতে গেলে ঐ নিয়ে যাওয়া হয়, খুঁজে পেতে দেখে এখানে ছবি দেবো খন।
    বাড়িতে কফিতে ইনস্ট্যান্ট, কিউরিগ, কাগজের ফিল্টার দেওয়া পুরনো ইলেক্ট্রিক, চায়ে সিটিসি, দার্জিলিং - যাহা পাই তাহাই খাই, দিনের মধ্যে পঁচাত্তরবার।

    আমার কাছে হামিনস্তো হল দক্ষিণ ভারতে সকালবেলা দোকানে স্টিলের গ্লাসে ঘন দুধের চিনি ছাড়া চিকোরি দেওয়া কড়া ফিল্টার কফি, অথবা ফিনফিনে পেয়ালায় দুধ চিনি ছাড়া স্বচ্ছ দার্জিলিং চা।

    অবশ্য আমি নিতান্ত মেঠো লোক, শৌখিন জিনিসপত্রের মোটে সমঝদার না। গরম তেতো গাঢ় খয়েরি রঙের একটা পানীয় পেলেই হলো, অধিকন্তু ন দোষায়!
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:71f1:a240:6ffc:12e2 | ১০ এপ্রিল ২০২৪ ১৯:৫৪742752
  • দ দি যেটা দিলেন সেটা মোকা পট। এটা ব্যবহার করিনি কারন এগুলো বড্ডো ছোট হয়, অবশ্য ঘুরতে যাওয়ার জন্য খুব সুবিধাজনক। 
     
    তবে কফিতে কিন্তু চিকোরি একেবারে না দিলেও টেস্ট আসে না। বিশেষ করে র২্হ যেটা বল্লেন, সাউথ ইন্ডিয়ান ফিল্টার কফির ঐ অ্যারোমা আর কড়া টেস্ট আসে চিকোরির জন্য। তবে ১০-১৫% বেশী চিকোরি থাকা উচিত না। আর ঐ স্টিলের গ্লাস আর বাটিতে ঘন দুধ দেওয়া ফিল্টার কাপির সত্যিই কোন জবাব নেই।  
  • অরিন | 119.224.61.73 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০০:৪৪742755
  • খুব ইন্টারেস্টিং আলোচনা।
     
    কফির প্রসঙ্গে মোকা পটৈর (@দ) অল্প অথচ কড়া এসপ্রেসো কফি লা জবাব। তবে সে বিন হলে তাকে পাউডারের মত করে গুঁড়ো করে নেওয়া চাই। না হলে মিহি পাউডার। ডাবল শট এসপ্রেসোতে গরম জল মিশিয়ে আমেরিকানো টাইপের কফি চলতে পারে, মাঠাতোলা দুধ দিয়ে লাটে ইত্যাদি।
    ভিয়েতনামী ফিন এ তৈরী কনডেনসড মিল্ক মেশানো ভিয়েতনামী কফি সাক্ষাৎ বিষ, তবে সে স্বাদে গন্ধে অতুলনীয়।
     
  • &/ | 151.141.85.8 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০২:৩৯742756
  • আপনারা তো দেখি খুবই কলোনিয়াল!!! ঃ-)
  • অরিন | 202.36.179.109 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৩:২২742757
  • না না, কফির ব্যাপারে সাউথ ইণ্ডিয়ান কথাটা কখনোই কলোনিয়াল নয়, কারণ এ কফিতে কফি, চিকোরি (নারকোলের খোলা পোড়া গুঁড়ো কি?) কতটা দেওয়া হবে, তাতে বিভিন্ন রাজ্যের, ভাষাগোষ্ঠীর মধ্যে বিশেষ তারতম্য নেই।
    সাউথ ইণ্ডিয়ান কফি একান্তভাবেই দক্ষিণ ভারতীয়! 
    তবে যেটা এখানে খুব ইন্টারেস্টিং, দক্ষিণ ভারতীয় ব্লেণ্ডকে যদি ভিয়েতনামী ফিন দিয়ে ব্রিউ করে খান, অপূর্ব সে স্বাদ! 
  • &/ | 151.141.85.8 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৩:৪৮742758
  • আরে কফি আর চা, জিনিসগুলোই তো কলোনিয়াল! ঃ-)
  • অরিন | 202.36.179.109 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৩:৫৬742759
  • চা?
    কফি? 
    হুঁ, তা বটে! 
  • র২হ | 96.230.215.15 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৪:০২742760
  • একটা আরবের আরেকটা চীনের।
     
    কবি কী আর সাধে বলেছেন ইংরেজ হে ইংরেজ তুমি বড় দয়ালু/ তোমার কৃপায় দাড়ি গজায় শীতকালে খাই শাঁকালু।
  • &/ | 151.141.85.8 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৪:১৫742761
  • কিন্তু দক্ষিণ আমেরিকায় গিয়ে সেই যে কী যেন স্থানীয় পানীয় খেয়ে খুবই হাই হয়েছিল স্প্যানিশ নাবিকেরা, সেটা কী?
  • &/ | 151.141.85.8 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৪:২০742762
  • আলু আর তামাক, এই দু'খান জিনিসও তো খুব কলোনিয়াল। পর্তুগীজরা না কারা যেন সাউথ আমেরিকা থেকে ইউরোপে টিউরোপে ভারতে টারতে নিয়ে গিয়ে একশা করেছে। এখন সবাই আলু খেয়ে খেয়ে মোটা হয়ে কোলেস্টেরল বেড়ে কেলেঙ্কারী কান্ড হয়েছে। আর তামাক যারা খায় তাদের সবার ফুসফুসকে মশারি করে দিয়েছে তামাক।
  • অরিন | 202.36.179.109 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৪:২৫742763
  • খাবার ব্যাপারটাই তো কলোনিয়াল।
    এমনকি চীন এবং তাবৎ দক্ষিণ এশিয়ায় দুধ বেচার বাজারটাও‌ ঐ। 
  • অরিন | 202.36.179.109 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৫:৩৫742764
  • এটা থাক।
    https://www.whetstonemagazine.com/journal/its-time-to-decolonize-tea
     
    "Drinking a cup of tea grown in Asia or East Africa, somewhere in North America or Europe is sipping a tangible vestige of colonial empires and trade routes. The Dutch East India Company brought the first tea to Europe from Japan and China in 1610. The British East India Company, legendary instrument of British colonialism, officially entered the tea business in the 1660s. Not only were these companies responding to the newly acquired desires for this Asian luxury beverage, but the tea trade was an integral part of the transatlantic trades for sugar, enslaved people, cotton, silver and later illicit opium. These enterprises fueled European industrial capitalist development and enrichment. In 1836, the taxes traders and consumers paid on Chinese tea were enough to cover over 112 percent of the British Royal Navy’s annual expenditure."
    এবং বস্টন টি পার্টি আর সিন্দুক ছুঁড়ে ফেলা!
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:d0a:5faa:16ea:40cf | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৭:২৮742765
  • আমার কাছে হামিনস্তো হল দক্ষিণ ভারতে সকালবেলা দোকানে স্টিলের গ্লাসে ঘন দুধের চিনি ছাড়া চিকোরি দেওয়া কড়া ফিল্টার কফি,
     
    আমেন 
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:9de9:ff40:4c70:3db0 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৮:০২742766
  • আর তার সাথে ঐ দোকানেই পাওয়া যায়, বাটার বিস্কুট :-)
  • অরিন | 119.224.61.73 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৮:৪৩742767
  • @পলিটিশিয়ান, @dc, 
    ঐ কফি আর বাটার বিস্কুট দক্ষিণ কলকাতাতেও সকালের দিকে পাবেন, তবে সাড়ে সাতটার আগে যেতে হবে, নইলে হতাশ হবার সম্ভাবনা: চারুচন্দ্র কলেজের উল্টোদিকে এক তামিল ভদ্রলোক প্রতিদিন সকালে ফিল্টার কফি আর মাখন বিস্কুটের সম্ভার নিয়ে বসেন। সময়করে যেতে পারলে কিছু আড্ডা সহযোগে উমদা ফিল্টার কফি পাবেন। আমি ২২ সালে কলকাতায় প্রায় প্রতিদিন ভদ্রলোকের ছোট্ট দোকান থেকে সাতটা নাগাদ লেকে এক চক্কর কাটার পর কফি খেতে যেতাম।
    তাছাড়া অবশ্য ঐ চত্বরে banana leaf আর udupi cafe তেও স্টেনলেস স্টীলের গেলাসে ঢালা ওপর করে দুধ দেওয়া সাউথ ইণ্ডিয়ান কফি সকালের দিকে পাবেন, তবে এই ভদ্রলোক অনবদ্য। 
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:359f:dfe9:2232:7838 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৯:২৩742768
  • আচ্ছা। ঐ ফিল্টার কফি খাওয়ার কায়দা হলো, গ্লাসটা একটু উঁচুতে ধরে কফিটা বাটিতে ঢালতে হবে। আবার বাটিটা একটু উঁচু করে গ্লাসে ঢালতে হবে। এরকম তিন চারবার করার পর কফিটা একটু ঠান্ডাও হবে, আবার ওপরে একটা ফ্রদি লেয়ার মতোও তৈরি হবে। তখন বাটির থেকে প্রথম চুমুক দেবেন :-)
     
    তবে এসবই হলো গরম কফি। কোল্ড কফি নিয়ে আলোচনা হবে না? সে তো আরেক চ্যাপ্টার! আইসড মাকিয়াটো, মোকা, ল্যাটে, ফ্রাপুচিনো ইত্যাদি নিয়েও আলোচনা হোক। 
     
    আর এই সবের মধ্যে সবচেয়ে সোজা বানানো হলো কোল্ড ব্রু, যেটা হারিও v60 তে খুব ভালো হয়। ফিল্টারে গ্রাউন্ডস দিয়ে গরম জল দিয়ে দি, আর তলার পাত্রে আইস কিউব দিয়ে রাখি। আর জলটা একটু কম দি, গরম কফির তুলনায়। খানিকক্ষন পর তলার পাত্রে আইসড কফি রেডি হয়ে যায়, তাতে অল্প ক্রিম দিয়ে খেতে দারুন লাগে।   
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:d23:a252:c4e:1d90 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ০৯:৪৮742769
  • কনডেন্সড মিল্ক দিয়ে কোল্ড কফি বেশ খেতে। 
  • অরিন | 119.224.61.73 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১০:১৪742770
  • @পলিটিশিয়ান, "বেশ খেতে" বললে অতি অল্প বলা হয়, :-)
    ভেবেই আমার ক্রেভিং হচ্ছে!
  • অরিন | 119.224.61.73 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১০:২০742771
  • "গ্লাসটা একটু উঁচুতে ধরে কফিটা বাটিতে ঢালতে হবে। আবার বাটিটা একটু উঁচু করে গ্লাসে ঢালতে হবে। এরকম তিন চারবার করার পর কফিটা একটু ঠান্ডাও হবে, আবার ওপরে একটা ফ্রদি লেয়ার মতোও তৈরি হবে। তখন বাটির থেকে প্রথম চুমুক দেবেন :-)"
     
    আদি অকৃত্রিম aeration! 
    এই জিনিস আপনি উত্তর ভারতে রাবড়ির দোকনে গরম দুধ খেতে চাইলে দেখবেন ঐরকম দুধের মগ নিয়ে ঢালা ওপর চলছে।
    সায়েব এর উত্তর খুঁজে পেয়েছে ফ্রদার আর aerator দিয়ে। 
    এর স্বাদই আলাদা!
  • | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১০:২৯742772
  • আমি কোল্ড কফি খুব একটা পছন্দ করি না। আর কফিতে দুধ চিনি জাতীয় ইমপিউরিটি মেশানোতে একেবারেই বিশ্বাস করি না।   তবে নলেন গুড় মানে লিক্যুইড যেটা ওইটে দিয়ে কোল্ড কফি খেতে দিব্বি খাশা লাগে। 
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:359f:dfe9:2232:7838 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১০:৩১742773
  • ঠিক, এরেশান :-)
     
    আমি কনডেন্সড মিল্ক দিয়ে খেতে পারিনা ডায়বেটিস এর জন্য, তাই ক্রিম দিয়ে খাই। তবে বাড়িতে অন্যরা কনডেন্সড মিল্ক, স্ট্রবেরি, চকো চিপ, হার্শির চকো বা ক্যারামেল সিরাপ ইত্যাদি নানান কিছু দিয়ে বানায়। 
  • :|: | 174.251.161.222 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১১:১৮742774
  • "তবে নলেন গুড় মানে লিক্যুইড যেটা ওইটে দিয়ে কোল্ড কফি খেতে দিব্বি খাশা লাগে।"
    বা: ভালো আইডিয়া তো! নির্ঘাৎ ট্রাই করবো। 
    গুরুতে শুনে মানে খুব সম্ভব ডিডি-অনুপ্রাণিত হয়ে পেঁয়াজ পোস্ত দিয়ে পিৎজা ট্রাই করেছিলুম। ভালোই লেগেছিলো। 
  • অরিন | 119.224.61.73 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১১:২১742775
  • "আর কফিতে দুধ চিনি জাতীয় ইমপিউরিটি মেশানোতে একেবারেই বিশ্বাস করি না।   "
     
    আমারও তাই, তবে কোল্ড কফির ব্যাপারটা অন্যরকম, যদিও আমার খাওয়াও হয় না। আমি সাধারণত ডাবল শট এসপ্রেসো ছাড়া কাফেতে গেলে অন্য কিছু নিই না। 
    বাড়িতে ইদানীং পোর ওভার কফিত বেজায় পছন্দ হয়েছে। 
    সে জিনিস অবশ্য আমাদের এখানকার কাফেতে পাওয়া যায় না। কাফেতে কফি পান করার স্বর্গ হচ্ছে রোম। 
  • &/ | 107.77.236.31 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১১:৪০742776
  • চিনি মেশাই না, শুধু দু'ফোঁটা  দুধ দিই। মোকা টোকা না , আইসড ও না  সিম্পল গরম কফি 
  • kk | 172.56.3.116 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ২০:০৮742778
  • আমি দুধ চিনি সিরাপ ক্রীম কিচ্ছু মেশাইনা। কিন্তু কফি সর্বদা নিজে বীনস থেকে গ্রাইন্ড করি। একটা বিশেষ লো অ্যাসিড কফিবীন আনি। নয়তো ডার্ক রোস্ট ইতালিয়ান এসপ্রেসো বীনস। হেমন্তকালে ঐ কফিবীনসের সাথেই দারচিনিও জায়ফল গুঁড়ো করি। ক্রিসমাসের সময়ে তার সাথে একটু শুকনো আদা বা কখনো কখনো কমলালেবুর খোসা শুকনো।
  • s | 100.36.114.105 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ২০:৩০742779
  • আগে চা কফির ব্যাপারে খুব পিউরিটান ছিলাম। চা মানে দুধ দেওয়া আসাম, অল্প দুধ দেওয়া দার্জিলিং আর নাহলে শান্তিনিকেতন এক্সপ্রেসের লেবু চা। আর কফি বলতে খালি দুধ দেওয়া কফি। এখন নানা দেশ ঘুরে অনেক রকম চা কফি খেয়ে খোলা মনে সব টেস্ট করি। বয়েস বাড়ার সাথে সাথে ক্যাফিন সেনসিটিভিটি বেড়েছে। তাই কফি এখন একটু বুঝে শুনে খেতে হয়। নানা রকম হার্বাল টি বেশ ভাল লাগে এখন। তবে সবথেকে ভাল লাগে আর্ল গ্রে। আর কফির জন্যে টার্কিশ কফি এবং ক্যাফে ডি ওলে। আগে ভাবতেই পারতাম না কফিতে নানারকম স্পাইস মেশানো যায়। টার্কিশ কফি খেয়ে সেই ভুল ভেঙেছে। টার্কিশ কফিতে প্রচুর এলাচের গুঁড়ো থাকে। আর মেক্সিকান ক্য্যফে ডি ওলেতে দারচিনি। ক্যাফে ডি ওলে এতই ভাল লাগে এখন বাড়িতে কফি বানিয়ে তাতে দারচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে দি।
    এমনিতে ইন্সট্যান্ট কফি খুব একটা ভাল না লাগলেও বাড়িতে রাখি যখ্ন কফি মেকার ব্যাবহার করতে ইচ্ছে করে না। এখানে মেক্সিকান সুপারমার্কেটে একটা নেসক্যাফে পাওয়া যায় যেটা কলম্বিয়ার প্রোডাক্ট। ওটা খুব ভাল।
  • dc | 2402:e280:2141:1e8:fc89:d2a5:b90:aab1 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ২৩:০২742780
  • দারচিনি মিশিয়ে আমিও খাই। শ্রীলংকান দারচিনি খুব ফাইন করে গুঁড়ো করে কফি গ্রাউন্ডসের সাথে এক চিমটে দিয়ে দিলে খুব ভালো ফ্লেভার আসে। 
     
    মেক্সিকান কাফে দে ওয়া খাইনি, তবে য়ুটুবে দেখে বেশ ইন্টারেস্টিং লাগলো। ট্রাই করে দেখবো। পিলোনসিও তো পাবোনা, তবে নাটস এন স্পাইসে কেন শুগার পাওয়া যায়, ওটা দিয়েই বানাবো। 
  • অরিন | 119.224.61.73 | ১২ এপ্রিল ২০২৪ ০০:১৪742782
  • বাহ, কফির বর্ণনাগুলো ভারি চমৎকার। কেকের মশলা মেশানো কফি বিন গ্রাইণ্ড করা  মনে ধরেছে ।
    s এর হারবাল টি আর আর্ল গ্রের কথায় dc র সেই দোকানে দার্জিলিং চায়ে লেবুপাতার তেল মিশিয়ে দারজ কে আর্ল গ্রেতে রূপান্তরিত করা মনে পড়ল।
    মেক্সিকান কফির কথায় কথায়, কাহলুয়া বা কফির লিকিওর কার কার ভাল লাগে? 
  • পাতা :
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় প্রতিক্রিয়া দিন