এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • গোবলয়ে কংগ্রেস গোভূত 

    সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায় লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ | ৮৮৪ বার পঠিত
  • গোবলয়ে বিজেপির কাছে কংগ্রেস যে হেরে ভূত হল, তার কারণ খুব সোজা। গোবলয়ে বিজেপি মস্তিষ্ক প্রক্ষালন প্রায় সম্পূর্ণ করেছে, ওসব জায়গায় বিজেপির গরম হিন্দুত্বের সঙ্গে কংগ্রেসের নরম ধর্মীয় নীতির বিশেষ তফাতও চোখে পড়েনা, ফলে স্রেফ কংগ্রেস-বনাম-বিজেপি লড়াই হলে বিজেপিই জিতবে। একমাত্র উল্টো কিছু হতে পারত, যদি বিজেপি কীভাবে দেশকে ফ্যসিবাদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিয়েছে, এবার সাড়ে-সব্বোনাশ করে ছাড়বে, এই সব্বোনাশের বিরুদ্ধে বাকিরা একসাথে লড়ছে, যেমন লড়াই হয়েছিল জরুরি অবস্থার পরে, সেরকম কিছু একটা বার্তা দিতে পারলে। কিন্তু সেটা দেওয়া যায়নি, তার কারণও সোজা, নেতারা এই কথাগুলোয় নিজেরাই বিশ্বাস করে বলে মনে হয়না, ফলে বার্তা আর কী দেবেন। জোট-ফোট তো কিছু হয়ইনি, বরং চুলোচুলি হয়েছে গুছিয়ে। আপ, সপা না বিজেপি, কে আসলে কংগ্রেসের বড় শত্রু টের পাবারই কোনো উপায় ছিলনা। ওই তো ইন্ডিয়া নামের একটা জিনিস খুলেছি, মাঝেমধ্যে ওখানে বিজেপি-বিরোধী কথা বলব, আর কার্যত করব চুলোচুলি, ভাবটা এই। এই ভাব নিয়ে কোনো বিজেপি বিরোধী বার্তা দেওয়া যায়না।

    মোদ্দা কথা হল, বিজেপি যে একটা অন্য মাত্রার ভয়ঙ্কর ব্যাপার, চরম শত্রু, এই বোধটাই রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সমানভাবে তৈরি হয়নি। ইন্ডিয়াটা জোট না পিকনিক পার্টি, এইটাই তাঁরা বুঝে উঠতে পারেননি। লোককে তো পরে বোঝাবেন। এখনও ভাবটা এই, যে, যুদ্ধ হবে কংগ্রেস-বিজেপিতে, রাহুল-মোদীতে। গরম হিন্দুত্বের বদলে নরম হিন্দিত্ব আসবে। অথচ, যুদ্ধটা আর ওইরকম নেইই। যুদ্ধটা আসলে দাঁড়িয়েছে কেন্দ্র-বনাম আঞ্চলিকে, এককেন্দ্রিক-আধা-ফ্যাসিবাদ বনাম গণতন্ত্রে। গোবলয় যে শাসন করে সেই ভারত শাসন করবে - এই মডেলটা বিজেপির। উল্টো মডেলে কোনো কোনো নায়ক-ফায়ক থাকা সম্ভবই না। যেট সম্ভব, সেটা হল যুক্তরাষ্ট্রীয় জোট। সেটা বিজেপি জানে, আঞ্চলিক দলগুলোও খানিক বুঝেছে, কারণ নাভিশ্বাস উঠছে তাদের। কিন্তু বড়দারা বোঝেননি। তাঁদের ধারণা, সেই পুরোনো মডেলে  ভারত-জোড়ো-যাত্রা করে গোবলয় উদ্ধার হবে, কংগ্রেস আবার সূর্য হয়ে উঠবে, ইত্যাদি প্রভৃতি।

    আসলে যেটা বোঝা দরকার, কংগ্রেসও একটা আঞ্চলিক দল। এবং গোবলয় আর ভারত শাসন করবেনা। এককেন্দ্রিক শাসনের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রীয় শাসনের বিরোধটাই ক্রমশ মুখ্য হতে চলেছে। বিজেপি চরম বিপদ, কারণ, বিজেপি স্পষ্টতই একটা এককেন্দ্রিক একনায়কত্বের পক্ষে। এখনই জিনিসটার ঠেলা বোঝা যাচ্ছে, ২০২৬ এ আসন পুনর্বন্টনের সময়, যদি তদ্দিন গণতন্ত্র থাকে, এই বিরোধ ফেটে বেরোবে। এই বিরোধে ইন্ডিয়া জোটের একটা প্রত্যক্ষ ভূমিকা নেবার আছে। সেটা জোট হিসেবে, কোনো নির্দিষ্ট নায়কের বা কোনো বলয়ের ল্যাজ ধরে নয়। সকলেরই একটা দায়িত্ব আছে। মুখে বলব, বিজেপিই হল চরম শত্রু, কার্যত সবাই সবার সঙ্গে চুলোচুলি করব, এ জিনিস পাবলিক খাবেনা। কারণ পাবলিকের যথেষ্ট বোধবুদ্ধি আছে। 
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • &/ | 107.77.237.114 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ০৭:৫৮526676
  • বড়দাদের দল ভেঙে কয়েক টুকরো করে মেজদা সেজদা ছোটদা করার সময় হয় নি কি ? 
  • C | 49.207.203.144 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ০৮:৫৯526678
  • "গোবলয়ে বিজেপি মস্তিষ্ক প্রক্ষালন প্রায় সম্পূর্ণ করেছে"
    .........
    "কারণ পাবলিকের যথেষ্ট বোধবুদ্ধি আছে।"

    আরে দাদা, একটু তো ভেবে চিন্তে লিখুন।
     
  • upal mukhopadhyay | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ১১:৫৩526683
  • একমত ।এটাই মোদ্দা কথা ।সার কথা ।
  • Jayanta Chatterjee | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ১২:২৭526686
  • " আজ্ঞে কত্তা, এককেন্দ্রিক হোল না রাজ্য কেন্দ্রিক হোল তাতে আমার মতো ভোটার এর কিচ্ছু এসে যায় না। আমি একটা দলকে ভোট দেবো - সে আমাকে কি দেবে ? সরাসরি আমি কি পাবো ? কোন তত্ত্ব কপচাবেন না প্লিজ - গ্রাম স্বরাজ থেকে বাম স্বরাজ সব শুনে নিয়েছি - পাড়ার মোড়ে ম্যারাপ বেঁধে অনেক জ্ঞান দিয়েছেন। তাপ্পর সবাই যে যার গুছিয়েছেন । এখন ফেলো কড়ি মাখো তেল। ভোট দেব - নোট দাও । নো জ্ঞানবাজি প্লিজ।
     
    আর ওসব ফ্যাসি কাঁসি বাজাবেন না - যখন যে দল ক্ষমতায় থাকে - তাদের লোকাল থেকে গ্লোবাল সব জায়গায় হিটলার এর বাচ্চা রা বসে থাকে। ৭৫ বছর ধরে দেখছি। আর সবার আমলে জিনিস এর দাম বাড়ে - কারোর আমলে কমতে দেখিনি। সবাই বিরোধী থাকলে "পতিবাদ" করে -  সরকারে থাকলে দাম বাড়ায়। 
     
    আর হ্যাঁ - কি যেন বলেন আপনারা - ধর্ম নিয়ে রাজনীতি। তা দাদা ৪৭ এ দেশ ভাগ টা কি নিয়ে হয়েছিলো - ধম্ম নিয়ে না জল নিয়ে ? যা নিয়ে  আপনারা কত্ত হ্যাজ নামালেন ৭৫ বছর  ধরে - কিছু হোল ? সোজা হিসেব টা বুঝি দাদা - দেশ টা ধম্ম নিয়েই ভাগ হয়েছিলো - তখন ই সবাই কে এপার ওপার করে ঝামেলা মিটিয়ে নেওয়া উচিত ছিলো। তাহলে আর কোন ঝামেলা ই থাকতো না। তা যখন আপনারা করতে দেন নি - এখন ঠ্যালা সামলান। যার উপর ঝামেলা আসছে সে বুঝুক। আমরা হিন্দু - আমাদের তো কোন ঝামেলা নেই। 
     
    আমার সোজা কথা - নোট দাও ভোট দেবো। সঙ্গে মোদী বিশ্বগুরুর ডায়ালগ ফ্রি । কি মজা - কি মজা - সার্কাস পুরো জমে যাবে........"
  • upal mukhopadhyay | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৩:২২526687
  • কী নিশ্চিন্ত ! মজা করে খাওরে গাঁজা মানসিকতা ! মহায় ভোট দিয়ে নোট পাবেন ! আব্দার আরকি !
  • অভিভূষণ মজুমদার | 117.227.87.204 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৭:১২526688
  • ধর্মীয় মৌলবাদী ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে নরম সুপ্ত ধর্মীয় মৌলবাদী রাজনীতি কোন উত্তর হতে পারে না। একরকম ভাবেই ক্রোনিক্যাপিটালিজমের বিরুদ্ধে ধনতান্ত্রিক কর্পোরেট বেসরকারীকরণ কোন উত্তর নয়। আবার এসবের সাথে নির্বাচনে কর্পোরেট পুঁজির অনুপ্রবেশ , সরকারী আমলা থেকে কয়েক লাখ নিখোঁজ ইভিএম,মতদানের পর অসুরক্ষিত ইভিএম, তথাকথিত নির্বাচন কমিশন, বিচার বিভাগের বিশেষ ভূমিকা সবের ভূমিকা নিয়ে গভীর চিন্তা জরুরী।ইডি, সিবিআই,আই এ এস, এবং আই পি এস থেকে নির্বাচন কমিশন সকলের ভূমিকা প্রশ্নের উর্দ্ধে নয়।
  • সংগৃহীত | 2405:8100:8000:5ca1::c:1d06 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৯:৫৬526691
  • বছর দুয়েক আগের কথা। মেয়েদের বিয়ের বৈধ বয়স ১৮ থেকে বাড়িয়ে ২১ করা হবে কিনা, এই নিয়ে জোরদার রাজনৈতিক বিতর্ক চলছিল দেশে। একদল বলছিলেন ভারতে বাল্যবিবাহের সমস্যা প্রবল, অল্প বয়সে মেয়েদের বিয়ে হয়ে যাচ্ছে তাই বয়স বাড়ানো হোক। আরেকদল বলছিলেন, এভাবে বিয়ের বয়স বাড়িয়ে দিলে সর্বনাশ হয়ে যাবে, এগুলো বিদ্বেষমূলক পদক্ষেপ, একটি সম্প্রদায়কে বিশেষ ভাবে টার্গেট করা হচ্ছে, জনসংখ্যা কমিয়ে দেওয়ার চক্রান্ত হচ্ছে, দরকারে ছেলেদের বিয়ের বয়স কমিয়ে দেওয়া হোক।
    এই অব্দি ঠিক আছে। এরকম সামাজিক ইস্যু নিয়ে ডিবেট পৃথিবীর নানাপ্রান্তে নানা দেশে হয়েছে, এদেশেও অতীতে হয়েছে সর্দা অ্যাক্টের আমলে। প্রতিবেশী দেশেও কিছুদিন আগে 'আর্লি ম্যারেজ মুভমেন্ট' হচ্ছিল, কারণ মধ্যযুগে কেউ একজন অল্পবয়সে বিয়ে করতেন, তাই উহা ধর্মসম্মত। ক্যাথলিক গরিষ্ঠ দেশগুলোতেও খুঁজলে এরকম উদাহরণ পাওয়া যেতে পারে।
    খালি একটা ছোট্ট ব্যাপার। পৃথিবীর প্রচলিত ট্রেন্ডের একশো আশি ডিগ্রি বিপরীতে দাঁড়িয়ে এখানে ডানপন্থীরা চাইছিলেন বিয়ের বয়স বাড়াতে, আর বামপন্থীরা চাইছিলেন বিয়ের বয়স কমাতে।
    তথাকথিত শ্রীশ্রীনিরপেক্ষ প্রগতিশীলরা যখন একটি সম্প্রদায়ের সমস্তকিছুকে ডিফেন্ড করতে এবং আরেকটি সম্প্রদায়ের সমস্তকিছুকে কনডেম করতে জান লড়িয়ে দেন, তখন যে ক্ষোভটা তৈরি হয় সেটা ছাইচাপা আগুনের মত। আজকের ভোটের ফলাফলের পিছনে এই ঘটনা এবং এইরকম আরও অজস্র ঘটনার ভূমিকা নেহাত কম নয়।
  • তাইলে | 117.194.78.105 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ২০:৪৫526693
  • কর্ণাটকে ন্যাজে গোবরে হাল্লো  কেন ? 
  • G | 49.207.203.144 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ২১:২৪526694
  • কর্নাটকে ঐ EVMর কারচুপি কাজ করে নি।

    সবাই জানে।
  • Stalin | 2405:8100:8000:5ca1::11a:e882 | ০৪ ডিসেম্বর ২০২৩ ২২:৪৮526697
  • সনাতন ধর্ম না EVM কোনটাকে আগে ধ্বংস করব? জাস্ট নেম ইট।
  • hijibijbij | 14.139.225.227 | ১২ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৫:৩১526887
  • একদল অমেরুদণ্ডী প্যানপ্যানে পচ্ছিমবঙ্গবাসী কী ভাবলো তাতে দেশের কিস্সু যায় আসে না। টাকা আর মাসল এই দুয়ের একটির ও জোর না থাকলে শুধু সমালোচনা করে কোনো আইডিয়ার ইমপ্লিমেন্টটেশন সম্ভব নয়। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে মতামত দিন