এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • জীবনানন্দ দাশ

    প্রিয়তমাসু লেখকের গ্রাহক হোন
    ৩০ আগস্ট ২০২৩ | ১৩০৯ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • সে সময়টা আমি বেলজিয়ামের একটা হোটেলে ছিলাম। স্টেশনের পাশে হোটেল, হোটেলের পাশে বিরাট লেক, বাজার। লেকে হাঁস চরে, বাংলা দেশের মতই। বাজারে সব কিছুই দূর্মূল্য। আগের দিন রাতে খেতে গিয়ে মাফলারটা ফেলে এসেছি, এদিকে এখানে দুপুর রোদেও আমার ঠান্ডা ঠান্ডা লাগে। রাস্তার ধারে খুব সাজানো পোষাকের দোকানে ঢুকে একটা স্কার্ফ দর করে দেখি ১০ ইউরো, মানে তখন ৮০০ টাকার মত। কিপ্টেমি করে সেটা আমার আর কেনা হয়ে ওঠে না। অগত্যা সন্ধ্যা সন্ধ্যা ডিনার করে হোটেলের রুমে ঢুকে বসে আছি, ল্যাপটপ খুলে বাংলা গল্প উপন্যাসে মন বসাবার চেষ্টা করছি, তো সেইদিন আমার জীবন বাবুর লেখা খুব ভাল লেগে গেল .. " মৃত্যূর আগে কী বুঝিতে চাই আর ? জানি না কি আহা সব রাঙা কামনার শিয়রে এসে জাগে ধূসর মৃত্যূর মুখ ... " ইত্যাদি। আগে কি আর পড়িনি ? "বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি তাই " ক্লাস সেভেন না এইটে টেক্সট বইতেই ছিল (আমার মুখস্থও ছিল)। এইটই সম্ভবত। আরও এদিক ওদিক পড়েছি, কিন্তু কোনোদিন খুব নিজের বলে মনে হয় নি। হোটেলের সেই রুমে খুব একাকীত্ব ছিল, অসহায় একরকম বাস্তবতার মুখে বসেছিলাম বলেই হয়ত জীবনানন্দ দাশের লেখা ভাল লেগেছিল। ওই লেখা থেকেই থেকে ধার করেছিলাম নিজের মত করে জীবনকে ভেবে দেখার বেপরোয়া সাহস খানিকটা।

    বাংলা সাহিত্যে আরো অনেকের লেখা পড়েছি, জীবনানন্দের গোত্রে তাঁরা কেউই পড়েন না। তাঁদের অনেকে খুব স্মার্ট লেখেন (সন্দীপনের ভাষায়), কিন্তু স্মার্ট হওয়া আন্তরিকতার বিকল্প নয়। রবীন্দ্রনাথের লেখার ক্ষমতা অতি-ইর্ষনীয়, কিন্তু রবীন্দ্রনাথ বড় বেশী কনফিডেন্ট। জীবনের যাত্রায় ক্লান্তিকর, "অর্থ নয়, কীর্তি নয়, সচ্ছলতা নয় আরো-এক বিপন্ন বিস্ময়" টাইপের দূর্বোধ্য কিছু যে থাকতে পারে, যা ব্যাখা না করে স্রেফ বলে চলে যেতে পারেন কেউ, এটা, রবীন্দ্রনাথের লেখার ধরনের সঙ্গে এই অসম্পূর্ণতা একেবারেই যায় না। রবীন্দ্রনাথ আস্তিক, দর্শনের গভীরতা দিয়ে জীবন ব্যাখা করার প্রবনতা তাঁর মধ্যে পুরোমাত্রায়। এইখানে এসে জীবনানন্দের প্রচন্ড সর্বব্যাপী একাকীত্ব, কিছদূর দিশেহারা বিতৃষ্ণ  আত্মঘাতী জীবনবোধ, দার্শনিকতার অসম্পূর্ণতা স্বীকার ও মঙ্গলময় কোনো পরম অস্তিত্বের প্রতি ভরসার অভাব.... অনেক বেশী নিজের মনে হয়।
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • প্রিয়তমাসু | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৩:৪৩523161
  • হাতির সুখ দুঃখ মাহুতের থেকে বেশী বোঝেন কোলকাতার ডকুমেন্টারীর দর্শক, এমনটাও বিশ্বাস করা কঠিন ৷ ডকুমেন্টারী জিনিসটার মধ্যে এমনিতেই "বোদ্ধারা-বুঝিবেন" মার্কা ব্যাপার আছে ৷ জীবনানন্দের কবিতা আর যাই হোক ডকুমেন্টারী নয় ৷

    মানুষের রুচির ওপর ছোটবেলার পরিবেশের একটা স্থায়ী ছাপ থাকে বলেই আমার মনে হয় । আমার বন্ধুদের মধ্যে কারো খুব প্রিয় কল্পনার জায়গা কলকাতার গলি, শহরের রাস্তায় রাস্তায় যখন আলো জ্বলে ওঠে সেইসময়ের ব্যস্ত রাস্তা আবার কারো কল্পনা করতে ভাল লাগে দিগন্ত বিস্তৃত মাঠের ওপরে কুয়াশার ধীরে ধীরে নেমে আসে, মোরামের রাস্তার পাশে মেঠো খাল, আকন্দ ফুলের গাছ, শিশির জমেছে ফুলের কুঁড়িতে ।

      "ছাতার মতন বড় পাতাটির নীচে বসে আছে ভোরের দোয়েল পাখী, চারিদিকে চেয়ে দেখি পল্লবের স্তপ" গ্রামের গাছগাছালীর পাখপাখালীর সঙ্গে শহুরে কারো যে অপিরিচিতি, কবিতা পড়ার সময় সেটার  খানিকটা হয়ত কল্পনাশক্তি দিয়ে পুরিয়ে দেওয়া যায়, পুরোটা যায় কি?
  • &/ | 151.141.85.8 | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৩:৫৮523162
  • "জাম-বট-কাঠালের-হিজলের-অশথের করে আছে চুপ;
    ফণীমনসার ঝোপে শটিবনে তাহাদের ছায়া পড়িয়াছে;
    মধুকর ডিঙা থেকে না জানি সে কবে চাঁদ চম্পার কাছে
    এমনই হিজল-বট-তমালের নীল ছায়া বাংলার অপরূপ রূপ
    দেখেছিল; বেহুলাও একদিন গাংঙুরের জলে ভেলা নিয়ে-
    কৃষ্ণা দ্বাদশীর জোছনা যখন মরিয়া গেছে নদীর চড়ায়-
    সোনালি ধানের পাশে অসংখ্য অশ্বত্থ বট দেখেছিল, হায়,
    শ্যামার নরম গান শুনেছিল- একদিন অমরায় গিয়ে
    ছিন্ন খঞ্জনার মতো যখন সে নেচেছিল ইন্দ্রের সভায়
    বাংলার নদী মাঠ ভাঁটফুল ঘুঙুরের মতো তার কেঁদেছিল পায়।"

    ---রূপসী বাংলার কবিতাগুলোতে বাংলার নদীমাঠভাঁটফুল জড়ানো তো বটেই, সঙ্গে মঙ্গলকাব্য ভুইঁয়া রায়রায়ান ইত্যাদি প্রভৃতি লোককথা ইতিহাস টিতিহাস জড়িয়ে একাকার।
  • &/ | 151.141.85.8 | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৪:১২523163
  • আমি গ্রাম আর মফস্বলের মানুষ, মাঠ, ধানক্ষেত, ছোটো বড়ো পুকুর, নদী এইসব দেখেছি তো বটেই, বট অশ্বত্থও দেখেছি। তবে হিজলগাছ আর তমালগাছ দেখিনি। তালগাছ দেখেছি, ভাঁটফুলও বিস্তর দেখেছি। শ্যামা দেখিনি। দোয়েল দেখেছি। এইরকম আর কি। যা দেখেছি আর যা দেখিনি সব জোড়াতাড়া দিয়ে জীবনানন্দের লেখা ভালোবাসি। মুথাঘাস, মধুকূপী ঘাস এইসব কিছুই দেখিনি। তবে সাধারণ ঘাস, দুর্বাঘাস এইসব দেখেছি তো বটেই। :-)
  • dc | 2401:4900:1f2a:746:80e7:b5b6:cef6:6a9e | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৭:৪৯523166
  • আমার কল্পনা করতে ভালো লাগে বারোটা রাবড়ির হাঁড়ি রাখা আছে আর আমি হাঁড়িগুলো একে একে চেটেপুটে সাফ করছি। এক দিস্তা লুচিও আছে, মুখ মেরে গেলে কয়েকটা লুচি খেয়ে নিচ্ছি। আমার কিনা ডায়বেটিস, তাই এসব কল্পনাতেই খেতে হয়। কিন্তু হায়, জীবুদা লুচি রাবড়ির কথা লিখে যাননি, তাই ওনার লেখা পড়তে পারি না। 
  • &/ | 151.141.85.8 | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:১০523168
  • লুচি রাবড়ি শিব্রামের পেটেন্ট। ঃ-)
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:8113:b842:7f0a:2dfa | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:১২523169
  • সন্দেশ রাবড়ি আর দইয়ের হাঁড়িরা পড়ে আছে খোলা
    বে'বাড়ীর কোনা খামচিতে ম ম করে তাঁহাদের ঘ্রাণ।
    শুঁড় তোলা মাছিদের ভনভন, ছানার জলের রং ফ্যাকাসে সবুজ 
    লেবু নয়, কেমিক্যাল অ্যাসিডেতে কাটা।
  • dc | 2401:4900:1f2a:746:80e7:b5b6:cef6:6a9e | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:২৪523170
  • ওহো, সন্দেশ আর রাবড়ি, আর তার সাথে দইএর হাঁড়ি? তাহলে তো পড়ে দেখতে হচ্ছে! laugh
  • প্রিয়তমাসু | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:৩৫523172
  • “কেন পটকায় আগুন দিচ্ছিলে?” দাশু ভয় পাইবার ছেলেই নয়, সে রামপদকে দেখাইয়া বলিল, “ও কেন আমায় মিহিদানা দিতে চাচ্ছিল না?” এরূপ অদ্ভুত যুক্তি শুনিয়া রামপদ বলিল, “আমার মিহিদানা আমি যা ইচ্ছা তাই করব।” দাশু তৎক্ষণাৎ বলিয়া উঠিল, “তা হলে, আমার পটকা, আমিও যা ইচ্ছা তাই করব।”
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:8113:b842:7f0a:2dfa | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৯:১৬523174
  • বাংলার পাউচ আজ খুলিয়াছি, তাই আমি রাবড়ির হাঁড়ি খুলিতে চাইনা আজ
  • dc | 2401:4900:1f2a:746:80e7:b5b6:cef6:6a9e | ০২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৯:১৮523175
  • laugh
  • পাতা :
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। আলোচনা করতে প্রতিক্রিয়া দিন