এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  ব্লগ

  • করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গ, আর আমরা...

    Debrishi Chandroneev Brahma লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ২৯৭৩ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • এখন যা পরিস্থিতি, তাতে একটাই মন্দের ভাল - বহু মানুষ অসুস্থ হয়ে বাড়িতে আইসোলেশনে থাকতে পারছেন। একবার ভাবুন কি অবস্থা হতো যদি তাদের সবার হাসপাতালে ভর্তি হতে লাগত। আমি দেখছি সোশ্যাল মিডিয়ায় লোকজন দাবি করছে "পজিটিভ" খবর ছড়াতে, সরকারকে দোষ না দিতে। মানসিক স্বাস্থ্য এমনিতেই এখন দুর্বল।
    বেশ, মেনে নিলাম।
    কিন্তু, এর পরে আমাদেরকেই কিছু কাজ করতে হবে।
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন যখন স্বাস্থ্য এক্টিভিস্টরা সরকারকে দায়িত্বশীল হতে বলেন, সরকারের একাউন্টেবিলিটি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। সেটাকে প্রোপাগান্ডা বলে বাতিল না করে বক্তব্যের সারবত্তা অনুযায়ী বিচার করবেন।
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন যখন ডাক্তার, নার্স, বা হাসপাতালের কর্মীদের পিটিয়ে মারেন আপনারা। এখন কিন্তু তারাই ফ্রন্টলাইনে হাসপাতালের বেডের পাশে রয়েছেন, এবং তারাই মারা যাচ্ছেন, আপনাদের খেয়াল রাখতে গিয়ে। ঐ যে সিয়াচেনের জওয়ান বর্ডারে দাঁড়িয়ে আছেন, ঐরকমই অতন্দ্র প্রহরা।
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন যখন তারা তাদের সমস্যার কথা বলেন। পরিকাঠামোর সমস্যা, কাজের পরিবেশের সমস্যা, অপ্রতুল যোগান এগুলো নিয়ে যখন তারা কথা বলেন, তখন শুনবেন, তাদের দোষ দিলে সমস্যাটা কিন্তু ছোট হয়ে যায় না, বরং এরকম সময়গুলোর জন্য প্রস্তুতি থাকে না।
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন আমরা বলি যে স্বাস্থ্য রাজনৈতিক সদিচ্ছার ফলে তৈরি হয়। যদি সরকার কেবল টার্শারি হাসপাতাল বানায় কম্যুনিটি কেয়ার-এর কথা মাথায় না রেখে, যদি স্বাস্থ্য বাজেটে কম বরাদ্দ হয়, তাহলে এরকম দিন আবার হয়ত দেখতে হতে পারে।
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন যেখানে ফ্রন্টলাইন কর্মীদের বারবার তাদের জীবন হাতে করে কাজ করতে হয়, আর আমরা সুযোগ পেলেই নিয়ম ভাঙার উৎসব পালন করি। চিকিৎসা-কর্মী, এম্বুলেন্স ড্রাইভার, সাফাই-কর্মী, পুলিশ, সরকারি পরিবহন-কর্মী, সাপ্লাই চেন কর্মী, ওষুধের দোকান চালান যারা, যে বিজ্ঞানীরা ল্যাবে করোনার নিরাময় বা ভ্যাক্সিন বানাচ্ছেন, চাষী যারা অন্নের যোগান দিচ্ছেন - এরকম আরো কত মানুষ আছেন, যাদের কাজ দামী, কিন্তু মৃত্যু মূল্যহীন - কেবল মাত্র একটা স্ট্যাটিস্টিক হয়ে যাচ্ছেন মহামারীর আগ্রাসনে। এদের অনেকেই কিন্তু প্রাপ্য মজুরিটুকু সময় মতো পান না।
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন যখন কোনো সোশ্যাল মিডিয়া ইনফ্লুয়েন্সারকে নিয়ে ঠাট্টা করে তার কাজকে খেলো করেন। মনে রাখবেন, যখন সরকারের থেকে কোনো সাহায্য পাওয়া যাচ্ছে না, তথ্যের জন্য টুইটার ইন্সটাগ্রাম ফেসবুকে হাহাকার চলছে, এই ইনফ্লুয়েন্সাররাই সামনে এসে দিন রাত ধরে তথ্যে দিয়ে চলেছেন, ভলান্টিয়ার করছেন অথেন্টিক তথ্য ভেরিফিকেশনের জন্য। যা রাষ্ট্রের করার কথা তা নাগরিক একক এবং দলবদ্ধ ভাবে করেছেন স্বার্থহীন ভাবে।
    আমাদের দেশে এখন তিনটে ভাগ করা যায় - সরকার সমর্থক, সরকার বিরোধী, আর যাদের কিছুতেই কিছু এসে যায় না। সমস্যা হচ্ছে যে এই সমর্থন বনাম বিরোধীতা বাইনারিতে আমরা এটা ভুলেই যাই যে সরকার পরিষেবা প্রদানকারীও বটে, আবার পরিষেবা রেগুলেশন কারীও বটে। এই পরিষেবাগুলো যে সরকারের দেওয়া দায়িত্ব এবং সেক্ষেত্রে একাউন্টেবিলিটি যে আমাদেরকেই দাবি করতে হয়, সেটা আমরা একদম ভুলে মেরে দিই। আর যদি আপনি বাসারকারই হলা পারিষাবা ভাল হবা - দলে পড়েন, তাহলে আপনিও কিন্তু সমস্যার অংশ। সরকারী পরিষেবা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তখনই দেবে যখন সেটা লাভজনক। কিন্তু জীবনদায়ী পরিষেবায় লাভ করতে গেলে রেমডিসিভির ১ লাখ টাকায় বিক্রি হবে, অক্সিজেন সিলিন্ডার তিনিই পাবেন যিনি সর্বোচ্চ দাম দিতে পারেন। এই পরিস্থিতিটা কি আপনি চাইবেন? মনে রাখবেন যে এগুলো কিন্তু একবারের খরচ নয়, বারবার লাগতে পারে। আপনার সামর্থ্য থাকতে পারে, আপনার পাশের বাড়ির বা আপনার আত্মীয়দের মধ্যে সবার আছে সে সামর্থ্য?
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন যখন আপনি ঝা চকচকে কর্পোরেট হাসপাতালে যান চিকিৎসা নিতে। যতক্ষন আপনার ইন্স্যুরেন্স কম্পানী সাপোর্ট দিচ্ছে, ততক্ষন পারবেন। তারপর নিজের ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স আর এসেট ভরসা। সেগুলো শেষ হয়ে ঘটি বাটি বিক্রি করে কিটো বা মিলাপে ফান্ডরেইজার করেও না কুলোলে কিন্তু শেষমেশ সেই সরকারি ব্যবস্থাতেই চিকিৎসা নিতে হবে। সরকারি স্বাস্থ্য ব্যবস্থা দুর্বল হলে কিন্তু আমাদেরই সমস্যা - প্রাইভেট চিকিৎসা ব্যবস্থা সেখানে সাপোর্ট দেবে, কিন্তু এই মেরুদন্ডটা ভেঙে গেলে আমাদেরই ক্ষতি।
    এই অবস্থাটা মনে রাখবেন যখন কেবল মাত্র সঠিক সরকারী নীতিই আপনাকে মৃত্যুর থেকে বাঁচাতে পারবে। আপনি যদি ভুল নীতি সমর্থন করেন, তার পরিণামে আপনার হাসপাতাল বেড, অক্সিজেন, রেমডিসিভির, টসিলিজুমাব, এম্বুলেন্স এগুলো অমিল হবে। ইকোনমিক্সে অপর্চুনিটি কস্ট বলে যে কথাটা আছে, একদম সেইটা। এর একমাত্র সমাধান হচ্ছে সরকারি স্বাস্থ্যক্ষেত্রে বরাদ্দ বাড়াতে দাবি করা। পরিকাঠামোর উন্নয়ন করা - আর সেটা কেবল সুপারস্পেশালিটি হাসপাতাল বানালেই বা এইমস বানাতে চাইলেই হয় না। প্রাথমিক স্বাস্থ্যব্যবস্থার উন্নতি দরকার৷ সরকারি নেতা মন্ত্রীদের সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়া দরকার। কলকাতার সরকারি হাসপাতাল ব্যবস্থার উপর যে বিপুল চাপ, সেটা কমানো দরকার। দক্ষিণ ভারতে যে বিপুল পরিমান মানুষ চিকিৎসা করাতে যান, তার কারণ কি, সে ব্যাপারে ভাবা দরকার। দরকার রাজনৈতিক সদিচ্ছার।
    এই পরিস্থিতিটা মনে রাখবেন, যেখানে মৃতপ্রায় মানুষের থেকে অক্সিজেন ছিনিয়ে নিতে। তাও এমন একটা পরিস্থিতি যেখানে অনেকেই বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন। ভাবুন, এমন একটা প্যান্ডেমিক যদি হত যেখানে রোগীমাত্রেই হাসপাতালে ভর্তি করতে হতো। প্যান্ডেমিক হয়ত ভবিষ্যতেও হবে। কিন্তু আমরা আজ কি করছি, তার উপর নির্ভর করছে আগামী করোনাতরঙ্গ বা আগামী প্যান্ডেমিক কিভাবে কাটবে।


    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • ব্লগ | ২৩ এপ্রিল ২০২১ | ২৯৭৩ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Abhijit | 103.21.127.60 | ২৩ এপ্রিল ২০২১ ২০:১৩105064
  • খুব জরুরি লেখা। ধন্যবাদ চন্দ্রানীভ 

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। সুচিন্তিত মতামত দিন