এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • শেয়ার নিয়ে কি করিতে হইবে না!

    swarnab ghosh লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৯ মে ২০২৪ | ১৫৯ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • আজকাল প্রচুর ছেলেমেয়ে প্রথম চাকরি পেয়ে হাতে কিছু টাকা আসতেই একটা শেয়ার ট্রেডিং একাউন্ট খুলে ফেলে। মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে সহজেই খুলে ফেলা যায়, তারপর এদিক ওদিক থেকে টিপ্সের সাহায্যে শেয়ার ট্রেডিং করে। বুল মার্কেট থাকলে টুকটাক প্রফিটও হয়ে যায়, কিন্তু মজার ব্যাপার হল শেয়ার বাজারে প্রচুর ট্যাক্স! ওই দশ কুড়ি পঞ্চাশ হাজার দিয়ে ট্রেডিং করলে কাজের কাজ কিছু হয়না। এমনি কেনাবেচার ওপর ট্যাক্স, দিনের দিন কিনে বেচলে আলাদা ট্যাক্স, প্রফিট হলে তার ওপর ট্যাক্স। তো যাও বা প্রফিট হয়, আফটার ট্যাক্স প্রফিট প্রায় কিছুই হয়না। কিন্তু তবু তাতে কারোর কিছু যায় আসেনা। এটা একটা নেশার মত হয়ে দাঁড়ায়। অফিসেও আমি দেখেছি মিটিংয়ের ফাঁকে টুক করে একটু দেখে নিল কি দর যাচ্ছে! এই সর্বনেশে খেলাটা ব্যাপক হারে শুরু হয়েছে প্যান্ডেমিকের পর থেকে। ২০২০ মার্চের শেয়ার বাজার ধ্বসকে কাজে লাগিয়ে অনেক ব্যবসায়ী এমন এমন শেয়ার এত কম দামে কিনে ফেলে যে মাসখানেকের মধ্যে বাজার রিকভার করতেই সেগুলোর ওপর প্রফিট হয়ে যায়। এগুলো ফেসবুক ইউটিউবের মাধ্যমে এত প্রচারিত হয়, যে লোকের ধারণা হয়ে যায় যে শেয়ার বাজারে টাকা ঢাললেই লাভ। ফিনফ্লুয়েনসার নামে একটা গোষ্ঠী তৈরি হয়।  নিজেরা অন্যান্য ব্যবসা বা অত্যন্ত হাই পেয়িং কর্পোরেট চাকরি করে  প্রচুর টাকা কামিয়ে লোককে জ্ঞান দেওয়া আরম্ভ করে, কি করে তিরিশ, চল্লিশ, পঞ্চাশ হাজার মাইনের চাকরি করে একদিন কোটিপতি হতে পারবে! তাদের ভিডিওর ভিউজ দেখলেই বোঝা যায় ভারতবর্ষের herd mentality জনতা তাদের কতটা সিরিয়াসলি নেয়। তাই নতুন চাকরি পাওয়া ছেলেমেয়েরা ইন্স্যুরেন্স না কিনে, কোনো ইনভেস্টমেন্ট গোল ঠিক না করে, জীবনে কি করবে সেটাই ঠিক না করে, চটজলদি শেয়ার বাজারে খাতা খুলে ফেলছে। আমাদের চাকরিজীবনের শুরুর দিকে আমরা ইকুইটি মার্কেটকে একটু ভয়ই পেতাম। আমার অবশ্য কোনোদিনই টাকাপয়সা সেরম ছিল না, তাই জানতুমই না কিভাবে কি জমাতে হয় বা ইনভেস্ট করতে হয়! কিন্তু অন্যদের মুখে শুনতাম, এফডি, পিপিএফ, এলাইসি এসবই চলত। তখন সবে মিউচুয়াল ফান্ড গুটি গুটি যাত্রা শুরু করেছে, সেটাও অনেকে ভয়ে ভয়ে সমঝে চলত। তখন লোকে একদমই বিনিয়োগের ঝুঁকি নিতনা, আর এখন আবার উলটো, এত সহজে রিস্ক নিয়ে ফেলে যে বুঝতেও পারেনা কি ক্ষতি হচ্ছে! 
    তো এত কথা বলার উদ্দেশ্য একটাই, লক্ষ্মীর সাধনা করা ভাল, কিন্তু তার একটা নির্দিষ্ট পদ্ধতি আছে। শেয়ার বাজারে ফাটকা খেলার একটা অন্যতম আকর্ষণ হল, যা খুশি করা যায়। কেউ বলার নেই কখন কোন শেয়ার কিনব, কখন বেচব, পুরোটাই নিজের ইচ্ছায়! এই যা-ইচ্ছে-তাই করার স্বাধীনতা শেয়ার বাজার দেয় বলেই এর অমোঘ আকর্ষণ। এখনকার প্রজন্মের দৈনন্দিন জীবন তাদের চারদিক থেকে এত রকম ভাবে চেপে ধরে বলেই একটু নিজের শর্তে বাঁচার মাধ্যম হয়ে দাঁড়ায় শেয়ার। আমার মনে হয় জীবনে অন্যরকম আনন্দ খোঁজার চেষ্টা করলে, নতুন কিছু শেখার চেষ্টা করলে, ক্রিয়েটিভ কিছুতে মনোযোগ দিলে এই শেয়ারের নেশা কেটে যাবে। আর সত্যি শেয়ার থেকে লাভ করতে হলে কমপক্ষে দশ থেকে পনেরো বছরের টাইমফ্রেম নিয়ে নামতে হবে, শর্টকাট কিছু নেই। 
    যাই হোক, আমার টেড টক শোনার জন্য ধন্যবাদ!
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। দ্বিধা না করে মতামত দিন