এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • ইঞ্চিজি জিন্দাবাদ 

    Eman Bhasha লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ২৫৯ বার পঠিত
  • ইঞ্চিজি জিন্দাবাদ 

    সংসদে প্রণাম করেছিলেন। সংসদ ভবন তালাবন্ধ।
    পেটিএম নোটবন্দির পরদিন তাঁর ছবি দিয়ে। মার্চ থেকে পেটিএম পেমেন্টস ব্যাঙ্ক বন্ধ।
    নোটবন্দির সুফল না পেলে ৫০ দিন পর জ্বালিয়ে দেবেন বলেছিলেন। দেশ জ্বলছে। 
    ক্ষমতায় আসার একমাসের মধ্যে ২৫% করে জিনিসের দাম কমাবেন বলেছিলেন। জিনিসপত্রের দাম ৩০০-৫০০% বেড়েছে।
    বছরে ২কোটি করে চাকরির কথা বলেছিলেন।
    ১৪ কোটির চাকরি চলে গেছে। বিএসএনএলে এক লাখ ৯৭ হাজারের চাকরি গেছে। দুই লাখ সৈন্যর কাজ গেছে। সেনাবাহিনীতেও চাকরি নেই। চার বছরের চুক্তি কাজ। ব্যাঙ্ক ২৭টি থেকে কমে ১২টি।‌এটি ৫ টি হবে। ব্যাঙ্কে নিয়োগ বন্ধ। রেলের ১১ লাখ পদ শূন্য।
    সাড়ে তিন লাখকে অবসর দেওয়া হয়েছে।
    কেন্দ্রীয় সরকারের সাত লাখ পদ শূন্য।
    জীবনবিমার অবস্থা খারাপ। নতুন নিয়োগ নেই। জনগণের লাখ লাখ কোটি টাকা আদানিকে বাঁচাতে দেওয়া হয়েছে।
    বেসরকারি ইয়েস ব্যাঙ্ক বাঁচাতে সরকারি ব্যাঙ্কে রাখা জনগণের টাকা দেওয়া হয়েছে।
    ১৫ লাখ কোটি টাকার ব্যাঙ্ক ঋণ মকুব করা হয়েছে আদানি আম্বানিদের।
    স্বল্পসঞ্চয়ে রেকর্ড সুদ কমেছে।
    গৃহঋণে প্রচুর সুদ গুণতে হচ্ছে ক্রেতাদের।

    আদানি আম্বানিদের পোয়াবারো। সব্জি মাছ মাংস ডিম দুধ চাল ডালের বাজারে আদানি আম্বানি ঢোকার পর সব জিনিসপত্রের দাম ৩০০% থেকে ৫০০% বেড়েছে।

    উদাহরণ আটা। ১৮ টাকা থেকে বেড়ে ৪৫ টাকা।
    সরষের তেল ৪৫-৪৮ টাকা থেকে বেড়ে ১৭০-২২০ টাকা।
    তিল ২০ টাকা কেজি থেকে ৩০০ টাকা।
    সরষে আটটাকা কেজি থেকে ৮০ টাকা।
    চাষি কিন্তু দাম পাচ্ছেন না।
    চাষি টমেটো বেচছেন ৫০ পয়সা থেকে দুটাকা কেজিতে। বাজারে ৩০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত কেজি বিক্রি হচ্ছে।
    রসুন ৫০ টাকায় ১০০ গ্রাম। এক কেজির দাম ৫০০ টাকা।
    আগে কোলে মার্কেটে এক কেজি রসুনের দাম ছিল ৪৫-৫০ টাকা।
    ফড়েরা দু থেকে পাঁচটাকা দাম বাড়াত। ফড়েদের বিরুদ্ধে বলে আদানি আম্বানি লুঠেরারাজ কায়েম করেছে। গদি মোডিয়া চুপ।
    সব ওদের কেনা অথবা পয়সায় চলছে।
    ওষুধ কেনা কঠিন হয়েছে। ওষুধের দাম ২০০-৩০০% বেড়েছে।
    সবকিছুতেই জিএসটি। অথচ পেট্রল ডিজেলে জিএসটি নাই। ২৬ টাকা মূল্যের পেট্রল ১০৬ টাকায় বেচছে।
    পেট্রল ৪০ টাকা লিটার দেবে বলেছিল।
    ডলারের দাম এখন ৮৩ টাকা। তিনি আসার আগে ছিল ৬৩ টাকা।
    তিনি ক্ষমতায় আসার পর পাঁচটি সেনানিবাসে হামলা হয়েছে।
    পুলওয়ামায় ৪২ জন জওয়ান মারা গেছেন। কোনও তদন্ত কমিশন বসানো হয়নি।
    সেনাবাহিনীতে এক পদ এক পেনশন দেবে বলেছিল।
    দেয়নি। অবসরপ্রাপ্ত সেনা সবার সামনে আত্মহত্যা করেছেন।
    সেনাবাহিনী সহ সব সরকারি দপ্তরে পেনশন তুলে দিয়েছে ২০০৪ থেকে।
    গুজরাট মধ্যপ্রদেশে সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে বেতন নিয়ে প্রবল বিক্ষোভ।
    গুজরাটে গত ২২ বছর বিদ্যালয় মহাবিদ্যালয়ে শূন্য পদে স্থায়ী শিক্ষক অধ্যাপক নিয়োগ হয়নি। সব কমপয়সায় দলীয় ক্যাডার নিয়োগ। চুক্তিতে।

    কেন্দ্রীয় সরকারের প্রায় দু লাখ টাকা বেতনের যুগ্মসচিব পদে ৬৪ জন নিজের লোককে নিয়োগ করা হয়েছে। সরকারি চাকরির পরীক্ষা ছাড়াই।

    বলেছিলেন, চাকরিতে দুর্নীতি মানবো না।

    এইসব ঢাকতে হিন্দু মুসলমান মন্দির মসজিদ কাশ্মীর পাকিস্তান নিয়ে বিদ্বেষ বিভাজন ও বিস্ফোরণের রাজনীতি চালাচ্ছে।
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • /ঘ | 2401:4900:7089:f0b0:dfe:82be:f57b:77e9 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ১৮:০৫530474
  • corruptmodi.com দেখুন 
  • বিষম অসাম্য | 2401:4900:38ce:5f51:4c03:d5ff:fea3:6ce9 | ১১ এপ্রিল ২০২৪ ২৩:০২530479
  • খুব জরুরি লেখা, ছড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন।
    এই কথাগুলি মিডিয়ায় তো তেমন আসছেনা, এই কিছু ছুটকোছাটকা ছাড়া।
     
    Even during the COVID-19 pandemic, when everything came to a standstill and people had neither work nor money, the rich kept getting richer while their profits skyrocketed. The country’s billionaires increased their wealth by 35% during the lockdown. Mukesh Ambani earned Rs 90 crore per hour while 24% of the country was earning just Rs 3,000 per month.
    The country’s middle class shrank, while poverty spread its clasps.
     
  • Eman Bhasha | ১২ এপ্রিল ২০২৪ ০৮:১৯530500
  • অনেক ধন্যবাদ 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। মন শক্ত করে মতামত দিন