এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • বিজেপির ‘সামাজিক রক্ষণশীলতা’ বাঙালির সইবে তো?

    Partha Sarathi Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ০২ জানুয়ারি ২০২৪ | ৪২৯ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)
  • বিজেপির বাংলা ব্লগ থেকে দেখলাম, এই দল খোলাখুলি নিজেকে ‘একটি দক্ষিণপন্থী রাজনৈতিক দল’ বলে ঘোষণা করেছে, যে দল ‘সামাজিক রক্ষণশীলতার প্রবক্তা’। ‘সামাজিক রক্ষণশীলতা’ বলতে এই দল ঠিক কী বোঝে তা পরিষ্কার হল আরএসএস-এর ওয়েবসাইটে ‘ভিসন এণ্ড মিশন’ থেকে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘বর্ণ, শ্রেণী ও বহু ভাষাভাষী মানুষে বিভক্ত এই সমাজে সমাজ-কর্মীদের মহত্তম কর্তব্য হল এই সামাজিক বুননকে অটুট রাখা’। সংঘ পরিবারের পন্ডিত দীন দয়াল উপাধ্যায়ের ‘একাত্ম মানবতাবাদ’ বইতে লেখা আছে, ‘আমরা এক জাতি এক সমাজ। এইজন্য আমরা ভাষা, প্রদেশ, বর্ণ, মতবাদ বা তথাকথিত রিলিজিয়নের ভিত্তিতে কাহারও বিশেষ অধিকার স্বীকার করি না’। অর্থাৎ বিজেপির স্বর্গ-রাজ্যে দলিতদের জন্য সংরক্ষণ বিলুপ্ত হবে নিশ্চিত। সমাজকে অটুট রাখতে হবে তো!
     
    ‘ভিসন এবং মিশন’-এ আরও বলা হয়েছে, বর্ণ-ভেদ, অস্পৃশ্যতা বা আঞ্চলিকতা এসব নিয়ে সংঘাত দেখা দিলে সংঘ তার ‘শক্তিশালী প্রতিষেধক’ হিসেবে কাজ করবে। সে কারণেই সম্ভবত দলিত বা আদিবাসীদের অধিকার নিয়ে যারা কথা বলেন বা মুসলিম-পেষণের বিরোধিতা করেন, এমন অনেক সমাজ-কর্মী ও লেখকের স্থান হয়েছে জেলখানায়। সন্দেহ নেই, গাঁধীজি এই জমানায় থাকলে তাঁরও স্থান হত কারান্তরালে। 
     
    হিন্দুত্ববাদীদের এই ‘এক জাতি এক সমাজ’ গড়ে তোলার লক্ষ্য যে আসলে হিন্দু জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে সমাজ ও রাষ্ট্রের পুনর্নির্মাণ, সেই ভিসন নিয়েও কোনো অস্পষ্টতা নেই। তাদের এই সামাজিক পুনর্গঠন প্রকল্পে দলিত, আদিবাসী বা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের অস্তিত্ব বা ভারতের অসংখ্য জনজাতির ভাষা ও সংস্কৃতি-ভিত্তিক স্বাতন্ত্র্য এসব নিয়ে কোনো কথা চলবে না, এটা স্পষ্ট। এটাই হচ্ছে রক্ষণশীলতা, যাকিছু চলে আসছে, তার বিরুদ্ধে ট্যাঁ-ফো করা চলবে না। চলে আসছে মানে গোবলয়ে চলে আসছে। এখন গোবলয়ের রক্ষণশীলতা  বাঙালির সইবে কিনা, সেটা বোঝার জন্য নারী সম্পর্কে গেরুয়া শিবিরের অবস্থান বিচার করে দেখা দরকার।
     
    ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে সংঘ পরিবারের নারী সংগঠন রাষ্ট্র সেবিকা সমিতির তিন-দিন ব্যাপী শিবিরে আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবত ‘মাতৃ-শক্তি’ জাগ্রত করার কথা বলেন, যার কাজ হবে আমাদের কুটুম্ব বা পরিবার-ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করা, যা তাঁর মতে ‘সারা পৃথিবীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে’। শিবির শেষে এক সাংবাদিক সম্মেলনে সেবিকা সমিতির সাধারণ সম্পাদক সীতা আনন্দনম খুব জোরের সাথে সংঘ পরিবারের মুখ্য সংগঠন আরএসএস-কে নারী-বর্জিত রাখার পক্ষে ওকালতি করে বলেন, পুরুষ এবং নারীর সম্মিলিত শাখা গঠন আমাদের সংস্কৃতি বিরোধী। এমনকি পৈতৃক সম্পত্তিতে ছেলে ও মেয়ের সমানাধিকারের বিষয়টি আইন-স্বীকৃত হলেও সংঘ পরিবার যে তার বিরোধী সেটা স্পষ্ট করে তিনি বলেন, ‘মেয়েদের অধিকার আর আমাদের ঐতিহ্যের মধ্যে একটা সাযুজ্য থাকা দরকার, অন্যথায় পরিবার ভেঙে পড়বে, ভাইরা বোনেদের বিরুদ্ধে চলে যাবে’।

    এখন হিন্দুত্ববাদী জমানা এলে বাঙালির কী হবে? বাঙালি মধ্যবিত্ত বহুদিন হল ‘রক্ষণশীল’ কথাটাকে অপছন্দ করেন, এবং তার বিপরীতে প্রগতিশীল বলে নিজেদের ভাবতে ভালবাসেন। যদিও বহু বিষয়ে তলিয়ে দেখতে গেলে শিক্ষাভিমানি বাঙালির মননে রন্ধ্রে রন্ধ্রে রক্ষণশীলতা ধরা পড়বে। যেমন, সরকারী চাকরিতে নিম্নবর্ণ বা আদিবাসী সমাজের কেউ উচ্চপদ লাভ করলে বর্ণ-হিন্দু বাঙালি মনে মনে ভাবে, এ নিশ্চয় সংরক্ষণের সুবাদে। মুসলিম নাম শুনলে ভেতরে ভেতরে ‘প্রগতিশীল’ বাঙালিরও কেমন একটা অস্বস্তি বোধ হয়। কান পাতলে শোনা যায় তাদের অভিমত, সব মুসলমান সন্ত্রাসবাদী না হলেও সব সন্ত্রাসবাদীই নাকি মুসলিম। এমন মনোভাবের ফলেই বোধহয় বাম অনুগামীদের ভোট অনায়াসে বিজেপিতে চলে যায়, বহু-সংখ্যক বাম এমএলএ যোগ দেন গেরুয়া শিবিরে।
     
    কিন্তু তারপরেও ভাবার বিষয়, বিজেপির রক্ষণশীলতা কি বাঙালির সইবে? বাঙালির রক্তে একটা রক্ষণশীলতা-বিরোধী ধারা আছে, প্রজন্মান্তরে যা প্রবাহিত। এখন যোগী আদিত্যনাথ যেমন বলছেন, বিজেপি ক্ষমতায় এলে এরাজ্যেও ‘আন্টি-রোমিও স্কোয়াড’ তৈরি করা হবে। নবীন প্রজন্ম কি তা মেনে নেবে? হিন্দুত্ববাদী শাসকেরা স্বভাবতই প্রেম-বিদ্বেষী। কারণ প্রেম সমাজের বেধে দেওয়া জাতপাত-ধর্ম, বংশ-কৌলিন্য বা আর্থিক নিরাপত্তা—এসবের ধার ধারে না। ফলে প্রেম পারিবারিক বা সামাজিক স্থিতিকে প্রায়শই বিপন্ন করে তোলে। আর সংঘ পরিবারের মহত্তম কর্তব্য, এই সামাজিক কাঠামোকে রক্ষা করা।     
           
    সমস্যা হল, প্রেম করাটা বাঙালি সমাজে একপ্রকার রেওয়াজ হয়ে দাঁড়িয়েছে, পরিবার মেনে নিক না নিক, ছেলেমেয়েরা নিজেদের পছন্দমত বিয়ে করতেই অভ্যস্ত হয়ে উঠেছে। পরিবারের লোকজন এখন না চাইলেও তা মেনে নিতে বাধ্য হচ্ছে। অর্থাৎ সমাজ খুব বদলেছে তা নয়, এখনও সম্ভবত বেশিরভাগ বাবা-মা’ই চাইবেন ছেলে-মেয়ে তাদের পছন্দমত বিয়ে করুক, প্রেম করলেও অন্তত তাদের জাত-ধর্মের মধ্যে করুক, আর সামাজিক রীতিনীতিগুলো মাথায় রাখুক।
     
    যেমন, ভিন্ন জাতে বিয়ে হলেও, ভিন্ন ধর্মে যেন না হয়, আর সমকামিতা নৈব নৈব চ। বিয়ে হতে হবে সামাজিক রীতিনীতি অর্থাৎ ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান মেনে। ভিন্ন ধর্মে বা সম-লিঙ্গে সম্পর্ক হলে বিবাহ এবং পরিবার নামক পবিত্র প্রতিষ্ঠানগুলো বিপদে পড়ে যাবে যে। ভারতের গোবলয়ে, যোগীজি মোদীজির রাজ্যে শুধু ভিন্ন জাত বা ধর্মে প্রেম বা বিয়ে করার জন্যই যে কত ছেলে-মেয়ের জীবন অকালে ঝরে যায়!
     
    কিন্তু মানব-সম্পর্ক তো কোনো বিধি-নিষেধ মেনে হয়না, বিশেষ করে আজকের দিনে ছেলেমেয়েরা যখন ক্যারিয়ারের তাগিদেই বেরিয়ে পড়ছে দেশ-দেশান্তরে, পরিচিত হচ্ছে নানা জাত-ধর্ম-ভাষাভাষী মানুষজনের সাথে, তখন সম্পর্ক কীভাবে একটা নির্দিষ্ট সামাজিক সীমায় আটকে থাকবে! ফলে, প্রেম নামক এক অদৃশ্য শত্রু শুধু সমাজ নয়, রাষ্ট্র-শক্তিরও মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠছে। প্রেম আর প্রেম থাকছে না, হয়ে উঠছে ধর্ম-বর্ণভিত্তিক সমাজ-ব্যবস্থার বিরুদ্ধে একেকটা স্ফুলিঙ্গ। দিন কে দিন প্রেমের অনিবার্য বিস্তৃতি ঘনিয়ে তুলছে এক সামাজিক সংঘাত, যা শুধু পারিবারিক বিধিনিষেধ অগ্রাহ্য করেই থেমে থাকছে না, যুগ যুগ ধরে প্রচলিত সামাজিক ও ধর্মীয় রীতিনীতিকে ভেঙে চুরমার করে দিচ্ছে, মৌলবাদকে করে তুলছে বিপন্ন।
     
    সন্দেহ নেই, হিন্দুত্ববাদী শক্তি এই বঙ্গের ক্ষমতায় আসীন হলে এরাজ্যেও ব্যক্তিগত পছন্দ, মেলামেশা এবং সম্পর্কের পরিসরে রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ অনিবার্য হয়ে উঠবে। পরিবার ও সমাজের কর্তাব্যক্তিরা এতে কতটা স্বস্তি পাবেন জানিনা, কিন্তু ছেলে-মেয়ে একসাথে রাস্তায় ঘুরলে গেরুয়া বাহিনী তাদের অপমান করবে, থানায় নিয়ে কান ধরে ওঠবোস করাবে, এটা তরুণ প্রজন্ম মেনে নেবে না নিশ্চিত। রামমোহনের সতীদাহ-রোধ, বিদ্যাসাগরের বিধবা-বিবাহ বা নারীশিক্ষা প্রচলন থেকে শুরু করে দীর্ঘ সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে নারী স্বাধীনতার সপক্ষে এযাবৎ বাঙালির যে ঐতিহ্য গড়ে হয়েছে, তা নস্যাৎ করে দেওয়া সহজ হবে না।
     
    এই বাংলার নতুন প্রজন্ম যারা গোবলয়ের তুলনায় অনেকটা উদার ও মুক্ত পরিবেশে বেড়ে উঠেছে, নিজেদের অধিকার ও স্বাধীনতা বুঝে নিতে শিখেছে, হিন্দুত্ববাদী শাসকদের  সাথে তাদের বিরোধ এবং সংঘাত অনিবার্য হয়ে উঠবে। প্রেম সেই সংঘাতকে তীব্র করে তুলবে, কারণ প্রেমের জন্য যৌবন অনেক কিছু বাজি রাখতে পারে। সত্তর দশকে বিপ্লবের জন্য বাংলার যৌবন একবার জেগে উঠেছিল, কিন্তু রাষ্ট্র-বিরোধী সে লড়াই ছিল মূলত পৌরুষ-নির্ভর, সেথায় নারীর ভূমিকা ছিল নগণ্য। আজকের বাংলায় যৌবন যখন জাগবে সেখানে তরুণ-তরুণী যুবক-যুবতী, এককথায় নর-নারী, একসাথে জাগবে (নব-প্রজন্মের প্রতিটি লড়াইয়ে আমরা সেই ছবি দেখতে পাই)। তাই সে হবে এক নতুন বিপ্লবের সূচনা। ওপার বাংলার নব-প্রজন্ম মুসলিম মৌলবাদের দাপট ভেঙে দিয়ে জেগে উঠেছিল শাহবাগ আন্দোলনে, এপার বাংলার নতুন প্রজন্ম হিন্দু মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পিছিয়ে থাকবে না, এই প্রত্যাশা করা কি খুব ভুল হবে!

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • এইটপাস | 103.77.139.254 | ০২ জানুয়ারি ২০২৪ ১৭:৪৭527349
  • এখন সংরক্ষণকেই জাতপাত বলে প্রচার করা হচ্ছে। বিজেপি যখন বলে জাতপাত মুক্ত দেশ, বুঝতে হবে সংরক্ষণ তুলে দেওয়ার কথা হচ্ছে।
     
    সবকিছুরই লক্ষ্য এক বাজার, একটি সাম্রাজ্য।
    কর্পোসামন্তের ভারতে স্বাগত।
  • Megs Learns | ০২ জানুয়ারি ২০২৪ ১৯:১২527355
  • পার্থবাবু, চমৎকার প্রবন্ধটি লিখেছেন। অসামান্য ভাষার বুননে নিজের পরিপ্রেক্ষিতটি উপস্থাপন করেছেন। ঐতিহাসিক এবং সাম্প্রতিক বিভিন্ন ঘটনাবলীর মধ্যে যে একটি অদৃশ্য যোগসূত্র বর্তমান, সেটি নিপুণভাবে ব্যক্ত করেছেন।
     
    তবে আপনার বিশ্লেষণগুলি একদমই একপেশে, বাস্তবের থেকে শতহস্ত দূরে এবং কিছুটা রাজনৈতিক ভীতি থেকে উৎপন্ন হয়েছে। আপনার লেখা থেকেই নিয়ে বলি আমার মনে হওয়ার কারণগুলি -
     
    ১) প্রথমেই বলি এটি সম্পর্কে - ‘আমরা এক জাতি এক সমাজ। এইজন্য আমরা ভাষা, প্রদেশ, বর্ণ, মতবাদ বা তথাকথিত রিলিজিয়নের ভিত্তিতে কাহারও বিশেষ অধিকার স্বীকার করি না’
    এই উক্তিটি কি চরমপন্থার বদলে কিছুটা বামপন্থা ঘেঁষা নয়? এই যে সংৰক্ষণ কেন্দ্রিক বিভাজনের রাজনীতি সেটা তো আমাদের দেশকে কুঁড়ে কুঁড়ে খেয়েছে এবং খাচ্ছে। সেখান থেকে বেরোন তো আমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত।
     
    ২) দ্বিতীয়ত বলি এটা সম্পর্কে - 'কিন্তু তারপরেও ভাবার বিষয়, বিজেপির রক্ষণশীলতা কি বাঙালির সইবে? বাঙালির রক্তে একটা রক্ষণশীলতা-বিরোধী ধারা আছে, প্রজন্মান্তরে যা প্রবাহিত। '
    এটা পুরোপুরি গাঁজাখুরি এবং শহুরে বাঙালিদের এক বিভ্রান্ত ধারণা। যে রক্ষণশীলতা-বিরোধী ধারার কথা আপনি বলেছেন সেটি আদৌ exist করে না। একটু বই থেকে মাথা তুলে সমাজে যে চূড়ান্ত ক্যাওড়ামি চলছে সেটা যদি দেখেন তো বুঝবেন যে ভেতরে ভেতরে আমরা গোবলয়ের থেকে আলাদা নই। সেই সহজাত বিভেদপ্রবণতাকে কাটিয়ে পুরো দেশকে এক সূত্রে বাঁধতে প্রয়োজন এক শক্ত সুতোর। সনাতন ধর্মই সেখানে রাস্তা দেখতে পারে।
     
    ৩) তৃতীয়ত বলি এটা সম্পর্কে - 'সত্তর দশকে বিপ্লবের জন্য বাংলার যৌবন একবার জেগে উঠেছিল, সেথায় নারীর ভূমিকা ছিল নগণ্য। আজকের বাংলায় যৌবন যখন জাগবে সেখানে তরুণ-তরুণী যুবক-যুবতী, এককথায় নর-নারী, একসাথে জাগবে (নব-প্রজন্মের প্রতিটি লড়াইয়ে আমরা সেই ছবি দেখতে পাই)। তাই সে হবে এক নতুন বিপ্লবের সূচনা।'
    এই উক্তিটি অত্যন্ত ভয়ানক। সত্তরের দশকে বাংলা যা দেখেছে সেটা বাংলা কেন কোথাও তার পুনরাবৃত্তি হওয়া উচিত নয়। ওই সময়টি বললে শুধুমাত্র আসে পুলিশের অত্যাচারের কথা এবং এক রোমান্টিক বিপ্লবের স্বপ্ন। কিন্তু একথা আসেনা যে পুরোটাই ছিল এক ভ্রান্ত আদর্শের পেছনে ছোটা। যে পথে হাজার হাজার তরুণদের ভুল পথে চালনা করে কিছু রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। অকালে ঝরে কিছু প্রাণ। অনুগ্রহ করে সেই ভ্রান্ত স্বপ্ন আর দেখবেন না।
  • বঙ্গবীর | 202.142.125.107 | ০৩ জানুয়ারি ২০২৪ ০৮:৩৪527370
  • বাঙালীর রক্ষণশীলতা সইবে না কেন? শুভেন্দু সম্বন্ধশ্রী প্রকল্প চালু করবে। সম্বন্ধ দেখে বিয়ে করলে পাঁচ হাজার টাকা দেবে। বাঙালী খুশি হয়ে প্রেম করে বিয়ে করা ভুলে যাবে।
  • Eman Bhasha | ০৪ জানুয়ারি ২০২৪ ১৫:০৫527393
  • ধন্যবাদ 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু মতামত দিন