এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • জীবনের আলো-আঁধারির রাস্তায়

    Pradhanna Mitra লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৯ অক্টোবর ২০২৩ | ১৬৪ বার পঠিত
  • BOOKER 2023 SHORTLISTED BOOK #1



    বিধিসন্মত সতর্কীকরণঃ এই উপন্যাসটি পড়তে হলে স্কোয়াশ খেলা, খেলার বিধিবদ্ধ নিয়ম এবং কোর্ট সম্পর্কিত খুঁটিনাটি জানা আবশ্যক। প্রফেশনাল লেভেলের না হলেও বিগেইনার লেভেলের তো বটেই। নচেৎ, উপন্যাস পাঠের সময় কল্পনাশক্তির অভাবে আপনি বারবার উপন্যাসের টিউনিং থেকে হঠে যেতে পারেন। খেলাটাও একটু দেখে নিলে ভালো হয়। আমি, মাঝখান থেকে, ভারত এশিয়ান গেমসে স্কোয়াশ খেলায় সোনা জেতার ম্যাচটা, অর্থাৎ ফাইনাল ম্যাচটা, যা পাকিস্থানের সাথে হয়েছিল, সেটা দেখে যারপরনাই বিস্মিত হয়েছি। হয়েছি এই দেখে যে, একটা বদ্ধ ঘরে দেওয়ালে ব্যাট দিয়ে বল মেরে মেরে দুটো মানুষ খেলবে, এমন খেলাও মানুষের মাথা থেকে বেরোতে পারে! এ যেন অনেকটা আমাদের মেয়েদের ছোটবেলায় বর্ষাকালে প্লাস্টিকের টেবিল টেনিস ব্যাট আর পিংপং বল দিয়ে একা একা দেওয়ালে মেরে খেলে সময় কাটানোর মতন। এমন সময় কাটানোর খেলা যে বিশ্বজগতে সোনা জেতার যশ এবং অর্থ জেতার এক মাধ্যম, আমি জানলে হয়তো... যাক গে... হাহুতাশ করে কি হবে?

    মূল বক্তব্যঃ পুরো উপন্যাসটাও এরকম কিন্তু হাহুতাশ করবার মতোই। একটি গুজরাটি পরিবার। মা-বাবা ও তাদের স্কুলে পড়া তিন মেয়ে (১৫, ১৩ ১১ বছর তাদের বয়স)। তারা প্রবাসী গুজরাটি। ছোট মেয়ের ভার্সানে এই উপন্যাসের বিস্তার। শুরুতেই জানা যায়, মেয়েদের মা কিছুদিন আগে মারা গেছেন। এবং সম্পূর্ণ উপন্যাস জুড়ে এই মাতৃত্বের এবং সঙ্গিনীর অভাবের হাত থেকে, বরং বলা ভাল, এক বিষাদের হাত থেকে জীবনকে অন্যভাবে বাঁচানোর প্রচেষ্টার নাম Western Lane.

    “After Ma died, we had been careful always to appear with our hair washed, our nails cut, our clothes clean. We did it instinctively, without conferring with one another, and we all sensed that this girl must now have found something amiss. We kept our heads down and tried not to think about it, but our three voices sounded loud and harsh…” জীবনের এক মর্মান্তিক সত্যির মধ্যে দিয়ে চারটে চরিত্রকে নিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টার নাম Western Lane. অতঃপর তিন মেয়ের মধ্যে ছোট মেয়েটি স্কোয়াশ খেলার দিকে ঝুঁকে পড়ে। তার বাবা তার ট্রেনার। এবং অবশেষে পরিবারটি মায়ের অনুপস্থিতির যন্ত্রনা বইতে বইতে, বইতে বইতে, বইতে বইতে… একসময় বিষাদের পাহাড় প্রমাণ গুরুভারের তলায় চাপা পড়ে যেতে থাকে। বিধ্বস্ত হতে থাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে। অবশেষে, মেয়েটির স্কোয়াশ প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করাকে কেন্দ্র করে সম্পূর্ণ পরিবার এক নতুন জীবনের দিকে এগোতে থাকে।

    গল্পের কাঠামো খুব চেনা পরিচিত। অবশ্য এত ক্লাসিক সাহিত্য লেখা হয়ে গেছে যে, মৌলিক গল্পের কাঠামো আর অবশিষ্ট নেই বললেই চলে। যা আছে, তা হল, গল্প বলার প্যাটার্ন। আর এই অন্যভাবে বলা গল্পের প্যাটার্নই হল চেতনা মারু-র Western Lane. 

    উপন্যাসটাকে একটু অন্যরকমভাবে দেখা যেতে পারে। আমার জীবনে কোন বড়ো রকমের অনুপস্থিতি এভাবে কোনদিন আসে নি বলেই আমার কাছে এ এক তত্ত্বমাত্র। উপন্যাসটা শেষ করার পর ভাবতে বসেছিলাম, আমার যদি মা না থাকত তবে জীবন কেমন হত? আমি ভাবতে পারলাম না। অনাহুত কল্পনার আশঙ্কা-বিহ্বলতা আমায় এমন কোন বিষাদের সন্ধান দিতে পারল না, যে বিষাদের সাথে লড়াই করতে করতে কোন একটা সময় আমি স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার লড়াইয়ে থাকা বাবাকে বলতে পারতাম, “Do you remember Ma?”; কিম্বা আমার এমন কি হত যে, “I felt tears coming now. Probably I should have kept talking, because in the quiet I began thinking about the funfair and Mona telling us that Ged and his mother were only in our lives because Ma was dead. I tried to remember Ma’s face. I looked at the blank walls of the court.”; কিম্বা বিষাদের বোঝা টানতে টানতে আমার মনে কি এই বোধ আসত যে, “... and what about the shame on Ma, who was gone? While Ma was alive, whenever we did something we weren’t supposed to, our relatives would bring Ma’s feelings into it, as if she was easy to hurt. But she wasn’t. It didn’t matter now. Now she was gone, our capacity to hurt her seemed infinit”; কিম্বা একলা সংসারের বোঝা ঠেলতে ঠেলতে আমার ক্লান্ত বাবার কি এরকম মনে হত যে, “The children. The girls. Sometimes I look at them and I think they will eat me.” 

    আমার এক বাল্যবন্ধু মা-হারা। আকাশে শরতের রঙ ধরলে সে আমাদের জীবন থেকে হারিয়ে যেত। তাকে আবার তেমন করে দেখতে পেতাম পূজোর পরে। বেশ কয়েক বছর পরে, আমরা যখন খানিকটা বড়ো হলাম, এই অনুপস্থিতির দৃষ্টিকটুত্ব আমাদের পীড়া দিতে শুরু করল। একদিন চোখের জল চোখের ভেতরে টানতে টানতে আমাদের সে বলেছিল, শরৎকাল এলেই মা-র অভাববোধ তাকে বড্ড বেদনা দিতে শুরু করে। সারা বছর যে শূন্যতাবোধ ফল্গুধারার মতো দৈনন্দিন জীবনে বয়ে যায়, পূজোর সময় তার সেই ধারা পাষানের মতো নিশ্চলভার হয়ে পড়ে। তার আর তার বাবা – দুজনেরই। তাদের ইচ্ছা থাকলেও তারা সহজভাবে কারো সাথে মিশতে পারে না। এমন না যে সারাদিন সেই অভাববোধে কান্নার ঢেউ এসে খানিক স্বস্তি দিচ্ছে, বরং নিঃশ্বাস বন্ধ করে দেওয়ার মতো এক অন্ধকারবোধ বুকের ভেতর বয়ে নিয়ে নিয়ে চলতে হচ্ছে। কিন্তু সেই সময়, কেবলমাত্র এই দুই প্রাণী দুজনের সাথে থেকে একটু স্বস্তিবোধ করত। বাবা আর মেয়েতে মিলে খানিক কেঁদেকেটে আবার পাষানের সেই গুরুভারকে বয়ে নিয়ে চলার জন্য প্রস্তুত করত, কিন্তু সেই পাষাণভার সরেও সরত না। তারা পূজোর ওই সময়টুকু নিজেদের মতো করে একাকী কাটাতো।

    জীবনের এই যন্ত্রণা তো আবগের উথাল পাথাল নয়। তা নীরবে বয়ে যাওয়া এক সূচীভেদ্য বেদনার তীব্র চোরা আঘাত। ক্ষতবিক্ষত করে, কিন্তু বাইরে তার প্রভাব খুব কম পড়ে। ফলে সেই গল্প আর সাধারণ গল্পের মতো হাসিকান্নার উত্থান পতনে আমাদের টেনে রাখে না। চেতনা মারু তার এই উপন্যাসে ঠিক সেইটাই করতে চেয়েছেন। ফলে গল্পের থেকে সরে এসে দৈনন্দিন এই বেদনার বোধের একটা লেখার প্রয়াসের নামই হল Western Lane.

    তবে, বলতে বাধ্য হচ্ছি, এ লেখার প্রয়াস মাত্র। এই প্রয়াসের মধ্যে সাহিত্যের সেই মূর্চ্ছনা নেই যা থেকে বলতে পারি, বুকার নমিনেশানের এ এক যোগ্য উপন্যাস। এই বেদনাবোধ সাহিত্যের আঙ্গিনায় এসে মুখ থুবড়ে পড়ে বারংবার। ফলে অধিকাংশ সময়েই লেখার শ্লথ গতিধারার সাথে নিজেকে খাপ খাওয়ানোর জন্য একটা বড়ো রকমের প্রচেষ্টা করতে হয়।

    আর সবশেষে কি পড়ে থাকে? একটাই কথা, “Do not let your emotions control you when you are on the court.”

    ====================

    Western Lane
    Chetna Maroo
    Picador Publication
    399/-
    ছবিঃ ইন্টারনেট
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • aranya | 2601:84:4600:5410:9d37:c8f2:f046:4af7 | ০৯ অক্টোবর ২০২৩ ০৩:১৮524415
  • স্কোয়াশ খুবি কঠিন খেলা। অনুভব করেছি, তাই বলছি। র‌্যাকেট বল-এর চেয়ে অনেক ডিমান্ডিং 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঠিক অথবা ভুল মতামত দিন