এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • বিশ্ব পরিবেশ দিবসে কিছু কথা

    Mousumi Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৬ জুন ২০২৩ | ৫৪১ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  • গত দুদিন ধরে আছি সবুজ জঙ্গল ঘেরা পাহাড়ি গ্রামে। আছি বড় শান্ত, নিরালায় এক হোম স্টে র একমাত্র অতিথি হয়ে। ঘরের বাইরে ব্যালকনিতে এলেই পাহাড়, জঙ্গলের বড় সুন্দর ছবি – তারা সকলেই আমার একান্ত আপনার! বারান্দা ঘেঁষে এবড়োখেবড়ো রাস্তা গ্রামের দিকে চলে গিয়েছে। দিনেরবেলায় হাতেগোনা কয়েকজনের যাওয়া আসা ঐ রাস্তা ধরে। সন্ধ্যে নামলেই সবকিছু বড় শান্ত। উল্টোদিকের পাহাড়ের ঘরবাড়িগুলোতে জ্বলে ওঠা বিজলী বাতি অন্ধকারে কালো হয়ে যাওয়া গাছের ফাঁকে ফাঁকে ভারী চমৎকার দেখায়। সঙ্গে কীট পতঙ্গের ঐকতান।ভোররাত থেকে শোনা যায় ঘরের বাইরের জঙ্গলে পাতার শিরশিরানি আর অজস্র পাখির ডাক। বিছানা ছেড়ে হালকা চাদরে নিজেকে মুড়ে নিয়ে এসে বসি ঘর সংলগ্ন বারান্দায়। বাঁদিক ঘেঁষে হালকা মেঘের চাদরে ঢাকা কাঞ্চনজঙ্ঘার অবয়ব। ডানদিকে আকাশে নতুন দিনের শুরুর আভাস। দু দিন  ধরে ভোরবেলায় হালকা, সুগন্ধি দার্জিলিং চায়ের স্বাদ নিতে সঙ্গী হয় এরাই। মন গুনগুনিয়ে ওঠে –'কি সুর বাজ আমার প্রাণে/ আমি জানি, মন জানে।'

    হোম স্টে র ম্যানেজার কাম সবকিছু – নাম তার রিকডেন লেপচা। বেশ ছেলে। হাসিখুশি, বড়ই যত্নশীল। ব্যালকনি ঘেঁষে জঙ্গলে হারিয়ে যাওয়া পথটা ধরে একটু গেলেই ওদের বাড়ি। ঐ গ্রাম্য জঙ্গলে বাঁক নেওয়া পথটা দেখলে দুদিন ধরেই  মনে হচ্ছে –'পথ দিয়ে কে যায় গো চলে,  ডাক দিয়ে সে যায়।  .... অতঃপর 'আমার ঘরে থাকাই দায়।'   – এমন ডাকেই ঘর ছেড়ে বেরিয়ে ঐ পথ ধরে পৌঁছলাম রিকডেনদের বাড়ি। সে ছেলে তো তখন হোম স্টে তে ম্যানেজারী করছে। তাতে কি? রিকডেনের জুনিয়র প্রণয় শেরপা চলল আমাদের সঙ্গী হয়ে। বড় বড় সবুজ গাছ ঘেরা পায়ে চলা রাস্তা। গ্রাম ঠিকই, তবে বাড়ি ঘর খুব কম। বুনো গন্ধে চারিদিক মেতে আছে। আলো আঁধারির পথে দিনের বেলায়ও কত রকম ঝিঁঝিঁ পোকাদের অর্কেস্ট্রা চলছে। গাছের ফাঁক দিয়ে দেখা যাচ্ছে ধাপ চাষ করা পাহাড়ের ঢালে  সাদামাটা অথচ বড় সুন্দর ছবির মতো বাড়ি। ভারী সুন্দর, পরিচ্ছন্ন, রঙবেরঙের লিলি, অর্কিডে ঘেরা সেই বাড়ি। প্রণয়ের কথায় জানা গেল যে এ হল রিকডেনদের বাড়ি। আমাদেরকে দেখে ওর বাবা বেরিয়ে এলেন হাতজোড় করে। ভদ্রলোক পেশায় স্কুল শিক্ষক। ঘরের পাশ দিয়ে ধাপে ধাপে চাষ হচ্ছে ভুট্টা। আর একপাশে কিছু সবুজ শাক সব্জির ক্ষেত পার করে ঝকঝকে পরিচ্ছন্ন উঠোন। উঠোনের একপাশে একটি ঘেরা ও টিনের চাল দেওয়া জায়গায় কাঠ কেটে জমানো হয়েছে। আরও একটু এগিয়ে  ওদের রান্নাবাড়ি। সেখানে দিলাম হানা। পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন। বাসনপত্র ঝকঝক করছে। গ্যাস বার্নারে কুকারে কিছু সিদ্ধ হচ্ছে। পাশেই দেওয়ালে কাঠের সাধারণ তাকে রান্নার সরঞ্জাম। এক কোণে দেখা গেল মাটির উনুনে কাঠের জ্বালে বসানো আছে একটি বাসন। উল্টোদিকে টেবিলে কিছু বাসনপত্র।  

    প্রণয় শেরপা ও গৃহকর্ত্রীর কথায় জানলাম যে ওঁরা কাঠের ব্যবহার করেন ঠিকই তবে কোনোও গাছকে কেটে ফেলে নয়। বেশ কিছু গাছ লাগানো হয় গরু, ছাগল ইত্যাদির খাবারের সংস্থানের জন্য। গাছের ডাল ছেঁটে তাঁরা  কাজে লাগান। গাছ ওঁরা বাঁচিয়ে রাখতে চান। না হলে পাহাড় বাঁচবে না। আর পাহাড় না বাঁচলে ওঁরাই বা  কিভাবে বাঁচবেন? আর আপনারাই বা কেন আমাদের এখানে আসবেন? ট্যুরিস্ট আসলে ওঁদের  আয়পত্র হয়। তাই এই গ্রামের অধিবাসীরা প্রকৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে চান। 

    এই কথাগুলি আমার মনকে বিশেষ ভাবে নাড়া দিয়েছে। সারাবছর ইঁট, কাঠ, লোহার জঙ্গলে বাস করে আমরা যাই পাহাড়ে এমন সব পরিবেশে প্রকৃতির কোলে দিন কাটাতে – চোখের আরাম, বুকভরা অক্সিজেন, মনের আরামের জন্য। 

    আমরাও কি একটু ভাবতে পারি না? পরবর্তী প্রজন্মের জন্য কি রেখে যাচ্ছি আমরা? – সময় এসেছে ভাববার। 

    #মৌসুমী
    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • ? | 2405:8100:8000:5ca1::c0:4a23 | ০৬ জুন ২০২৩ ১৩:০৪520259
  • তা কী কিরবেন ভাবছেন? ফিরে এসে গ্যাস কানেকশান ছেড়ে দিয়ে বাড়ির সামনে কাঠকুটোর  যোগাড় করবেন? 
  • Mousumi Banerjee | ০৬ জুন ২০২৩ ১৩:৩৬520260
  • লেখাটা পড়ে কি তেমনটাই মনে হল? 
     
  • kk | 2601:14a:502:e060:caad:fa03:cf5d:49e6 | ০৬ জুন ২০২৩ ১৯:২৭520264
  • আমার ভালো লাগলো লেখাটা। চোখের সামনে একটা ছবি ফুটে উঠছিলো পড়ার সময়। লেখার সঙ্গে একটা ছবি দিলেও ভালোই লাগতো।
  • lcm | ০৬ জুন ২০২৩ ১৯:৫৮520266
  • হিমালয়ের বরফ দ্রুত গতিতে গলছে। বলছে -
    ... ice sheets across the Himalayas have shrunk 10 times faster in the past four decades than during the previous seven centuries...

    গত চার দশকে হিমবাহের বরফ গলার স্পিড বেড়ে গেছে, বরফের পরিমাণ কমে আসছে, আইস লেয়ার পাতলা হয়ে আসছে। সত্তরের দশকে দার্জিলিং-কালিম্পং এলাকায় বড় হয়েছেন এমন একজন সেদিন বলছিলেন, যে এখন নাকি কাঞ্চনজঙ্ঘায় বরফের বিস্তৃতি আগের মতন নেই।

    গ্লোবাল কার্বন এমিশন না কমলে ২১০০ সালের মধ্যে হিমবাহের দুই-তৃতীয়াংশ বরফ গলে যাবে। আর যদি কার্বন এমিশন কন্ট্রোল করে গ্লোবাল টেম্পারেচর ১.৫ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড বৃদ্ধির মধ্যে রাখা সম্ভব হয়, তা হলেও ২১০০ সালের মধ্যে ৩৬% বরফ হাওয়া হয়ে যাবে।

    এই বরফ গলার ফলে বেড়ে গেছে ধস, পাহাড়ের বিভিন্ন জায়গা ভেঙে পড়ছে, বেড়েছে বন্যা। গ্লেসিয়ারের বরফ গলার রেট বাড়ার জন্য বলছে ২০৫০-৬০ সালের মধ্যে নদীগুলো উপছে পড়বে। কিছুদিন আগে পাকিস্তানে সাংঘাতিক বন্যা হয়েছে।

    মানে, কঠিন সময় আসিতেছে। সারা পৃথিবীতেই।
  • aranya | 2601:84:4600:5410:adb1:d702:27b7:3280 | ০৭ জুন ২০২৩ ০০:১৭520269
  • শেষের সে দিন ভয়ঙ্কর , এলসিএম -এর পোস্ট পড়ে মনে হল 
     
    মৌসুমী-র লেখাটা সুন্দর। 
     
    আমরা কী করতে পারি ?  গাছ লাগানো যায় । ড্রাইভিং কিছুটা কমেছে, কোভিডের জন্য বাড়ী থেকে কাজ করার সংস্কৃতি শুরু হওয়ায়, সেটা ভাল 
     
    আর বিকল্প শক্তি-র ব্যবহার, যতটা পারা যায় 
  • Amit | 163.116.211.39 | ০৭ জুন ২০২৩ ০৩:১৩520272
  • জনসংখ্যা সাবস্টেনসিয়ালি না কমালে পারলে শেষে কিছুতেই কিছু হওয়ার নয়। কারেন্ট গ্লোবাল পপুলেশন গ্রোথ আর ডিমান্ড গ্রোথ জাস্ট আন-সাস্টেনেবল। আর কোনোটাই ​​​​​​​ঠেকানোর ​​​​​​​কোনো ​​​​​​​রাস্তা ​​​​​​​নেই এখনো অবধি। ​​​​​​​
     
    এক যদি কিছু মেজর এনার্জি ব্রেক থ্রু আসে কার্বন এমিশন কমানোর জন্যে  নেক্সট কয়েক বছরে। আল্টিমেটলি সিক্সথ এক্সটিঙ্কশন ঠেকানো যাবেনা। এখনো অব্দি যেসব রেনেয়াবলস অপশনস আছে সেগুলো জাস্ট তাপ্পি মারা সল্যুশন। এসব দিয়ে বড়জোর কয়েক যুগ স্লোডাউন করা যেতে পারে। 
     
  • Prabhas Sen | ০৭ জুন ২০২৩ ১৩:৫১520287
  • যে পথ দিয়ে চলেছে ছুটে "সভ্যতার " ঘোড়া 
    নষ্ট হবে ধ্বংস হবে সবুজ বসুন্ধরা।
  • Mousumi Banerjee | ০১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৯:৩৫523122
  • লেখাটি পড়ে মন্তব্য করবার জন্য অশেষ ধন্যবাদ। 
  • Mousumi Banerjee | ০১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৯:৩৯523123
  • Kk  ধন্যবাদ। উৎসাহ পেলাম। সমালোচনা খুব দরকার। ভালো হোক, মন্দ হোক। 
    ফটো আছে। আমি কিভাবে এই 'খাতা'য় দেব ঠিক বুঝতে পারি নি। 
  • Mousumi Banerjee | ০১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৯:৪১523124
  • aranya, মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। 
     
    হ্যাঁ, বিকল্প শক্তির প্রয়োজন বড় বেশী
  • dc | 2401:4900:1cd0:9a4f:fdfd:f979:4501:5f92 | ০১ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১১:২৫523125
  • লেখাটা পড়তে ভালো লাগলো। এরকম পাহাড়ের কাছে হোমস্টেতে থাকতে আমারও ভাল্লাগে। মুন্নার, কুর্গ, কোটাগিরি ইত্যাদি নানান জায়গায় থেকেছি, চা বাগানে ট্রেকিং করেছি। তবে কি, ছ সাত দিন সবুজ ঘাস আর নীল আকাশ দেখতে খুব ভালো লাগে, তারপর বোরিং হয়ে ওঠে। তখন মনে হয় কবে আবার শহরে ফিরে যাব, ভিড় ভর্তি রাস্তায় হাঁটব, পাড়ার মোড়ের দোকানে দাঁড়িয়ে চা খাবো। শহর ছেড়ে কোথাও গিয়ে পার্মানেন্টলি থাকার কথা ভাবতেই পারিনা। যে যেখানে অভ্যস্ত আর কি :-)
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই প্রতিক্রিয়া দিন