এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • আমার কিছু অভিজ্ঞতা

    Koushik Chatterjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৫ মে ২০২৩ | ৩১২ বার পঠিত
  • মায়ের সাথে আশুর একটা অম্ল মধুর সম্পর্ক ছিল। কিন্ত দিদির সাথে সরাসরি শত্রুতা, যদিও সেটা খেলার ছলে। দিদির রসবোধ নিয়ে আশুর যথেষ্ট সন্দেহ ছিল। এর মধ্যেই সে সবার অলক্ষ্যে বড় হয়ে উঠছিল। তার আদর্শ ছিল তার বাবা।
    সাধারণ ভাবে মায়েরা শিশুদের বেশী প্রভাবিত করে থাকেন, কিন্ত আশুর বেলায় পুরো বিপরীত। অবশ্য তার বাবা সম্পর্কে আমি তার মুখে যা শুনেছি তা অবাক করার মতো।
    আসলে আমার এই লেখার উদ্দেশ্য আশুর জীবনী লেখা নয়। একটা ধারণা আমাদের মধ্যে চেপে বসে আছে যে, ব্যক্তি মানুষের থেকে সমাজ বড়। আর একটু ব্যাখা করে বললে, যেন ব্যক্তি স্বার্থ দেখাটা একটা অপরাধ। অথচ আপনি প্রতিনিয়ত ব্যক্তি স্বার্থ সর্বস্বতা সর্বত্রই দেখতে পাবেন। যদি একজন বা দুজন এরকম হতেন তাহলে না হয় তাদের স্বার্থপর বলে দাগিয়ে দেওয়া যেত, কিন্ত সমাজের বেশীর ভাগ মানুষই যখন এই কাজ করছেন তার মানে এই ব্যাপারটা গভীর ভাবে ভাবার প্রয়োজন রয়েছে।
    আমরা একটা প্রাথমিক ব্যাপারই ভুলে যাই তা হলো এই ব্যক্তি মানুষেরাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে সমাজের জন্ম দিয়েছেন। সুতরাং ব্যক্তির স্বার্থ মানে আসলে সমাজেরই স্বার্থ। একটা উদাহরণ দেওয়া যাক। ধরুন একজন ছাত্র পরীক্ষা দিচ্ছে এটা ভেবে যে, আমি মুখস্থ করে অনেক নম্বর পাবো ও একটা বড় (বেতনের) চাকরি জোগাড় করবো। অন্য একজন ছাত্র পরীক্ষা দিচ্ছে এটা ভেবে যে, আমি বিষয়গুলি কত ভালো জানি তা সবাই কে বুঝিয়ে দেব। অন্য একজন ছাত্র পরীক্ষা দিচ্ছে বান্ধবীর কাছে নিজেকে বড় করে দেখানোর জন্য। আসলে এঁরা সবাই আসলে মানব সমাজকেই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তাদের তাদের মতো করে।
     
    ক্রমশঃ 

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • D sandip | 49.37.45.36 | ১৬ মে ২০২৩ ০৬:৪১519836
  • সার বর্তা হীন
  • dc | 2401:4900:232d:9c02:d07d:1505:4dd9:a62e | ১৬ মে ২০২৩ ০৭:০০519837
  • "ব্যক্তির স্বার্থ মানে আসলে সমাজেরই স্বার্থ"
     
    এক্কেবারে একমত। আমার কাছে তো সবসময়েই ব্যাক্তি স্বার্থ বড়ো! আমি নিজের স্বার্থ ছাড়া কিছুই দেখি না। আর সবসময়ে খালি ভাবি কিভাবে আরও টাকা রোজগার করবো। 
  • kk | 2601:14a:502:e060:9b7b:d553:2c44:c799 | ১৬ মে ২০২৩ ০৭:৩৪519838
  • কৌশিক,
    আপনি তো এটা সিরিজ হিসেবে লিখছেন। তাহলে পর্ব-১, ২,৩ এভাবে চিহ্ন দিয়ে দিলে পাঠকের বুঝতে সুবিধা হয়। পর্বগুলো অবশ্য আমার খুবই ছোট মনে হচ্ছে। বক্তব্য ভালোভাবে বিস্তার হবার আগেই যেন একটা পর্ব খতম! তার ফলে পড়ার উৎসাহ বজায় থাকছেনা।
  • Kuntala | ১৬ মে ২০২৩ ১৩:১৫519843
  • আরেকটু ব্যাখ্যা দিন। নয়তো অ্যাডাম স্মিথের দর্শন মনে হচ্ছে।
    আর সন্তানদের মধ্যে ছেলেরা তাদের বাবাকে যে রোল মডেল হিসেবে দেখবে, সেটা নতুন নয়। ওই এক কারণেই দিদিকেও সামান্য নীচু চোখে দেখার প্রবণতা হতে পারে।
  • Koushik Chatterjee | 2401:4900:7080:f2b1:34a8:b7fe:c311:2c1d | ২০ মে ২০২৩ ০৯:৫৫519920
  • প্রথমেই যাঁরা আমার লেখাটি পড়েছেন, বিশেষ করে যাঁরা মন্তব্য করেছেন তাঁদের আন্তরিক ধন্যবাদ। 
    মূল কথায় আসা যাক। আসলে মানুষ (ব্যক্তি) হলেন " ensemble of social relationship" অর্থাৎ যিনি ভাবেন শুধুই টাকা রোজগার করবেন তিনি সেই ভাবনা টাও এই সমাজ থেকেই পেয়েছেন, এটাই আমি বলতে চেয়েছি। 
    বিরূপ মত, দ্বিমত, এবং বিপরীত মত একটা স্বাভাবিক বিষয় শুধু নয়, এটাই মানব সমাজ এর বিশিষ্টতা। 
    আমি সময়ের অভাবে ও বিষয়ের চাপে দেরী করে ফেলছি। ১,২,৩ করে লিখলে হয়তো ভালো হতো। আর দেরী করে উত্তর দেওয়ার জন্য ক্ষমা করবেন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে মতামত দিন