এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  আলোচনা  রাজনীতি

  • ভাষার বহমানতা এবং শিল্পী শুভাপ্রসন্ন

    Rana
    আলোচনা | রাজনীতি | ০৬ মার্চ ২০২৩ | ৫৩৫ বার পঠিত
  •  বিগত একুশে ফেব্রুয়ারি, মঙ্গলবার, কলিকাতার দেশপ্রিয় পার্কে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে  রাজ্য সরকারআয়োজিত অনুষ্ঠানে শিল্পী শ্রী শুভাপ্রসন্ন ভট্টাচার্য্য বাংলা ভাষাতে কেন বিজাতীয় ("সাম্প্রদায়িক") শব্দ প্রবেশ করিতেছে, তাহালইয়া ক্ষোভ প্রকাশ করিয়াছেন. ভারতবর্ষ একটি গণতান্ত্রিক দেশ এবং স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকার সকল ভারতবাসীরইরহিয়াছে. কিন্তু একটি জনসভায় এরূপ মন্তব্য করিবার পূর্বে শিল্পীর আরো দায়িত্বশীল হইবার প্রয়োজন ছিল.

    শিল্পী দুটি শব্দ উল্লেখ করিয়াছেন, যাহার একটি হইল পানি এবং অপরটি দাওয়াত. আমার গৃহে দুইটি বাংলা অভিধান রহিয়াছে. একটি শ্রী রাজশেখর বসু প্রণীত চলন্তিকা এবং দ্বিতীয়টি শ্রদ্ধেয় শ্রী হরিচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় বিরচিত বঙ্গীয় শব্দকোষ. বিস্ময়েরসঙ্গে লক্ষ্য করিলাম পানি শব্দটি দুইটি অভিধানেই উপস্থিত, যাহার পশ্চিমবঙ্গের বাংলাতে প্ৰচলিত অর্থ জল. আভিধানিক শ্রীবন্দ্যোপাধ্যায় আবার বানানভেদে "পাণি" শব্দটিকেও উল্লেখ করিয়াছেন এবং শ্রীকৃষ্ণকীর্তন হইতে তাহার ব্যবহার উল্লেখকরিয়াছেন-"যৌবন রাধে পাণির ফোঁটা". আঠেরোশো চুরানব্বই খ্রীষ্টাব্দে রেভারেন্ড কে কে জি সরকার সংকলিত প্রবাদমালা গ্রন্থেওরহিয়াছে সুপ্রাচীন প্রবাদ "ধান পান পানি, এ তিন আশ্বিনে চিনি."

    মূল বিষয়টি হইল শিল্পী তাঁহার মন্তব্য দ্বারা ভাষার বহমানতাকে অস্বীকার করিয়াছেন. ইংরাজে যাহাকে বলে 'Brinjal', আমেরিকান ইংরাজিতে তাহাকে বলে 'Eggplant'. ইংরাজে যাহাকে বলে 'Biscuit', আমেরিকান তাহাকে বলে 'Cookie', অস্ট্রেলিয়ান আবার তাহাকে বলে ‘Bickie’. ইহা লইয়া তাহাদের কোনো বিবাদ বিসংবাদ নাই, কেহই কাহাকে সাম্প্রদায়িক বলিয়াগালি পাড়ে না. ময়মনসিংহ অঞ্চলে সকালবেলাকে বলে বেইন্যা বেলা, রাঢ়বঙ্গে বৃহদাকার মশাকে বলা হয় ডাঁশ. কয়েক বৎসরপূর্বে টাকী ঘুরিতে গিয়াছিলাম, রিকশাচালককে পঞ্চাশ টাকার নোট দিতে বলিয়াছিল, "খরচা করে দিন". বুঝিতে সময়লাগিয়াছিল সে আসলে খুচরা করিয়া দিতে বলিতেছে.

    সমস্যা হইল শিল্পী তাঁহার উদাহরণ হিসাবে যে শব্দদ্বয় ব্যবহার করিয়াছেন, তাহা একটি বিশেষ ধর্মাবলম্বী মানুষদের পরিচয়প্রকাশ করে. বর্তমান দিনে, মানুষের ক্রমবর্ধমান অসহিষ্ণুতা যেখানে আমরা ক্ষণে ক্ষণে টের পাইতেছি এবং ইউটিউব ফেসবুক বাটুইটারের ন্যায় সামাজিক মাধ্যমগুলির মধ্য দিয়া যখন তাহা নিমেষে একটি বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর কাছে পৌঁছাইয়া যাইতেছে, সেইখানে শ্রী ভট্টাচার্য্যের নিকট একটি সুচিন্তিত এবং সঠিক পথপ্রদর্শন আমাদের কামনা ছিল. 

    আশ্চর্য্যজনক ভাবে শ্রী ভট্টাচার্য্যের তাঁর উদাহরণের মধ্যে ট্রাফিক, মেডিসিন বা ডিসকাউন্টের মতো কোনো শব্দ ব্যবহার করেননাই, বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের কথ্য ভাষায় যা বহু প্রচলিত, অথচ তার পরিবর্তে চলিত বাংলা রহিয়াছে.

    সব মিলিয়া, আমার মতে শ্রী ভট্টাচার্য্য একটি অত্যন্ত দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করিয়া বসিয়াছেন. ইহা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কিনা তাহাএকমাত্র তিনিই বলিতে পারিবেন. তবে যে ভাষা নদীর মতো, বালির বাঁধ বাঁধিয়া তাহাকে আটকাইবার প্রচেষ্টা বাতুলতা. যেভাষাকে তিনি সাম্প্রদায়িক বলিয়াছেন, পৃথিবীর অর্ধেক বঙ্গভাষী সেই ভাষায় কথা বলিয়া থাকেন. কাজেই ইহা সঠিক বাংলা নয়, এমন কথা বলা অত্যন্ত অনুচিত.

    দুইটি পাদটিকা দিয়া বক্তব্য সমাপ্ত করিব -

    বহুল প্রচলিত গল্প. কলেজে পাঠরত এক ছাত্রের বাড়ি তাহার বন্ধু আসিয়াছে. গল্পগুজব করিয়া বন্ধু চলিয়া যাইবার পরে ছাত্রেরমা ছাত্রটিকে বন্ধুটির নাম জিজ্ঞাসা করিলেন. ছাত্রটি বলিল, ধরা যাক, বন্ধুর নাম বরকত. মা অবাক হইয়া বলিলেন, "সে কি! ওমুসলমান! আমি তো ভেবেছিলাম বাঙালি".

    দ্বিতীয়ত, দীর্ঘ্যদিন পশ্চিমবঙ্গে কোনো প্রামাণ্য বাংলা অভিধান সৃষ্টি হইতেছে না. গত পুস্তকমেলায় বাংলাদেশের বিপণীসমূহেরমধ্যে দেখিয়াছিলাম চার খন্ডে বিভক্ত বিশালাকার বাংলা অভিধান. পুস্তকপ্রেমীরা জানেন, বাংলাদেশের বইয়ের অর্থমূল্য কিছুবেশী হয়. কাজেই সুবিধা করিয়া উঠিতে পারি নাই.
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। দ্বিধা না করে প্রতিক্রিয়া দিন