এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • ঈশ্বরের খোঁজে, আঙ্কিক পদার্থবিদ্যার পথে পথে

    Pradhanna Mitra লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৫ মার্চ ২০২৩ | ৪২৬ বার পঠিত | রেটিং ৩ (১ জন)
  •  
    আমাকে যে কয়েকটা শব্দ সবথেকে বেশি ভাবিয়েছে, তার মধ্যে ‘ঈশ্বর’ একটা শব্দ। যখন টিন এজ বয়সে ছিলাম, আমার, আর চার-পাঁচজন সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীর মতোই মনে হত, ঈশ্বরের অস্তিত্ব কেবলমাত্র অন্ধবিশ্বাসে। তারপর যখন পড়াশোনা আরেকটু এগোলো, বিজ্ঞানের হাত ধরে, যত এগোতে লাগলাম, দেখলাম, বিজ্ঞানের চোখে ঈশ্বরের কনসেপ্টটা একটু অন্যরকম। বিজ্ঞান ঈশ্বরকে স্বীকার করে না, অস্বীকারও করে না। যে ঈশ্বর দশহাত, কিম্বা দুইহাত, কিম্বা একটা বিমূর্ত আবহ নিয়ে ধর্ম ও দর্শনে প্রতিভাত হয়, বিজ্ঞানের দৃষ্টিকোণটা তার থেকে একটু অন্যরকম। আমি মূলত যে বইটা পড়ে উঠলাম, The God Equation, সেই বইটার কথা বলতে হলে, মূলত পদার্থবিজ্ঞানের দৃষ্টিভঙ্গী নিয়েই কথা বলব।

          সে বিষয়ে আসার আগে কয়েকটা মনের কথা আগে বলি। ‘ঈশ্বর’ ব্যাপারটাই মূলত কল্পনাপ্রবণ মানুষের মন থেকে এসেছে। প্রাচীন মানব সম্প্রদায়কে দেখলে, বোঝা যায়, ঈশ্বর একটা গল্প, যে গল্প তাদের একজোট করে, সমাজ বন্ধনে আবদ্ধ করে, মানব সম্প্রদায়কে ‘সারভাইভাল অফ দ্য ফিটেস্ট’ রাখতে সাহায্য করে। ক্রমশঃ মানব সম্প্রদায় ভাগ হয়ে যায়, গল্পের তারতম্য পালটায়, বোধ-রুচি পালটায়, ঈশ্বরানুভূতিও পাল্টে যায়। কেউ বলে তিনি একমেবাদ্বিতীয়ম্‌, কেউ বলে তিনি বিশিষ্টাদ্বৈত, কেউ বলে “একং সৎ বিপ্রা বহুধা বদন্তি”, আবার সাংখ্য কিম্বা বুদ্ধ তো ঈশ্বরকেই অস্বীকার করে ফেলল। মানুষ মাঝখান থেকে বহু সমাজ আর প্রথায় বিভক্ত হয়ে গেল।
     
    যারা ঈশ্বরকে দেখতে চেয়েছেন, স্পর্শ করতে চেয়েছেন, তারা তাকে পেতে চেয়েছেন লজিক কিম্বা আবেগের বোধের মধ্যে দিয়ে। এর মধ্যে ‘লজিক’ বড়ো সব্বোনেশে ব্যাপার। এই ‘লজিক’ ঈশ্বরকে একই সাথে ‘আছে’ এবং ‘নেই’ দুই তত্ত্বে নিয়ে এসে দাঁড় করিয়েছে। এবং অবশেষে বোঝা গেছে, দুটো তত্ত্বই একই মুদ্রার এপিঠ এবং ওপিঠ --- হেড এবং টেল।
     
    যারা তত্ত্বে তাকে বুঝতে চেয়েছেন, তাদের অধিকাংশই বিজ্ঞানের ধারাতে এগিয়েছেন। সেখানেও অনেক মত, অনেক পথ --- পদার্থবিদ্যা, রসায়নবিদ্যা, জীববিদ্যা ইত্যাদি ইত্যাদি। একটা কথা বুঝে নিতে হবে তারা কিন্তু আসলেই অস্বীকার করেন নি। তাদের কেউ কেউ বলেছেন, তিনি আছেন; কেউ কেউ বলেছেন, তিনি নেই। দুটো তত্ত্বই অবশেষে পাকাপোক্ত বা সর্বজনগ্রাহ্য হতে পারে নি। এর বাইরে যারা আছেন, তারা এখনও খুঁজে চলেছেন। আমার মনে হয়, ঈশ্বর অর্থে ‘অন্তিম’, যার পর আর কিছু নেই। যে অন্তিমে তিনি আছেন, সমস্ত কিছু যে অন্তিমে এসে শেষ হয়, মিশে যায়, তাতেই মিশে যায়। তিনি ‘অন্তিম বান্ধব’। মিশিও কাকু সেই দলে পড়েন, উপরোক্ত বইয়ের জনক।
     
    আসলে পদার্থ নিয়ে যাদের কারবার, তারা জানেন, এই বিদ্যার অন্তিম দশা এখনও আসে নি। তারা অন্তিম দশায় পৌছতে চেষ্টা করছেন মাত্র। তারা মানেন, এই অন্তিম দশাতেই ঈশ্বরের অবস্থান, এই অন্তিম দশাতেই ঈশ্বরের স্বরূপ প্রকটিত হবে, কিম্বা স্বরূপের সত্য-মিথ্যা প্রমাণিত হবে।
     
    কিন্তু, পদার্থবিদ্যা কিভাবে এগিয়েছে? এই বই তারই গল্প বলে। আমি না হয় সূত্রধার হয়ে যাই, আপনাদের মধ্যে কারও যদি কৌতুহল হয়, তাহলে, একবার পড়ে দেখতে পারেন, এমন কিছু শক্ত ব্যাপার নয়, বারো ক্লাসের বিজ্ঞানবিদ্যা দিয়ে অনায়াসলব্ধ এই বইটা।
     
          মূলত ‘ব্রহ্মান্ড’ পদার্থ, যাকে ভাঙলে ভর এবং শক্তি পাওয়া যায় --- এই দুটো দিয়েই তৈরী। ভর = কণা, যার প্রবক্তা ডেমোক্রিটাস; এবং শক্তি = তরঙ্গ, যার প্রবক্তা পিথাগোরাস। ঠিক এইখান থেকে পদার্থবিদ্যা মূলত দুটো ভাগে, সমান্তরালভাবে এগোতে থাকে। নিউটন এসে এমন একটা বিষয়ের দিকে মোড় ফিরিয়ে দেন, যা পরবর্তীকালে পদার্থবিদ্যার ইতিহাসের মূল স্তম্ভ হয়ে থাকে, তা হল ‘বল’ বা Force (ফোর্স)। দেখা যায়, যখন যখনই নতুন কোন ফোর্স আবিস্কার হচ্ছে, প্রযুক্তিগত দিক থেকে মানব সমাজ ধাপে ধাপে নয়, লাফে লাফে এগিয়ে যাচ্ছে। এবং অবশেষে দেখা যাচ্ছে, পৃথিবীতে মোট চারটি ফান্ডামেন্টাল ফোর্স আছে---
     
    ১। মোশান ফোর্স à আইজ্যাক নিউটন
    ২। গ্র্যাভিটেশনাল ফোর্স à আইজ্যাক নিউটন
    ৩। ইলেকট্রিক এন্ড ম্যাগনেটিক ফোর্স à জেমস ম্যাক্সওয়েল
    ৪। স্ট্রং এন্ড উইক নিউক্লিয়ার ফোর্স à ফ্র্যাঙ্ক উইলকজেক এবং এনরিকো ফার্মি
     
    বিজ্ঞানীদের, এবার এই চারটে ফোর্সকে একত্রীকরণ করা প্রয়োজন, অর্থাৎ এবার দরকার সব তত্ত্বের মূলতত্ত্ব --- থিওরি অফ এভরিথিং। সে সময়ে বিশ্ব দুইভাগে ভাগ হয়ে গেছে। আইনস্টানের রিলেটিভিটির তত্ত্বকে রীতিমতো চ্যালেঞ্জে ফেলে দিয়েছে কোয়ান্টাম তত্ত্ব। দুই তত্ত্বে রীতিমতো চাপান-উতোর চলছে। এবং, সব ফোর্সকে একত্রীকরণ করতে গিয়ে যে ফোর্স বাদ সাধছেন, সেটি হল গ্র্যাভিটি। এই ফোর্সকে কিছুতেই আয়ত্তে আনা গেল না, এমনকি আইনস্টাইনের রিলেটিভিটির থিওরিও ব্ল্যাক হোল, বিগ ব্যাং-এর ঘটনাগুলোকে ব্যখ্যা করতে পারলেও আঙ্কিক দৃষ্টিকোণে ব্যর্থ হল মূলত এই গ্র্যাভিটেশানের কাছে এসে।
     
    এই সময়ে কোয়ান্টাম তত্ত্ব এর সমাধান করল খানিকটা। দেখা গেল, কোয়ান্টাম ইলেকট্রোডায়নামিক্স এই কারেকশান করতে পারছে। কিন্তু থিয়োরি অফ এভরিথিং? না, পাওয়া গেল না। মনে করা হল গ্রাভিট্রন নামক কণা পাওয়া গেলে হয়তো এর সমাধান সম্ভব। পাওয়া যায় নি এখনও। এই সময়ে ইয়ং-মিলের তত্ত্বের হাত ধরে এল স্ট্যান্ডার্ড মডেল। এবং তার পর এলো বহু বিতর্কিত থিওরি, দ্য স্ট্রিং থিওরি।
     
    স্ট্রিং থিওরি কিন্তু পরিত্যাজ্য হয় নি। এই থিয়োরিকে, মনে করা হয়, একটা পথ। এই থিওরির সবচেয়ে বড়ো সমস্যা, এই থিওরি বলে বিশ্বব্রহ্মান্ড চারটে ডায়মেনশানে নয়, দশটা ডায়মেনশানে তৈরী। বাকি ছটা ডায়মেনশান এতই ছোট, যে সাব এটমিক পার্টিকেলও সেখানে ঢুকতে পারে না। কিন্তু তরঙ্গ? সে তো আছে, তরঙ্গ দিয়ে ধরতে পারলেই কিস্তিমাত। ধরা পড়েনি এখনো। বরং M-থিওরি এসে তার হাত ধরেছে। এবং এই থিওরির দাবী, ব্রহ্মান্ড এগারো ডায়মেনশানের।
     
    ‘থিওরি অফ এভরিথিং’ কেন এত প্রয়োজনীয়? আগের থিওরিগুলোর মতই, এই থিওরি যদি প্রতিষ্ঠা পায়, তাহলে, পদার্থবিজ্ঞানীদের মতে, ব্রহ্মান্ডের সমস্ত উত্তর মিলবে। এর কোন প্রযুক্তিগত সাহায়তা হয়তো মিলবে না, কিন্তু দর্শনগত উত্তর ভবিষ্যত প্রযুক্তির হাত ধরতে পারে বৈ কি। হাইপারস্পেস, মাল্টিভার্স, টাইম ট্র্যাভেল, প্যারালাল ইউনিভার্স, ডার্ক এনার্জি, ডার্ক ম্যাটার, এমনকি ঈশ্বর!
     
    ঐ যে বলেছিলাম না, ঈশ্বর আমাদের ‘অন্তিম’ লক্ষ্য। অন্তিম বলেই একমাত্র লক্ষ্য। আর এই একমাত্র লক্ষ্য পদার্থবিদ্যায় নিহিত আছে Theory Of Everything-এ। এই বইটা যত পড়ছিলাম, এই লক্ষ্যে উপনীত হওয়ার ইতিহাস পড়ছিলাম, আমার দমবন্ধ হয়ে আসছিল। অসম্ভবকে সম্ভব করার জন্যে মানুষের কি মরণপন চেষ্টা! জলের মাছ যদি জলকে জানতে চায়, দেখতে চায়, সম্যক বুঝতে চায়, তাহলে যে অবস্থা, বর্তমানে পদার্থবিজ্ঞানীদেরও একই অবস্থা। আর পড়তে পড়তে আমার মনে পড়ে যাচ্ছিল, গীতার সেই অমোঘ শ্লোক---
     
    আশ্চর্যবৎ পশ্যতি কশ্চিদেনম্ আশ্চর্যবদ্ বদতি তথৈব চান্যঃ ।
    আশ্চর্যবচ্চৈনমন্যঃ শৃণোতি শ্রুত্বাপ্যেনং বেদ ন চৈব কশ্চিৎ ॥২৯/২॥
    কেউ এই আমাকে আশ্চর্যবৎ দর্শন করেন, কেউ আশ্চর্যভাবে বর্ণনা করেন এবং কেউ আশ্চর্য জ্ঞানে শ্রবণ করেন, আর কেউ শুনেও তাকে বুঝতে পারেন না।
     
    ঈশ্বর লুকিয়ে আছেন অঙ্কে, তিনি মিলবেনও অঙ্কে, পদার্থবিজ্ঞানীদের সপাট জবাব। সত্যিই তো, অঙ্ক এমন এক বিষয়, যার কোন বাস্তব অস্তিত্বই নেই। মজার ব্যাপার নয় কি? বিমূর্তকে ধরতে হলে, এতএব, বিমূর্তই ভরসা।
     
    ===============================
     
    The God Equation: The Quest for a Theory of Everything
    Michio Kaku
    Penguin Publication
    397/-
    Picture Curtesy: Samarpita

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ভ্যাবাচ্যাকা না খেয়ে মতামত দিন