এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • নকশালবাদী'র মা:

    Bhattacharjyo Debjit লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৩ নভেম্বর ২০২২ | ২৩৩ বার পঠিত
  • মা মারা গেছেন! তাও আবার কী নকশালবাদী'দের মা মারা গেছেন- বেজায় হুল্লোড় হউক;
     
    কিছুদিন আগেই সুপ্রিমকোর্টে সাই'র বেল আটকে দেওয়ার ‘মস্তিষ্ক’ যুক্তি। তারপর মোদীসাহেবের কলমধারী নকশালদের 'ছেঁটে ফেলার’ বিবৃতি এবং শেষে শহীদ কিষানজ্বী'র মায়ের মৃত্যু! আশা করি ভালো খবর সংসদীয় বিরোধী শিবির গুলির কাছে, এই তিনটিই? 
    তবে এই 'ছেঁটে ফেলা' বিবৃতি ধরেই মাথায় এলো- বেশ কয়েক বছর আগের কথা; আমার সোশ্যাল মিডিয়ার মারফত পড়বার সৌভাগ্য হয়েছিল এমন ই এক জাঁদরেল নকশালবাদীর, তাঁর মা কে লেখা একটি চিঠি। আমি সেই চিঠিটি পড়ে খানিকক্ষণ গুম মেরে বসেছিলাম। নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করছিলাম। এমন হয় কি করে? বন্দুক কাধে তুলে জঙ্গলে জঙ্গলে ঘুরে বেড়ানো নকশালবাদীদের মনে- এতো ভালোবাসা বোধ জাগ্রত হয় কি করে? আমরা তো শহরের মানুষ। সভ্য মানুষ! শুধুই দেখি জঙ্গল ছেঁটে ফেলেই সভ্যতা আসছে হুহু করে। পুঁজিপতি দের হাত ধরে। এই, সভ্যতার দোহাই দিয়েই মা'রা তাদের শ্রেষ্ঠ সম্পদ সন্তানদের বেঁধে রেখেছেন, চার দেওয়ালের ভেতরে। চলতি প্রতিযোগী জীবন যাপনের বাইরে যেতে দেননি, খুব একটা। আবার সন্তানেরা সভ্যতার শিকড়ে বেড়ে উঠে, মা বুড়ি হলে মা কেও আগলে রেখেছে, এই চার দেওয়ালের কোনে। ঘুপচি ফ্ল্যাটবাড়ির ভেতরে নয়তো বৃদ্ধাশ্রমে। যাতে মা'য়েরা ভালো থাকেন! এটাই শহুরে স্বাভাবিক সভ্য জীবনযাপন, দাড়িয়েছে আমাদের।
    কিন্তু আমি সেদিন সেই জাঁদরেল নকশালবাদীর চিঠি পড়ে, চিঠিটির প্রতিটা শব্দে শব্দে পেয়েছিলাম মা এর প্রতি ভালোবাসা আর দেশের প্রতি রক্তিম প্রেম। আমাদের নতুন ভোর দেখাবার উদ্যম প্রেরণা। যে ভোর দেশের প্রতিটা মা এর কোল আলো করবে সূর্যের লাল রশ্মি দিয়ে। রাতের অন্ধকারে হত্যা করতে পারবে না আর দুষ্টের দল- বাপের মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে, পুত্র আনিস খানকে! পারবে না সিআরপিএফ ঢুকিয়ে জঙ্গল কে জঙ্গল মানুষ কে ছেঁটে ফেলতে।
    যেমনটা আমাদের মিডিয়া গুলি দেখায় তার ঠিক ১৮০% ডিগ্রী উল্টো সম্পূর্ন। আমি হতবাকও হয়ে গিয়েছিলাম খানিক। এই হতবাক হওয়ার পেছনে ছিল- আমাদের চলতি ফিরতি রাজনৈতিক নেতাদের কথা এবং নকশালবাদীদের নামে মিডিয়ার মিথ্যে প্রচারগুলি দেখা। ভাবছিলাম, এতো মিথ্যে বলা যায় কি করে? যারা এতো মিথ্যে বলে তাদের ক্ষমতায়ন ব্যবস্থা আমরা মেনে নেবো কি করে? এমন ভাবে আমরা বেঁচে থাকি কি করে?
    কিষেনজ্বী এর রাজনীতি নিয়ে অনেকের অনেক মন্তব্য আছে। আলোচনা, পর্যালোচনা, সমালোচনা আছে- নকশালবাদী  রাজনীতি নিয়েও। কিন্তু প্রচুর গবেষণা করেও কেউ ই তাদের 'ছেঁটে ফেলতে’ পারেন নি। শত চেষ্টাও ব্যর্থ হয়েছে। ব্যর্থ হয়েছে সালভাজুডুম থেকে অপারেশন সমাধান! উল্টে এইগুলি উৎরেই নকশালবাদের পথ, গ্রাম কে গ্রাম মানুষ কে সংগঠিত করে, আধাসেনা-কোবরাজওয়ান-পুলিশ-খোঁচর সবের মোকাবিলা করে এগিয়ে চলেছে, কাধে রাইফেল ও মনে এক আকাশ ভালোবাসা এবং দেশের প্রতি রক্তিম প্রেম নিয়ে। যা জঙ্গল কে জঙ্গল ছেঁটে ফেলা রুখে দিয়েছে, চুটকি মেরে। এখনও বহু দল- ব্যক্তি নকশালবাদের নেতা শহীদ চারু মজুমদার কে নিয়ে ব্যবসা করেও খুব একটা সুবিধে করতে পারছেন না এই কারণ গুলির জন্যে। নকশালবাড়ি নীতিগত পথের জন্যে। যাইহোক! কী আর করা যাবে? বিপ্লবী পরিস্থিতি তো বারেবারে বিশ্বাসঘাতকদের জন্ম দিয়েছে আবার বিদ্রোহী জনগন কে বিপ্লবের পথেও এগিয়ে নিয়ে এসেছে। যারা বিপ্লবী কমিউনিস্ট পার্টির হাত ধরে এই নকশালবাদীদের পথ আঁকড়ে ধরেছেন- দেশ কে শোষণ মুক্ত করবার স্বপ্নে  বিভোর হয়ে। মা কে পিতৃতন্ত্রের বাঁধন মুক্ত করবার নেশায় মত্ত হয়ে। 
    আমাদের শহরেও এমন ছুটকো ছাটকা কিছু গোষ্ঠী আছে। যারা কাধে বন্দুক না নিতে পারলেও, চা দোকানে কলেজে ক্যাম্পাসে এখনও নকশালবাদী ভালোবাসা এবং দেশের প্রতি রক্তিম প্রেম বুকে বয়ে নিয়ে মাইল কে মাইল পথ হেঁটে চলছেন। লেখালিখিও করছেন। তিন চার জন মিলে বড় বড় উদ্যোগ নিয়ে রাস্তা-ঘাট থমকে দিচ্ছেন। চোঙা ফুঁকে ডোর টু ডোর লিফলেট বিলিও থেকে ট্রেনে গিটার বাজিয়ে, মানুষ কে রাজনৈতিক বার্তা দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। মোদ্দা কথায় কিছু সচেতন-গঠনমূলক কাজ করবার চেষ্টা করে চলেছেন, এনারাও- সমাজের জন্যে। মোদীসাহেব বোধয় এনাদের ই ‘আর্বান নকশাল’ কলমধারী বলে থাকেন। ছেঁটেও ফেলতে চান।  আমার এ বিষয় অবশ্যই তেমন জানা বোঝা নেই। তবে যতদূর মনে হয়, শহীদ চারু মজুমদার– কিষানজ্বী এনারা অবশ্যই জানেন। জেনেও চুপচাপ মজা দেখেন, আকাশ থেকে।  আর জানেন সেই বলিহারি মা- যিনি এমন সন্তানদের জন্ম দিয়ে এবং নিজেদের পিতৃতন্ত্রের বাঁধন মুক্ত করে- এক প্রকৃত দেশপ্রেমিকের মা হয়ে আজীবন রয়ে যাবেন। আমাদের সকলের মনে। ছেঁটে ফেলতে পারবে না কোন বাপ কিংবা বাপের বাপেরাও। এই দেশের কলকারখানা তথা জল-জঙ্গল-জমির বুক থেকে। ছেঁটে ফেলা সম্ভব নয় নকশালবাদীদের নীতিকে। তাদের সংগ্রামী ইতিহাসকে। ছেঁটে ফেলা সম্ভব নয়, তাদের মস্তিষ্ক কে।
     
    আমার ইচ্ছা আছে- সময় সুযোগ হলে কখনো পড়াবো; এই প্রকৃত দেশপ্রেমিকদের লেখাগুলি- আমার মা কে।
     
     
    "Not only you alone. Oh! crores of mothers of lndia!
     
    We are safe and well. Your sons are all in the great batile. lf we win this batfle, there will be great sunrise—cool breeze, a great and new environment with no oppression and no repression. Recently Arundhati Roy visited Dandakaranya of Chhattisgarh, met many of your forest sons and wrote about them to let the outer world know of them. lf you wish to know our aim, mother, read it." ~ koteswar Rao (kisanji)
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় প্রতিক্রিয়া দিন