এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • সাহিত্যে যৌনতা 

    রজত দাস লেখকের গ্রাহক হোন
    ১৭ অক্টোবর ২০২২ | ২০০ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  •  
     
    পেইন্টিং বা অন্যান্য শিল্পে যৌনতা বহু প্রাচীন। বিদেশি ফিল্মও যৌনতায় বেশ সাবালক। ভারতীয় ফিল্মও ধীরে ধীরে সেই পথে হাঁটছে। কিন্তু সাহিত্যে যৌনতা!! অনেকেই ব্যাপারটিতে নাক সিঁটকান। সাহিত্যের পাতায় আদি রসাত্মক মায়াবী দ্যোতনা সৃষ্টি হলেই কিছু মানুষের প্রবল আপত্তি। যেন যৌনতা কোনো ভিন গ্রহের আঁশটে গন্ধওলা ভীতিকর প্রাণী বা পরিবেশ বা ক্রিয়াকলাপ। আশ্চর্য...! সেই ক্রিয়াকলাপ, যা থেকে তিনিও দূরে থাকেন না। নিভৃতে অতীব গোপনে সেই মাধুর্য তাঁর জীবনকেও আলোকিত করে। যে রস আকন্ঠ পান করার জন্য তিনিও তৃষিত থাকেন। অথচ সাহিত্যের পাতায় সেই রস বর্ণিত হলেই ত্রাহি ত্রাহি রব।
     
    ঋগ্বেদে দেখা যায় যমী তার যমজ ভাই যমের কাছে সঙ্গম প্রার্থনা করছে। দম্ভ নিজ বোন মায়াকে, লোভ নিজ বোন নিবৃত্তিকে, ক্রোধ নিজ বোন হিংসাকে ও কলি নিজ বোন নিরুক্তিকে বিয়ে করছে। মৎস্যপুরাণ অনুযায়ী, শতরূপা হচ্ছে ব্রহ্মার মেয়ে। কিন্তু ব্রহ্মা মেয়ের রূপে মুগ্ধ হয়ে তার সঙ্গে যৌনমিলনে লিপ্ত হয়। এই মেয়ের গর্ভে জন্ম হয় সায়ম্ভুব মনুর। এই মনু থেকেই মনুষ্য জাতির উদ্ভব।
     
        ‘যৌনতা থেকেই মানবসভ্যতার ইতিহাস। যৌনতা এমন ভয়ঙ্কর জিনিস যে মানুষ যদি যৌনতায় লিপ্ত থেকে প্রজনন না করে তবে একদিন মানবসভ্যতারই বিলুপ্তি হবে। মানবসভ্যতার বিলুপ্তি মানেই ঈশ্বরের মৃত্যু। ফলে যৌনতা এত জরুরি যে একে বাদ দিয়ে কিছুই হয় না। দর্শন, রাজনীতি, শিল্পকলা সবই।’—কথাটি আর্নেস্ট ফিশারের।
     
         প্রাচীন সাহিত্যে নগ্ন বর্ণনা এবং যৌনতা ছিল। সংস্কৃত, লাতিন, গ্রিক, ফারসি, জার্মান এমনকি আরবি সাহিত্যেও যৌনতা এবং নগ্নতা ছিল। আরব্যরজনীর গল্পগুলোতে সবাধ এবং অবাধ সব রকমের যৌনতাই আছে। সংস্কৃত সাহিত্যের জনপ্রিয় কবি জয়দেব দাসের ‘গীতগোবিন্দম’ অবলম্বনে লেখা বড়ু চণ্ডীদাসের ‘শ্রীকৃষ্ণকীর্তনে’ও যৌনতা আছে, নগ্নভাবেই আছে। এতটাই নগ্নভাবে যে, বিশ্ববিদ্যালয়ে সাহিত্যের ছাত্রদের কয়েকটি অধ্যায় পড়ানো হয় না। যেখানে বৃন্দাবনে রাধার সঙ্গে শ্রীকৃষ্ণ মিলিত হয়, জোর করে তার কাঁচুলি ছিঁড়ে ফেলে। সাহিত্যে যৌনতার কথা উঠলে সবাই যে বইটির কথা সবার আগে বলবেন সেটি হলো ‘ট্রপিক অফ ক্যানসার।’ ১৯৩৮ সালে আমেরিকায় নিষিদ্ধ হয় এ বই। বইয়ের লেখক হেনরি মিলার। তার বই নিষিদ্ধ হওয়ার পেছনে বক্তব্য ছিল, বইটিতে রয়েছে খোলামেলা যৌনকর্মকাণ্ডের বর্ণনা, অশ্লীল শব্দাবলি, তাছাড়া যৌনতা বিষয়ে সমাজের যে মানদণ্ড আছে তাকে সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছে বইটি। তো হলোটা কী? লেখকের কাজই তো স্থিতাবস্থাকে চ্যালেঞ্জ করা। হেনরি মিলার সেটি করেছেন।  
     
          সাহিত্যিক শোভা দে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন " গল্প-উপন্যাস লেখার সময় কতটা যৌন বিষয় ব্যবহার করা যাবে বা কতটা যাবে না—এমন কোনো সংবিধি কি আছে? ‘এই পর্যন্ত ঠিক আছে’, ‘এর বেশি হলে বরদাস্ত করা হবে না’, ‘এটা অশ্লীল’, ‘ওটা কামনা-উদ্দীপক’, ‘এটার প্রয়োজন ছিল না’, ‘ওটা বাণিজ্যিক’—এসব বাজে কথা।"
     
    পাশ্চাত্য দুনিয়ার কিংবা ইংরেজী সাহিত্যে যৌনতা খুব সাবলীল ভাবে আসে। যাঁরা বিদেশি সাহিত্য পড়েন, তাঁরা তাতে বেশ অভ্যস্ত। কিন্তু বাংলা সাহিত্যে যেই যৌনতার প্রসঙ্গ আসে। অমনি কিছু মানুষ "রে রে" করে ওঠেন। যাঁরা রে রে করে ওঠেন, তাঁরাই যে অমন সাহিত্য লুকিয়ে চুরিয়ে পড়েন না, এমনটা কে জানে!! এমন অনেকেই আছেন, উপরে মুখোশ পরে নিন্দায় অভ্যস্ত। আড়ালে আবডালে সেই মানুষই তাঁরই নিন্দা করা সাহিত্য হয়ত তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করছেন। হতে পারে অনেক কিছুই। আমি নিজস্ব মতামতে এটুকু বলতে পারি, যৌনতা ব্যতিরেকে জীবন নয়। তাই ভাষায় অশ্লীলতা দূরত্বে রেখে, সাহিত্যে যৌনতা এলে তা স্বাগত। আসলে বাংলা ভাষায় কতটা লিখলে তা সাবালকত্ব ধরা হবে। আর কতটা লিখলে সাবালকত্ব হারাবে। এই মাপকাঠি করার সাধ্য আমার মনে হয়, কারোরই নেই। 
    _____________
       ©রজত দাস
     
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বিপ্লব রহমান | ২০ অক্টোবর ২০২২ ০৬:০৫513019
  • ভূমিকা হিসেবে ভালই।  মূল লেখাটি আরও তথ্যবহুল চাই।  শুভ 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন